বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০২:৫৬ পূর্বাহ্ন



শ্রীমঙ্গলে সড়কের কাজ বন্ধ রাখায় ভোগান্তিতে মানুষ

শ্রীমঙ্গলে সড়কের কাজ বন্ধ রাখায় ভোগান্তিতে মানুষ


শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি:

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলের আশিদ্রোন ইউনিয়নের অতিগুরুত্বপূর্ণ কালিবাড়ি সড়কটি অর্ধেক কাজ করে বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ভুগান্তিতে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। খানাখন্দে ভরা ও অর্ধেক কাজের কংক্রিটের উপর দিয়ে প্রায় ঝুঁকি নিয়েই এখন চলছে যানবাহন। রাস্তা খারাপ থাকায় দিন দিন বাড়ছে ভাড়ার পরিমান। রাস্তার বর্তমান অবস্থার জন্য ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে দায়ী করছেন উপজেলা প্রকৌশলী।
শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রকৌশলী কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে, গত বছরের ২ জুন রাস্তাটির কাজ শুরু হয়। ঢাকার ডলি কনট্রাকশন নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান রাস্তার কাজটি পায়। তাদের সাথে চুক্তি ছিলো এ বছরের অক্টোবর মাসের মধ্যে তারা কাজ শেষ করবে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে আছিদ উল্লাহ স্কুল চৌমুহনা থেকে রসুলপুর বাজার পর্যন্ত ৬.৭৯ কিলোমিটার রাস্তাটি পূর্ন নিমার্নের জন্য বিভিন্ন জায়গায় খুড়ে রাখা হয়েছে। রাস্তার কিছু জায়গায় গর্ত হয়ে পানি জমে আছে। কিছু জায়গায় কংক্রিট (ইট) বিছানো। দীর্ঘদিন কাজ না করার ফলে এসব কংক্রিটের ফাক ফোক দিয়ে ঘাস ও লতাপাতা জন্ম নিচ্ছে। বর্তমানে অর্ধেক কাজ করা এই রাস্তা দিয়ে প্রায় ঝুঁকি নিয়েই যানবাহন চালিয়ে যাচ্ছেন যাত্রীরা।

এই রাস্তায় চলাচলকারী সিএনজি অটোরিকশা চালক মো. ফারুক মিয়া বলেন, রাস্তাটি দীর্ঘদিন ধরে ভাঙ্গাচোরা ছিলো। কয়েকমাস আগে রাস্তার কাজ শুরু হয়। রাস্তাটি পুরোপুরি ভেঙ্গে কংক্রিট ফেলা হয়। এরপর কাজ এখানেই সমাপ্ত হয়ে যায়। এখন কংক্রিটের উপর দিয়ে আমরা সিএনজি চালিয়ে যাচ্ছি। এতে করে অনেক কষ্ট করে আমাদের সিএনজি চালাতে হয়। ধীরে ধীরে চালাতে হয় সিএনজি। প্রায়ই সিএনজির চাকা ও অন্যান্য যন্ত্রপাতি নষ্ট হচ্ছে। কোন রোগী নিয়ে যাওয়া যাচ্ছে না।

রসুলপুর বাজারের ব্যবসায়ী ফারুক মিয়া বলেন, রসুলপুর বাজার থেকে আগে শ্রীমঙ্গল শহরের সিএনজি ভাড়া ছিলো ২০ টাকা। রাস্তার খারাপ হওয়ার কারনে এখন ৪০ টাকা ভাড়া দিতে হয়। রাস্তা এমন ভাবে পড়ে রয়েছে যে চলাচল করা অনেক কষ্টদায়ক ও ঝুঁকিপূর্ন। ব্যবসার জন্য আমাদের প্রায় প্রতিদিনই শহরে যেতে হচ্ছে। এভাবে অর্ধেক কাজ করে ফেলে রাখার মানে হয় না।

শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রকৌশলী সঞ্জয় মোহন সরকার বলেন, এই রাস্তার কাজটি ঢাকার ডলি কন্সট্রাকশন নামে একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দায়িত্ব নেয়। একটি ঠিকাদাররাস্তাটির কাজের দায়িত্ব নেয়া ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি ননরেপনসিবল প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানটি সারা দেশে সরকারি কাজ নিয়ে থাকে। তাদের সমস্যা হচ্ছে কাজ নিয়ে ফেলে রাখে। আমরা অনেকবার বলার পর কিছুটা কাজ করেছে।
এখন আবার কাজ বন্ধ করে রেখে দিয়েছে। আমরা তাদের কাজ বাতিলেল জন্য এ মাসের ৪ তারিখে আমাদের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে সুপারিশ করেছি। এরা এভাবে কাজ বন্ধ রেখে জনদুর্ভোগ সৃষ্টি করে রাখে তাহলে আমরা ডিপার্টমেন্টালি বিষয়টি এলাও করতে পারিনা। প্রয়োজন পড়লে আমরা নতুন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দিয়ে কাজ করাবো। আমরা অনেক বার তাদেরকে চিঠিপত্র দিয়েছি কিন্তু তাদের কোন রেসপন্স দেখছি না। তারা যে গতিতে কাজ করছে তাতে করে তাদেরকে দেয়া সময়ের ভিতর কাজ করতে পারবে বলে মনে হচ্ছে না।


সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin