বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০৭:৪০ অপরাহ্ন



শুক্রবারের ফজিলত ও যা যা করণীয়

শুক্রবারের ফজিলত ও যা যা করণীয়


আহমদ যাকারিয়া

শুক্রবার মুসলিম উম্মাহর সাপ্তাহিক ঈদের দিন। এই দিনকে ‘ইয়াওমুল জুমাআ’ বলা হয়। আল্লাহ তাআ’লা পৃথিবীকে ছয় দিনে সৃষ্টি করেছেন। এই ছয় দিনের শেষ দিন ছিল জুম্মার দিন।

রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেছেন, “মুমিনের জন্য জুমআ’র দিন হল সাপ্তাহিক ঈদের দিন।” (ইবনে মাজাহ:১০৯৮)

রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন, “হে মুসলমানগণ! জুমআ’র দিনকে আল্লাহ্ তোমাদের জন্য (সাপ্তাহিক) ঈদের দিন হিসেবে নির্ধারণ করেছেন। তোমরা এ দিন মিসওয়াক কর, গোসল কর ও সুগন্ধি লাগাও।” (ইবনু মাজাহ, মিশকাত: ১৩৯৮,)

“উম্মতে মুহাম্মদীর জন্য এটি একটি মহান দিন। জুমআ’র দিনটিকে সম্মান করার জন্য ইহুদী-নাসারাদেরকে বলা হয়েছিল; কিন্তু তারা মতবিরোধ করে এই দিনটিকে প্রত্যাখ্যান করেছিল। অতঃপর ইহুদীরা শনিবারকে আর খ্রিষ্টানরা রবিবারকে তাদের ইবাদতের দিন বানিয়েছিল। অবশেষে আল্লাহ এ উম্মতের জন্য শুক্রবারকে ফযীলতের দিন হিসেবে দান করেছেন। আর উম্মতে মুহাম্মদী তা গ্রহন করে নিল।” (বুখারী:৮৭৬, মুসলিম:৮৫৫)

বর্ণীত আছে যে, “জান্নাতে প্রতি জুমআ’র দিনে জান্নাতীদের হাঁট বসবে। জান্নাতী লোকেরা সেখানে প্রতি সপ্তাহে একত্রিত হবেন। তখন সেখানে এমন মনোমুগ্ধকর হাওয়া বইবে, যে হাওয়ায় জান্নাতীদের সৌন্দর্য অনেক গুণে বেড়ে যাবে এবং তাদের স্ত্রীরা তা দেখে অভিভূত হবে। অনুরূপ সৌন্দর্য বৃদ্ধি স্ত্রীদের বেলায়ও হবে।” (মুসলিম:২৮৩৩)

রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন, সূর্য উদিত হয় এরুপ দিনগুলোর মধ্যে জুমআ’র দিনটিই হল সর্বোত্তম দিন। এই দিনেই আদম আঃ কে সৃষ্টি করা হয়েছিল। (আবু দাউদ:১০৪৬)

এই দিনে তাঁকে জান্নাতে প্রবেশ করানো হয় এবং এই দিনেই তাঁকে জান্নাত থেকে বের করে দেওয়া হয়েছিল। এই দিনে তাঁকে দুনিয়াতে পাঠানো হয়, এবং এই দিনেই তাঁর তাওবা কবুল করা হয় এবং এই দিনেই তাঁর রূহ কবজ করা হয়েছিল। (আবু দাউদ:১০৪৬)

এই দিনেই কেয়ামতের জন্য শিঙ্গায় ফুঁক দেওয়া হবে। (আবু দাউদ: ১০৪৭)

এই দিনেই কিয়ামত অনুষ্ঠিত হবে। (আবু দাউদ: ১০৪৬)

আর এই দিনে সকলেই বেহুঁশ হয়ে যাবে। (আবু দাউদ: ১০৪৭)

নৈকট্যপ্রাপ্ত ফেরেশতাগন, আকাশ, পৃথিবী, বাতাস, পর্বত ও সমুদ্র সবই জুমআ’র দিনে শংকিত হয়। (ইবনে মাজাহ:১০৮৪)

রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন, “জুমআ’র রাতে বা দিনে যে ব্যক্তি ঈমান নিয়ে মারা যায়; আল্লাহ তাআ’লা তাকে কবরের আজাব থেকে মুক্তি দিবেন।” (তিরমিযী:১০৭৮)

জুমআ’র দিনের আরো অনেক ফজিলত রয়েছে।

স্বয়ং আল্লাহপাক কোরআন পাকে ইরশাদ করেন- ‘‘হে মুমিনগণ জুম্মার দিনে যখন নামাজের আজান দেয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণের উদ্দেশেও দ্রুত ধাবিত হও এবং ক্রয়-বিক্রয় ত্যাগ কর’’। (সূরা জুমা:৯)

তাই জুমআ’র আজানের আগেই সব কর্মব্যস্ততা ত্যাগ করে জুম্মার নামাজের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করে মসজিদে গমন করা সব মুসলমানের জন্য ঈমানি দায়িত্ব। এ দিনে এমন একটি সময় রয়েছে, তখন মানুষ যে দোয়াই করে তা-ই কবুল হয়।

এই দিনের বিশেষ কিছু আমল রয়েছে, যা হাদিস দ্বারা প্রমাণিত। জুমআ’র দিনের একটি গুরুত্বপূর্ণ আমল সম্পর্কে রাসূল সাঃ বলেন, যে ব্যক্তি জুমআ’র দিন আসরের নামাজের পর জায়গা থেকে না উঠে ওই স্থানে বসা অবস্থায় ৮০ বার নিম্নে উল্লেখিত দুরুদ শরিফ পাঠ করবে, তার ৮০ বছরের গুনাহ মাফ হবে এবং ৮০ বছরের নফল ইবাদতের সওয়াব তার আমল নামায় লেখা হবে। দোয়াটি হলো: ‘আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মাদিনিন নাবিয়্যিল উম্মিয়্যি ওয়া আলা আলিহী ওয়াসাল্লিম তাসলীমা’।

হজরত আউস ইবনে আউস রাঃ বলেন, ‘রাসুল সাঃ ইরশাদ করেছেন; যে ব্যক্তি জুমআ’র দিনে ভালোভাবে গোসল করবে, সকাল সকাল প্রস্তুত হয়ে হেঁটে মসজিদে গমন করে ইমাম সাহেবের কাছে বসবে এবং মনযোগী হয়ে তার খুতবা শ্রবণ করবে ও অনর্থক কর্ম থেকে বিরত থাকবে, তার প্রত্যেক কদমে এক বছরের নফল রোজা এবং এক বছরের নফল নামাজের সওয়াব আল্লাহপাক তাকে দান করবেন।’ (নাসাঈ শরিফ ১৫৫)

হজরত আবু হুরায়রা রাঃ বলেন, রাসুল সাঃ ইরশাদ করেছেন; ‘যে ব্যক্তি উত্তমরূপে অজু করবে, অতঃপর জুমার মসজিদে গমন করবে এবং মনোযোগ সহকারে খুতবা শ্রবণ করবে তার এ জুমআ’ থেকে পূর্ববর্তী জুমআ’সহ আরো তিন দিনের গুনাহগুলো ক্ষমা করা হবে। আর যে ব্যক্তি খুতবা শ্রবণে মনযোগী না হয়ে খুতবা চলাকালীন কঙ্কর-বালি নাড়ল, সে অনর্থক কাজ করল।’ (মুসলিম শরিফ ১/২৮৩)

হজরত আবু সাঈদ খুদরি রাঃ থেকে বর্ণিত আছে যে, নবী সাঃ বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি জুমআ’র দিনে সূরা কাহাফ তেলাওয়াত করবে তার (ঈমানের) নূর-এ জুমআ’ থেকে পরবর্তী জুমআ’ পর্যন্ত চমকাতে থাকবে।’ (মেশকাত শরিফ-১৮৯)

হজরত জাবের ইবনে আব্দুল্লাহ রাঃ থেকে বর্ণিত রাসুল সাঃ ইরশাদ করেছেন; ‘জুমআ’র দিনে এমন একটি মুহূর্ত রয়েছে, কোন মুসলমান ওই মুহূর্তে আল্লাহর কাছে যা কিছু প্রার্থনা করবে, অবশ্যই আল্লাহপাক তাকে তা দান করবেন। সুতরাং তোমরা ওই মূল্যবান মুহূর্তকে আসরের পর থেকে দিনের শেষ পর্যন্ত তালাশ কর।’ (আবু দাউদ ১/১৫০)।

উপরোক্ত হাদিসগুলোর দ্বারা প্রমাণিত হয় যে, জুমআ’র দিনে সব মুসলমানের জন্য কর্তব্য হচ্ছে যে, সব ব্যস্ততা ত্যাগ করে আজানের পূর্বেই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন হয়ে মসজিদে গমন করা, ইমামের খুতবা মনযোগ সহকারে শ্রবণ করা, খুতবা চলাকালীন কথার্বাতা বলা থেকে সম্পূর্ণ বিরত থাকা।

জুম্মার দিনের আরো বিশেষ কিছু আমলের মধ্যে রয়েছে—

১. সূরা কাহাফ তিলাওয়াত করা: জুম্মার দিনে সূরা কাহ্ফ তিলাওয়াত করলে কিয়ামতের দিন আকাশতুল্য একটি নূর প্রকাশ পাবে।

সূরা কাহাফ মক্কায় অবতীর্ণ হয়েছে। কোরআন শরিফের ১৮ নম্বর সূরা এটি। আয়াত সংখ্যা ১১০, রুকু ১২। এটি ১৫ নম্বর পারার দ্বিতীয় সূরা। জুমআর দিন এ সূরা তেলাওয়াতের অনেক ফজিলত রয়েছে।

হজরত বারা ইবনে আজীব রাঃ থেকে বর্ণিত, এক ব্যক্তি রাতে সূরা কাহাফ তেলাওয়াত করছিলেন। তার কাছে দুটি রশি দিয়ে একটি ঘোড়া বাঁধা ছিল। এরই মধ্যে একটি মেঘখণ্ড এসে তাকে ঢেকে ফেলল। এরপর যখন মেঘখণ্ডটি তার কাছে চলে আসছিল, তখন তার ঘোড়া ছোটাছুটি করতে লাগল। অতঃপর সকালে ওই ব্যক্তি নবী সাঃ এর কাছে এসে রাতের ঘটনা বললেন। তিনি বললেন, ওটা ছিল “সাকিনা” (রহমত), যা কোরআন তেলাওয়াতের বরকতে নাজিল হয়েছিল। (বোখারি: ৫০১১, ৩৬১৪; সহিহ মুসলিম: ৭৯৫)

হজরত আবু দারদা রাঃ থেকে বর্ণিত, নবী সাঃ বলেন, যে ব্যক্তি সূরা কাহাফের প্রথম দশ আয়াত মুখস্ত করবে সে দাজ্জালের ফেতনা থেকে হেফাজত থাকবে। (মুসলিম: ৮০৯, আবু দাউদ: ৪৩২৩)

হজরত আবু সাইদ খুদরি রাঃ থেকে বর্ণিত, নবীজী সাঃ বলেন, যে ব্যক্তি সূরা কাহাফ পড়বে যেমনভাবে নাজিল করা হয়েছে, তাহলে সেটা তার জন্য নূর হবে তার স্থান থেকে মক্কা পর্যন্ত এবং যে সূরার শেষ দশ আয়াত পড়বে সে দাজ্জালের গণ্ডির বাইরে থাকবে এবং দাজ্জাল তার উপর কোন প্রভাব বিস্তার করতে পারবে না। (সুনানে নাসাঈ: ১০৭২২)

আবু সাইদ খুদরি রাঃ থেকে বর্ণিত, যে ব্যক্তি সূরা কাহাফ যেমনভাবে নাজিল হয়েছে সেভাবে পড়বে, তার জন্য কেয়ামতের দিন সেটা নূর হবে। (শোআ’বুল ঈমান: ২২২১)
নাওয়াস ইবনে সাময়ান রাঃ থেকে বর্ণিত, রাসূল সাঃ একদিন সকালে দাজ্জালের কথা আলোচনা করলেন। তিনি আওয়াজকে উঁচু-নিচু করছিলেন, ফলে আমরা মনে করলাম দাজ্জাল খেজুর বাগানের মধ্যেই রয়েছে। অতঃপর যখন আমরা উনার কাছে গেলাম তখন তিনি আমাদের অবস্থা বুঝে ফেললেন। তিনি বললেন, তোমাদের কী হলো। আমরা বললাম, হে আল্লাহর রাসূল! আপনি সকালে দাজ্জালের কথা আলোচনা করেছিলেন, আওয়াজকে উঁচু-নিচু করেছিলেন- তাই আমরা মনে করলাম যে, দাজ্জাল হয়তো খেজুর বাগানেই আছে। তিনি বললেন, তোমাদের ক্ষেত্রে দাজ্জাল ছাড়া অন্য কিছুতে এত বেশি ভয় আমাকে দেখানো হয়নি। যদি আমি তোমাদের মাঝে থাকাবস্থায় সে বের হয়, তাহলে তোমাদের ছাড়া আমি সর্বপ্রথম তার প্রতিরোধ করব। আর যদি তোমাদের মাঝে না থাকাবস্থায় সে বের হয়, তাহলে প্রত্যেকে তার প্রতিরোধ করবে। আল্লাহর শপথ! প্রত্যেক মুসলমানের উপর আমার খলিফা রয়েছে। নিশ্চয় দাজ্জাল কোঁকড়া চুলবিশিষ্ট যুবক হবে এবং তার চোখ কানা হবে। যেন আমি আবদুল উযযা ইবনে কাতালের মতো তাকে দেখতে পাচ্ছি। তোমাদের মধ্যে যে তাকে পাবে সে যেন সূরা কাহাফের শুরু অংশ পড়ে। (মুসলিম: ২৯৩৭, সুনানে আবু দাউদ: ৪৩২১, তিরমিজি: ২২৪১)

২. নবী সঃ এর উপর বেশি বেশি দরুদ শরিফ পাঠ করা এবং বেশি বেশি জিকির করা হলো মোস্তাহাব।

আওস রাঃ হতে বর্ণিত, রাসূল সাঃ বলেছেন, “তোমাদের দিনগুলির মধ্যে সর্বোত্তম একটি দিন হচ্ছে জুমআ’র দিন। সুতরাং ঐ দিনে তোমরা আমার উপর বেশী বেশী দরুদ পাঠ কর। কেননা, তোমাদের পাঠ করা দুরুদ আমার কাছে পেশ করা হয়।” (আবূ দাউদ:১০৪৭, নাসায়ী:১৩৭৪, ইবনে মাজাহ্:১৬৩৬,)

“জনৈক সাহাবী বলেন- “জুমুআ’র দিনে রাসূল সাঃ এর প্রতি বেশী বেশী দুরূদ পাঠ করার জন্য আমাদের সকলকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।” (নাসাঈ;১৩৭৭)

রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন, “যে ব্যক্তি আমার উপর একবার দুরূদ পাঠ করবে, আল্লাহ্ তাআ’লা তার উপর দশবার রহমত নাযিল করবেন, তার দশটি গুনাহ্ মিটিয়ে দিবেন এবং তার দশটি মর্যাদা উন্নীত করবেন।” (নাসাঈ:১৩০০)

জনৈক সাহাবী বলেন যে, রাসূলুল্লাহ সাঃ আমাদেরকে এই দুরূদ পড়তে শিখিয়েছেন, “আল্লাহুম্মা সাল্লি আলা মুহাম্মাদ, ওয়া আলা আলি মুহাম্মাদ, কামা সাল্লাইতা আলা ইব্রাহিমা ওয়া আলা আলি ইব্রাহিমা, ইন্নাকা হামিদুম মাজিদ। আল্লাহুম্মা বারিক আলা মুহাম্মাদ, ওয়া আলা আলি মুহাম্মাদ, কামা বারাকতা আলা ইব্রাহিমা, ওয়া আলা আলি ইব্রাহিমা, ইন্নাকা হামিদুম মাজিদ।” (বুখারী-মুসলিম)

৩. গোসল করা। জুমআ’র দিন গোসল করা। যাদের উপর জুমআ’ ফরজ তাদের জন্য এ দিনে গোসল করাকে রাসুল সাঃ ওয়াজিব করেছেন। (বোখারি:৮৭৭)

আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রাঃ থেকে বর্নিত যে, তিনি নবী করীম সঃ কে বলতে শুনেছেন, “যে ব্যক্তি জুমুআ’র নামাজে উপস্থিত হবে সে যেন গোসল করে নেয়।” (সুনানে তিরমিযী-৪৯২)

আবু উমামা রাঃ হতে বর্নিত আছে, রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন, “জুমুআ’র দিনে গোসল করলে চুলের গোড়ায় জমে থাকা পাপও দূর হয়ে যায়।” (মাজমাউজ জাওয়ায়েদ)

হযরত আবু হুরাইরা (রা) হতে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন, “যে ব্যক্তি গোসল করে জুমুআ’র উদ্দেশ্যে আসে এবং যে পরিমাণ নফল নামায পড়ার তাওফীক হয় তা পড়ে, এরপর ইমামের খুতবা শেষ হওয়া পর্যন্ত চুপ থাকে এবং ইমামের সঙ্গে নামায আদায় করে, আল্লাহ তা’আলা তার দশ দিনের (সগীরা) গুনাহ মাফ করে দেন।” (সহীহ মুসলিম;১/২৮৩)

আবু হুরায়রা রাঃ বলেন, রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেন, “যে ব্যক্তি উত্তমরূপে উযু করার পর জুমুআ’র নামাযে এলো, নীরবে মনযোগ সহকারে ইমামের খুতবা শুনলো, তার পরবর্তী জুমুআ’ পর্যন্ত এবং আরো অতিরিক্ত তিন দিনের গুনাহ্ মাফ করে দেয়া হয়। আর যে ব্যক্তি (অহেতুক) একটি কঙ্কর(পাথর) স্পর্শ করলো সে অনর্থক কাজ করলো।” (মুসলিম; ৩য় খন্ড:১৮৬৫)

পরিচ্ছন্নতার অংশ হিসেবে সেদিন নখ এবং চুল কাটাও একটি ভালো আমল। তবে হ্যাঁ; ভালোভাবে গোসল করা। আমরা বাংলাদেশের অধিবাসীরা প্রতিদিন গোসল করে অভ্যস্ত। প্রতিদিনের গোসল আর জুমার দিনের গোসল এক নয়। জুমার দিন গোসল করার সময় সুন্নত পালনের নিয়ত করতে হবে এবং সওয়াবের আশা রাখতে হবে। হাদীসে ভালোভাবে গোসল করার কথা বলা হয়েছে। শরীর নাপাক হয়ে গেলে যেমনিভাবে খুব ভালোভাবে গোসল করা হয় যেন শরীরের প্রতিটি অংশে পানি পৌঁছে যায়, ঠিক তেমনিভাবে জুমার দিনও ভালোভাবে গোসল করে নেওয়া চাই।

৪. ফজরের ফরজ নামাজে সূরা সাজদা ও সূরা দাহর/ইনসান তিলাওয়াত করা।

৫. উত্তম পোশাক পরা।

৬. সুগন্ধি ব্যবহার করা। বিশেষ করে জুমার নামাজের জন্য সুগন্ধি ব্যবহার করা। (বোখারি:৮) সাথে সাথে মেসওয়াক করাও সুন্নাত। (বোখারি: ৮৮৭)। পরিচ্ছন্নতার জন্য গায়ে তেল ব্যবহার করাও উচিত। (বোখারি: ৮৮৩)।

৭. আগেভাগে মসজিদে যাওয়া। আগে আগে সকাল সকাল মসজিদে গমন করা। জুমার দিন সাধারণত অফিস-আদালত, দোকান-পাট বন্ধ থাকে। মানুষ অবসরই থাকে। তাই আগে আগে মসজিদে চলে যাওয়া চাই। অপর এক হাদীসে জুমার দিন আগে আগে মসজিদে যাওয়ার ফযিলত বর্ণিত হয়েছে। বলা হয়েছে, যে ব্যক্তি গোসল ফরজ হলে যেভাবে গোসল করে জুমার দিন ঠিক সেভাবে ভালো করে গোসল করে অতঃপর সর্বপ্রথম মসজিদে গমন করে, সে একটি উট সদকা করার সমপরিমাণ সওয়াব লাভ করবে। এরপর দ্বিতীয়তে যে মসজিদে গমন করবে সে একটি গরু আল্লাহর রাস্তায় সদকা করার সমপরিমাণ সওয়াব লাভ করবে। তৃতীয়তে যে গমন করবে সে একটি বকরি আল্লাহর রাস্তায় সদকা করার সওয়াব লাভ করবে। চতুর্থতে যে গমন করবে সে একটি মুরগি সদকা করার সওয়াব লাভ করবে। এরপর পঞ্চম নম্বরে যে প্রবেশ করবে সে একটি ডিম সদকা করার সওয়াব লাভ করবে। -সহীহ বুখারী : ৮৮১

মসজিদে যে যত বেশি আগে আসবে তত বেশি সওয়াব ও ফযীলতের অধিকারী হবে। আগে আগে মসজিদে এসে আমরা কী আমল করব? যাদের উমরী কাযা বা এমনিতেই কাযা নামাজ রয়েছে তারা কাযা আদায় করব। কাযা আদায় করা ফরজ। তাই যাদের যিম্মায় ফরজ আদায়ের ভার রয়ে গেছে তারা নফলের চেয়ে ফরজকে গুরুত্ব দেবো। আগে ফরজ আদায় করব। যারা উমরী কাযা আদায় করব তারা দৈনিক ছয় ওয়াক্ত হিসেবে আদায় করব। অর্থাৎ ফজরের দুই রাকাত ফরজ, জোহরের চার রাকাত ফরজ, আসরের চার রাকাত ফরজ, মাগরিবের তিন রাকাত ফরজ, এশার চার রাকাত ফরজ ও বিতরের তিন রাকাত। এভাবে পেছনের কাযা আদায় করে নেব। যাদের কাযা নামায নেই তারা নফল নামায আদায় করব।

৮. মসজিদে গিয়ে কমপক্ষে দুই রাকাত সুন্নাত আদায় করা।

৯. ইমামের কাছাকাছি গিয়ে বসা। ইমামের কাছাকাছি বসবে। আগে আগে মসজিদে গেলে ইমামের কাছাকাছি বসার সুযোগ পাওয়া যায়। তো ইমামের কাছাকাছি বসাও সুন্নাত। খুতবার সময় ইমামের কাছাকাছি বসার অনেক ফায়দা রয়েছে। হাদিসের ভাষ্য অনুযায়ী, জান্নাতে প্রবেশের উপযুক্ত হলেও ইমাম থেকে দূরে উপবেশনকারীরা বিলম্বে জান্নাতে প্রবেশ করবে। (আবু দাউদ : ১১০৮)

১০. মনযোগ দিয়ে ইমামের খুৎবা শোনা এবং খুৎবা চলাকালে কোনো কথা না বলা। মনোযোগসহ খুতবা শুনবে। মনে রাখতে হবে, জুমার খুতবা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা শুক্রবারে জোহরের সময় জুমার নামায পড়ি। জোহর পড়ি চার রাকাত কিন্তু জুমা পড়ি দুই রাকাত। জুমার খুতবা দিতে হয় বলে দুই রাকাত নামায কমিয়ে দেওয়া হয়েছে। তো জুমার খুতবা দুই রাকাত নামাযের মর্যাদা রাখে। তাই জুমাআ’র খুতবা প্রদান করাও ওয়াজিব, শ্রবণ করাও ওয়াজিব। আমরা জুমাআ’র খুতবা খুব মনোযোগসহ শ্রবণ করার চেষ্টা করব। কারণ খুতবা জুমাআ’র নামাজের শর্ত। খুতবা ব্যতীত জুমাআ’র নামাজ হয় না। উপস্থিত মুসল্লিদের জন্য শোনা ওয়াজিব। তাই খুতবা চলাকালে নিরর্থক কাজে ব্যস্ত থাকা শরিয়তের দৃষ্টিতে বৈধ নয়। আবু হুরায়রা রাঃ বলেন, রাসুল সাঃ বলেছেন, জুমার দিন খুতবার সময় যদি তোমার সঙ্গীকে ‘চুপ করো’ বলাও অনর্থক। (বুখারি: ১/১২৮)

হাদিস দ্বারা সুদৃঢ়ভাবে প্রমাণিত হয়, খুতবার সময় নিশ্চুপ হয়ে খুতবা শোনা ওয়াজিব ও কথাবার্তা বলা হারাম। অনুরূপ খুতবার সময় সুন্নত-নফল নামাজ পড়াও বৈধ নয়। অন্য এক হাদিসে বর্ণিত হয়েছে যে, যখন ইমাম খুতবার জন্য বের হবেন, তখন নামাজ পড়বে না, কথাও বলবে না। (মেশকাত: ৩/৪৩২)

তাই মুসল্লিদের উচিত খুতবার সময় কথাবার্তা থেকে বিরত থেকে অত্যন্ত মনোযোগী হয়ে খুতবা শোনা এবং যেসব কাজ নামাজে নিষিদ্ধ তা থেকে বিরত থাকা।

ফিকাহ শাস্ত্রের নির্ভরযোগ্য গ্রন্থ ফাতাওয়ায়ে শামি’তে একটি মূলনীতি উল্লেখ হয়েছে, যেসব কর্ম নামাজের মধ্যে হারাম, তা খুতবা চলাকালীন সময়ও হারাম। যেমন- কথাবার্তা বলা, পানাহার করা ইত্যাদি। (ফাতাওয়ায়ে শামি:৩/৩৫)

অনেক মুসল্লি খুতবা চলাকালে বিভিন্ন কাজে লিপ্ত হয়, যা সম্পূর্ণ শরিয়ত পরিপন্থী এবং হারাম। এছাড়া অনেক মসজিদে খুতবা চলাকালে চাঁদার বাক্স চালানো হয়, এটাও শরিয়তের দৃষ্টিতে নাজায়েজ ও অশোভনীয়। তাই খুতবার সময় এসব নাজায়েজ কর্ম পরিহার করে মনোযোগী হয়ে খুতবা শ্রবণ করা অত্যন্ত জরুরি।

১১. জুম্মার নামাজের পূর্বে দুই খুতবার মাঝখানে হাত না উঠিয়ে মনে মনে দোয়া করা।

১২. সূর্য ডোবার কিছুক্ষণ আগ থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত গুরুত্বের সাথে জিকির, তাসবীহ ও দোয়ায় লিপ্ত থাকা।

১৩- হেঁটে মসজিদে যাওয়া, কোনো বাহনে আরোহণ করবে না। জুমার নামাযের জন্য কোনো বাহনে আরোহণ না করে হেঁটে হেঁটে মসজিদে যাওয়া সুন্নত। বিশেষ কোনো উযর না থাকলে এ সুন্নাত ত্যাগ না করা চাই।

হযরত ইয়াযীদ ইবনে আবি মারয়াম রাঃ থেকে বর্ণিত; তিনি বলেন, আমি একদিন পায়ে হেঁটে জুমআ’র জন্য যাচ্ছিলাম। এমন সময় আমার সাথে আবায়া ইবনে রিফায়া রাঃ এর সাথে সাক্ষাৎ হয়। তিনি বললেন, সুসংবাদ গ্রহণ কর! তোমার এই পদচারণা আল্লাহর পথেই। আমি আবু আবস রাঃ কে বলতে শুনেছি, রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেছেন, “যে ব্যক্তির পদদ্বয় আল্লাহর পথে ধূলিময় হলো, তার পদদ্বয় জাহান্নামের জন্য হারাম করা হলো।” (তিরমিযি:১৬৩৮, বুখারী:৯০৭)

আবু হুরায়রা রাঃ থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ সাঃ বলেছেন, “জুমআ’র দিন মসজিদের দরজায় ফেরেশতাগন অবস্থান করেন এবং ক্রমানুসারে আগে আগমনকারীদের নাম লিখতে থাকেন। যে সবার আগে আসে সে ঐ ব্যক্তির ন্যায়, যে একটি মোটাতাজা উট কুরবানী করে। তারপর যে আসে সে ঐ ব্যক্তির ন্যায় যে একটি গাভী কুরবানী করে। তারপর আগমনকারী ব্যক্তি মুরগী দানকারীর ন্যায়। এরপর আগমনকারী ব্যক্তি একটি ডিম দানকারীর ন্যায়। তারপর ইমাম যখন বের হন (খুতবার জন্য) ফেরেশতাগন তাঁদের দফতর বন্ধ করে দেন এবং মনোযোগ সহকারে খুতবা শোনতে থাকেন।” (বুখারী;২য় খন্ড,৮৮২)

১৪- অনর্থক কথা বলা থেকে বিরত থাকা। অনর্থক কোনো কথাবার্তা বা কার্যকলাপে লিপ্ত হওয়া উচিত না। মসজিদে এসে নীরবে ইবাদত-বন্দেগীতে মশগুল থাকব। কোনো অনর্থক কথা বলব না। অনর্থক কোনো কাজও করব না। মসজিদে দ্বীনি কথা বলা যাবে। কোরআন তেলাওয়াত করব। যিকির করব। অপ্রয়োজনীয় কোনো কথা বলব না।

১৫- উত্তম পোশাক পরিধান করে জুমা আদায় করা। (ইবনে মাজাহ: ১০৯৭)

১৬- মুসল্লিদের ইমামের দিকে মুখ করে বসা। (তিরমিজি: ৫০৯, ইবনে মাজাহ: ১১৩৬)

১৭- মুসল্লিদের ঘাড় ডিঙিয়ে সামনের কাতারে আগানোর চেষ্টা না করা। (আবু দাউদ: ৩৪৩)

১৮- মসজিদে পরে গিয়ে কাউকে উঠিয়ে দিয়ে সেখানে বসার চেষ্টা না করা। (বোখারি: ৯১১, মুসলিম: ২১৭৭)

১৯- জুমার আগে মসজিদে জিকির বা কোনো শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান না করা। অর্থাৎ ভাগ ভাগ, গোল গোল হয়ে না বসা। (আবু দাউদ : ১০৮৯)

২০- কেউ কথা বললে ‘চুপ করুন’ এটুকুও না বলা, বিশেষ করে ইমামের খুতবা চলাকালে। (নাসায়ি: ৭১৪, বোখারি: ৯৩৪)।

২১- মসজিদে যাওয়ার আগে কাঁচা পেঁয়াজ, রসুন না খাওয়া ও ধূমপান না করা। (বোখারি : ৮৫৩)।

২২- মসজিদে ঘুমের ভাব বা তন্দ্রাচ্ছন্ন হলে বসার জায়গা বদল করে বসা। (আবু দাউদ: ১১১৯)

২৩- ইমামের খুতবা শ্রবণকালে দুই হাঁটু উঠিয়ে না বসা। (আবু দাউদ: ১১১০, ইবনে মাজাহ: ১১৩৪)।

২৪- নামাজের জন্য মসজিদের কোনো একটা জায়গাকে নির্দিষ্ট করে না রাখা, যেখানে যখন যেভাবে জায়গা পাওয়া যায় সেখানেই নামাজ আদায় করা। (আবু দাউদ : ৮৬২)

আল্লাহপাক আমাদের সবাইকে এ সুন্নাতগুলো পালন করার তাওফিক দান করুন। আমীন।

লেখক, মুফতি ও কলামিস্ট


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin