সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:১৫ পূর্বাহ্ন


শ্রীমঙ্গলে নতুন কমিটি নিয়ে বিএনপিতে দ্বিধা-বিভক্তি

শ্রীমঙ্গলে নতুন কমিটি নিয়ে বিএনপিতে দ্বিধা-বিভক্তি


শেয়ার বোতাম এখানে

আবুজার বাবলা, শ্রীমঙ্গল : মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলা ও পৌরসভার নতুন আহবায়ক কমিটি নিয়ে দ্বিধা-বিভক্তি স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। দলীয় কোন্দলে বিপর্যস্ত সংগঠনটির তৃনমূল নেতাকর্মীরা বলেছেন, সমন্বিত একটি কমিটি যেখানে দলকে ঐক্যবদ্ধ করার সুযোগ সৃষ্টি করার কথা কিন্তু নব-গঠিত কমিটির তালিকায় সক্রিয় ও ত্যাগী নেতাকর্মীর নাম নেই। ফলে শ্রীমঙ্গলে বিএনপিতে দলীয় মতবিরোধ আরও বাড়বে।

মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি এম. নাসের রহমান গত ১৮ফেব্রুয়ারি মো. মোয়াজ্জেম হোসেন মাতুককে আহবায়ক ও নুরে আলম সিদ্দিকীকে সদস্য সচিব করে ৩১ সদস্য বিশিষ্ট শ্রীমঙ্গল উপজেলা এবং জয়নাল চৌধুরীকে আহবায়ক ও মো. মোছাব্বির আলী মুন্নাকে সদস্য সচিব করে ২১ সদস্য বিশিষ্ট শ্রীমঙ্গল পৌর বিএনপির আহবায়ক কমিটি ঘোষনা করেন। গত রোববার এই দুই কমিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করা হয়।

জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি নাসের রহামন স্বাক্ষরিত কমিটি দুটিতে মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মৌলভীবাজার সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ভিপি মিজানুর রহমান মিজানের স্বাক্ষর না থাকায় কমিটি দুটির বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেক নেতাকর্মী। তারা বলেছেন, কমিটি গঠনে দলীয় গঠনতন্ত্র অনুস্বরণ করা হয়নি।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিজান জানান, এই কমিটি দুটি গঠনে দলীয় ফোরামে কোন সভা আহবান করা হয়নি। ফেসবুকে এই কমিটির কথা জেনেছি। নিয়ম অনুসারে কমিটি অনুমোদনে সভাপতির পাশাপাশি সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আমার স্বাক্ষর নেয়া হয়নি।

তিনি বলেন, জেলা বিএনপির সভাপতি এম নাসের রহমানের বাড়ির ড্রয়িং রূমে বসে এই কমিটি গঠন করেছেন। এই কারনে কমিটিতে বাদ পড়া অনেক ত্যাগী নেতাকর্মী আমার কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইছেন। আমি সবাইকে বলেছি এটা দলের গঠনতন্ত্র মোতাবেক হয়নি। এজন্য কেন্দ্রের হস্তক্ষেপ চাইবেন বলে জানান তিনি।

শ্রীমঙ্গল পৌর বিএনপির সাবেক সভাপতি সরফরাজ আলী বাবুল জানান, সভাপতির খেয়াল খুশিমত এই কমিটি গঠন করা হয়েছে। এর ফলে বিএনপির অসংখ্য নেতাকর্মী বাদ পড়েছে।

ঘোষিত এই কমিটি গঠনের বিষয়ে প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বিএনপি নেতা শ্রীমঙ্গল পৌর মেয়র মহসিন মিয়া মধু বলেন, কমিটি গঠন বিষয়ে আমি কিছুই জানিনা। তবে ফেসবুকে কমিটির তালিকায় যাদের নাম দেখেছি বিএনপির মতো রাজনৈতিক দলের নেতা হওয়ার মতো তাদের উল্লেখযোগ্য সামাজিক ও রাজনৈতিক অবস্থান তাদের নেই।

দ্বিধা বিভক্ত উপজেলা বিএনপির একাংশের সাবেক সাধরণ সম্পাদক ও ঘোষিত কমিটির প্রথম যুগ্ম আহবায়ক ইয়াকুব আলী জানান, সম্প্রতি জেলা বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের এক নেতা শ্রীমঙ্গলে কমিটি গঠন প্রক্রিয়ায় বিবাদমান দু’পক্ষের সাথে আলোচনা করেন। এ নিয়ে উভয় পক্ষের কাছ থেকে পৃথক দুটি তালিকাও নেন। এই তালিকা দুটি সমন্বয় করে কমিটি গঠন করার কথা ছিল।

কিন্তু ঘোষিত কমিটিতে আমাদের দেয়া তালিকার কোন প্রতিফলন ঘটেনি। শ্রীমঙ্গল পৌর মেয়র মহসিন মিয়া মধু, উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি প্রবীন রাজনীতিবিদ আতাউর রহমান লাল হাজীর মতো নেতার স্থান কমিটিতে হয়নি। যারা কমিটিতে নাম লিখিয়েছেন তাদের সর্বজন গ্রহনযোগ্যতা নেই-ফলে এই কমিটি কোন দিনই আলোর মুখ দেখবে না। আর একটি নিষ্ফল কমিটির নেতৃত্ব দেয়া আমার পক্ষে সম্ভব না বলে তিনি জানান।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কেন্দ্রীয় বিএনপির নির্বাহী সদস্য হাজি মুজিবুর রহমান চৌধুরী (হাজি মুজিব) বলেন, জেলা কমিটির সভাপতি এম. নাসের রহমান শ্রীমঙ্গলের জন্য একটি যথাযথ ও সুন্দর একটি কমিটি উপহার দিয়েছেন। বিএনপির নিবেদিত প্রাণ অতিতে দলীয় কর্মসূচীতে অংশ নিয়ে যারা মামলা, হামলার শিকার হয়েছেন তাদেরই স্থান দেয়া হয়েছে। যারা কমিটির সমালোচনা করছেন তারা মূলত বিএনপির কেউ নয়, সরকারীদলের সমর্থনপুষ্ট’।

দুইভাগে বিভক্ত শ্রীমঙ্গল উপজেলা বিএনপির এক অংশে রয়েছেন কেন্দ্রীয় বিএনপির নির্বাহী সদস্য হাজি মুজিবুর রহমান (হাজী মুজিব) অপর অংশের নেতৃত্বে রয়েছেন আতাউর রহমান লাল হাজী ও পৌর মেয়র মহসিন মিয়া মধু। নতুন উপজেলা আহবায়ক এই কমিটিতে এই দুই ত্যাগী নেতার নাম না থাকায় বিষ্ময় প্রকাশ করেছেন স্থানীয় নেতাকর্মীরা।

দলীয় কোন্দলে বিপর্যস্ত শ্রীমঙ্গল উপজেরা ও পৌর বিএনপির এই দুই কমিটি দলীয় বিভক্তি আরও বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্ট তৃনমূল নেতাকর্মীরা । মাঠ পর্যায়ের অনেক নেতাকর্মীদের সাথে কথা হয় এ প্রতিবেদকের সাথে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এ জন্য বেশীরভাগ নেতাকর্মী জেলা বিএনপির সভাপতির একক স্বেচ্ছাচারিতাকে দায়ী করছেন।

এ বিষয়ে মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি এম. নাসের রহমান সাংবাদিকদের জানান, ১৮ বছর থেকে বিএনপির রাজনীতি করছি। ১৭বছরে অনেক কমিটি করেছি, একক স্বাক্ষর দিয়ে। এখন কেন সম্পাদকের স্বাক্ষরের প্রশ্ন উঠছে। এমন কোন ওহি নাজিল হয়েছে যে সম্পাদকের স্বাক্ষর ছাড়া কমিটি অনুমোদন হবে না।

তিনি বলেন, কমিটি গঠন নিয়ে সম্পাদককে জানানো হয়েছে, তিনি আসেননি। কমিটিতে স্বাক্ষরের জন্য লোক পাঠানো হয়েছে, তিনি স্বাক্ষর করেননি। সম্পাদকের জন্য কি কমিটি গঠন হবে না? সাধারণ সম্পাদকে স্বাক্ষর ছাড়া কমিটি কতটুকু বৈধতা পাবে?

এমন প্রশ্নের জবাবে জেলা বিএনপির সভাপতি এম নাসের রহমান বলেন, সম্পাদক কমিটি প্রস্তাব করতে পারে কিন্তু চুড়ান্ত অনুমোদন দেয়ার কথা সভাপতির। সভাপতি হিসেবে আমি কমিটি অনুমোদন দিয়েছি এবং সম্পাদকের অনুপুস্থিতিতে সাংগঠনিক সম্পাদক স্বাক্ষর করেছেন, এনিয়ে বিতর্কেও কোন অবকাশ নেই।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin