সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৪৮ পূর্বাহ্ন


শেষমেষ ইবার দেখিলাই!

শেষমেষ ইবার দেখিলাই!


শেয়ার বোতাম এখানে

সরেজমিন : সিলেট-২

 

নবীন সোহেল, সিলেট-২ আসন থেকে
রামপাশা পয়েন্ট থেকে তিন দিকে গেছে তিনটি পাকা সড়ক। বিশ্বনাথ থেকে এসে একটি লামাকাজি গিয়ে ছুঁয়েছে। আর অন্যটি বৈরাগী বাজার হয়ে সিঙ্গেরকাচ বাজারে গিয়ে মিশেছে ছাতকে। আমরা ঠিক যে চায়ের দোকানে বসে কথা বলছিলাম, সেটি রামপাশা বাজারের একবেবারে মধ্যখানে।
বিশ্বনাথ থেকে যে রোড এসে রামপাশা ঠেকেছে সেটির হাল-হাকিকাত মোটামুটি ভাল। কিন্তু যত ভোগান্তি আর যন্ত্রণা; শুরু হয় তারপর থেকে। চায়ের দোকান থেকে বসে বসে দেখা যাচ্ছিল, ভাঙাচোরা সড়ক দিয়ে কিভাবে হেলে-দোলে যানবাহনগুলো গন্তব্যের দিকে যাচ্ছিল। এ অঞ্চলের সাধারণ মানুষের ক্ষোভের অন্ত নেই- এই সড়ক যোগাযোগ নিয়ে। দেখার মতো উন্নয়নও উপহার দিতে পারেননি বর্তমান সাংসদ। অভিযোগ তাদের।
চায়ের কাপে চুমুক দেয়ার এক ফাঁকে নির্বাচনী আলাপ-আলোচনায় এসে যোগ দিলেন বিভিন্ন বয়সের আরও কয়েকজন। একজ ভাঙা সড়কের দিকে আঙুল তুলে দেখিয়ে বললেন, এই যে উন্নয়ন হয়নি, এটা আসলে খুব বেশি ফ্যাক্টর নয়। মানুষ প্রতীক দেখেই ভোট দেবে। এ জন্য উন্নয়নের বিষয় এখন অনেকটাই গৌন। বলছিলেন, আনোয়ার হোসেন। পড়ছেন ডিগ্রিতে। গ্রামের বাড়ি রামপাশা উত্তরপাড়া।

 

স্থানীয় সবাই এগিয়ে রাখেন দুই প্রার্থীকে। তাদের একজন স্বতন্ত্রপ্রার্থী মুহিবুর রহমান আর অন্যজন ঐক্যফ্রন্টের মোকাব্বির। অন্যরা ভোটের মূল আলোচনায় নেই কেন? প্রশ্ন শুনে দুইজন বললেন, বাকিরা জামানাতও হারাতে পারেন। এমনকি বর্তমান এমপিও!

 

রামপাশার পেট্রোল পাম্পের সেইলম্যান লামাকাজীর আতাপুর গ্রামের আব্দুস শহীদ। এবার নতুন ভোটার তিনি। জীবনের প্রথম ভোট দেবেন। তাঁর পছন্দের মার্কা ধানের শীষ। সে জন্য বড় আক্ষেপ। সেই প্রতীক নেই। তবুও ভোট দেবেন শহীদ এবং ঠিকও হয়ে গেছে কোথায় দেবেন। যার জন্য ধানের শীষ নেই আমরা তাকে চাই না। যোগ্য প্রার্থীকেই ভোট দেব। বললেন নিসংকোচে।

 

বড় দুই দল আওয়ামী লীগ ও বিএনপির কোনো প্রার্থী নেই এই আসনে। নেই পছন্দের দুই পরিচিত মার্কা নৌকা কিংবা ধানের শীষ। তাই সবারই মন ভাঙ্গা। তবুও ভোটের মাঠে নামতে হচ্ছে ভোট দেয়ার আকাঙ্খায়। শেষ মুহুর্তে নির্বাচনী ভোটের মাঠ জমে উঠা বিশ্বনাথ ও ওসমানী নগর উপজেলা নিয়ে গঠিত প্রবাসি অধ্যুষিত আসন হিসেবে পরিচিত সিলেট-২। এ আসনে ধানের প্রার্থী না থাকলেও তাদের সমর্থিত মোকাব্বির এসেছেন উদিয়মান সূর্য প্রতীক নিয়ে। কিন্তু অনেকেই দেখেননি বা চিনেনও না তাকে। মঙ্গলবার থেকে মাত্র তার লিফলেট ও পোস্টার এসে পৌছেছে নির্বাচনী মাঠে।
‘সৎসাহসী যোগ্য ব্যক্তি দরকার, যে নির্বাচিত হলে ঘুষ দুর্নীতি থাকবো না। কারো আঙ্গুল নাচানিও থাকতো নায়। এইবার দেখরাম জনজোয়ারও আছে। তাই শেষমেষ ইবার দেখিলাই। যদি ভোট কামো লাগে।’ এমনভাবে নির্বাচন নিয়ে বেশ উৎসাহী হয়ে নিজের অভিব্যক্তি প্রকাশ করতে গিয়ে বলিলেন বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়নের সত্তোরোর্দ্ধো ভোটার হোমিও চিকিৎসক মো. মনির উদ্দিন।

 

নোয়ারাই গ্রামের শ্রমিক নেতা আব্দুর রাজ্জাক মনে করেন, নতুন যাদের দিয়েছি বেশীর ভাগই ঠকেছি। তাই পরিক্ষিত জনপ্রতিনিধিকেই বাছাই করবে তার খাজাঞ্চি ইউনিয়নের সাধারণ ভোটার। আবার ওই ইউনিয়নের বাদশা মিয়া গভীর নিশ্বাস নিয়ে বললেন, লুনা ম্যাডাম যাকেই বলবেন, তাকেই নির্বাচিত করার জন্য কাজ করবেন।

 

নিখোঁজ এম ইলিয়াস আলীর আসন সিলেট-২। বিশ্বনাথ ও ওসমানী নগর নিয়ে গঠিত এই আসনের মানুষের আলাদা দরদ ইলিয়াস আলীর প্রতি। এই সেন্টিমেন্টকে কাজে লাগিয়ে নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে চেয়েছিল বিএনপি। সে জন্য ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদির লুনা এবং তার ছেলে ব্যারিস্টার আবরার ইলিয়াস অর্নব মনোনয়ন চেয়েছিলেন। শেষমেষ লুনা প্রার্থীতা রেখে অর্নব প্রত্যাহার করেন। এদিকে প্রাতিদ্বন্দ্বি প্রার্থী এহিয়া চৌধুরীর আবেদনে প্রথম দফা নির্বাচন কমিশনে হোচট খান লুনা। পরে কোনো রকমে পারও পেয়ে যান। নেমে পড়েন নির্বাচনী প্রচারণায়। কিন্তু আবার এহিয়া চৌধুরী হাইকোর্টে রিট করলে হেরে যান লুনা। তার প্রার্থীতা অবৈধ হবার সাথে সাথে ধানের শীষও হারিয়ে যায় নির্বাচনী মাঠ থেকে। এর আগে মহাজোটের আসন ভাগাভাগির হিসেবে ছাড় দিতে গিয়ে এই আসনে নৌকার পরিবর্তে জাপার লাঙ্গলকে দেয়া হয়। প্রার্থী বর্তমান সংসদ সদস্য এহিয়া চৌধুরী। ফলে এখানে নৌকা প্রতীকে কেউ প্রার্থীতা করছেন না। দুটি মূল প্রতীক না থাকায় এখানকার ভোটারদের মধ্যে জাতীয় নির্বাচন নিয়ে সেরকম উচ্ছ্বাস উল্লাস নেই।

 

এই আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন উচ্চশিক্ষিত ড. এনামুল হক সরদার এবং খেলাফত মজলিসের মুনতাসির আলী।
দেওকলস ইউনিয়নের কালিজুরী গ্রামের কৃষক মনির মিয়া ও দিনমজুর মামুন মিয়া কোন আক্ষেপ না রেখেই বললেন, যার অবস্থান ভালো থাকবে তাকেই ভোট দিবো। ওই এলাকার এরশাদ ভক্ত আলতাফুর রহমান তাঁর চিহ্ন কেবলই একটা। তবে তাঁর মতে, এলাকায় সুর রয়েছে শুধুমাত্র ডাব প্রতীকের।

 

‘এইটা একটা নির্বাচন ওইলো, ধান ও নাই নৌকাও নাই’ এমন অভিব্যক্তি প্রকাশ করে দৌলতপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ দশপাইকা গ্রামের আব্দুর রুপ বলেন, ভোট কেন্দ্রে যাবো এবং যেদিকে পাল্লা ভারী থাকবে সেদিকেই ভারি করবেন। এপর্যন্ত কার পাল্লা ভারী দেখছেন এমন প্রশ্নে তিনি জানান, ডাব প্রতীকের আলোচনা বেশিই শুনা যাচ্ছে সাথে আছে লাঙ্গল ও সিংহ। তাঁর মতো বললেন সিংগেরকাছ বাজারের ব্যবসায়ী আকলিছ মিয়াও।
বিশ্বনাথ উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ৭৪টি ভোটকেন্দ্রে ১ লাখ ৫০ হাজার ৪৫২ ও ওসমানিনগর উপজেলার ৮টি ইউনিয়নে ৫৩টি ভোটকেন্দ্রে ১লাখ ৩৫হাজার ৯২৮জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

 

নির্বাচনে ভোটের মাঠে প্রতিদ্বন্ধিতায় আছেন মহাজোট প্রার্থী ইয়াহইয়া চৌধুরী এহিয়া (লাঙ্গল), ২০দলীয় জোট প্রার্থী মুনতাসির আলী (দেয়ালঘড়ি), ইসলামী আন্দোলনের মাওলানা আমির আলী (হাতপাখা) গণফোরামের মোকাব্বির খান (উদিয়মান সূর্য), এনপিপির মনোয়ার হোসেন (আম), বিএনএফের মশাহিদ খান (টেলিভিশন), সতন্ত্র প্রার্থী মুহিবুর রহমান (ডাব), ড. এনামুল হক সরদার (সিংহ), আব্দুর রব মল্লিক (মটরগাড়ী)।
নির্বাচনী এলাকায় ঘুরে সাধারণ ভোটারদের সাথে আলাপকালে তারা পরিবর্তন চান বলে জানিয়েছেন। ওসমানীনগর উপজেলার তাজপুর ইউনিয়নের সাদেকুর রহমান সাদেক ও সারওয়ার আহমদ রানা বলেন তাজপুর ইউনিয়নের প্রতিটি এলাকায় ডাব প্রতিকের প্রার্থী এগিয়ে রয়েছেন। সাদিপুর ইউনিয়নের তৌফিক মিয়া ও দয়ামীর ইউনিয়ন আব্দুর রউফ আব্দুল বলেন, সাদিপুরে ও দয়ামীরে উদিয়মান সূর্য প্রতীক এগিয়ে রয়েছে। বিএনপিও সমর্থন করেছে গণফোরামের এ প্রার্থীকে।

 

গোয়ালাবাজার ইউনিয়নের শুভ দেব নয়ন, ব্যবসায়ী সজিব দেব ও উমরপুর ইউনিয়নের বুরহার আহমদ বলেন, সিলেট -২ আসনে সিংহ প্রতিকের এনাম সরদার আলোচনায় রয়েছেন। ভোটের মাঠে প্রার্থী নির্বাচনে ভিন্নমত থাকলেও আগামী ৩০ ডিসেম্বর এ আসনে কোন সহিংসতা ছাড়া সুষ্ঠ ও নিরপক্ষ ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে এমন প্রশ্নে সবার মত এক।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin