মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:৪০ পূর্বাহ্ন


শায়েস্তাগঞ্জে পল্লী বিদ্যুতের ভুতুড়ে বিলে গ্রাহক দিশেহারা

শায়েস্তাগঞ্জে পল্লী বিদ্যুতের ভুতুড়ে বিলে গ্রাহক দিশেহারা


শেয়ার বোতাম এখানে

কামরুজ্জামান আল রিয়াদ, শায়েস্তাগঞ্জ:

হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে পল্লী বিদুত্যের অতিরিক্ত বিলের কারণে প্রায়ই হয়রানির শিকার হচ্ছেন সাধারণ গ্রাহকরা, অনেককেই আবার গুনতে হচ্ছে জরিমানা। জানা যায়, করোনা ভাইরাসের প্রভাবে চলমান লকডাউন থাকা অবস্থায় পল্লী বিদুৎ এর লোকবল সংকট ছিল। তখনকার সময়ে করোনা শায়েস্তাগঞ্জ পল্লী বিদুৎ অফিসে বসেই অনুমান করে পুর্বের মিটারের রিডিং দেখে বিল করা হয়েছিল।

কিন্তু লকডাউন শেষ হলে ও এর বৃত্ত থেকে এখনো বের হতে পারেনি পল্লী বিদুৎ। প্রতি মাসেই অনেক গ্রাহকের ভুতুরে বিল আসে বলে খবর পাওয়া যায়। ফলে গ্রাহকরা বিলের কাগজ সাথে নিয়ে জরুরী কাজ ফেলে পল্লী বিদুৎ অফিসে গিয়ে অভিযোগ করেন। কারো কারো বিল শুধরে দেয়া হয়, আবার কারো কারো বিল জমা দেয়ার নির্দিষ্ট তারিখ শেষ হয়ে গেলে গুনতে হয় অতিরিক্ত বিলম্ব সহ জরিমানা। ভুতুড়ে বিল আসা একজন গ্রাহক শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার বিরামচর গ্রামের সৈয়দ সামছুল আহমেদ। উনার আবাসিক মিটারে আগষ্ট মাসের বিল এসেছিল ১৪৪৯ টাকা, কিন্তু সেপ্টেম্বর মাসে বিল এসেছে ২২০০০ টাকা। এ বিষয়ে

ভুক্তভোগী গ্রাহক শায়েস্তাগঞ্জ পৌরসভার বিরামচর গ্রামের সৈয়দ রুজেল আহমেদ বলেন আমার বাবার নামের মিটারে আমি বিল পরিশোধ করে থাকি। সেপ্টেম্বর মাসের বিল দেখে আমি হতবাক হয়েছি। এরকম ভুল তারা কিভাবে করে। পরে আমি পল্লী বিদ্যুত অফিসে যোগাযোগ করলে মিটার রিডার ও বিল বন্টন কারি আমার বাড়িতে এসে বিল ঠিক করে দিয়ে গেছে। কম্পিউটারে প্রিন্ট করতে ভুল হইছে বলে তারা দুঃখ প্রকাশ করে ২২ হাজার টাকা থেকে এখন বিল ১২৫০ টাকা করে দিছে। শুধু রুজেল আহমেদই নন, সম্প্রতি এভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন শায়েস্তাগঞ্জের একাধিক সাধারণ গ্রাহকরা। ফলে পল্লী বিদুৎ এর দায়িত্বশীল কর্মচারীদের যোগ্যতা নিয়ে ও প্রশ্ন তুলছেন কেউ কেউ।

এ বিষয়ে হবিগঞ্জ পল্লী বিদ্যুতের জেনারেল ম্যানেজার মোঃ মোতাহার হোসেন বলেন আসলে করোনাকালীন সময়ে আমাদের লোকবল সংকট ছিল সেকারণে কিছু সমস্যা হয়েছিল। বর্তমানে আমরা দায়িত্ব পালন করতে করোনার ভয়ডর না রেখেই নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছি। ভুতুড়ে বিল আসার কারণ জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান, আসলে যারা রিডিং লিখে আনেন হয়ত একটা ডিজিট ভুলে বেশি লিখে ফেলছেন, সেজন্য বিল বেশি আসছে, তবে যেকোনো সমস্যায় আমাদেরকে জানালে আমরা তাতক্ষণিকভাবে সমাধানের চেষ্টা করব।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin