সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৬:৪১ অপরাহ্ন



শ্রীমঙ্গলে খাদ্যবান্ধব চাল বিতরণে ছয় নয়

শ্রীমঙ্গলে খাদ্যবান্ধব চাল বিতরণে ছয় নয়


শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি:

শ্রীমঙ্গলে হত দরিদ্রদের সরকারী খাদ্যবান্ধব কর্মসূচী ও এমএস এর চাল নিয়ে ছয় নয় করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। কর্মসূচীর আওতায় খাদ্য সহায়তা সুবিধাভোগী দরিদ্র মানুষদের কাছ থেকে কার্ড কেড়ে নিয়ে অন্যের নামে চাল তুলে বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এনিয়ে উপজেলার সিন্দুরখাঁন ইউনিয়নের সিক্কা ও ডুবাগাও এলাকার বঞ্চিত দরিদ্ররা ওএমএস এর চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন।

জানা গেছে, ২০১৬ সালে সরকারের খাদ্য মন্ত্রনালয় কর্তৃক দেশের হত দরিদ্র মানুষদের খাদ্য সহায়তা দিতে ১০ টাকা কেজির এ খাদ্যবান্ধব কর্মসূচী চালু করে সরকার।
২০১৬ সালে উপজেলার সিন্দুরখাঁন ইউনিয়নে ৬১৫ জন হতদরিদ্র মানুষের তালিকা তৈরী করে জাহাঙ্গীর আলম রুয়েল ও মো. রফিকুল ইসলামকে ডিলার নিয়োগের মাধ্যমে শ্রীমঙ্গল উপজেলায় খাদ্য বান্ধব কর্মসূচী চালু হয়।

অভিযোগ পাওয়া গেছে, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা শুরুতে নিয়ম অনুসারে চাল বিতরণ করলেও ২-১ মাস যেতে না যেতে দরিদ্রদের এই চাল নিয়ে নয় ছয় শুরু করে। অনেক ভুক্তভোগী অভিযোগ করেছেন ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ড এর সদস্য মোছাব্বির মিয়া ৪ নং ওয়ার্ডের সদস্য জাহিদুল ইসলাম যোগসাজসে স্থানীয় হতদরিদ্রদের কাছ থেকে মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে ওএএমএস এর কার্ড হাতিয়ে নেয়। এইসব সবিধাভোগীদের জানানো হয়েছিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্ড চেয়ে পাঠিয়েছেন। এরপর দীর্ঘ দিনেও এই কার্ডগুলোর আর কোন হসিদ পাওয়া যায়নি।

এনিয়ে পরবর্তিতে ভুক্তভোগীরা দফায় দফায় ইউপি সদস্য মোছাব্বির মিয়ার সাথে যোগাযোগ করলে ইউএনও অফিস থেকে তাদের কার্ড বাতিল করা হয়েছে বলে জানানো হয়। জানা গেছে এরপর থেকে এই ইউনিয়নে প্রায় অর্ধশত ওএমএস এর কার্ড জালিয়াতি করে ভূয়া নামে চাল উত্তোলন করে নিজেরা আত্মসাত করে আসছে। কয়েক বছর ধরে এভাবে হত দরিদ্র মানুষজনকে তাদের সুবিধা থেকে বঞ্চিত করে রাখা হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর চাল নিয়ে এই নয় ছয় করে স্থানীয় ডিলার ও ইউপি সদস্য যোগসাজস করে গেল ৪ বছর ধরে সরকারী লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার সিক্কা বাজারে গেলে ওএসএস এর হালনাগাদ তালিকার এই ইউনিয়নের ২ নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা শাহজাজান মিয়া, আরজু মিয়া, ফারুক মিয়া, শুকুর মিয়া, ফয়জুর রহমান, লাল মিয়া, শামিম মিয়া, আব্দুর রহমান, গিয়াস উদ্দিন, আবু মিয়া, আব্দুস সোবহান, জালাল মিয়াসহ অনেক ভুক্তভোগী এ প্রতিবেদকের কাছে এসব অভিযোগ করেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে বঞ্চিত এসব মানুষের বেশীরভাগ হত দরিদ্র। কেউ রিক্সা-ঠেলা চালিয়ে কেউ বা দিন মজুর বা অন্যের জমিতে দিনমজুুরের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করছেন।

ফারুক মিয়া বলেন ‘২০১৬ সালে সাবেক মেম্বার আমার আর্থিক দুরাবস্থায় তৎকালিন মেম্বার ( বর্তমানে মৃত) আমাকে একটি কার্ড দেয়। এই চার বছরে ২ বার মাত্র চাল পেয়েছি এরপর আর চাল না দিয়ে ইউএনও সাহেব কার্ড দেখবে বলে আমার কার্ডটি নিয়ে যায়। তিনি বলেন, মোছাব্বিব মেম্বর এরপর থেকে আমার চাল আত্মসাৎ করে চলেছেন। গরীবের চাল আত্মসাৎ করে পাকা বাড়ি ঘর করেছেন বলে তিনি জানান।
ব্যাটারি চালিত রিক্সা চালক শুকুর মিয়া বলেন ‘চার বছর আগে সরকারী কার্ড পেলেও দুই কিস্তি চাল পাওয়ার পর পর ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য ও ডিলার জাহিদুল ইসলাম আলম কার্ড নিয়ে নেয়। এরপর থেকে আজ পর্যন্ত আর কার্ডও ফেরত পাইনি চালও পাইনি’। ফয়জুর রহমানও একই কথা বলেন। তিনি বলেন ইউএনও সাহেব দেখবে বলে জাহিদুল মেম্বার কার্ড কার্ড নিয়ে গেছে। এরপর থেকে চাল কার্ড কোনটাই ফেরৎপাইনি। তিনি বলেন এ জন্য বিচার চেয়ে ইউএনওর কাছে আবেদন করেছি।

পঞ্চাষোর্ধ দরিদ্র রিক্সা চালক, লাল মিয়া বলেন, ‘আমার কোন ক্ষেত গৃহস্থি নেই, দিন আনি দিন খাই। গরীব বলেই তো সরকার আমাদের কার্ড দিয়েছে। ২ বার চাল দেয়ার পর ৩বারের বার চাল নিতে গেলে আমার কার্ডটি নিয়ে নেয়। এর মধ্যে মেম্বার মোছাব্বির মিয়ার কাছে কার্ডের খোঁজ নিতে গেলে একটি তালিকা দেখিয়ে বলে ইউএনও অফিস থেকে তোমার নাম কেটে দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, গত কয়েকদিন আগে ভোর বেলায় সরকারী চাল সহ এলাকায় এক ব্যক্তি ধরা পড়ে। তার কাছ থেকে শুকুর মিয়ার কার্ড পাওয়া যায়, অথচ অন্যদের মতো আব্দুস শুকুরের কার্ড বাতিল হওয়ার কথা বলেছিল মোছাব্বির মেম্বার। লাল মিয়ার আক্ষেপ, ‘গরীব বলেই তো সরকার কার্ড দিছে তো আবার কেড়ে নেয়া হলো কেন?’

এ ব্যাপারে ২নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোছাব্বির মিয়া বলেন, কেউ চাল পাচ্ছে কি না সে কথা তার জানা নেই। এনিয়ে কেউ তাকে কোন অভিযোগ করেনি।

তিনি বলেন, চাল দেয়া না দেয়ার দায়িত্ব ডিলারের আমার না। তিনি বিষয়টি জানেন না অথচ ভুক্তভোগীরা ইউএনও অফিসে বিচার চেয়ে আবেদন করেছেন- এটা কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে মোছাব্বির মিয়া বলেন, এটাও আমি শুনিনি। এক পর্যায়ে তিনি সরাসরি যোগাযোগ করার প্রস্তাব দেন প্রতিবেদককে।
খোজঁ নিয়ে এই ইউনিয়নের ৬১৫ জন কার্ডধারীর জন্য খাদ্য বিভাগ থেকে জাহাঙ্গীর আলম রুয়েল ও মো. রফিকুল ইসলাম নামে যে ২ ডিলার নিয়োগ করা হয় হলেও ইউনিয়নের বেশীরভাগ মানুষ জাহাঙ্গীর হোসেনকে ডিলার হিসেবে চেনেন না। সবাই জানে ইউপি সদস্য জাহিদুল ডিলার। অভিযোগ পাওয়া গেছে ইউপি সদস্য জাহিদুল স্থানীয় প্রশাসন ও খাদ্য বিভাগের এক শ্রেণীর দুর্নীতিবাজ কর্মচারীদের সহাতায় ক্ষমতার প্রভাব খাঁটিয়ে ডিলারশীপ পরিচালনা করছেন। মূল ডিলারকে শুধু নামে রেখে নিজে ডিলারশীপ পরিচালনা করতেন।

সরকারী চাল বিতরণে অনিয়ম করে হত দরিদ্র মানুষদের চাল আত্মসাত করলেও কর্মসূচী বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরে ৪ বছরেও কেন আসেনি তা প্রশ্ন হয়ে দেখা দিয়েছে।
জানতে চাইলে শুরুতেই ইউপি সদস্য জাহিদুল ইসলাম এই বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানান। ভুক্তভোগীদের কাউকে চেনেন না বা কেউ তার কাছে এমন অভিযোগ দেয়নি বলেও জানান। তিনি ডিলার না অথচ ডিলার পরিচয়ে লোকজনদের কাছ থেকে কার্ড নিয়ে রেখেছেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমি তো ডিলার না, আমি কেন কার্ড নেব নিতে যাব’। তবে তিনি ‘জাহিদ ডিলার হিসেবে অনেকে তাকে চেনেন’ বলে জানান।

এ ব্যাপারে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলে সিন্দুরখাঁন ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হেলাল এর মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এছাড়া শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে ফোন দেয়া হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। তবে উপজেলা খাদ্য কর্মকর্তা তকদির হোসেন বলেন ‘বিষয়টি নিয়ে আমরা ইতিমধ্যেই তদন্ত করার জন্য নির্দেশনা পেয়েছি, তদন্ত কাজ শুরু হবে খুব শিঘ্রই প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে’। ‘সরকারী চাল বিতরণ নিয়ে কোন অনিয়ম হলে অবশ্যই আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে’ বলে জানান এই কর্মকর্তা।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin