বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০১:৫২ পূর্বাহ্ন



শায়েস্তাগঞ্জে বয়লার মুরগী খামারি হাকিমের সফল হয়ে উঠার গল্প

শায়েস্তাগঞ্জে বয়লার মুরগী খামারি হাকিমের সফল হয়ে উঠার গল্প


কামরুজ্জামান আল রিয়াদ, শায়েস্তাগঞ্জ:

শায়েস্তাগঞ্জের অনেকেই বয়লার মুরগীর খামার দিয়ে স্বাবলম্বী হয়ে উঠেছেন। স্বল্প পুজি নিয়েই শুরু করা যায় এই ব্যবসা, তাই এই ব্যবসাতে অনেকেই ঝুকছেন।
খোজ নিয়ে দেখা যায়, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার চরনুরআহমদ, বাগুনিপাড়া, সুদিয়াখলা, বিরামচর, ব্রাক্ষণডুরা, সুরাবই, পুরাসুন্দা, নুরপুর, নসরতপুর, শায়েস্তাগঞ্জে প্রায় শতাধিক মানুষ প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে এই ব্যবসায় জড়িত।

বয়লার মুরগীর খামার দিয়ে সফল হয়ে উঠা একজন সফল উদোক্তা আব্দুল হাকিমের সাথে। তিনি শোনালেন তার এই পেশায় উঠে আসার গল্প। আব্দুল হাকিম বানিয়াচং এর ৪ নং উত্তর পূর্ব ইউনিয়নের বাসিন্দা। তার ৩ ছেলে ও ২ মেয়ে রয়েছে। তিনি শায়েস্তাগঞ্জের সুরাবই গ্রামে বিয়ে করার সুবাধে এখন এখানেই ব্যবসা বাণিজ্য করতেছেন।

প্রায় ৭-৮ বছর আগে তিনি বানিয়াচংয়ের গ্যানিংগঞ্জ বাজারে ২ টি মুরগীর খামার দিয়েছিলেন, তারপর আস্তে আস্তে তার দিন বদলাতে থাকে।
প্রতি মাসে এক চালান বিক্রিতে লাভ আসে ১০-১৫ হাজান টাকা।

সর্বশেষ ৫ বছর আগে তিনি বিয়ে করে শায়েস্তাগঞ্জের সুরাবই গ্রামে বসবাস করা শুরু করেন। তার শশুরের ২ শতক জায়গায় তিনি একটি মুরগীর খামার দেন। পাশাপাশি এই মুরগী বিক্রি করার জন্য অলিপুর বাজারে মা বাবার দোয়া পোল্ট্রি হাউস নামে একটি দোকান ও চালান।

বর্তমানে তিনি মাসে ৩০-৩৫ হাজার টাকা ইনকাম করতেছেন। বর্তমানে তার খামারে ৬০০ টি বাচ্ছা মোরগ আছে, তিনি জানান, মে মাসের ৫ তারিখ ৫০ গ্রাম ওজনের বাচ্চা মোরগ তিনি ৩৬ টাকা দরে কিনে এনেছিলেন, এখন মুরগীর ওজন এককেজি। এককেজি ওজন হতে সময় লেগেছে মাত্র ২৫ দিন। আরো একমাস গেলে প্রতিটি মুরগী প্রায় ২ থেকে আড়াই কেজি হয়ে উঠবে।

তিনি বলেন, এই ৬০০ টি মুরগীর পেছনে তার যাবতীয় খরচ হয়েছে ৯৫০০০ টাকা, মুরগীর দাম ভাল থাকলে তিনি ২০০০০ টাকা লাভ করতে পারবেন।

তার এই ব্যবসায় আসার পেছনে তার মামা মতিউর রহমানের অবদান সবচেয়ে বেশি। তবে কখনো কখনো বাচ্চা মুরগী মারা গেলে লোকসান ও গুনতে হয়। আব্দুল হেকিম বউ বাচ্চা নিয়ে এখন সুখেই আছেন।
তবে তিনি এই ব্যবসা আরো বড় পরিসরে বরতে চান, সেজন্য তিনি লোনের জন্য পূবালী ব্যাংকে কারেন্ট একাউন্ট ও করেন, কিন্তু এখনো লোন পাননি।

বয়লার মুরগীর খামার দিয়ে লাভবান হয়েছেন এমন তালিকায় আরো আছেন,পুরাসুন্দা গ্রামের শেখ সোহাগ, খোকন তালুকদার, মন্নান মিয়া, রাসেল মিয়া সহ আরো অনেকেই।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা রমপদ দে বলেন, আমাদের সরকারিভাবে সহায়তার জন্য রেজিষ্ট্রেশন করতে হয়, রেজিষ্ট্রেশন করলে আমরা আব্দুল হেকিমকে সরকারি কোন উদোক্তা লোন দেয়ার চেষ্টা করব। শায়েস্তাগঞ্জ এ মোট কতগুলো খামার আছে জিজ্ঞেস করলে তিনি জানান, আমি নতুন জয়েন করেছি, আমি এসে এ পর্যন্ত ৩টি রেজিষ্ট্রেশন করেছি, আমাদের ডাটাবেইজ এর কাজ চলতেছে সবাইকে এর আওতায় আনা হবে।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin