বুধবার, ১২ মে ২০২১, ১১:১১ অপরাহ্ন

শ্রীমঙ্গলে চারতলা স্কুল ভবন নির্মাণ কাজে অনিয়মের অভিযোগ

শ্রীমঙ্গলে চারতলা স্কুল ভবন নির্মাণ কাজে অনিয়মের অভিযোগ


শেয়ার বোতাম এখানে

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে একটি স্কুল ভবন নির্মাণে সরকারী কাজের অনিয়মের খবর পাওয়া গেছে। উপজেলার সিন্দুরখান ইউনিয়নের হাজী মনছব উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয় একাডেমিক চারতলা ভবন নির্মাণ কাজে অনিয়মের ঘটনা উল্লেখ করে প্রধান প্রকৌশলী বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছে বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি।

জানা গেছে, শিক্ষা মন্ত্রনালয়ের অধিন শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের বাস্তবায়নাধিন প্রায় আড়াই  কোটি টাকা ব্যয়ে উপজেলার সিন্দুরখান ইউনিয়নের হাজী মনছব উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয় একাডেমিক চারতলা ভবন নির্মাণের জন্য ২০১৮ সালের ১ অক্টোবর দরপত্র আহবান করা হয়। গত ১৮ জানুয়ারী ‘মেসার্স/ কে আলী প্রকৌশলী’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান ১৮ মাসে মেয়াদে ২ কোটি ৭৩ লাখ ৯০ হাজার ৬শ’ ৫১ টাকায় ভবন নির্মাণ কাজের কার্যাদেশ পায়। অভিযোগ উঠেছে কাজ শুর থেকে স্কুল ভবন নির্মাণে নিম্ন মানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার ও শিডিউল মোতাবেকক কাজ না করায় বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটি প্রথমে আপত্তি তোলে। এতে কাজ না হওয়ায় তারা সভা ডেকে  একটি তদারকি কমিটি গঠন করে। জানা গেছে, তদারকি কমিটি থেকেও কাজের অনিয়মের বিষয়ে অভিযোগ দিলেও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কোন কিছুর তোয়াক্কা না করে ইচ্ছে মাফিক  ভবন নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সরফরাজ আলী  বাবুল। বিষয়টি মৌলভীবাজার জেলার শিক্ষা বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী অবহিত করা হলেও কোন প্রতিকার না পেয়ে সর্বশেষ মানেজিং কমিটি গত ৮ মে এডুকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্ট প্রধান  প্রকৌশলী শিক্ষা ভবন (২য় ভবন)  ঢাকা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করা হয়। এতে সরকারী ভবন নির্মাণে এই অনিয়ম ও দুর্নীতিতে জেলা নির্বাহী প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানকে ইন্ধন দেয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

স্কুলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি সরফরাজ আলী বাবুল বলেন, ‘স্থানীয় সংসদ সদস্যর আন্তরিক প্রচেষ্টায় এখানে ৪তলা ভবন হচ্ছে। গত বছর ৭ নভেম্বর এমপি মহোদয়  ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। কিন্তু কার্যাদেশ পাওয়ার পরপরই ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান নিম্ম মানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে ছাদ ঢালাই কাজ করছেন। শিডিউল পরিমাপ অনুযায়ী ছাদ ও বিমের উচ্চতা ও প্রস্তের সঠিক মাপে কাজ  হচ্ছে না। এছাড়া মোটা খোয়াই বালু দেয়ার কথা থাকলেও নিম্ন মানের স্থানীয় চিকন দানার বালু ব্যবহার করায় নির্মাণ কাজের মান খারাপ হচ্ছে। একারণে স্কুল কমিটি থেকে তদারকিকমিটি করে আপত্তি দেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান।

ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান কে আলী’র সত্ত্বাধিকারী মিনার আহমেদ বলেন, নির্মাণ কাজের মান নির্ণয়ে কেবল সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী বৈধ কর্তৃপক্ষ, অন্য কেই নয়। তিনি বলেন, ছাদ ঢালাই পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে উপস্থিত থাকার আহবান করা হয়েছিল। ব্যস্ততার জন্য তিনি আসেননি। পরে তাঁর অনুমতি নিয়ে সহকারী ইঞ্জিনিয়ারের উপস্থিতিতে ঢালাই দেয়া হয়েছে। মিনার আহমেদ বলেন, কাজে প্রয়োজনে মোটা চিকন দুই ধরনের বালুই ব্যবহার করা হয়েছে। কাজের প্রয়োজনে  ব্রিক জয়ের্ন্টসহ কোথাও কোথাও মোটা ও চিকন দানার বালু কম্বিশন করতে হয়।

ভবন নির্মাণ কাজ খারাপ হওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের সহকারী ইঞ্জিনিয়ার নাজমুল ইসলাম জানান, ঢালাই কাজে সার্টারে নিম্ন মানের ষ্টীল সীটের ব্যাপারে স্কুল ম্যানেজিং কমিটি থেকে আপত্তি দেয়া হয়েছে।  তিনি বলেন, এ কাজের সাথে সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগের কর্মকর্তারা অবগত আছেন। যে কারণে কাজ খারাপ হওয়ার সুযোগ নেই। এটা আমি গ্যারান্টি দিয়ে বলতে পারি।

 



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin