সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১, ০৭:৪৬ অপরাহ্ন

সরকারি কর্মচারীদের গ্রেপ্তারের আগে নিতে হবে অনুমতি

সরকারি কর্মচারীদের গ্রেপ্তারের আগে নিতে হবে অনুমতি


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রতিদিন ডেস্ক:
সরকারি কর্মচারীদের গ্রেপ্তার করার ক্ষেত্রে নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের অনুমোদন নেওয়ার বিধান রেখেই ‘সরকারি চাকরি আইন-২০১৮’ আগামী ১ অক্টোবর থেকে কার্যকর হচ্ছে। আজ বৃহস্পতিবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি হয়েছে।

গত বছরের ১৪ নভেম্বর আইনটির গেজেট জারি হয়েছিল। এর আগে আইনটির খসড়া ২০১৮ সালের ২০ আগস্ট মন্ত্রিসভার অনুমোদন পায়। সরকারি কর্মচারীদের গ্রেপ্তারের আগে সংশ্লিষ্ট নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ বা সরকারের অনুমতির বিষয়টি নিয়ে সমালোচনা করেন সংশ্লিষ্টরা। তারা এমন বিধান বাতিলের আহ্বান জানালেও বিধানটি বহালই রেখেছে সরকার।

সরকারি চাকরি আইন অনুযায়ী, কোনো সরকারি কর্মচারীর দায়িত্ব পালনের সঙ্গে সম্পৃক্ত অভিযোগে দায়ের করা ফৌজদারি মামলায় আদালতে অভিযোগপত্র গ্রহণের আগে ওই কর্মচারীকে গ্রেপ্তার করতে সরকার বা নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে।

অবশ্য সরকারি কর্মচারীদের ক্ষেত্রে এমন নিয়মকে বৈষম্যমূলক ও সংবিধান পরিপন্থি বলে মন্তব্য করেছেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনালের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামান চৌধুরী।

দুর্নীতি বিরোধী সংস্থা টিআইবি’র নির্বাহী পরিচালক বলেন, সরকারি চাকরি আইন-২০১৮ অনুযায়ী ফৌজদারি অপরাধে অভিযুক্ত সরকারি কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারে পূর্বানুমতি গ্রহণের যে বিধান সন্নিবেশিত হয়েছে, তা প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তাদের সততা, স্বচ্ছতা, উন্নততর পেশাদারিত্ব ও নিরপেক্ষ জনপ্রশাসন নিশ্চিতের পরিপন্থি। তাই ধারাটি বাতিলের দাবি জানান তিনি।


অন্যদিকে সরকারি চাকরি আইনে মেধা ও উন্মুক্ত প্রতিযোগিতায় সরকারি চাকরিতে নিয়োগের বাধ্যবাধকতা নিশ্চিতসহ অন্যান্য ইতিবাচক ধারা অন্তর্ভুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছে টিআইবি।

আইনে বলা হয়েছে, সরকারি কর্মচারীর বিরুদ্ধে কোনো আদালতে ফৌজদারি বা অন্য কোনো মামলা বিচারাধীন থাকলেও বিচারাধীন এক বা একাধিক অভিযোগের বিষয়ে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাবে।

আইনের ৩২ ধারায় বলা আছে, নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ, বিভাগীয় কার্যধারায় দোষী সাব্যস্ত কোনো কর্মচারীকে এ সংক্রান্ত বিধি-বিধান সাপেক্ষে এক বা একাধিক লঘু বা গুরুদণ্ড দেওয়া যাবে।

লঘু দণ্ডের মধ্যে আছে, তিরষ্কার, নির্দিষ্ট মেয়াদের জন্য পদোন্নতি ও বেতন-ভাতা স্থগিত করা, বেতন স্কেল অবনমিত করা এবং সরকারি অর্থ ও সম্পত্তির ক্ষতি হলে ক্ষতিপূরণ আদায় করা। গুরুদণ্ড হলো, বেতন নিম্ন স্কেলে অবনমিত করা, বাধ্যতামূলক অবসর, চাকরি থেকে অপসারণ অথবা বরখাস্ত। তবে একবার কেউ বরখাস্ত হলে পরে প্রজাতন্ত্রের কোনো কাজে বা রাষ্ট্রের অন্য কোনো কর্তৃপক্ষে তিনি নিয়োগ পাবেন না।

এ ছাড়া ৪২ ধারা অনুযায়ী, কোনো কর্মচারী ফৌজদারি মামলায় মৃত্যুদণ্ড বা এক বছর মেয়াদের বেশি কারাদণ্ডে দণ্ডিত হলে রায়ের দিন থেকে তাৎক্ষণিক বরখাস্ত হবেন। তবে এক বছর বা তার কম মেয়াদের জন্য দণ্ডিত হলে কর্তৃপক্ষ ওই ব্যক্তিকে তিরষ্কার, পদোন্নতি ও বেতন স্থগিত করা, পদ ও বেতন স্কেলের অবনমন করা এবং সরকারি সম্পদের ক্ষতি হলে ক্ষতিপূরণ আদায় করতে পারবে।

সরকারি চাকরি আইন-২০১৮-তে আরও বলা হয়, রাষ্ট্রপতির কাছে সন্তোষজনক মনে হলে তিনি সাজাপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে অভিযোগ থেকে অব্যাহতি এবং চাকরিতে পুনর্বহাল করতে পারবেন।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin