শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:১৭ অপরাহ্ন


সফল জীবনের সন্ধানে

সফল জীবনের সন্ধানে


শেয়ার বোতাম এখানে

এতেশামুল হক ক্বাসিমী

মানবজীবনে কল্যাণ-মঙ্গল ও সফলতা দু’টি বিষয়ের উপর নির্ভরশীল। এর একটি হলো ‘সালাহ’ আর অপরটি হলো ‘ইসলাহ’। এই শব্দ দুনোটাই আরবি। সালাহ শব্দের অর্থ হচ্ছে নিজে সংশোধন হওয়া। আর ইসলাহ’র অর্থ হচ্ছে অন্যকে সংশোধন করা। ভিন্ন ভাষায় বলা যায়, নিজে যোগ্য হওয়া এবং অন্যকে যোগ্য করে গড়ে তোলা। যার সারমর্ম হচ্ছে ইসলামি শিক্ষা। ইসলামি শিক্ষা নিছক ব্যক্তিকল্যাণের উপর সীমাবদ্ধ নয়। তাকে অকর্মক বা ব্যক্তির গণ্ডির ভিতরে সীমাবদ্ধ রাখা হয়নি। তাকে স্বকর্মক করা হয়েছে। অর্থাৎ একের গণ্ডি পেরিয়ে অন্য পর্যন্ত বিস্তৃত হতে হবে। পবিত্র কোরআনের অসংখ্য আয়াত ও অগণিত হাদীস এর প্রমাণ বহন করে। স্বল্প পরিসরে তার ব্যাখ্যা দেয়া আদৌ সম্ভব নয়। অতি সংক্ষেপে বিষয়টি তুলে ধরার চেষ্টা করবো।

সালাহ’র হাকীকত বা স্বরূপ:

‘সালাহ’ তথা নিজে সংশোধন বা যোগ্য হওয়ার বুনিয়াদও দু’টিঃ
এক. ইলমে নাফে’ বা আমলের প্রতি উৎসাহোদ্দীপক জ্ঞান।
দুই. খুলুকে আদিল বা ভারসাম্যপূর্ণ নৈতিক চরিত্র।
ইলম বা জ্ঞান মানুষকে পথ দেখায়। আর ভারসাম্যপূর্ণ চরিত্র তাকে উক্ত পথে পরিচালিত করে, যার সম্মুখপানে রয়েছে সালাহ বা আত্মসংশোধনের মানযিলে মাকসাদ। জ্ঞান ছাড়া হকের পথই অপরিচি থাকে। ফলে চলার অবকাশই সৃষ্টি হয় না। আর আমলের অন্তর্নিহিত শক্তিরূপ, চারিত্রিক মাধুর্যতা না থাকলে প্রদর্শিত পথে চলার শক্তিই আসতে পারে না। সুতরাং জ্ঞান হলো পথ আর চরিত্র হলো চলার শক্তি। বলা বাহুল্য যে, শুধু পথ থাকলেই যেভাবে মানযিলে মাকসাদে পৌঁছা যায় না, তদ্রূপ শক্তি থাকলেও চলা সম্ভব হয় না; বরং পথ এবং উক্ত পথে চলা- এই উভয়টার সমন্বয়েই গন্তব্যে পৌঁছার রহস্য নিহিত রয়েছে। উপরুক্ত আলোচনা দ্বারা এটাই ফুটে উঠলো যে, বিশুদ্ধ জ্ঞানার্জন ও চরিত্রের ভারসাম্যতা তথা ইলিম ও আমলই হলো সালাহ ও সংশোধনের হাক্বীকত বা স্বরূপ।

ইসলাহের হাকিকত:

ইসলাহ বা অন্যকে সংশোধন করার মতলব হলো- সহীহ ইলম অন্যের নিকট পৌঁছে দেয়া এবং তার আখলাক ও নৈতিক চরিত্রকে সংশোধন করে দেয়া। ইলম পৌঁছে দেয়াকে তালিম আর চরিত্রের ভারসাম্যতা বিধানকে তারবিয়্যাত বলে অবিহিত করা হয়। অতএব তালিম ও তারবিয়্যাতই হলো ইসলাহের হাকীকত বা অন্যকে সংশোধন করার স্বরূপ।

সালাহ ও ইসলাহের গুরুত্ব:

নিজের সংশোধনের উপায় হলো ইলিম ও আখলাক অর্জনের পথে সাধনা ও পরিশ্রম করা এবং অপরকে সংশোধনের মাধ্যম হলো দাওয়াত, তাবলিগ ও উপদেশ প্রদান করা। অতএব মানব সৌভাগ্য ও সফলতার পূর্ণতা বিধানের উপায় কী তার ব্যাখ্যাও উক্ত আলোচনা দ্বারা সুস্পষ্ট হয়ে গেলো যে, নিজে আলেমে বাআমল হয়ে অন্যদেরকেও দাওয়াত ও তাবলিগের মাধ্যমে আলেমে বাআমল বানানো। সুতরাং মানুষ আত্মসংশোধনের যত শীর্ষস্থানের অধিকারী হোক না কেনো যতক্ষণ পর্যন্ত সাধ্যানুপাতে সে অন্যের নিকট এই হেদায়াত ও সালাহ পৌঁছে দেয়ার প্রতি যত্নবান না হবে, ততক্ষণ সে তার দায়িত্ব থেকে নিষ্কৃতি পাবে না। এ কারণেই ইসলামি শরিয়ত এক দিকে যেমন তার অনুসারীদেরকে ব্যক্তি সংশোধন ও ব্যক্তি সৌন্দর্য সাধনের নিমিত্তে ইলম আমল ও এতেকাদ সম্বলিত এক সুবিস্তৃত প্রোগ্রাম অনুযায়ী চলার নির্দেশ দিয়েছে, তেমনিভাবে এই কর্মসূচী অন্যকে শিক্ষা দেয়ার জন্যে দাওয়াত ও তাবলীগের ব্যাপারেও জোর হুকুম প্রদান করেছে; যাতে করে একের দ্বারা অন্যরাও গড়ে উঠতে পারে। পবিত্র কুরআনে বলা হয়েছে- “তুমি আহ্বান করো আপন প্রতিপালকের পথপানে জ্ঞানের কথা শুনিয়ে ও উত্তম উপদেশের মাধ্যমে। এবং তাদের সাথে বিতর্ক করো পছন্দযুক্ত পন্থায়। নিশ্চয় তেমার প্রতিপালকই সেই ব্যক্তি সম্পর্কে সবিশেষ অবগত আছেন, যে তাঁর পথ থেকে বিচ্যুত হয়ে পড়েছে এবং তিনিই ভালো জানেন তাদেরকে, যারা তার পথে চলে”। (সূরা নাহলঃ আয়াত, ১২৫)
কুরআনের অন্যত্র বলা হয়েছে- “তোমরা হলে শ্রেষ্ঠ জাতি। তোমাদেরকে মানবতার কল্যাণে দুনিয়াতে পাঠানো হয়েছে। তোমরা মানুষকে সৎকাজের আদেশ দেবে এবং অসৎ কাজ থেকে বাধা প্রদান করবে”।
(সূরা আলে ইমরানঃ আয়াত, ১১০)।

লেখক- সিনিয়র মুহাদ্দিস : জামিয়া দারুল কুরআন সিলেট


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin