সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:৪৩ পূর্বাহ্ন


সম্মেলনের সাতকাহন

সম্মেলনের সাতকাহন


শেয়ার বোতাম এখানে

মবরুর আহমদ সাজু
বহু প্রতীক্ষিত আওয়ামী লীগ সম্মেলন শেষ হয়েছে নানা ঘটন অঘটনের। নগরীর আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে বৃহস্পতিবার সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে আলিয়া মাদরাসা মাঠে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের ছিল মিলনমেলা। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন দলের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি। প্রধান অতিথির আগমনের পর মঞ্চে আসন গ্রহণ করলে সেলফি নেতাদের ঠেলায় সাংবাদিকরা ছবি তুলতে হিমশিম খান। মঞ্চের সামনের জায়গা দখল করে সেলফি নেতারা বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি করে ছবি তুলতে থাকলে অনেকেই বিব্রতবোদ করেন। শেষে পুলিশি হস্তক্ষেপে সেলফি নেতারা সরতে বাধ্য হন।
জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সম্মেলনে প্রধান অতিথি ছিলেন, দলের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এমপি। প্রধান অতিথি বক্তব্য প্রদানকালে মঞ্চের কিছু ব্যক্তি হৈ চৈ করতে থাকলে ক্ষেপে যান মন্ত্রী। এক পর্যায়ে হৈ চৈ থামাতে তিনি বলে ওঠেন ‘ডন্ট সাউট’
মন্ত্রী বলেন, সামনে মানুষ দেখি এক, আর বিলবোর্ডে মানুষ দেখি আরেক। আমাদের এমন নেতা দরকার নেই। আমাদের দরকার সাচ্চা নেতা, দুঃসময়ের নেতা ত্যাগী নেতা ও যোগ্য নেতা দরকার । মন্ত্রীর বক্তব্যের সমর্থনে দর্শক শ্রোতা গ্যালারী করতালিতে মুখরিত হয়ে ওঠেন।
সেলিনা মোমেনকে নিয়ে সম্মেলনে নারী নেত্রীরা : সিলেটে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনের সহধর্মীনি সেলিনা মোমেনকে নিয়ে নারী নেত্রীরা মঞ্চের সম্মুখে বসেন। সম্মেলনে নারীনেত্রীদের সরব উপস্থিতি পরিলক্ষীত হয়েছে। সকাল থেকে নারী নেত্রীরা সম্মেলনস্থলে আসতে শুরু করেন। এতে শতাধিক নারীনেত্রী উপস্থিত ছিলেন। এর মধ্যে ছিলেন সিলেট বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মারিয়াম মাম্মী, জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান এ জেড রওশন জেবীন রুবা, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী, শাহানারা বেগম, এডভোকেট সালমা সুলতানা, হেলেন আহমদ, সাবিনা সুলতানা, সাহানা বেগম প্রমুখ।
মিছিলের শহর সিলেট : মহানগর ও জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সম্মেলনে প্রধান অতিথি দলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ কে স্বাগত জানিয়ে মিছিলে মিছিলে স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে সিলেট নগরী। দূর দূরান্ত থেকে আসা এসব নেতাকর্মীদের সরব উপস্থিতিতে জনসমুদ্রে পরিণত হয় আলিয়ার মাঠ।
আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতা : আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সম্মেলনে আইন শঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের তৎপরতা ছিলো লক্ষণীয়। গোটা সিলেটকে ঢেকে দেয়া হয় নিরাপত্তার চাদরে। প্রশাসনের কঠোর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিরামহীন অক্লান্ত পরিশ্রম করতে দেখা যায়।
রঙ বে-রঙয়ের ব্যানারে আত্মপ্রচারকারীদের’ ভীড়ে ব্যতিক্রম ছিলেন জগলু চৌধুরী : নগরীর আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে অনুষ্ঠিত জেলা মহানগর আওয়ামী লীগের প্রতিনিধি সভায় রঙ-বেরঙয়ের ব্যানার ও ফেস্টুনে ছেয়ে যায় পুরো মাঠ। জেলার বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিন¤্র শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও প্রধান অতিথি ওবায়দুল কাদেরকে অভিনন্দন জানিয়ে এবং সম্মেলন সফল করার আহ্বান জানিয়ে নানা রঙের ব্যানার টাঙানো হয়।
এদিকে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন ঘিরে সকল নেতাকর্মী যখন ব্যানার-ফেস্টুন আর বিলবোর্ডের ‘আত্মপ্রচারে’ ব্যস্ত। তখনও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি জগলু চৌধুরী ভুলেননি দলের প্রয়াত নেতাদের। নিজে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হলেও তিনি প্রয়াত নেতাদের স্মরণ করেই টানিয়েছেন ফ্যাস্টুন। যেখানে তাঁর কোন ছবি নেই। শুধু ছোট করে নিচে নাম লেখা রয়েছে। এ কারণে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের প্রশংসায় ভাসছেন তিনি ।
খাবার নিয়ে হট্টগোল : সম্মেলনে আগত নেতা-কর্মীদের জন্য ছিল আপ্যায়নের ব্যবস্থা। কিন্তু নেতা-কর্মীর তুলনায় খাবারের পরিমাণ কম হওয়ায় খাবার নিয়ে নেতা-কর্মীরা হট্টগোল বাধিয়ে দেন। বেলা পৌনে ১২টার দিকে আলিয়া মাদরাসা মাঠে হওয়া এ সম্মেলনে দুটি গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে ‘খাবার নিয়ে’ মারামারি হয়েছে। এসময় উভয়পক্ষ চেয়ার ছোড়াছুড়ি করে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে আলিয়া মাদরাসা মাঠে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে নেতাকর্মীরা আসতে শুরু করেন। বেলা ১টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্যবিষয়ক সম্পাদক ডা. আরমান আহমদ শিপলুর অনুসারীরা দুপুরের খাবার নিয়ে আসেন সম্মেলনস্থলে। এ খাবার নিয়ে হুড়োহুড়ি দেখা দেয়। একপর্যায়ে অপর একটি গ্রুপের নেতাকর্মীদের সাথে তাদের বাদানুবাদ শুরু হয়। উভয়পক্ষ মারামারিতে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় উভয়পক্ষ চেয়ার ছুড়তে থাকে। পরে দায়িত্বশীল নেতাদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।
সম্মেলনে অসুস্থ হলেন তিন চিত্রসাংবাদিক : আলিয়া মাদরাসা মাঠে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সকাল থেকে দায়িত্ব পালন ও গরমের কারণে তিন চিত্রসাংবাদিক অসুস্থ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সকাল থেকে আওয়ামী লীগের সম্মেলনে পেশাগত দায়িত্ব পালন করছিলেন সাংবাদিকরা। অসুস্থ সাংবাদিকরা হলেন শুভ প্রতিদিন পত্রিকার চিত্রসাংবাদিক শহীদুল ইসলাম সবুজ, সিলেট মিরর পত্রিকার চিত্রসাংবাদিক এইচ এম শহীদুল ইসলাম, বাংলাভিশন টিভির ক্যামেরাপার্সন টিটু তালুকদার। অসুস্থ হয়ে পড়া সাংবাদিকদের প্রাথমিক সেবা প্রদান করেন তাদের সাথে থাকা অন্য সহকর্মীরা।
হকারদের জমজমাট বাণিজ্য : ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের সম্মেলন উপলক্ষ্যে জমজমাট বাণিজ্য করছে হকাররা। আলিয়া মাদ্রাসার মাঠে অনুষ্ঠিত এ সম্মেলনে আশপাশের হকারদের বেচাবিক্রি বেড়েছে কয়েক গুণ। হকারদের কারণে সম্মেলনে আসা অতিথিদের প্রয়োজন যেমন মিটছে, অন্যদিকে হকাররাও আয় করে নিচ্ছেন এ থেকে। বন্দর থেকে আসা এক হকার আরিফ। বলেন, সারা দিন রোদ ছিল। অত্যধিক গরমে পানির চাহিদা ছিল সবচেয়ে বেশি।
ফেসবুক লাইভ : সম্মেলনে এবার সবচেয়ে বড় আকর্ষণ ছিল ফেসবুক লাইভ। কর্মীরা তাদের ফেসবুক পেজে দিনব্যাপী সম্মেলন লাইভ করেন।
হাতের ক্যানভাসে জয় বাংলা : আওয়ামী লীগের সম্মেলনে আগতদের হাতে হাতে আঁকা হচ্ছে জয় বাংলা। এছাড়া নগর ও জেলা থেকে আসা নেতাকর্মীরা সম্মেলনের আশপাশে দল বেঁধে ঘুরে ঘুরে আওয়াজ তুলছেন ‘জয় বাংলা’ স্লোগান।
স্মরণকালের সেরা আয়োজন : ‘শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলেছি দুর্বার, এখন সময় বাংলাদেশের মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার’ এমন প্রত্যয় নিয়ে নগরীর আলিয়া মাদ্রাসার
মাঠে হয়ে গেলো সম্মেলন। নেতাকর্মী ছাড়া ও সিলেটের জনতার উপস্থিতি ছিলো বেশ সরগরম দর্শকরা বলেছেন স্মরণকালের সেরা আয়োজন হয়েছে এবার।
সড়কে সড়কে লাল-সবুজ : সম্মেলনকে কেন্দ্র করে পুরো সিলেটকে সাজানো হয় নতুন রূপে। নগরীর প্রধান প্রধান সড়কগুলোতে লাগানো হয় ব্যানার ফেস্টুনে। কয়েকটি স্থানে ডিজিটাল ভাবে বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ বাজানো হয়। এছাড়া নগরীর বিভিন্ন জায়গায় নির্মাণ করা হয়েছে তোরণ।
আবারও ক্ষমতায় যেতে চায় আওয়ামী লীগ : কাউন্সিলে তৃণমূল নেতাদের উদ্দেশে মন্ত্রী-এমপি ও কেন্দ্রিয় নেতৃবৃন্দ বলেন, ‘দেশের উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে আওয়ামী লীগকে আরেকবার ক্ষমতায় আসতে হবে। এ জন্য নেতাকর্মীদের জনগণের কাছে যেতে হবে। আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নের কথা দেশের জনগণের কাছে তুলে ধরতে হবে। তাদের কাছে যেতে হবে। দুঃখের কথা শুনতে হবে, পাশে দাঁড়াতে হবে।’ এখন থেকেই নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে ও জনগণের কাছে যেতে কাউন্সিলরদের প্রতি নির্দেশ দেন তিনি।
আওয়ামী লীগের সম্মেলনে মুহিতের শূণ্যতা : প্রায় ১৪ বছর পর অনুষ্ঠিত হচ্ছে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন। সকাল থেকে আলীয়া মাদরাসা মাঠে শুরু হয় ঝমকালো সম্মেলন। সম্মেলনে যোগ দেন কেন্দ্রীয় প্রায় এক ডজন নেতা। এতো নেতার ভিড়েও মঞ্চের কোথায় যেন একটা শূণ্যতা অনুভব করছেন দলীয় নেতাকর্মীরা। আর এই শূণ্যতায় ছিলো সাবেক অর্থমন্ত্রী ও সিলেট-১ আসনের দুইবারের সংসদ সদস্য আবুল মাল আবদুল মুহিতকে ঘিরে। সিলেটের অভিভাবকতুল্য এই নেতা আসেননি সম্মেলনে। অবশ্য সম্মেলনের অতিথির তালিকায়ও ছিল না মুহিতের নাম। তবে অতিথির তালিকায় নাম না থাকলেও সম্মেলনে অংশ নিয়ে মঞ্চে ছিলেন গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগের যোগদানকারী ইনাম আহমদ চৌধুরী।
শফিক কামরান আসাদ কে পদে না পেয়ে হতাশ তৃণমূল : নগর ও তৃণমূলদের পছন্দের প্রার্থী শফিক কামরান আসাদ কে পদে না পেয়ে হতাশ তৃণমূল। এই কাউন্সিলে তারা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে তাদের কে দেখতে চেয়েছিলেন নেতৃবৃন্দ। সম্মেলনের প্রথম অধিবেশনের পর দ্বিতীয় অধিবেশনে দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। নিজেদের মধ্যে সমঝোতার জন্য শীর্ষ দুই পদের ৩২ প্রার্থীকে ২০ মিনিট সময় দেওয়া হলে তারা বিষয়টি নেত্রীর উপর ছেড়ে দেন। পরে উপস্থিত কেন্দ্রীয় নেতারা দলীয় প্রধানের সাথে পরামর্শ করে নতুন কমিটি ঘোষণা করেন। কিন্তু তাকে দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে না পেয়ে হতাশ হয়েছেন তারা।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin