সোমবার, ২৬ Jul ২০২১, ০৮:১১ অপরাহ্ন


শুভ প্রতিদিনে সংবাদ প্রকাশের পর টনক নড়লো সিসিকের

শুভ প্রতিদিনে সংবাদ প্রকাশের পর টনক নড়লো সিসিকের


শেয়ার বোতাম এখানে

চার মাসের মাথায় মেয়র আরিফের কয়েক দফা নির্দেশনা

স্টাফ রিপোর্ট
সিলেটের নতুর ধারার দৈনিক শুভপ্রতিদিনের সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষ চার মাস পর সিসিকের টনক নড়লো।
চলিত মাসের ১৬ জানুয়ারী শুভপ্রতিদিনে সিলেট নগরীতে ফ্রি স্টাইলে চলছে ভবন নির্মাণ ও শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর” নগরীর একটি সিন্ডিকেট চক্রের মনে আতংক বিস্তার করে বলে জানা যায় । সিন্ডিকেটচক্র এরপর থেকে উচ্চমহলে লবিংয়ে ব্যস্ত হয়ে উঠেছিলেন। তার মূল কারণ বিল্ডিং কোড না মেনে ভবন নির্মাণ করলে কোটি কোটি লুঠতে পারে বলে উক্ত সিন্ডিকেট চক্র সদস্যরা জানিয়েছিলেন। তারা বলেন, নকশায় এক ভবন থাকলে এই এই নকশা কে পাশ কাটিয়ে আরেকটি করা যায় এবং আবাসিক ভবনে নির্মাণ করে বাণ্যিজিক ভবনে ব্যবসার দিকে নজর ছিল তাদের।

অপরদিকে গত ১১ এপ্রিল শুভপ্রতিদিন আরেকটি সংবাদ নিয়মনীতি মানছেন না আবাসিক ভবনের মালিকরা সিলেটে আবাসিক ভবনে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান বাড়ছেই শিরোনামে করলে সিসিকের নজরে আসে বলে জানিয়েছেন সিসিকের একাধিক বিভাগের উর্ধ্বতন কর্মকতারা। এমন সংবাদে নগরবাসী বলছেন বাণিজ্যিক আগ্রাসনে সিলেটের আবাসিক এলাকাগুলো নিজস্ব স্বকীয়তা হারাচ্ছে। পরিকল্পিত নগরী গড়ে তোলার লক্ষ্যে সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক) প্রতিষ্ঠিত করা হয়েছিল; সেই সিসিকের নাকের ডগায় এই অবাঞ্ছিত রূপান্তর ঘটছে জোরেসোরে। নগর ভবনের কর্তারা এ ক্ষেত্রে কুম্ভকর্ণের মতো ঘুমে আচ্ছন্ন। তাদের নীরব ভূমিকায় নগরীর আবাসিক এলাকা বাণিজ্যিক এলাকায় পরিণত হয়েছে। উভয় সংবাদের সারসংক্ষেপ ছিল। ভূমিকম্পের ডেঞ্জার জোন হিসেবে পরিচিত সিলেটে অপরিকল্পিতভাবে একের পর এক বহুতল ভবন গড়ে উঠছে। নকশা এক ভবন আরেক সিলেটে হাজার হাজার ভবন ভূমিকম্প ঝুঁকিতে সিলেট নগরজুড়ে অনুমোদনহীন বহুতল ভবনের ছড়াছড়ি ।

এ ব্যাপারে গতকাল সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের (সিসিক) সম্মানিত বাসা-বাড়ির মালিকগণকের জরুরী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বেশ কিছু নির্দেশনা মেনে চলতে হবে।

মেয়র জানান, এখন থেকে সিটি কর্পোরেশনের অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী ভবন নির্মাণ করতে হবে। এছাড়া, ফায়ার সার্ভিস হতে অনুমোদিত ফায়ার সেফটি প্ল্যান অনুযায়ী অগ্নিনির্বাপক যন্ত্র, ফায়ার এলার্মিং স্থাপন, অগ্নিনির্বাপন সুবিধা ও সরঞ্জাম ব্যবহার উপযোগী রাখা, ইর্মাজেন্সি সিড়ি নির্মাণ, বিল্ডিং কোড অনুযায়ী ইমার্জেন্সি সিড়ির চওড়া সঠিক রাখা, সিড়ির গেইট ও দরজা সবসময় খোলা রাখা ও সংকেত দেয়া বাধ্যতামূলক।
ভবনের অতিরিক্ত ফ্লোর নির্মাণ করা হতে বিরত থাকা, ধোয়া নিয়ন্ত্রণে ব্যবস্থা রাখাসহ অগ্নিনির্বাপনের জন্য অতিরিক্ত জলাধার টেংকি তৈরী করে পর্যাপ্ত পানি সংরক্ষন রাখতে হবে। পেশাজীবি প্রকৌশলীর মাধ্যমে ভবনের নকশা তৈরী করারও পরামর্শ দেন মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

এছাড়া, দুর্ঘটনার সময় ভবনের লিফট বন্ধ রাখা, অনুমোদিত প্ল্যান মোতাবেক লে-আউট প্ল্যান অনুযায়ী পর্যাপ্ত জায়গা ছেড়ে ভবন নির্মাণ করতে হবে। মেয়র জানান, সিলেট মহানগরী ভূমিকম্প প্রবন অঞ্চল হিসেবে চিহ্নিত। তাই মহানগরীর নাগরিকদের ভূমিকম্প প্রতিরোধ ব্যবস্থা রেখে ভবন নির্মাণের পরামর্শ দেন।
তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশনের প্ল্যান অনুযায়ী সেপটিক ট্যাংকের সাথে সোকওয়েল বাধ্যতামূলক। ভবন নির্মানের সময় বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট এড়িয়ে বিদ্যুৎ লাইন স্থাপন করা ও অভিজ্ঞ প্রকৌশলী দ্বারা পরীক্ষা করে নেয়া।
এছাড়া এল. পি গ্যাস সিলিন্ডার সতর্কতার সাথে ক্রয় ও ব্যবহার এবং সিলিন্ডার মেয়াদ উত্তীর্ণ কি না তা ভাল করে দেখে নেয়া উচিত। নিয়মিত গ্যাস লাইন ও চুলা পরীক্ষা করা, ঝুকিপূর্ণ ভবনে বসবাস ও ব্যবসা-বাণিজ্য না করার পরামর্শ দেন মেয়র। মেয়র বজ্রপাত নিরোধক ব্যবস্থা নিশ্চিত করার উপরও গুরুত্ব দেন ।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin