শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৭:০৯ অপরাহ্ন


সাক্ষাৎকার: একাত্তরে ভিক্ষার হাত পেতেছিলেন প্রবাসিরা

সাক্ষাৎকার: একাত্তরে ভিক্ষার হাত পেতেছিলেন প্রবাসিরা


শেয়ার বোতাম এখানে

এনামুল কবীর: একাত্তরের ২৫ মার্চ ঢাকায় ইতিহাসের জঘন্যতম গণহত্যার সংবাদ বিবিসি ও অলইন্ডিয়া রেডিওর সুবাদে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে যুক্তরাজ্যের আনাচে-কানাচে। বিশেষ করে বাংলাদেশের সিলেটী মহলে। দেশে থাকা আত্মীয়-স্বজন আর দেশমাতৃকার অমন দুর্দিনে তারাও সক্রিয় হয়ে উঠেন। বিভিন্নজনের বাসায় মিলিত হয়ে স্বাধীনতার পক্ষে অ্যাকশান কমিটি গঠন করতে তৎপরতা শুরু করেছিলেন। বিশেষ করে যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার তহবিল গঠন করতে তারা নানা উদ্যোগ গ্রহন করেন। দেশের পতাকা আঁকা ব্যাজ টাই ইত্যাদি তৈরি করে বিশ্বের বিভিন্ন জাতি-গোষ্ঠির মানুষের কাছে ভিক্ষার হাত বাড়িয়ে দিয়েছিলেন যুক্তরাজ্য প্রবাসীরা। সাত-সমুদ্র তেরো নদীর পারে কর্মব্যাস্ততা পাশ কাটিয়ে মা-মাটি ও মানুষের জন্য তারা সংগ্রহ করেন পাউন্ড। তারপর তা পাঠিয়ে দেন যুদ্ধ তহবিলে। একাত্তরে স্বাধীনতা যুদ্ধে নিজেদের মহামূল্যবান অবদানের কথা এভাবেই তুলে ধরেন মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক দবির আহমদ।

 

যুদ্ধকালীন পরিস্থিতিতে যুক্তারাজ্য প্রবাসীদের অবদান ও অবস্থা সম্পর্কে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে তিনি বলেন, ৬৬’র ৬ দফা আন্দোলন থেকেই দেশের ব্যাপারে প্রবাসীদের চোখ-কান খোলা ছিল। ৬৯ এর উত্তাল দিনগুলোতেও সেখানে সমানতালে আন্দোলন সংগ্রাম হয়েছে। ২৫ মার্চের সংবাদ পাওয়ার পর উদ্বেগ উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়ে প্রবাসীদের মধ্যে। দবির তখন বার্মিংহামে এক রেস্টুরেন্ট কাজ করতেন। সেই রেস্টুরেন্টের মালিকের নাম ছিল চান্দ মিয়া। তিনি (দবির) তখন প্রবাসীদের মধ্যে যথেষ্ট পরিচিত ছিলেন। চান্দ মিয়া দবিরকে ডেকে দেশের জন্য কাজ করার আহ্বান জানালেন। বললেন, আমাদের সাথে একটি মিটিংয়ে যেতে হবে। সেই মিটিংটি হয়েছিল পাশা সাহেব নাম আরেক সংগঠকের বাসায়। সেখানে ঐ শহরের প্রবাসী মুরব্বিরা উপস্থিত ছিলেন। এরপরের রাতে আবারও মিটিং হলো। গঠন হলো অ্যাকশান কমিটি। সর্বসম্মতিক্রমে এর সভাপতি হলেন পাশা ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব নিলেন আজিজুল হক ভূঁইয়া। এরপর যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন শহরে অ্যাকশান কমিটি গঠন হলো। বার্মিংহামের মুরব্বিদের আহ্বানে দবির আহমদ যুবকদের নিয়ে আরেকটি কমিটি গঠন করলেন, নাম বাংলাদেশ যুব কমিটি।

 

তরুণদের নিয়ে মুকুল ফৌজ নামে আরেকটি কমিটি হয়েছিল বার্মিংহামে। ২৮ মার্চ স্মলহিথ পার্কে তরুণ-যুবক মিলে আমরা উপস্থিত হই। সেখানেই প্রবাসে প্রথম বাংলাদেশের পতাকা আমরা উত্তোলণ করি। সেই সভায় যোগ দিয়েছিলেন প্রায় ১০ হাজার বাঙ্গালী বা সিলেটী। সেই সভায় কয়েকজন পাকিস্তানী হামলা করলে আমরাও প্রতিবাদ করি। পুলিশ এসে ১৮ জনকে গ্রেফতার করে যার একজন ছিলাম আমি নিজে। দবির আহমদ জানান, দেশের জন্য উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার পাশাপাশি প্রতিবাদ সংগ্রামে আমরা সামিল হতাম। পরিবার পরিজনের ভরণপোষণের জন্য যেমন কাজ করতাম, তেমনি সুযোগ পেলেই প্রতিবাদ সংগ্রাম অব্যাহত রাখতাম।

 

তিনি জানান, যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন শহরে আমাদের চেয়ে পাকিস্তানীদের সংখ্যা বেশি ছিল। তারা আমাদের ঘৃণার চোখে দেখতো। ভাবটা অনেকটা এরকম, যেনো আমরা মানুষ না। আমরা প্রতিবাদ করতাম। প্রায়ই চোরাগোপ্তা হামলা চালাতাম তাদের উপর। দেশে মা বোনের ইজ্জত লুন্টনের সংবাদ পেয়ে নিজেদের স্থির রাখতে পারতাম না। হামলা চালিয়ে মনের খেদ মেটাতাম। পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়েই আমরা তা করতাম। ঐ সময়ের একটি অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, তখন পাকিস্তানের জাতীয় ক্রিকেট দল ইংল্যান্ড সফর করছিল। তারা যেসব ভেন্যুতে প্র্যাকটিস করতো, সেসব জায়গায় গিয়ে প্রবাসী সিলেটী তরুণ-যুবকেরা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করতেন। এতে অনেক সময় পুলিশের হাতে গ্রেফতার হতে হতো, অনেক সময় তাদের ধাওয়া খেয়ে পালাতে গিয়ে কেউ কেউ মারাত্মক আহতও হতেন। এমন ঘটনা বেশ কয়েকবার ঘটেছে।

 

তিনি বলেন, আমরা ট্রাফল্গার স্কয়ার ও হাইডপার্কেও জনসভা করি। ১০নং ডাউনিং স্ট্রিটে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে স্মারকলিপিও দিই। এভাবেই আমরা দেশের পক্ষে বিশ্বজনমত নিয়ে আসি। পাশাপাশি যুদ্ধের তহবিলও গঠন করি। এক প্রশ্নের জবাবে দবির জানান, ব্রিটিশরা আমাদের প্রতি সমব্যাথি ছিলো। তহবিল গঠনসহ সার্বিক আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যেতে তাদের অনেকেই আমাদের সহায়তা করেছে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে দবির আহমদ বলেন, ৭৫ এর জাতির পিতা হত্যাকান্ডের পর একুশ বছর দেশ ভিন্নট্র্যাকে চলে গিয়েছিল। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আবারও সঠিক পথে ফিরেছে। এযাত্রা অব্যাহত রাখতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সবাইকে আস্তা রাখতে হবে।

 

দবির জানান, তার নেতৃত্বে ৭২ সালে মিডল্যান্ড যুবক সমিতির পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে তৎকালীন হাইকমিশনার সুলতান আহমদের হাতে ৯২০ পাউন্ডের একটি চেক হস্তান্তর করেছিলেন। তিনি আরও বলেন, আমাদের চাওয়ার কিছু নেই। কেবল দেশে জানমাল আর সম্পদের নিরাপত্তা পেলেই আমরা সন্তুষ্ট। তবে প্রবাসী বিনিয়োগ আকৃষ্ট করতে হলে এখানে উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টির পরিবেশের উপরও জোর দিলেন মুক্তিযুদ্ধের এই প্রবাসী সংগঠক।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin