শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৯:২৫ অপরাহ্ন

শিক্ষকদের ‘সুপারম্যান’ হতে হবে

শিক্ষকদের ‘সুপারম্যান’ হতে হবে


শেয়ার বোতাম এখানে

অহী আলম রেজা : হারুন স্যার। আলোকিত মানুষ-স্বপ্নদ্রষ্টা। সিলেট অঞ্চলে এক পরিচিত নাম। শিক্ষকের শিক্ষক তিনি। এ অঞ্চরে প্রায় সকল প্রতিষ্ঠানে তাঁর ছাত্ররা স্বমহিমায় ভাস্বর। প্রফেসর হারুনুর রশীদ মূলত শিক্ষক।

সিলেটের বিভিন্ন কলেজে প্রায় তিন যুগ পড়িয়েছেন। সাহিত্যের বিভিন্ন অনুসঙ্গ তাঁর চেনা। তিনি মনে করেন ক্লাসে পড়ানোটাই তাঁর জীবনের শ্রেষ্ট সময়। ২০১৬ সালের মার্চে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের সিলেট অঞ্চলের পরিচালক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়।

জাতীয়করণের বিশাল কর্মযজ্ঞ তিনি সম্পন্ন করছেন। আর চার মাস পরে তিনি অবসরে যাচ্ছেন। অন্যান্য বিভাগে যেখানে শিক্ষকদের বিভিন্নভাবে হয়রানি করা হয়েছে সিলেট অঞ্চলে প্রফেসর হারুনুর রশীদ ছিলেন শিক্ষকবান্ধব। বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান তদারকি করেছেন। অনিয়ম ধরে ভুল শোধরে দিচ্ছেন।

শিক্ষাক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়া এলাকায় বিশেষ নজর দিয়ে পরামর্শ দিচ্ছেন। ১ ফেবব্রুয়ারি শনিবার তিনি এসেছিলেন বালাগঞ্জ সরকারি কলেজ পরিদর্শনে। এ সময় আলাপচারিতায় তিনি জন্ম, শৈশব, পড়াশোনা, শিক্ষক হিসেবে দীর্ঘ অভিজ্ঞতা ও সবশেষে প্রশাসনে কাজ করার অভিজ্ঞতার কথা জানান।

প্রফেসর হারুনুর রশীদ ১৯৬১ সালে মৌলভীবাজার সদর উপজেলাার আথানগিরি গ্রামের এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। তিনি গ্রামের স্কুল থেকে প্রাথমিক শিক্ষা সম্পন্ন করেন। ১৯৭৬ সালে দিনারপুর উচ্চবিদ্যালয় থেকে এসএসসি ও ১৯৭৯ সালে মৌলভীবাজার কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। ১৯৮২ সালে এমসি কলেজ থেকে ইংরেজি বিষয়ে ¯স্নাতক ও ১৯৮৩ সালে চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

১৯৮৬ সালে চুনারুঘাট কলেজ থেকে অধ্যাপনা শুরু করেন। ১৯৯৩ সালে সিলেট সরকারি কলেজ, ২০০৫ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত এমসি কলেজে অধ্যাপনা করেন। ২০১২-২০১৩ সালে সুনামগঞ্জ সরকোরি কলেজে এবং ২০১৩ সালের জুলাই মাসে আবার এমসি কলেজে ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৬ সালের ৬ মার্চ থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগে সিলেট অঞ্চলের পরিচালকের দায়িত্ব পালন করছেন।

দীর্ঘ শিক্ষক জীবনের অভিজ্ঞতার কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ক্লাসে পড়ানোর সময়টাই আমার জীবনের সেরা সময়। কখনো আমার ছাত্রদের ঠকানোর চিন্তা করিনি, ফাঁকি দেইনি। অবসর যাপনের পাশাপাশি সুযোগ পেলে তিনি আবারো শিক্ষার উন্নয়নে কাজ করার আগ্রহের কথা জানান।

তিনি বলেন, শিক্ষকতা মহান পেশা, শিক্ষকরা মানুষ গড়ার কারিগর। এইটা অনেকের কাছে ফাঁকা বুলি মনে হলেও- এটাই সত্য। মহান পেশার মর্যাদা ধরে রাখতে হবে। নৈতিকতার জায়গাটা ঠিক রাখতে হবে। নীতি আদর্শ ধরে রাখতে খুব কষ্ট করতে হয় না। একটু লোভ সংবরণ করতে পারলেই সম্ভব। আমাদের উদ্দেশ্য কি ? আলো ছড়ানো, সমাজকে আলোকিত করা। মূলত আমরা সবাই সত্যিকার অর্থে সমাজের জন্য কিছু করতে চাই।

আমাদের সময়ের শিক্ষকদের আর্থিক অবস্থা আরো খারাপ ছিল। খালি পায়ে, লুঙ্গি পড়ে আসতেন। একটি জামা দিয়ে সপ্তাহ পার করতেন। খেয়ে না খেয়ে থাকতেন। সারাদিন পড়িয়ে হেঁটে হেঁটে বাড়ি ফিরতেন। তারপরও তারা নীতিবান ছিলেন। অন্যায়ের সাথে কখনো আপোস করেনন্ ি।
আমার শিক্ষকদের এখনো আমি খোঁজ নেই, তারাও আমার খোঁজ নেন। একজন আছেন কয়েক দিন পর পর আমার অফিসে চলে আসেন। না আসলে আমি খোঁজ নেই।
আমাদের শিক্ষকরা আমাদের তৈরি করেছেন। আমরা কি আমাদের ছাত্রদের তৈরি করতে পারছি ?। শিক্ষকদের ‘সুপারম্যান’ হতে হবে। ছাত্ররা শিক্ষককে আদর্শ মানবে। যে আদর্শ তাকে শীর্ষ থেকে শীর্ষে নিয়ে যাবে। মানুষের অর্থনৈতিক উন্নতিতে শিক্ষার একটা বিরাট অবদান।
জজ বার্নার্ড শ’র ‘ম্যান এন্ড সুপারম্যান’ নাটকের উদ্ধৃতি দিয়ে তিনি বলেন, একজন মানুষ আরেকজন মানুষকে অতিক্রম করার চেষ্টা করছে। এটাই চিরন্তন। আমরা চাই আমাদের সন্তানরা আরও মেধাবী হোক, আরও উন্নত জীবন যাপন করুক। তারা যদি কম মেধাবী হয় তাহলে দেশের উন্নয়ন থেমে যাবে, আমাদের মত মেধাবী হলে দেশ স্থিতিশীল থাকবে আর আমাদের চেয়ে বেশি মেধাবী করতে পারলে আর কিছু লাগবে না। দেশ এমনিতেই এগিয়ে যাবেক।

আমরা একটা প্রতিযোগিতামূলক সময়ে বাস করছি। এ প্রজন্ম যাতে প্রতিযোগিতায় এগিয়ে যেতে পারে তার জন্য সবাইকে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin