বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৩৩ অপরাহ্ন


সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে নাচ-গান, তদন্তে বনবিভাগ

সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে নাচ-গান, তদন্তে বনবিভাগ


শেয়ার বোতাম এখানে

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি : 
কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানে বন্যপ্রাণী আইন লঙ্ঘন করে সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে বনভোজন করার ঘটনায় তদন্ত শুরু করেছে বনবিভাগ। বনবিভাগের ঢাকাস্থ বন সংরক্ষক মিহির কান্তি দে মঙ্গলবার দুপুর থেকে সরেজমিন লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যান এলাকায় এসে তদন্ত কাজ শুরু করেছেন।

এর আগে গত ৫ ফেব্রুয়ারি বনভোজনের নামে সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে নাচ-গানের আয়োজন করেছিলেন শ্রীমঙ্গলের কিছু গণমাধ্যমকর্মী।
কমলগঞ্জের লাউযাছড়া বন রেঞ্জ কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, গত ৫ ফেব্রুয়ারি বুধবার সকাল থেকে লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের মধ্যবর্তী বন বিশ্রামাগারের বাংলো এলাকায় শ্রীমঙ্গলের গণমাধ্যমকর্মীদের একাংশ বনভোজন ও সম্মিলনীর আয়োজন করেছিলেন।

তাদের সাথে এ আয়োজনে সামিল হয়েছিলেন শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ উপজেলার কিছু গণ্যমান্য ব্যক্তিরাও। খাবারের আগে উপস্থিত সবাই উচ্চ শব্দে সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে তারা নাচ গান করে বনের পরিবেশ নষ্টের সাথে বন্যপ্রাণীরও ক্ষতি করেছিলেন। তাছাড়া সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত উপস্থিত দেড় শতাধিক লোকের উচ্ছিষ্ট খাবার, ব্যবহৃত টিস্যু, প্লাস্টিকের পানির বোতল, কাগজ ফেলে ময়লা আবর্জনার স্তুপ জমে যায়। ফলে এ ময়লা আবর্জনায় দূষিত করে রাখে বন বিশ্রামাগারের আশপাশ এলাকা।

লাউয়াছড়া বন বিশ্রামাগারের তদারককারী বন গার্ড মোহাম্মদ আলী জানান, আগের দিন মঙ্গলবার সন্ধ্যায় একটি পিক আপে করে মালামালসহ ৪ জন বাবুর্চি বনের মধ্যে প্রবেশ করেছিলেন। এসময় তিনি জানিয়েছিলেন রাতে এই বাবুর্চি বনে অবস্থান করে রান্নান বান্না করবেন। বুধবার সকাল থেকে দেড় শতাধিক লোক এখানে এসে অবস্থান করে খাওয়া দাওয়া করবে। এ বনের মধ্যে রান্না করা যাবে না বলে জানালেও তিনি বলেছিলেন বন কর্মকর্তাদের কাছ থেকে অনুমতি নেওয়া আছে।

এছাড়া বনের মধ্যে আগুন জ্বালানো আইনত দন্ডনীয় অপরাধ হলেও রাত থেকেই খোলা আকাশের নিচে বন্যপ্রাণীর অভয়াশ্রমের এলাকায় শুরু হয়েছিল রান্নার কাজ। পর দিন বুধবার সকাল থেকে সাংবাদিক ও আমন্ত্রিত অতিথি মিলিয়ে দেড় শতাধিক লোকসহ সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে উচ্চ শব্দে নাচ গান শুরু হয়। লাউয়াছড়া বনের ভিতর বনভোজনে অংশ গ্রহনকারী অনেকেই বৃহস্পতিবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে ছবি পোস্ট করেছিলেন। তাতে দেখা যায়, লাউয়াছড়া বন বিশ্রামাগারের সামনে উচ্চ আওয়াজের গানের সাথে নারী পুরুষরা মিলে নাচানাচি করছেন।

বন্যপ্রানী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের লাউয়াছড়া বনরেঞ্জ কর্মকর্তা মোনায়েম হোসেন বুধবার দুপুরে মুঠোফোনে শুভ প্রতিদিনকে জানান, এ ঘটনার জন্য বন সংরক্ষক মিহির কান্তি দো মঙ্গলবার থেকে লাউয়াছড়া তদন্ত করছেন। তদন্তকারী বন সংরক্ষক মিহির কান্তি দো মুঠোফোনে এ প্রতিনিধিকে বলেন, মাত্র তদন্ত শুরু করেছি। কয়েকদিন সময় লাগবে। সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য গ্রহণ করা হবে।

বাংলাদেশ পরিবেশ আনেন্দালন (বাপা) সিলেট শাখার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম বলেন, সম্পূর্ণরুপে নিষিদ্ধ স্থানে আইন লঙ্ঘন করে গণমাধ্যমকর্মীরা এ আয়োজন করেছে। এটি একটি নিন্দনীয় কাজ ছিল। আর বন বিভাগ কিভাবে তাদের বন্যপ্রাণী অভয়াশ্রম এলাকায় তাদের বনভোজন ও সাউন্ড সিস্টেম ব্যবহার করে নাচ গানের অনুমতি দিল? তা খতিয়ে দেখা উচিত। তিনি আরও বলেন, অন্যায় করে আবার ফেসবুকে ছবি পোষ্ট করা হয়েছে। তিনি এখন সঠিক তদন্তক্রমে বিহিত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin