বৃহস্পতিবার, ১৫ এপ্রিল ২০২১, ০৫:৫৫ অপরাহ্ন

সিগারেটের ব্যবসায় টাকা লাগে না!

সিগারেটের ব্যবসায় টাকা লাগে না!


শেয়ার বোতাম এখানে

সালমান ফরিদ: সাইমুল ইসলাম। বয়স খুব বেশি নয়; ৩৫ বছর। কিন্তু রোগা কিসিমের। রীতিমতো চেইন স্মোকার। তার একটা পান-সিগারেটের দোকান রয়েছে সিলেট নগরীর মদিনা মার্কেটের মুল রোডে। সব সময় ঠোটের ফাঁকে একটি সিগারেট লেগেই থাকে। পান-সিগারেট বিক্রির সময় সেটি মুখেই থাকে। সকাল তখন ১০ টা ১৫ মিনিট। কথা বলার সময় মুখে গোজা ছিল স্বল্প দামের একটি সিগারেট। দুই হাতে কাজ করছিলেন আর মাঝেমধ্যে ধোয়া ছাড়ছিলেন সিগারেটের। কথা বলার ফাঁকে সিগারেট টানেন, কখনও কখনও ধোয়া ছাড়েন কুন্ডুলি পাকিয়ে। তার কাছে এটি রীতিমতো শিল্প। বিক্রি করছেন সিগারেট কিন্তু তিনি নিজে চান না তার সন্তান এই মরণ নেশা ধরুক।
কেন?
তার সোজা উত্তর- সুস্থভাবে বাঁচতে হলে সিগারেট ধরা যাবে না। ধরে বিপদে আছি। ছাড়তে পারছি না। আমি চাই না আমার ৮ বছরের সন্তান তার বাবার মতো অসুস্থ জীবন পার করুক।
কেন তাহলে অন্য ব্যবসায় এলেন? প্রশ্ন শুনে মুছকি হাসলেন সাইমুল ইসলাম। বোঝা গেল, এই হাসি শুধু সাইমুল ইসলামের নয়। তার মতো হাজারও সাইমুলের। বিষয়টি খোলাসাও করলেন তিনি, ‘টাকা লাগে কম। শুধু সিগারেট কেনার টাকা হলেই দোকান দেয়া যায়। গরীব মানুষ। অতো টাকা পাই কই। তাই কম পুঞ্জিতে এই ব্যবসায় নামছি। বসার একটু জায়গা হলেই কোম্পানি বাকি বন্দোবস্ত করে দেয়। এমন ব্যবসা আর কোথায় হয় বলুন?’
হ্যাঁ, তার পাল্টা প্রশ্নের জবাব দেয়া খুব কঠিন। বিনা পুজির লোভনীয় ব্যবসার সুযোগ যেখানে সেখানে দরিদ্র শ্রেণির সাইমুলদের এনে নামানো খুব সহজ। তাই শুধু সাইমুল নয়, সিলেটে প্রায় প্রত্যেক পান-সিগারেটের দোকানদার এখন বলতে গেলে বিনা টাকায় ব্যবসা করছেন। তার দেয়া তথ্য মতে, ব্রিটিশ আমেরিকান টোব্যাকো বাংলাদেশ-বিএটিবি ছাড়াও আরও কয়েকটি কোম্পানি সিগারেট বিক্রেতাদের বিনামূল্যে দোকানে বসার ব্যবস্থা করে দেয়। জন প্লেয়ার, গোল্ড লিফ, স্টার নিও লেখা লাল রঙের সুদৃশ্য র‌্যাকের মধ্যে সাজিয়ে রাখা হয় সিগারেট। সুসজ্জিতকরণ এবং সিগারেট বিক্রির জন্য এর প্যাকেটের আদলে তৈরি করা এমন ‘বক্স বিক্রয় কেন্দ্র’ দেখা যায় সর্বত্র।
এর মাধ্যমে কোম্পানিগুলো তামাকজাত পণ্যের বিজ্ঞাপন ও তামাক আইনকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে বাংলাদেশে তাদের ব্যবসা নির্বিঘœ চালিয়ে যাচ্ছে। আইনে ‘তামাকজাত দ্রব্যের উৎপাদন, বিপণন সংশ্লিষ্ট বা তা ব্যবহারে উৎসাহিত করার উদ্দেশ্যে কোনো ধরনের বিজ্ঞাপন প্রকাশ বা প্রচার করা যাবে না’ সুস্পষ্ট উলে­খ থাকলেও তারা তা আমলে না নিয়ে কৌশলে সিগারেটের প্রসার ও প্রচার চালিয়ে যাচ্ছে।
তামাক নিয়ন্ত্রণ টাস্কফোর্স সিলেট কমিটির সভাপতি, জেলা প্রশাসক এম. কাজী ইমদাদুল ইসলাম বলেন, এমনটি হয়ে থাকলে অবশ্যই আইন লঙ্গন হচ্ছে। আমরা মোবাইল কোর্টে অভিযান চালাবো, যদি আইন অমান্যের কোনো প্রমাণ পাওয়া যায় তাহলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। তিনি বলেন, আমি সিলেটে দায়িত্ব নিয়ে প্রথম দিনই ঘোষণা দিয়েছি তামাকের পক্ষে কোনো ছাড় নয়। ছাড় দেবোও না। আমার অফিস ও অন্যান্য অফিস আইনসিদ্ধভাবে ধুমপান মুক্ত রাখার শতভাগ চেষ্টা করছি। সিলেটের জেলা ও উপজেলা অফিস এখন ধুমপান মুক্ত।
নগরীর আম্বরখানা পয়েন্টের পাশে পান-সিগারেটের দোকান তোতা মিয়ার। বয়স্ক মানুষ। তিনি জানান, কোম্পানিগুলো সিগারেট বিক্রির টার্গেট দেয় প্রথমে। এই টার্গেট পুরণ করতে পারলে তারাই র‌্যাক এনে দেয়। দোকান সাজিয়ে দেয়। তবে এটি পাড়া-মহল­ায়। পয়েন্ট বা বিক্রির স্পটগুলোতে তারা লোক পেলে নিজেদের খরচে বসিয়ে দেয়। বিক্রিতাদের শুধু সিগারেটের টাকা দিতে হয়।
শহরের পাড়া-মহল­ায়, পয়েন্টে-পয়েন্টে আনাচে-কানাচে সর্বত্র দেখতে মেলে সিগারেটের প্যাকেটের আদলে তৈরি এমন র‌্যাক। কোনো কোনটার সাইজ বড় দোকানের মতো। সিলেটে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সামনে এমনকি হসপিটালের আশপাশেও এমন র‌্যাক বসিয়ে সিগারেট বিক্রি করা হচ্ছে। সিগারেট বিক্রেতারা জানান, শুধু র‌্যাক দেয়া নয়, কোম্পানিগুলো প্রায় সময়ই উপহার-উপটৌকন পাঠিয়ে থাকে। মগ, ট্রে, থালা-বাটিসহ বিভিন্ন উপকরণ দেয়া হয়।
সিগারেটের ব্যবসায় সিলেটে কোনো ট্রেড লাইসেন্স কেউ নেয় না। দোকান দিলেও কোম্পানিগুলোর তরফ থেকে বাধ্য বাধকতা না থাকায় তারা ট্রেড লাইসেন্স ছাড়াই ব্যবসা চালাচ্ছে। সিলেট সিটি কর্পোরেশন বা স্থানীয় সরকার বিভাগ এ নিয়ে মাথাও ঘামায় না। তবে এবার সিলেট সিটি কর্পোরেশন সিগারেটের দোকানের জন্য লাইসেন্স বাধ্যতা মূলক করার পরিকল্পনা নেয়ার কথা জানিয়েছে। কর্পোরেশনরে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, নগরীতে সিগারেট বিক্রেতাদের ট্রেড লাইসেন্স করার উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে। শীঘ্রই তা বাস্তবায়ন করা হবে। লাইসেন্সের বাইরে কেউ সিগারেট বিক্রি করতে পারবে না। তামাকের লাইসন্সে ছাড়াও যারা আইনসঙ্গত নয় এমন উপায়ে তামাক বিক্রি করছেন, প্রচার করছেন বা বিজ্ঞাপন করছেন তাদের বিরুদ্ধে আমরা অভিযানে নামবো।
রাগিব-রাবেয়া ডিগ্রি কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক খালেদ উদ-দীন বলেন, তামাক আইনে বলা আছে- দান, পুরস্কার, বৃত্তিপ্রদান, পৃষ্ঠপোষকতার মতো সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচিতে অংশ নিলেও প্রতিষ্ঠানের পরিচয় প্রকাশ করা যাবে না। অথচ সিগারেট বিক্রি উৎসাহিত করতে দেখানো হয় নানা প্রলোভন। বিক্রেতাকে সিগারেট বহনের জন্য বিতরণ করা হয়, তামাকদ্রব্যের পরিচয় সম্বলিত বাক্স, চায়ের কাপ, নানা ধরনের হ্যান্ডবিল সদৃশ স্টিকার। যা কোনভাবেই আইন সঙ্গত নয়। এন্টি টোবাকো মিডিয়া এলায়েন্স-আÍা সিলেটের সমন্বয়কারী মুরাদ বক্স বলেন, ক্রেতাদের সঙ্গে যোগাযোগে নিত্যব্যবহার্য পণ্যগুলো বিভিন্ন গণমাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকে। সিগারেট কোম্পানিগুলোর সে সুযোগ নেই। তাই তারা আইনের নানা ফাঁক খুঁজে বেড়ায়।
কোম্পানিগুলো সিলেটে তাদের ক্রেতা ধরার প্রধান ক্ষেত্র হিসেবে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, কোচিং সেন্টার, মার্কেট ধরে নিয়ে কৌশল প্রণয়ন করে। এজন্য বেশিরভাগ এলাকায় সুসজ্জিত ও পরিচ্ছন্ন দোকানের দেখা মেলে এসব প্রতিষ্ঠানের আশপাশে। বিভিন্ন স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও কোচিং সেন্টারের শিক্ষার্থী ছাড়াও তরুণ প্রজš§কে ধূমপানে আসক্ত করতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আশেপাশে এ ধরনের প্রচারণা চালানো হয়। গ্লোবাল অ্যাডাল্ট টোব্যাকো সার্ভে বলছে, বাংলাদেশে প্রাপ্তবয়স্ক জনগোষ্ঠীর প্রতি ১০ জনে ৪ জন দোকানপাটে সিগারেটের বিজ্ঞাপন দেখে এবং প্রতি ১০ জনে ৩ জন যেকোনো জায়গায় সিগারেটের বিজ্ঞাপন দেখে আকৃষ্ট হয়। তারা তখন স্বাস্থ্যের বিষয়টি একেবারেই ভুলে যান। স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেন, এই আকৃষ্ট হওয়ার সময় স্বাস্থ্যের কথা ভাবেন না তরুণ প্রজš§। যারা একসময় চেইনস্মুকারে পরিণত হন।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যায়-বিএসএমএময়ের অনকোলজি বিভাগের সাবেক বিভাগীয় প্রধান, বিশিষ্ট স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ প্রফেসর ডা. সৈয়দ আকরাম হোসেন বলেন, তামাক মূলত হƒৎপিণ্ড, লিভার ও ফুসফুসকে আক্রান্ত করে। ধূমপানের ফলে হার্ট অ্যাটাক, স্ট্রোক, ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পালমোনারি ডিজিজ (এমফাইসিমা ও ক্রনিক ব্রংকাইটিস) ও ক্যানসার (বিশেষত ফুসফুসের ক্যানসার, প্যানক্রিয়াসের ক্যানসার, ল্যারিংস ও মুখগহŸরের ক্যানসারের) ঝুঁকি বহুগুণ বাড়ায়। তিনি বলেন, প্রতিবছর বিশ্বের প্রায় ৬০ লাখ লোক তামাকের ক্ষতিকর প্রভাবে মারা যায়। এরমধ্যে প্রায় ৬ লাখ পরোক্ষ ধূমপানের স্বীকার। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন সেন্টারও তামাককে সারা বিশ্বব্যাপী অকাল মৃত্যুর অন্যতম প্রধান কারণ হিসেবে বর্ণনা করেছে। অথচ তামাক কোম্পানিগুলো কখনই এগুলোকে স্বীকার করতে চায় না। তারা বরং কিভাবে এগুলো ছড়িয়ে দেয়া যায়, সিগারেটের প্রসার করা যায় সেই চিন্তাই করে। এটা তাদের জন্য একেবারেই স্বাভাবিক। তবে আমাদের যারা এর বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকার কথা। কাজ করার কথা। আমরা তা করছি না। আমাদের নিজেদের ভ‚মিকা সঠিকভাবে পালন করতে হবে।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin