সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:১৯ পূর্বাহ্ন


সম অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় সবার আগে নারীকেই এগিয়ে আসতে হবে

সম অধিকার ও মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় সবার আগে নারীকেই এগিয়ে আসতে হবে


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিনে দেয়া সাক্ষাৎকারে মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক

মৌলভীবাজারের জেলা প্রশাসক নাজিয়া শিরিন। বাগেরহাটের মেয়ে নাজিয়া শিরিন ইংরেজিতে এমএ, মাস্টার্স ইন পাবলিক পলিসি এন্ড ম্যানেজমেন্ট, পিজিডি (যুক্তরাজ্য) ডিগ্রি অর্জন করেন। গেল জুনে তিনি মৌলভীবাজারের প্রথম নারী জেলা প্রশাসক হিসেবে যোগ দেন।

এরআগে তিনি চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তার দায়িত্ব পালন করেন। জীবনে ম্যাজিস্ট্রেট হওয়ার অদম্য স্বপ্ন ছিল । নিজের অদম্য চেষ্টায় এক সময় ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবেই শুধু নয়, নিজেকে একজন আপদমস্তক নারী জেলা প্রশাসক হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন প্রখর মেধাবী এই নাজিয়া শিরিন। তাঁর কর্ম, নারী অধিকার ও ক্ষমতায়ন নিয়ে খোলাখুলি কথা বলেন।

শুভ প্রতিদিনকে দেয়া তাঁর একান্ত স্বাক্ষাৎকার নেন আমাদের শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি আবুজার বাবলা।
শুভ প্রতিদিন- ক্যারিয়ারে প্রথম প্রথম দিনটা কেমন ছিল?
নাজিয়া শিরিন- ম্যাজিস্টেট হিসেবে প্রথম চাকুরিতে যোগ দেই। সেদিনের অনুভূতি সত্যি ভোলার নয়। জীবনের স্বপ্ন ছিল ম্যাজিস্ট্রেট হওয়ার। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে নারী ম্যাজিষ্ট্রেট হওয়ার স্বপ্ন দেখা আর তা বাস্তবে রূপ দেয়া সহজ ছিল না। সেই জায়গা থেকে চ্যালেঞ্জিং চাকরিতে যোগ দেয়াটা আমার জন্য খুবই সুখের ঘটনা ছিল সেটা।

শুভ প্রতিদিন- এই যে বললেন চ্যালেঞ্জিংর কথা। সেটা পূরণে বা কর্ম ক্ষেত্রে নারী হিসেবে কোন প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হতে হয়েছেন কি?
নাজিয়া শিরিন– সামগ্রিকভাবে বললে তেমনটা হতে হয়নি। বরং সবার সহযোগিতাই পেয়েছি। আমি মনে করি এটা পাওয়ার পেছনে আমার নিজেরও অবদান রয়েছে। আমি সবার সাথে ভাল সম্পর্ক তৈরির চেষ্টা করি।

শুভ প্রতিদিন- কর্মক্ষেত্রে নারীর সমান অংশগ্রহন বেড়েছে। সে তুলনায় নারীর ক্ষমতায়ন বিশেষ করে পরিবারে কর্তৃত্ব বা প্রভাব বিস্তারে আজকের নারীরা কতদূর এগিয়েছে বলে মনে করেন?
নাজিয়া শিরিন- এ বিষয়ে আমার দৃষ্টিভঙ্গি আলাদা। নারী পুরুষ আলাদাভাবে দেখি না। যিনি তার পরিবার বা কর্মক্ষেত্রে ক্ষমতা বা কর্তৃত্ব খাটাবেন সেখানে তো তার সে যোগ্যতা ও শিক্ষা থাকতে হবে। কোন নারী সিদ্ধান্ত নেয়ার যোগ্যতা অর্জন করলে তাঁর সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষমতাও হাতে চলে আসে।

এজন্য মেয়েদের সে ধরনের জ্ঞান প্রজ্ঞা, বুদ্ধিমত্তা, শিক্ষায় সমৃদ্ধ হতে হবে। কাঙ্খিত সাফল্য অর্জন না হলেও মেয়েরা আজ অনেক এগিয়েছে। কিন্তু পুরুষের সমাবস্থানে আসতে তাদের আরও অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে।

শুভ প্রতিদিন– আজকের বাংলাদেশে এখনও নারীকে এগিয়ে নিতে কোটা পদ্ধতির সাপোর্ট দিতে হচ্ছে সেক্ষেত্রে নারীর মর্যাদা ও সমতা কতটুকু প্রতিষ্ঠিত হয়েছে?
নাজিয়া শিরিন- আমি বলবো না নারী পুরুষের সমতা পুরোপুরি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আমাদের সমাজ ব্যবস্থা, নানা প্রথা ও প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেই নারীদের আগাতে হচ্ছে। এসব দিক থেকে নারী অধিকার ও সমমর্যদা প্রতিষ্ঠা অনেক জটিল প্রক্রিয়া। এরপরও দেখতে পাবেন দক্ষিণ এশিয়ার এই ভূখন্ডে আমাদের নারীরা অনেকটা এগিয়ে গেছি।

বিশেষ করে পাকিস্তান আফগানিস্তানের তুলনায় বাংলাদেশের নারীরা পুরুষের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। সরকারও এনিয়ে কাজ করছে। কোটা, অবৈতনিক নারী শিক্ষা, উপবৃত্তি এর অংশ বলতে পারেন। আমি সাপোর্ট শুধু বলবো না নারীদের এগিয়ে নিতে এটা একটা পলিসি বলতে পারেন। তবে যেটা বেশী জরুরী তা হলো আমাদের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন করা।

একজন পুরুষকেও নারীর সম মর্যদায় পরিবর্তিত দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে এগিয়ে আসতে হবে। পাশাপাশি নারীকে তার হীনমন্যতা দূর করে পুরুষের পাশাপাশি দাড়াঁতে হবে। সবচেয়ে বড় কথা নারীকেও সমাজে তার সমতা, অধিকার ও মর্যদা প্রতিষ্ঠায় তাকে স্বপ্ন দেখতে হবে।
জেলা প্রশাসক হিসেবে আমাকে সব শ্রেণির মানুষের মধ্যে মাঠ পর্যায়ে আমাকে নারীর ক্ষমতায়ন নিয়ে কাজ করতে হয়। দেখেছি সব পিতা মাতারাই চান তাদের মেয়েরা শিক্ষায় সু-শিক্ষিত হোক, কর্মক্ষেত্রে পুরুষের পাশাপাশি কাজ করুক।

জনসাধারণের এই আকাঙ্খা পূরণে সরকারও কাজ করছে। তবে আমি আশাবাদি কোন একদিন এই সমাজে নারী পুরুষ সমমর্যদা নিয়ে কোন প্রশ্ন উঠবে না।

শুভ প্রতিদিন- নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে একজন নারী পদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে আপনার ভাবনা?
নাজিয়া শিরিন- নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে সরকারের অবস্থান কঠোর। আপনি দেখে থাকবেন নারীর প্রতি সহিংসতারোধে অনেক আইন করা হয়েছে, তার যথাযথ প্রয়োগ হচ্ছে। বাল্য বিবাহ, ইভটিজিং বা অন্য যে কোন ঘটনায় সরকার দ্রুত পদক্ষেপ নিচ্ছে।

আমি আমার ম্যাজিষ্ট্রেটদের নির্দেশনা দিয়ে রেখেছি নারীর প্রতি যে কোন ধরনের সহিংসতা ঘটলে দ্রুত আইন প্রয়োগ করতে। আরেকটা বিষয় মনোযোগ দেয়াটা জরুরী বলে মনে করি। নারীর প্রতি সংহিংসতা রোধে স্মাট ফোন ব্যবহার ক্ষেত্রে মা বাবাদেরও সচেতনতার পাশাপাশি অনেক ভূমিকা আছে। ভাল-মন্দ দুটি দিকই আছে এর।

নারীর বয়.সন্ধিকালে বন্ধু নির্বাচনের ক্ষেত্রেও স্মার্ট ফোন মনের উপর ভাল-মন্দ উভয় ক্ষেত্রেই প্রভাব বিস্তার করছে। বাবা মা ও অভিভাবকদের এদিকে খেয়াল রাখা দরকার। তাদের সন্তানরা কি করে সময় কাটাচ্ছে, কার সাথে বন্ধুত্ব করছে -এ দিকে দৃষ্টি দিলে নারী সহিংসতার মতো দুষ্টক্ষত থেকে আমরা অনেকটাই রেহাই পেতে পারি।
শুভ প্রতিদিন– শিক্ষায় নারীকে এগিয়ে নিতে আপনার সরকারের গৃহীত উল্লেখযোগ্য কোন কর্মসূচি?
নাজিয়া শিরিন- বলতে গেলে শিক্ষায় নারীরা পুরুষের কাছাকাছি, অনেক জায়গায় এগিয়ে আছে। এটা সরকার ও আমাদের সবার ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টার ফসল। আমরা দেখেছি ক্লাস সিক্স থেকে টেন শ্রেণি পর্যন্ত কন্যা শিক্ষার্থীদের ঝড়ে পড়ার প্রবণতা বেশী।

বয়.সন্ধির এই সময়টাতে তারা শারীরিক বিকাশ ও নানা সমস্যায় পড়ে। এটাকে চিহ্নিত করে আমরা মাধ্যমিক পর্যায়ে স্কুল গুলোতে ‘অপরাজিতা কর্ণার’ চালু করেছি। মেয়ে শিক্ষার্থীরা জরুরী প্রয়োজনে এখান থেকে মোটিভেসন, প্রয়োজনীয় পণ্য ও পরামর্শ গ্রহণ করছে। যাতে শিক্ষা গ্রহণে সে নিরুৎসাহিত হয়ে না পড়ে।
শুভ প্রতিদিন- নারী কর্মকর্তা হিসেবে এগিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখছে এমন নারীদের প্রতি আপনার পরামর্শ?
নাজিয়া শিরিন- কর্মক্ষেত্রে সব সময় চিন্তা ভাবনায় কাজ করে যেতে হবে। এজন্য সহকর্মীদের সাথে খোলাখুলি আলোচনা ও তাদের সাথে পরামর্শ করে কাজ করা উচিত।
শুভ প্রতিদিন- সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।
নাজিয়া শিরিন- আপনাকেও ধন্যবাদ।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin