রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:১৭ পূর্বাহ্ন


শায়েস্তাগঞ্জে চরম বিপাকে নিম্ন আয়ের মানুষরা

শায়েস্তাগঞ্জে চরম বিপাকে নিম্ন আয়ের মানুষরা


শেয়ার বোতাম এখানে

কামরুজ্জামান আল রিয়াদ, শায়েস্তাগঞ্জে:

নিম্ন আয়ের লোকজন চরম বিপাকে পড়েছে।
রিকশা চালক, সিএনজি চালক, টমটমচালক, দিনমজুর, হোটেল কর্মচারী, রাজমিস্ত্রি, কাঠমিস্ত্রি এসব পেশার মানুষ খুব কষ্টের মাঝে দিনানিপাত করছে। অঘোষিত লকডাউনের কারনে নিম্ন আয়ের লোকজন কাজে যেতে পারছে না। হাতেও যা ছিল তাও শেষ।

নতুন করে রোজগার করতে না পারায় খেয়ে বেচে থাকই অনিশ্চিত হয়ে পড়ছে মানুষজনের। কথা হয় শায়েস্তাগঞ্জের দাউদনগর এলাকার গ্রামের দিনমজুর সমির হোসেনের সাথে। সারাদিন বিভিন্ন স্থানে দিনমজুরের কাজ করে আহার সমির হোসেন ও তার পরিবারের।

প্রতিদিন দিন মজুরের কাজ করে মজুরি বাবদ প্রতিদিন পেতেন ৩০০-৩৫০ টাকা। তা দিয়ে কোনরকমভাবে দিনযাপন করেন। কিন্তু করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পর বিপাকে পড়েছেন তিনি। সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক গত ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত দেশে সাধারণ ছুটি ঘোষনা করে সবাইকে ঘরে থাকার অনুরোধ জানায় সরকার।

২৫ মার্চ রাত থেকে দেশে গনপরিবহন বন্ধ হয়ে যায়। জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ২৬ মার্চ থেকে কেউ জরুরী প্রয়োজন ছাড়া বাইরে বের হচ্ছেন না। মানুষ বাড়ি থেকে বের না হওয়ায় রোজগার নেই বললেই চলে হাসান আলীর।

পেটের দায়ে রাস্তায় বের হলেও পুলিশ তাড়িয়ে দিচ্ছে।
ফলে ২ দিন থেকে আয় রোজগার নেই তার। বাসায় জমানো কিছু টাকা ছিল তা দিয়ে ২ দিন ধরে বাজার করে দিনাতিপাত করছেন।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার অলিপুরে সোনার বাংলা হোটেলের কর্মচারী সিরাজ মিয়ার সাথে কথা বললে সে জানায় এ রেষ্টুরেন্টে নিজে থাকা-খাওয়ার পাশাপাশি মায়ের জন্য গ্রামে টাকাও পাঠায় এ কিশোর।

সে প্রতিমাসে ৩৫০০ টাকা বেতন পায়। কাষ্টমাররা খুশী হয়ে যা টাকা দেয় সব মিলিয়ে প্রতিমাসে ৬ হাজার টাকার মতো হয়ে যায়। সে টাকা থেকে সে প্রতি মাসে তার মায়ের জন্য ৩ হাজার টাকা গ্রামে পাঠায়। রেষ্টুরেন্ট বন্ধ হয়ে যাওয়ায় মায়ের জন্য কিভাবে টাকা পাঠাবে তা নিয়ে দু:শ্চিন্তায় আছে।

একই ভাবে কথা হয় রিক্সা চালক জনাব আলীর সাথে। তার গ্রামের বাড়ী শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার ব্রাক্ষণডুরা ইউনিয়নের পুরাইকলা বাজারে। জনাব আলী বলেন, পেটের দায়ে রিক্সা নিয়ে বসে আছি। কোনো যাত্রী নেই। আগে ছয় থেকে সাতশ’ টাকা রোজগার করতাম।

এখন করোনা আতঙ্কে কেউ ঘর থেকে বের হয় না। আমার মতো আরও ৫/৬ জন এই পয়েন্টে বসে আছে সারাদিন ধরে। ১০০ টাকা রোজগার করতে পারিনি। কীভাবে আমাদের সংসার চলবে। এখন ছেলেমেয়েদের নিয়ে না খেয়ে মরতে হবে। সরকার যদি কোনো সাহায্য-সহযোগিতা করে তাহলে কিছুটা রক্ষা পাব পরিবার নিয়ে।

জনাব আলীর মত আরো অনেক লোক রয়েছে, যারা প্রতিদিন রিকশা, ভ্যান, অটোরিকশা, রেষ্টুরেন্ট ও দিনমজুরের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে থাকেন। ওই আয় দিয়ে তাদের প্রতিদিনের বাজার করতে হয়।
করোনা আতঙ্কে মানুষ ঘর থেকে বের হতে না পারায় তাদের আয়-রোজগার কমে গেছে। ফলে পরিবার নিয়ে এসব নিম্ন আয়ের মানুষ দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

তারা বাঁচার তাগিদে বাইরে বের হলে পুলিশের আতঙ্কে থাকেন। তার পরও তারা রাস্তায় বের হচ্ছেন জীবিকার তাগিদে। দু’দিন ধরে রাস্তায় মানুষ না থাকায় আরও বিপাকে পড়েছেন তারা। দিন শেষে কেউবা ফিরছেন খালিহাতে আবার কেউ সামান্য কিছু হাতে নিয়ে।
এ ব্যাপারে শায়েস্তাগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোজাম্মেল হক বলেন করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষা ও সচেতন করতেই এসব নিম্ন আয়ের মানুষকে ঘরে রাখতে তাদের মাঠে থাকতে হচ্ছে।

এদিকে এসব দিনমজুররা পায়নি কোন ধরণের সরকারী সহায়তা, এমনকি করোনা থেকে বাচার জন্য মিলেনি সরকারী কোন মাস্ক ও। সচেতনতার জন্য নিজেরই টাকা দিয়েই মাস্ক কিনে রিস্কা চালাচ্ছেন তারা। এ ব্যাপারে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান গাজীউর রহমান ইমরান বলেন চলমান এই সংকট কাটিয়ে উঠার জন্য সকলে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করতে হবে। আমরা উপজেলা প্রশাসন প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা আজ থেকে বিতরন শুরু করবো। নিম্ন আয়ের মানুষদের কি ভাবে ভালো রাখা সেই লক্ষে কাজ করছি আমরা।

শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার মেয়র মোঃ ছালেক মিয়া বলেন আমার পৌরসভার ২৫ ভাগ মানুষ নিম্ন আয়ের। আমি ইতিমধ্যে ওর্য়াডে ওর্য়াডে নগদ অর্থ সহায়তা প্রধান শুরু করে দিয়েছি।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুমী আক্তার বলেন জেলা প্রশাসনের চাল সহায়তা ইতিমধ্যে আমি বন্টন করেছি। আমি আরো বরাদ্ধের জন্য চেস্টা করছি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin