সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৩০ অপরাহ্ন



শীতের শুরুতেই মশার উপদ্রব

শীতের শুরুতেই মশার উপদ্রব


সুমন ইসলাম: মশা নিধনে সিসিক মোটামুটি কামান নিয়েই মাঠে নামে। মাঝে মাঝে মিডিয়ায় আলোচিত হলে আবার শুরু হয় তোড়জোড়। লোকদেখানো স্প্রে মারা হয় নগরীর খোলা রাস্তায়। খরচ করা হয় কোটি কোটি টাকা। তাতে মানুষ বাহবা দেয়। সমালোচনাও করে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয় না। মশা এখন আর সন্ধ্যা নামার অপেক্ষা করে না, রাত-বিরাত, দিন-সন্ধ্যা; সব সময়ই তাদের যন্ত্রণা সইতে হয় নগরবাসীকে।

 

বর্তমান মেয়ার আরিফুল হক চৌধুরী মশা নিধনসহ সিটির উন্নয়ন, নগরবাসীর সুযোগ-সুবিধা বাড়ানো, রাস্তা প্রসস্থ, ড্রেনেজ ব্যবস্থার উন্নয়নে যথেষ্ট আন্তরিক; অন্যান্য সময়ের তুলনায় তার সময়কালে জনবান্ধব সিটি কর্পোরেশন হয়েছে- এমনটিই বিশ্বাস করেন নগরবাসী। কিন্তু মশা নিধনে তার উদ্যোগে এখনও উপকার ভোগ করতে না পারায় তাদের মধ্যে যতেষ্ট ক্ষোভ বিরাজ করছে।

 

সংশ্লিস্টরা জানান, সিলেটে ঘনবসতিপূর্ণ কলোনি ও নালা-নর্দমা বেষ্টিত আবর্জনাময় এলাকা এবং নর্দমা, ছড়া, ও ড্রেন নালা, পরিষ্কার ও কাঙ্খিত মাত্রায় সংস্কার না হওয়ায় মশার উপদ্রব কমছে না।

 

সিসিক মেয়ার আরিফুল হক চৌধুরীও তাই স্বীকার করেছেন। জানিয়েছে, এর জন্য জরুরীভাবে নর্দমা, ছড়া, ও ড্রেন নালা, পরিষ্কার ও সংস্কার এর নির্দেশ দিয়েছে সিসিক। তিনি বলেন, নির্বাচিত হওয়ার পর সম্প্রতি আমি দায়িত্ব নিয়েছি। দ্রুত টেন্ডার করতে বলেছি।

 

প্রত্যেক সময়েই সিলেটে শীতের শুরুতে মশার উপদ্রব বাড়ে। এবারও তাই হয়েছে। এরই মধ্যে ঘনবসতিপূর্ণ কলোনি ও নালা-নর্দমা বেষ্টিত আবর্জনাময় এলাকাগুলো মশার দখলে চলে গেছে। এতে অতিষ্ট হয়ে পড়েছেন নগরবাসী। একই সাথে বাড়ছে মশাবাহিত রোগ। রোগজীবানু থেকে রেহাই পেতে দিনের বেলাও মশারী ব্যবহার করতে হচ্ছে নগরবাসীকে। এদিকে মশা নিধনে সিলেট সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে কোনো উদ্যোগ চোখে পড়েনি। অবশ্য মেয়র বলেন, এ সপ্তাহেই বিশেষ ব্যবস্থায় মশক নিধন অভিযান চালানো হবে।

 

জানা গেছে, নগরীর জল্লারপাড়, ঘাসিটুলা, মাছিমপুর, ছড়ারপাড়, কাষ্টঘর, লামাপাড়াসহ বিভিন্ন এলাকার মানুষ মশার যন্ত্রণায় অতীষ্ঠ হয়ে পড়েছেন। ছড়া-নালা পরিষ্কার না করায় এতে পানি জমে মশার জন্ম হচ্ছে। মশার আক্রমন থেকে বাাঁচতে দিনে-দুপুরেও মশারি টানাতে হচ্ছে তাদের। তবুও রেহাই পাচ্ছেন তারা।

 

আসক ফাউন্ডেশন এর বিভাগীয় প্রেসিডেন্ট শিবঞ্জের বাসিন্দা রাকিব আল মাহমুদ বলেন, মশার উপদ্রবে অতিষ্ট আমরা। সন্ধ্যা হলে বাসায় মশার রাজত্বে চলে যায় গোটা এলাকা। নালা নর্দমা পরিষ্কারে সিসিকের পক্ষ থেকে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। তাই মশার উপদ্রব বেড়েই চলছে। সিলেট ছাত্র ও যুব কল্যাণ ফেডারেশন এর চেয়ারম্যান কুদরত উল্লাহ মার্কেটের ব্যবসায়ী এইচ এম আব্দুর রহমান বলেন, মশার উপদ্রব চরমে। কেউ রেহাই পাচ্ছেন না।

 

নগরীর ১০ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা সমাজ সেবা অধিদপ্তর কর্মচারী কল্যাণের সভাপতি আবুল কালাম মিন্টু জানান, আমাদের বৃহত্তর ঘাসিটুলা এলাকাটি অত্যন্ত ঘনবসতিপূর্ণ। নালা ও ড্রেন এর সংখ্যা বেশি থাকায় এই এলাকায় মশার উপদ্রব অত্যন্ত বেশি। সিসিক দীর্ঘদিন থেকে মশা নিধনের কোন অভিযান চালায় নি।

 

কাষ্টঘর এর বাসিন্দা, দক্ষিণ সুরমা সরকারি কলেজ এর ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান সুভাস চন্দ্র সাহা জানান, নগরীতে মশা নিধনের নামে আইওয়াশ চলে। ফলে মশা মরে না, নির্ভর থাকতে হয় কয়েল ও স্প্রের উপর যা স্বাস্থের জন্য খুবই ক্ষতিকারক।

 

সিটি করপোরেশেন সূত্রে জানা গেছে, প্রতিবছর সিলেট সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে মশা নির্মূলের জন্য নগরীতে ঔষধ ছিটানো হয়। যার ফলে নগরবাসী মশার উপদ্রব থেকে অনেকটাই রক্ষা পান। কিন্ত এ বছর সিসিকের উদ্যোগে নগরীর কোথাও মশার ঔষধ ছিটানো হয়নি। ফলে মশার উপদ্রব বেড়েছে।

 

এ বিষয়ে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জাহিদুল হক শুভ প্রতিদিনকে জানান, মশার উপদ্রব নগরীতে বেড়েছে এটা সত্য। কিন্ত বিগত সময়ে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের কারনে কিছু গেপ হয়েগেছে এবং পর্যাপ্ত পরিমান ঔষধ না থাকায় অভিযান দেওয়া সম্ভব হয় নি। তবে ইতিমধ্যে টেন্ডার দিয়েছি। ঔষধ পৌঁছামাত্রই অভিযান শুরু হবে। বিশেষ ব্যবস্থায় জুরুরী ভিত্তিতে আগামী ৩ দিনের, মধ্যে আমরা অভিযান পরিচালনা করবো।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin