শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৪৭ অপরাহ্ন


শায়েস্তাগঞ্জে পেশা বদল করছেন বিদেশ ফেরতরা : করোনায় ফিরতে পারছেন না কর্মস্থলে

শায়েস্তাগঞ্জে পেশা বদল করছেন বিদেশ ফেরতরা : করোনায় ফিরতে পারছেন না কর্মস্থলে


শেয়ার বোতাম এখানে

কামরুজ্জামান আল রিয়াদ, শায়েস্তাগঞ্জ:

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার কুতুবের চক গ্রামের মোফাজ্জল হোসেন। তিন মাসের ছুটি নিয়ে বাড়িতে ফিরেছিলেন সৌদি আরব থেকে। ছুটি শেষ হলেও করোনা পরিস্থিতির কারণে যেতে পারেননি। প্রায় সাত মাস বেকার ঘুরে অবশেষে ছোট একটি দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা শুরু করেছেন। তিনি সৌদি আরবের মদিনায় থাকতেন। নামি দামি একটি কোম্পানিতে কাজ করতেন ভালো বেতনে। তিনি জানান-পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সৌদিতে ফিরতে চান।

কেবল মোফাজ্জল হোসেনই না। এ উপজেলার অগণন প্রবাসী এখন অনিশ্চয়তায় অপেক্ষার দিন গুনতে গুনতে দেশেই কর্মক্ষেত্র খুঁজছেন প্রবাসীরা। জীবনের তাগিদে ফের পবাসে ফেরার ইচ্ছা থাকলেও অনিশ্চিত আগামীর কথা ভেবেই কেউ ব্যবসা, চাকরী কিংবা চাষাবাদে মনযোগী হচ্ছেন। আবার কেউ অসহায়ত্বের চাপ মাথায় নিয়ে দিনমজুরের কাজ বেছে নিয়েছেন।

নিজেদের আপন মানুষদেরকে ছেড়ে উন্নত জীবন-জীবিকার তাগিদে মানুষ এক দেশ থেকে আরেক দেশে গিয়ে কাজ করে। বিদেশে কাজ করে রেমিটেন্স পাঠিয়ে প্রবাসীরা দেশের সমৃদ্ধিতে রাখেন বিশেষ অবদান। কিন্তু করোনাভাইরাস ত্রিমুখী সঙ্কটে ফেলে দিয়েছে এসব প্রবাসীদের। অনেকেই বুঝে উঠতে পারছেন কি সিদ্ধান্ত নিবেন। লকডাউনে অলস সময় কাটিয়ে অনেকেই আবার ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্ঠা করে যাচ্ছেন। কেউবা আবার দেশ ছেড়ে বিদেশে পাড়ি দেয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছেন, আবার কেউ কেউ প্রবাস জীবন ভুলে দেশে কিছু একটা করার চেষ্টা করে চলছেন।

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার ব্রাক্ষণডুরা ইউনিয়নের রাজিব মিয়া ফিরেছিলেন আবুদাবি থেকে। করোনার কারণে বাড়িতে থাকতে থাকতে ছুটির মেয়াদ শেষ হয়েছে। তিনি লকডাউনে ছুটিতে বিয়েও করেছেন। তিনি আবার বিদেশে ফেরার জন্য চেষ্ঠা করছেন।

একই উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের নুরপুর গ্রামের বাবলু মিয়া কাতার থেকে ছুটিতে এসে বিপাকে পড়েছেন। তিনি ও আবার প্রবাসে ফেরার জন্য চেষ্টা করতেছেন।

ব্রাক্ষণডুরা গ্রামের জোবায়ের আহমেদ সিঙ্গাপুর থেকে ছুটি নিয়ে বাড়ি ফিরেছিলেন। করোনা পরিস্থিতির কারণে যেতে পারেননি। আর কর্মস্থলে ফেরারও ইচ্ছে নেই তার। অলিপুর বাজারে

তবে আপাতত পেশা যাই হোক পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপে ফের প্রবাসে ফিরবেন, রেমিটেন্স পাঠিয়ে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভূমিকা রাখবেন এবং পরিবারকে স্বাভাবিক জীবনের নিশ্চয়তা প্রদান করতে পারবেন এমন প্রত্যাশা সকল প্রবাসীদের।

উপজেলার শৈলজুড়া গ্রামের তানিন আহমেদ মালয়েশিয়া ছুটিতে বাড়ি ফিরেছিলেন। করোনাপরিস্থিতির কারণে কর্মস্থলে ফেরা অনিশ্চিত ভেবে দেশেই নিজে উদোক্তা হয়ে কর্মস্থান তৈরি করেছেন। আপাতত দোকানে ব্যবসা শুরু করেছেন। তবে করোনা সংকট কাটিয়ে সকল কিছু স্বাভাবিক হলে সরকারের সহযোগিতা থাকলে আবার প্রবাসে নিজের কর্মস্থলে ফিরতে পারবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মিনহাজুল ইসলাম জাহেদ বলেন সরকার প্রবাসীদের ক্ষেত্রে খুবই আন্তরিক। প্রবাসীদের জন্য প্রধানমন্ত্রী প্রণোদনা ও ঘোষণা করেছিলেন। সবকিছু সাভাবিক হলে অবশ্যই বিদেশ ফেরতদেরকে তাদের কর্মস্থলে পাঠানোর জন্য সহযোগিতা করা হবে।

আমি নতুন জয়েন করেছি,ঠিক কতজন প্রবাসী শায়েস্তাগঞ্জে লকডাউনে আটকা আছেন আমার কাছে এই মুহূর্তে তার কোন তালিকা নেই। তবে সর্বশেষ একজন আমার কাছে এসেছিলেন, যিনি সিলেটে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন এ ছিলেন যার ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছিল।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin