বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ০২:১০ অপরাহ্ন


শ্রীমঙ্গলে করোনায় মানবিক ইউপি চেয়ারম্যান ভানু লাল রায়

শ্রীমঙ্গলে করোনায় মানবিক ইউপি চেয়ারম্যান ভানু লাল রায়


শেয়ার বোতাম এখানে

আবুজার বাবলা, শ্রীমঙ্গল: ৫৮৩.২২ বর্গ কিলোমিটার আয়তন, ১৪ মৌজা আর ১৮টি গ্রামের ঠিক মাঝখানে অবস্থিত শ্রীমঙ্গল সদর ইউনিয়ন পরিষদ। ছিমছাম পরিপাটি ভাবে সাজানো পরিষদ এর এই কমপ্লেক্স চত্ত্বর। ইউনিয়নের লোকসংখ্যা প্রায় ৫৫ হাজার। এই বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রতিনিধিত্ব করা ভানু লাল রায় চলতি করোনা যুদ্ধে আর্ত মানবতার সেবায় নিজেকে একজন মানবিক চেয়ারম্যান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। দেশ করোনা প্রাদুর্ভাবে আক্রান্ত হওয়ার পর থেকে যেন থেমে নেই অন্তহীন ছুটে চলা। একদিকে হত দরিদ্রদের খাদ্যের সংস্থান করা অন্য দিকে সংক্রমণ রোধে সরকারী নির্দেশনা বাস্তবায়নে লক ডাউন কার্যকরে জন সচেতনতা সৃষ্টি, পাড়া মহল্লায় জীবাণুনাষক ঔষুধ ছিটানো, কোথাও করোনা উপসর্গের রোগীর সন্ধান পেলে ছুটে যাওয়া, সেখানে হোম কোয়ারেন্টাইন এর ব্যবস্থা করা। সামাজিক দূরত্ব পতিপালনে প্রশাসন আর স্বাস্থ্য বিভাগের সাথে সমন্বয় করা, ভাড়া না দেয়ায় তাড়িয়ে দেয়া ভাড়াটিয়াকে বাসায় তুলে দেয়া, যখনই যে প্রয়োজন- ছুটে যাচ্ছেন।

করোনা পরিস্থিতিতে চাহিদার তুলনায় সীমিত সরকারী খাদ্য সহায়তা নিয়ে হিমশিম অবস্থা। প্রতিনিয়ত অসংখ্য কর্মহীন অসহায় মানুষের কিছু চালের আর্তি  পীড়াদায়ক। অকাতরে  এসব দু:স্থ কর্মহীন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন তিনি। ধর্ম-বর্ণ, জাত-পাত নির্বিশেষে সব মানুষের সাহায্যে এগিয়ে গেছেন নিঃস্বার্থ ভাবে। প্রকাশ্যে বা গোপনে অসহায় মানুষের খোঁজ করে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। অনেক সময় নিজের রান্নার হাড়ি থেকে দরিদ্র’র হাতে তুলে দিয়েছেন চাল। যখনই খবর পেয়েছেন কেউ অভুক্ত – লোক দিয়ে খাবার পাঠিয়েছেন। নিজের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে এ যাবত ১০ টনেরও বেশী চাল বিতরন করেছেন। এভাবেই নিরহংকার ভানু লাল রায় শ্রীমঙ্গলে একজন মানবিক চেয়ারম্যান হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে বিশ্বাসী ভানু লাল রায় ছিলেন এই ৩নং শ্রীমঙ্গল ইউনিয়নের প্রথম মেম্বার । ৮৮-থেকে ৯০ টানা তিন বছর সদর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি হিসেবে নেতৃত্বে দিয়েছেন। ৯০ এর স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে যুবসমাজকে নেতৃত্ব দিয়েছেন সামনে থেকে। এরপর সদালাপী এই মানুষকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। কর্ম দক্ষতা, সততা আর মানব সেবার ব্রত নিয়ে ২ দফা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন ব্যাপক জনপ্রিয়তায়। জনগণের ভালবাসায় সিক্ত ভানুলাল রায় তার প্রতিদান দিতেও কার্পন্য করেননি কখনও। সততা যে শক্তি -ভানু লাল রায় তাই প্রমান করে দেখিয়ে দিয়েছেন। একদা ইউপি মেম্বার থেকে ভানু লাল রায় নিজেকে আজ শ্রীমঙ্গল উপজেলায় একজন প্রভাবশালী জননেতা হিসেবে আবির্ভূত করতে সক্ষম হয়েছেন।

প্রচার বিমুখ ভানু লাল রায় শুভ প্রতিদিনকে দেয়া এক একান্ত সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘জনগনের ভালবাসা থাকলে আত্মপ্রচারের প্রয়োজনীতা মুখ্য নয়। নিজের কোন ফেসবুক আইডি নেই। তবে আমার দায়িত্ব আর কর্তব্য বিষয়ে আমি হালনাগাদ সচেতন। ভানু লাল রায় বলেন, করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে আমরা এখন এক অদৃশ্য অস্তিত্বের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত।

লক ডাউনের ফলে পরিস্থিতি শেষ অব্দি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায় আমরা কেউ জানিনা। এরি মধ্যে এক ব্যাংক কর্মী আক্রান্ত হয়েছেন।  অবরুদ্ধ অবস্থা চলতে থাকলে মানুষের খাদ্যের সংস্থান করাই এখন আমাদের জন্য বিরাট চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়াঁবে। যে কারণে কৃষি, খামারগুলোকে  সামনে রেখে আগামী দিনগুলোর জন্য একটা সুষ্ঠু পরিকল্পনা নিয়ে আমাদের এগিয়ে যাওয়া দকোর বলে মনে করেন তিনি।

ভানু লাল রায় বলেন, করোনা মোকাবেলায় ঠিক এই মুহূর্তে মাঠের ফসল ঘরে তুলতে আমাদের সব শক্তি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। বন্যার পূর্বাভাষ কৃষকের কষ্টে ফলানো ধান কৃষকের ঘরে তুলে দেয়াটাই এখন চ্যালেঞ্জ হয়ে দেখা দিয়েছে। যেসব মিলার সরকারের গুদামে চাল সরবরাহ করে তাদের মাধ্যমে প্রান্তিক কৃষকদের কাছ থেকে ন্যয্য মূল্যে ধান সংগ্রহের ব্যবস্থা করতে হবে। গবাদী পশু ও মৎস খামারিরা এখন চরম ঝুঁকির মুখে রয়েছে। বর্তমান পরিস্থিতির কারণে পশু ও মাছের খাদ্যের মূল্য বৃদ্ধিতে এসব খামারিরা পূঁজি হারিয়ে পথে বসার উপক্রম হয়েছে।  সামনের অনিশ্চিত ভবিষ্যত মোকাবেলায় প্রধান অস্ত্র এখন কৃষি।  সেই কৃষি কেন্দ্রীক উৎপাদনশীল ব্যবস্থার দিকে । অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নজর দেয়া দরকার’ বলেন তিনি।

কোন প্রতিকুলতায়র মুখে পড়তে হচ্ছে কি? এমন এক প্রশ্নর জবাবে ভানু লাল রায় বলেন, মানুষের জন্য কাজ করি। আর কাজ করি বলেই ভুল ক্রটি হতে পারে। সমালোচনার ‍মুখেও পড়তে হয় মাঝে মধ্যে, তবে  এসব নিয়েই সামনে এগুতে হয়। অনেক সময় মিথ্যা প্রপাগাণ্ডায় হতাশা বোধ করি। তিনি বলেন, দীর্ঘ সময় ধরে চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি।ক্ষমতার কাছাকাছি থেকেও কারো বিরুদ্ধে কখনও ক্ষমতার অপব্যবহার করিনি। তিনি বলেন, ‘এই সময়ে স্থানীয় জননন্দিত সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. মো. আব্দুস শহীদ এর অনেক সহযোগীতা পেয়েছি।

তার আন্তরিক সহযোগীতায় এলাকায় অবকাঠামো, শিক্ষা, স্বাস্থ্য,  ক্রীড়া, সড়ক যোগাযোগ, ধর্মীয় সম্প্রীতি ও মানুষের জীবন মানে প্রভূত উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। আমার ইউনিয়নের ডিকশনারীতে চাঁদাবাজী, সন্ত্রাস বলে কোন শব্দ নেই- বলেন তিনি।

ভানু লাল রায় বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমার আদর্শিক পিতাও। তার কন্যা জননেত্রী মাননীয়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার প্রেরনা। সেই আদর্শকে লালন করে আমি আমার ৩৩ বছরের রাজনৈতিক জীবনে কখনো দুর্নীতি করিনি’।

 


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin