বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন


সাংগঠনিক কার্যক্রম না থাকায় অস্তিত্ব সংকটে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টি

সাংগঠনিক কার্যক্রম না থাকায় অস্তিত্ব সংকটে দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টি


শেয়ার বোতাম এখানে

ছায়াদ হোসেন সবুজ, দক্ষিণ সুনামগঞ্জ:

দক্ষ নেতৃত্বসহ নানা জটিলতার কারণে অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে সুনামগঞ্জ জেলার দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা জাতীয় পার্টি। ২০১৭ সালে ৫১ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি অনুমোদন হলেও উপজেলার তৃণমূলে জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক কার্যক্রম নেই বললেই চলে। দিনদিন এই দলের নেতাকর্মী, আর জনসমর্থন হ্রাস পেয়ে মাঠ পর্যায়ে রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড এক প্রকার স্থবির হয়ে পড়েছে। রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট পরিবর্তনে বেশিরভাগ নেতাকর্মী দল ছাড়ছেন।

এদিকে করোনা পরিস্থিতিতে সবাই যখন অনেকটা ঘরবন্দী। সে সময় আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গসংগঠন, বিএনপি, সামাজিক সংগঠন ও মানবিক ব্যক্তিরা এসব অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন। কিন্তু জাতীয় পার্টির নেতারা সাধারণ জনগণতো দূরের কথা দলীয় কর্মীদের পাশেও নেই। তারা যেন এক গভীর ঘুমেই দিন পার করছেন।

১৯৯১ সালের নির্বাচনের পর থেকে এই দলের নেতাকর্মীদের ভাটা পড়তে শুরু করে। এরপর এই দলের বেশিরভাগ নেতাকর্মী আওয়ামী লীগ ও বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হওয়ায় তারা মাথাচাড়া দিয়ে দাঁড়াতে পারেনি। দিন দিন স্থবির হয়ে পড়ে তাদের রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড। বর্তমানে এ আসনটি আওয়ামী লীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিতি।

এদিকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস মোকাবিলায় উপজেলায় জাতীয় পার্টির ত্রাণ বিতরণ তো দূরের কথা, নেই কোনো ভূমিকা। দুঃসময়ে কেউ কারো পাশে থাকছেন না। ফলে জাতীয় পার্টির নামটিও যেন তৃর্ণমূল নেতাকর্মীরা ভুলতে বসেছেন।

উপজেলার সচেতন মহল মনে করছেন, জাতীয় পার্টির নেতারা তাদের পুরনো ঐতিহ্য ধরে রাখতে পারেনি। জনগণের পাশে না থাকার ফলে দলটি থেকে সাধারণ মানুষ মুখ ফিরিয়ে নিতে শুরু করেছে।

মহামারী করোনা ও বন্যাদুর্যোগে মানুষের পাশে না থাকার কারণ কি? এমন প্রশ্নের জবাবে উপজেলা জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক রিপন মিয়া বলেন, জেলা কমিটি থেকে কোন নির্দেশনা না আসায় আমরা কিছু করতে পারিনি। তবে আমাদের ব্যক্তিগত সামর্থ্য অনুযায়ী মানুষের পাশে ছিলাম। তিনি বলেন, ইতিমধ্যেই আমাদের এই কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে। আমরা জেলা কমিটিকে বিষয়টি জানিয়েছি।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin