বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:২৭ পূর্বাহ্ন


শায়েস্তাগঞ্জ-বাল্লা রেলপথ অস্তিত্ব বিলীনের পথে

শায়েস্তাগঞ্জ-বাল্লা রেলপথ অস্তিত্ব বিলীনের পথে


শেয়ার বোতাম এখানে

কামরুজ্জামান আল রিয়াদ, শায়েস্তাগঞ্জ:

১৯২৮ সালে ব্রিটিশ সরকার হবিগঞ্জ জেলা শহর থেকে শায়েস্তাগঞ্জ জংশন হয়ে বাল্লা সীমান্ত পর্যন্ত প্রায় ৫২ কিলোমিটার রেল লাইন স্থাপন করে। তখনকার সময়ে হবিগঞ্জের চাবাগানের চা-পাতা রপ্তানি ও বাগানের রেশনসহ, জ্বালানী তেলসহ আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র আমদানি করার একমাত্র মাধ্যম ছিল এ রেলপথ।

বর্তমানে অস্তিত্ব বিলীনের পথে হবিগঞ্জ-শায়েস্তাগঞ্জ বাল্লা রেলপথটি। যে স্থান দিয়ে বয়ে গেছে সেখানে এখন রেললাইনের স্লিপারের ছিটেফোটা ও নেই।সেখানে এখন বাইপাস সড়ক নির্মিত করা হয়েছে।

খোজ নিয়ে জানা যায়, স্বাধীনতার পর এরশাদ সরকারের প্রথম দিকে এ লাইনটি সর্বপ্রথম অঘোষিতভাবে বন্ধ হয়। পরে আবারো চালু করা হয়। এরপর ১৯৯১ ও ১৯৯৬ এবং সর্বশেষ ২০০৩ সালে এ লাইনে ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

প্রায় ১৭ বছর ধরে হবিগঞ্জ-শায়েস্তাগঞ্জ-বাল্লা রেলপথ বন্ধ হয়ে আছে । যেখানে পরিত্যক্ত রেল পথটির সাথে জড়িয়ে আছে শায়েস্তাগঞ্জ জংশনের নাম।

রেলপথটি আনুষ্ঠানিকভাবে বিলুপ্ত হওয়ার সাথে সাথে শায়েস্তাগঞ্জ জংশন নামটি মুছে গিয়ে স্টেশন লেখা হবে। তাই জশংনের ঐতিহ্য রক্ষায় দ্রুত এ রেলপথ পুনরায় চালুর দাবি করে আসছেন স্থানীয়রা দীর্ঘদিন ধরেই।

অন্যদিকে, তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, একশ্রেণির মানুষ এসব জমি দখল করে ইমারত নির্মাণ করছে। চাষ করছে নানা রকম ফসল। বিগত ২০০৫ সালের দিকে সড়ক করার অজুহাতে হবিগঞ্জ বাজার থেকে শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে জংশন পর্যন্ত প্রায় ১৫ কিলোমিটার রেলপথ তুলে ফেলা হয়।

বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলের অঘোষিতভাবে বন্ধ হওয়ার পর থেকেই একটি প্রভাবশালী মহল রেলের বিশাল সম্পদের দিকে নজর দেয়। পরে আবার শায়েস্তাগঞ্জ থেকে হবিগঞ্জ পর্যন্ত রেল লাইনটি উঠিয়ে বাইপাস সড়ক নির্মাণ করা হয়।

তার সাথে শায়েস্তাগঞ্জ-বাল্লা রেল লাইনের প্রায় ৩৬ কিলোমিটার সড়কের রেলের শিক, পাথর, সিগন্যাল, তার, নাটবল্টু ও ওজন মাপার যন্ত্রপাতি এবং ৭টি স্টেশনের অবকাঠামোসহ কোটি কোটি টাকার মালামাল লুটপাট শুরু হয়। সেই থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৯৫ ভাগ লুটপাট হয়েছে। কিন্তু লুটপাটকারীদের নির্দিষ্ট কোন তালিকা নেই ।তারা এখনো ধরাছোয়ার বাহিরেই রয়ে গেছেন।

রেলপথমন্ত্রী থাকাকালীন সময়ে প্রয়াত সুরঞ্জিত সেন গুপ্ত শায়েস্তাগঞ্জে জনসভায় ঘোষণা দিয়েছিলেন এ রেলপথ আবারো চালু করা হবে।
বাস্তবে এখনও চালু হয়নি। এ পথে ট্রেন চালু হলে হাজার হাজার মানুষের ব্যবসা বাণিজ্যে প্রাণ ফিরে পাবে সেই সাথে এলাকার ব্যবসা-বাণিজ্যে প্রসার ঘটবে।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার এবিএম সাইফুল ইসলাম বলেন, বাল্লা রেলপথ আবার চালু হবে কিনা এটি রেলমন্ত্রণালয় বলতে পারবে, আর রেলের মালামাল চুরির বিষয়টি পি ডব্লিউ আই দেখে আমরা এ বিষয়ে অবগত নই ।

এ ব্যাপারে শায়েস্তাগঞ্জ রেলওয়ে জংশনের উর্ধ্বতন উপ-প্রকৌশলী (পথ) মোঃ সাইফুল ইসলাম বলেন, আপাতত বাল্লা রেলপথ চালু হওয়ার কোন সম্ভাবনা নেই। বাল্লা রেলপথের মালামাল চুরি হবার বিষয়ে আপনারা কি পদক্ষেপ নিয়েছেন প্রশ্ন করলে তিনি জানান, আমি এখানে নতুন জয়েন করেছি। আগে কি হয়েছিল আমি সে বিষয়ে অবগত নই। আমি জয়েন করার পর, এখন চুরি হচ্ছে না। চুরি রোধে আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি।  কখনো এ রাস্তা পুনরায় সংস্কার হয়, তবে ট্রেন চালু হতে পারে।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ তালুকদার ইকবাল বলেন ট্রেন চালাচল বন্ধ থাকার সুবাধে অসাধু লোকজন রেল লাইনের শিক,স্লিপার, নাট বল্টু সব খোলে নিছে আর জমি ও দখল হয়ে গেছে।

শায়েস্তাগঞ্জ-বাল্লা রেলপথটি চালু হলে এলাকার মানুষের ব্যবসা বানিজ্যের পথ সুগম হবে। বাল্লা সীমান্তে স্থলবন্দর করার জন্য ইতিমধ্যেই সরকার প্রদক্ষেপ নিচে। তাই শায়েস্তাগঞ্জ-বাল্লা রেলপথটি সংস্কার করে আবার ট্রেন চালুর দাবী জানাই।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin