বৃহস্পতিবার, ২৫ Jul ২০২৪, ০৬:৩২ পূর্বাহ্ন


সাদাপাথর পর্যটনকেন্দ্র, রাতের আঁধারে পাথর চুরি

সাদাপাথর পর্যটনকেন্দ্র, রাতের আঁধারে পাথর চুরি

সাদাপাথর

শেয়ার বোতাম এখানে

নিজস্ব প্রতিবেদক : পাহাড়ি ঢলের কারণে প্রায় এক সপ্তাহ বন্ধ ছিল সিলেটের পর্যটন স্পট সাদা পাথর। না ছিলেন তখন পর্যটক। না ছিল প্রশাসনের নজরদারী। ঠিক এই সুযোগটাকেই কাজে লাগিয়ে লুপাট করা হয়েছে পাথর। স্থানীয় প্রভাবশালী পাথর চোরকারবারিরা পাথর লুটপাটে বেচে নেয় রাতের আঁধার। সবার চোখকে ফাঁকি দিয়ে সন্ধ্যার পর পাথর নৌকায় তুলে রাতের আঁধারেই তা পাঠিয়ে দেয়া হয় অন্যত্র। এ সপ্তাহে সাদাপাথরের চেহারাই পাল্টে দিয়েছে চোরকারবারিরা। এখন সেখানে পাথর নেই। চারদিকে বালু আর মাটি।

সাদা পাথরে পাথর লুপাটে জড়িত থাকার অভিযোগ ওঠেছে প্রশাসনের কিছু অসাধু ব্যক্তি। তবে তার কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারি জড়িত নয়, এমনটি দাবি না করলেও উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুনজিত কুমার চন্দ বলেছেন, আমাদের কারও বিরুদ্ধে জড়িত থাকার সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি সাদা পাথর চুরির বিষয়টি নিরাপত্তার দায়িত্বে যারা আছেন, তাদের জিজ্ঞেস করার পরামর্শ দেন। সাদাপাথরের মূল উৎস ভারত থেকে নেমে আসা নদী। সম্প্রতি ভারতের উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে প্রশাসন কোম্পানীগঞ্জের ভোলাগঞ্জ সাদা পাথর পর্যটনকেন্দ্র এক সপ্তাহ বন্ধ ঘোষণা করে। এসময় রাতের বেলা বারকি নৌকায় করে পাথর চুরি শুরু হয়।

সূত্র বলছে, স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী বিজিবি ও পুলিশের কিছু অসাধু কর্মকর্তাকে ‘ম্যানেজ’ করে সাদা পাথর চুরি করে। বিনিময়ে নৌকাপ্রতি ৫০০ থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা চাঁদা আদায় করা হয়। ভোলাগঞ্জ ১০ নম্বর, পুলিশ ফাঁড়ি ঘাট, কালাইরাগ, কলাবাড়ি ও টুকেরবাজার এলাকায় নদের পাড়ে রেখে এগুলো বিক্রি হয়।

স্থানীয় ও পর্যটনসংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের অভিযোগ, দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তাদের যোগসাজশেই সাদা পাথর চুরি হয়েছে। যা এখনও অব্যহত রয়েছে। এদিকে গত রোববার রাতে পাথর চুরির সময় ধলাই নদের হেকিমেরটুক এলাকা থেকে পাথরবোঝাই ছয়টি নৌকাসহ ১৭ জনকে আটক করে পুলিশ। পরে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়।

পুলিশ জানায়, ৮-১০টি বারকি নৌকায় ৩০-৩৫ জন সাদা পাথর নিয়ে যাচ্ছিল। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালানোর চেষ্টার সময় ছয়টি নৌকার ১৭ জনকে আটক করা হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানান, চুরি করা সাদা পাথর বিক্রির উদ্দেশ্যে নিয়ে যাচ্ছিল।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর আহমেদ বলেন, বিজিবি ও রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর মাঝে সাদা পাথর পর্যটনকেন্দ্র। এগুলো চুরি রোধে আমরা বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছি। দিনরাত টহল দিচ্ছি।

বিজিবির ভোলাগঞ্জ কালাসাদেক বিওপি কোম্পানি কমান্ডার জাকির হোসেন বলেন, ভোলাগঞ্জ ক্যাম্পের কমান্ডারকে চুরি রোধে আরও কঠোর হওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হবে। তিনি স্বীকার করেন, এমন পরিস্থিতি চলতে থাকলে একদিন সাদা পাথর পর্যটনকেন্দ্র বিলীন হয়ে যাবে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin