সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:১০ পূর্বাহ্ন


শিকারীদের ভয়ে আতঙ্কিত হাকালুকির অতিথি পাখি

শিকারীদের ভয়ে আতঙ্কিত হাকালুকির অতিথি পাখি


শেয়ার বোতাম এখানে

জামিল আহমদ, হাকালুকি থেকে ফিরে
শিকারীদের ভয়ে এশিয়ার বৃহত্তম হাওর হাকালুকিতে দলবেঁধে অবস্থান করতে পারছে না অতিথি পাখিরা। বিচ্ছিন্নভাবে হাওরের বিভিন্ন বিলে ওড়াউড়ি করছে বিভিন্ন প্রজাতির অতিথি পাখি। ফলে ভরা মৌসুমেও এশিয়ার বৃহত্তম মিঠা পানির জলাশয়ে আগের মত দেখা মিলছে না অতিথি পাখির। প্রতিবছর শীতের শুরুতেই অতিথি পাখির কলকাকলিতে হাকালুকি হাওর মুখরিত হয়ে থাকলেও এবার ভরা মৌসুমেও পাখির সংখ্যা একেবারে কম। তবে বিভিন্ন প্রজাতির পাখি আসলেও শিকারীদের কারণে সেগুলোও ছত্রভঙ্গ হয়ে ওড়াউড়ি করছে।

 

স্থানীয়দের অভিযোগ, শিকারীদের কারণে প্রতিবছরই কমছে অতিথি পাখির সংখ্যা। তাছাড়া হাওরের অসংখ্য বিলের গভীরতা কমে যাওয়া, ঝোপঝাড় ধ্বংস হওয়া ও মৎজীবিদের অবাধভাবে মাছ শিকারের কারণে পাখির আশ্রয়স্থল ও খাবার কমে যাচ্ছে। ফলে প্রতিবছরই কমছে অতিথি পাখি সংখ্যা। এশিয়ার বৃহত্তম এই হাওরের জীববৈচিত্র রক্ষায় এখনই পদক্ষেপ নেওয়া আহবান জানান তারা।

এশিয়ার বৃহৎ মিঠাপানির জলাশয় হাকালুকি হাওরের এর আয়তন ১৮ হাজার ১১৫ হেক্টর। সিলেট ও মৌলভীবাজার জেলার পাঁচটি উপজেলাজুড়ে এর বিস্তৃতি। এর মধ্যে মৌলভীবাজারের বড়লেখা উপজেলায় ৪০ শতাংশ, কুলাউড়া উপজেলায় ৩০ শতাংশ, সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় ১৫ শতাংশ, গোলাপগঞ্জ উপজেলায় ১০ শতাংশ ও বিয়ানীবাজার উপজেলায় ৫ শতাংশ অংশ রয়েছে। এ হাওরে ছোট-বড়-মাঝারি সব মিলিয়ে প্রায় ২৩৮টি বিল রয়েছে। শীত মৌসুমে হাওরের ছকিয়া, নাওগা, পিংলা, ঘরকুঁড়ি, বাইয়া, হাওরখাল, গজুয়া, রঞ্চি ও কালাপানি জলাশয়ে অতিথি পাখির আধিক্য বেশি থাকে।

সরেজমিনে হাওরের বিভিন্ন বিল ঘুরে তেমন পাখির দেখা না মিললেও ঘরকুঁড়ি ও ছকিয়া বিলে কিছু অতিথি পাখি দেখা গেছে। বিলের যে প্রান্তে মানুষের আনাগোনা কম সেখানেই নানা রঙের পাখি অবস্থান করছে। দুপুরের চেয়ে সকাল ও বিকেল বেলা সবচেয়ে বেশি পাখি দলবেঁধে ছুটাছুটি করছে। কিছু পাখি মাছ শিকার করে খাচ্ছে। অনেক পাখি হাওরের বিভিন্ন জলাশয়ের পানিতে নানা কায়দায় ওড়াউড়ি করছে।

স্থানীয়রা জানান, এবার হাওরে বালিহাঁস, ভুতিহাঁস, গিরিয়া হাঁস, ল্যাঞ্জা হাঁস, গুটি ইগল, কাস্তেচড়া, কুড়া ইগল, সরালি, পানভুলানি, কালিম, টিটি, পেডিসহ অন্তত ১৫-২০ প্রজাতির পরিযায়ী পাখি এসেছে। তবে এর মধ্যে বালিহাঁস ও ভুতিহাঁসের সংখ্যা বেশি। তাছাড়া হাকালুকির বিভিন্ন বিলে সাদা বক, কানি বক, পানকৌড়ি, চিল, বাজ পাখিসহ দেশীয় প্রজাতির বিভিন্ন পাখি রয়েছে।
স্থানীয়রা আরো জানান, হাওরের জুড়ি উপজেলার অংশে শিকারীদের কারণে অতিথি পাখি ভয় পেয়ে চলে যাচ্ছে। তাছাড়া হাওরের বিভিন্ন বিলে মাছ ধরার কারণে পাখিদের খাবার কমে গেছে। ফলে কিছু দেশীয় পাখি আগেরমত খাবার পাচ্ছে না। এতে পাখির সংখ্যা দিন দিন কমে যাচ্ছে।

হাওরের ছকিয়া বিলে দেখা হয় মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার সাদিপুর গ্রামের মৎস্যজীবি তাজুল ইসলামের সাথে। তিনি জানান, প্রতিবছরই পাখি কমে যাচ্ছে। একসময় পাখির কারণে আমরা মাছ ধরতে পারতাম না। কিন্তু এখন সেই চিত্র বদলে গেছে। পাখি কমে যাওয়ায় পর্যটকের সংখ্যাও কমে গেছে।
একই উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ গ্রামের মৎস্যজীবি চন্দন বিশ্বাস বলেন, হাওরের দুই শতাধিক বিলের মধ্যে হাতে গোনা কয়েকটি বিলে পাখি অবস্থান করছে। তাও যেখানে মানুষের আনাগোনা কম সেখানে বিচ্ছিন্নভাবে পাখি ওড়াউড়ি করছে। তিনি বলেন, দিন দিন হাওরের বিলগুলোর গভীরতা কমছে। ফলে আগের মত মাছও মিলছে না। আর মাছ না থাকায় দেশীয় পাখিদের খাবার কমে গেছে।

ওই উপজেলার মীরশংকর গ্রামের আরেক মৎস্যজীবি মো. হোসেন আহমদ বলেন, শীতের শুরুতেই দলবেঁধে পাখিরা আসতো। এখন ভরা মৌসুমেও সে পরিমানে পাখি আসছে না। তবে হাওরের মাঝ অংশের নাওগা, চকিয়া, পিংলা ও ঘরকুঁড়িসহ কয়েকটি বিলে এখন পাখি আছে। পাখি গুলো আগের মতো দলবেধেঁ অবস্থান করছে না।
কুলাউড়া উপজেলার হাওরপাড়ের বাসিন্দা ও কলেজ শিক্ষক মতিউর রহমান বলেন, এশিয়ার বৃহত্তম মিঠাপানির হাওরে একসময় অতিথি পাখির অভয়ারণ্য ছিল। আগের তুলনায় পাখি অনেক কম। হাওরের বড়লেখা অংশে পাখি শিকারের কারণে সে অংশে এখন পাখি অবস্থান করে না। নিরাপদ হিসেবে হাওরের মাঝে কয়েকটি বিলে পাখিরা অবস্থান করছে। সেখানেও মৎস্যজীবিদের কারণে নিরাপদ আশ্রয় নিতে পারছে না।

হাওরে পর্যটকও আগের চেয়ে অনেক কমে গেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, শীত মৌসুমে পর্যটকরা আসেন পাখি দেখতে। কিন্তু মানুষের হিং¯্র থাবায় হাওর পাড়ের কাছাকাছি স্থানে পাখি আসছে না। দেখতে হলে যেতে হয় হাওরের মাঝখানে। কিন্তু সেখানে গিয়ে আগের মত পাখি দেখতে না পেয়ে পর্যটকরা হতাশ হয়ে আসেন। ফলে অনেক পর্যটক কষ্ট করে হাওরের মাঝ বিলে যেতে চান না।
এ ব্যাপারে বাংলাদেশ বার্ডস ক্লাবের সহ সভাপতি তারেক অনু জানান, হাকালুকিতে মূলত শীতের দেশের পাখিগুলো আসে। কিন্তু এখানে পাখির থাকার জায়গা নেই। কৃষি জমির জন্য হাওরের সব ঝোপঝাড় কেটে সাবাড় করা হচ্ছে। এটা পাখির জন্য খুবই ক্ষতিকর। সেজন্য পাখি আসছে না।

তিনি বলেন, হাকালুকির একটি অংশে বিষ দিয়ে পাখি শিকার করা হচ্ছে। এই পাখি গুলো যারা নিধন করছে তারা খাচ্ছে না। কিন্তু বিভিন্ন অঞ্চলের পর্যটকদের কাছে এগুলো বিক্রি কওে দেওয়া হচ্ছে। এটা মানুষের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাছাড়া সিলেটের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পাখির মাংস দিয়ে খাবারের একটা রেওয়াজ থাকায় হাওর থেকে একটি শ্রেণির মানুষ নিয়মিত পাখি শিকার করে থাকে। ফলে পাখিরা ভয় পেয়ে বিচ্ছিন্নভাবে অবস্থান করছে।

তারেক অনু আরো বলেন, পাখি আমাদের ক্ষতি করে না। বরং তারা আমাদের পরিবেশের জন্য উপকারী। কিন্তু হাকুলকিতে কৃষি জমি তৈরি করতে কেমিক্যাল ব্যবহার করে হাওরে পানি নষ্ট করা হচ্ছে। এর প্রভাব পাখির উপর পড়ছে। যা আমাদের পরিবেশেরও ক্ষতি হচ্ছে। এ ব্যাপারে সকলকে আরো সচেতন হওয়ার আহবান জানান তিনি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin