সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:০৮ পূর্বাহ্ন


শিল্পোন্নোত আদর্শ উপজেলা গড়তে চাই

শিল্পোন্নোত আদর্শ উপজেলা গড়তে চাই


শেয়ার বোতাম এখানে

নবীন সোহেল: দক্ষিণ সুরমা সিলেট জেলার একটি শিল্পোন্নোত উপজেলা। এই উপজেলার টানা দ্বিতীয়বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ আবু জাহিদ। উপজেলাকে সার্বিক উন্নয়নে বিশেষ পরিকল্পনা রয়েছে তাঁর। উপজেলার গ্রামীণ রাস্তার উন্নয়ন, প্রাথমিক শিক্ষা, নারী শিক্ষা, স্বাস্থ্যখাতের উন্নয়ন ও শিক্ষিত যুব সমাজের জন্য কর্মসংস্থান তৈরি করে উপজেলাকে একটি উন্নত শিল্পোন্নয়নের আদর্শ উপজেলা গড়তে চান তিনি।
দৈনিক শুভ প্রতিদিনের সাথে একান্ত সাক্ষাতকালে তাঁর বিশেষ পরিকল্পনাগুলোর কথা জানান দক্ষিণ সুরমা উপজেলা চেয়ারম্যান আবু জাহিদ।
আবু জাহিদ শুভ প্রতিদিনকে জানান, দক্ষিণ সুরমাকে নেতৃত্বহীন করার হীন প্রচেষ্ঠায় লিপ্ত রয়েছে আওয়ামী রীগ নামধারী একটি চক্র। আগামীতে দালাল নির্ভর রাজনীতি প্রত্যাখ্যান করে উপজেলাকে একটি স্বচ্ছ নেতৃত্বের মাধ্যমে সততার রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সোনার বাংলা গড়ার আন্দোলনে তাঁর অগ্রণী ভূমিকা থাকবে বলে জানান তিনি। আবু জাহিদ বলেন, বর্তমানে আওয়ামী লীগের ত্যাগী নেতাদের দেখতে পাচ্ছেন না। এখন শুধু হাইব্রিড ও বহিরাগতরা দলে ভীড়ে জামায়াত বিএনপির আদর্শকে প্রতিষ্ঠা করতে চাচ্ছে। এদেরকে বাদ দিয়ে তৃণমূলের ত্যাগী নেতাদের নিয়ে উপজেলার রাজনীতিতে তিনি সক্রিয় ভূমিকা রাখবেন বলে জানালেন।
তিনি বলেন, আগামী দিনে দক্ষিণ সুরমা উপজেলায় সকল অবকাঠামো নির্মাণ, বেকার সমস্যা দুরিকরণ, শিক্ষার মানোন্নয়নে ও সরকারের বরাদ্দকৃত উন্নয়ন প্রকল্পে সম-বন্টনসহ সকল উন্নয়ন কাজ ন্যায্যতার ভিত্তিতে করব। উন্নয়ন কর্মকান্ড বাস্তবায়িতও হবে সরকারি ও স্থানীয় সাংসদের সহযোগীতা পেলে। বর্তমানেও উপজেলায় তাঁর বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প চলমান রয়েছে বলেও উল্ল্যেখ করেন তিনি।
এক প্রশ্নের জবাবে আবু জাহিদ বলেন, তাঁর রাজনৈতিক দূরদর্শিতা ও সততার রাজনীতির প্রতি অনুপ্রাণিত হয়ে দলীয় নেতাকর্মীরাও গত একাদশ সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৩ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হিসেবে স্বপ্ন দেখেছিলেন। আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে সর্বস্তরের মানুষের সহযোগিতা, ভালবাসা ও দুআ পেলে এ ধারা অব্যাহত রাখতে সিলেট-৩ আসনের নৌকার প্রার্থী হব। তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে লালন করে আজীবন গরীব দু:খী মানুষের সেবায় নিজেকে উৎসর্গ করতে চান।
মোহাম্মদ আবু জাহিদ ১৯৫৯ সালে দক্ষিণ সুরমার জালালপুর ইউনিয়নের কাদিপুর গ্রামে একটি সভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মরহুম এমএ মান্নান ব্রিটিশ আমলে ফেঞ্চুগঞ্জ সার কারখানার কর্মকর্তা ছিলেন। পরে তিনি যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমান। আবু জাহিদ ছোট বেলা থেকেই চঞ্চল ছিলেন। স্কুলজীবনে জড়িত হন ছাত্র রাজনীতির সাথে। ১৯৭৭ সালে সক্রিয়ভাবে ছাত্রলীগের রাজনীতি শুরু করেন। ১৯৭৯ সালে এসএসসি পাশ করার পর কলেজে ভর্তি হয়ে সর্বপ্রথম দক্ষিণ সুরমায় ছাত্রলীগ গঠন করেন। তিনি ছিলেন দক্ষিণ সুরমা ছাত্রলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক। এরপর মদন মোহন কলেজে ছাত্র সংসদে নির্বাচন করেন। পরবর্তিতে এমসি কলেজে ছাত্র সংসদে সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে নির্বাচিত হন। দায়িত্ব পালন করেন এমসি কলেজ ছাত্রলীগের যুগ্ম-সম্পাদকের। আবু জাহিদ স্বৈরাচারী আন্দোলনে ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের আহবায়কের দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া বঙ্গবন্ধূর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় আওয়ামী লীগ তথা শেখ হাসিনার ডাকে প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে সক্রিয় ভূমিকা ছিলো তাঁর। এজন্য পুলিশি হামলা মামলার শিকার হয়েছেন আবু জাহিদ। এমনকি অনেকবার কারাবরণও করতে হয়েছে তাঁকে। সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আবু জাহিদ বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ছাত্র রাজনীতি থেকে শুরু করে আওয়ামী লীগ রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত থেকে দলীয় কার্যক্রম সাহসিকতার সাথে পালন করে যাচ্ছেন। তাঁর রাজনৈতিক দূরদর্শিতায় ইতিমধ্যে শেখ হাসিনার একজন আস্থাভাজন হয়ে উঠেছেন।
আবু জাহিদ সাহিত্যনুরাগী একজন মানুষ। তিনি সাহিত্য পত্রিকা ‘কথাকলি’র সম্পাদক ছিলেন। নিয়মিত কলাম লিখতেন সচিত্র বাংলাদেশ, বজ্রকন্ঠসহ বিভিন্ন পত্রিকায়। করেছেন অনেক সাহিত্য ম্যাগাজিনের সম্পাদনাও। সামাজিক কর্মকান্ডেও রয়েছে তাঁর অপরিসীম ভূমিকা। গরীব অসহায় মানুষদের সেবা দিতে ও উপজেলার সামাজিক উন্নয়নের জন্য তরুণদের কাজে লাগাতেও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন তৈরি করেছেন তিনি। আবু জাহিদ উপজেলার অসহায় গরীব মানুষদের জন্য ১৯৭৭ সাল থেকে চক্ষুশিবির প্রতিষ্ঠাসহ আর্থিক সহযোগিতা করে আসছেন নিজ উদ্যোগে। তিনি ছাত্র রাজনীতিতে থাকাবস্থায় উপজেলায় সমাজসেবা, উন্নয়নমূলক ও মানুষের কল্যাণে কাজ করেছেন। স্থানীয়ভাবে এলাকার উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রেখে যাচ্ছেন তিনি। মসজিদ, মাদ্রাসা, স্কুল, কলেজ, রাস্তাঘাট, খালভার্ট স্থাপনসহ সকল উন্নয়নে জনসম্পৃক্ততা ও সচ্ছতার মাধ্যমে কাজ করে এলাকায় একজন সচ্ছ জনপ্রতিনিধি হিসেবে ইতিমধ্যে সুনাম অর্জন করেছেন। যা গত দুটি নির্বাচনে সাধারণ মানুষের কাছে অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে। যার কারণে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে স্থানীয় আওয়ামী লীগের একাংশ নৌকা প্রতীকের বিরোধিতা করেও তাঁর বিজয় ঠেকাতে পারেননি। তাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করার জন্য নির্বাচনী এলাকার সকল জনসাধারণ, ভোটার, কর্মি-সমর্থক ও আওয়ামী লীগের নেতাদের এবং দলমত নির্বিশেষে উপজেলাবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান তিনি। এবং শপথ গ্রহণ করে নির্বাচনী এলাকার মানুষের সেবক হিসেবে কাজ করার জন্য সবার কাছে দুআ প্রার্থনা করেছেন মোহাম্মদ আবু জাহিদ।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin