বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৬:০৭ পূর্বাহ্ন


সিনহা হত্যার জব্দ তালিকা নিয়ে সমালোচনার ঝড়

সিনহা হত্যার জব্দ তালিকা নিয়ে সমালোচনার ঝড়


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যাকাণ্ডের পর নিলীমা রিসোর্ট থেকে মনিটর, ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, লেন্স, হার্ডডিস্ক, মোবাইলসহ ২৯টি ডিভাইস নিয়ে যায় রামু থানা পুলিশ। তবে তা জব্দ তালিকায় না দেখানোয় শুরু থেকেই ছিল নানান প্রশ্ন। কিন্তু গত সোমবার সিনহার সঙ্গে তথ্যচিত্র জাস্ট গো নির্মাণে সম্পৃক্ত শিপ্রা দেবনাথের এক ভিডিও বার্তা প্রকাশের পর এখন তা নিয়ে সমালোচনার ঝড় বইছে সর্বত্র। প্রশ্ন উঠেছে কেন জব্দ তালিকায় তা দেখানো হয়নি। আইন সংশ্লিষ্ট ও অপরাধ বিশ্লেষকরা বলছেন এ ঘটনাটিও স্থানীয় পুলিশের কর্মকাণ্ডকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে। সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যাকাণ্ডের পরে গ্রেপ্তার হওয়া ভুক্তভোগীদের খারাপ চরিত্রের প্রমাণ করা ও স্থানীয় পুলিশের ইমেজ সংকট কাটাতে এ কাজ করা হয়ে থাকতে পারে। আর এসব ঘটনার দায় এড়াতে পারেন না কক্সবাজারের পুলিশ সুপার (এসপি) এবিএম মাসুদ হোসেনও। তবে তাকে কেন এখনো প্রত্যাহার করা হয়নি এ নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন বিশেষজ্ঞরা। এদিকে নতুন করে জব্দ তালিকায় তোলা ২৯টি ডিভাইস র‌্যাব হেফাজতে দেয়ার আদেশ দিয়েছেন কক্সবাজার আদালত।

ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ব্যক্তিগত ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে হেনস্তা করার চেষ্টা চলছে বলে অভিযোগ করে ভিডিও বার্তায় স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম এন্ড মিডিয়া বিভাগের শিক্ষার্থী শিপ্রা অভিযোগ করেন, ঘটনার পর রিসোর্টে এসে দুটি মনিটর, ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, লেন্স ও হার্ডডিস্ক এবং তাদের ফোন ডিভাইস সব নিয়ে যায় পুলিশ। জব্দ তালিকায় যার কোনোটিরই উল্লেখ নেই। এখন তাদের ব্যক্তিগত অ্যাকাউন্ট, ডিভাইস থেকে সেই ব্যক্তিগত ছবি চুরি করে ফেসবুকসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে হেনস্তা করার চেষ্টা চলছে। কিছু বিকৃত মস্তিষ্কের দায়িত্বশীল অফিসাররাই ফেসবুকে সেসব শেয়ার করেছেন বলেও অভিযোগ করেন শিপ্রা। এদিকে শিপ্রার ব্যক্তিগত ছবি ও ভিডিও ফেসবুকে পোস্ট করে উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়ার অভিযোগে সাতক্ষীরার এসপি ও পিবিআইয়ের একজন পুলিশ সুপারের

বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিতে হাইকোর্টে রিটও হয়। আজ বুধবার এর শুনানির দিন ধার্য করেছেন হাইকোর্ট। এ বিষয়ে মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা এডভোকেট মঞ্জিল মোর্শেদ ভোরের কাগজকে গতকাল মঙ্গলবার বলেন, শিপ্রার বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে মাদক সংশ্লিষ্ট। তার বিরুদ্ধে যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে রাষ্ট্রদ্রোহ বা অন্য কোনো অভিযোগ নেই। তাই সেখানে মনিটর, ল্যাপটপ, ডেস্কটপ, লেন্স ও হার্ডডিস্ক নেয়ারই দরকার কি ছিল পুলিশের। আর নিলে জব্দ তালিকায় কেন দেখানো হলো না তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন এই আইনজীবী।

গত ৩১ জুলাই রাতে সিনহা ও সিফাত কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার মেরিন ড্রাইভ সড়ক ধরে যাচ্ছিলেন। বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর এপিবিএন তল্লাশিচৌকিতে পুলিশের ভাষ্যমতে, আত্মরক্ষার্থে ছোড়া গুলিতে নিহত হন সিনহা মো. রাশেদ খান। ঘটনাস্থল থেকে গ্রেপ্তার করা হয় সিফাতকে। এ ছাড়া এ তথ্যচিত্র নির্মাণ করতে গিয়ে তারা যে রিসোর্টে উঠেছিলেন সেখান থেকে স্ট্যামফোর্ডের আরেক শিক্ষার্থী তাহসিন রিফাত নূর ও শিপ্রাকেও আটক করা হয়। পরে তাহসিনকে ছেড়ে দেয় পুলিশ কিন্তু শিপ্রাকে মাদক মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়। এর মধ্যে সাহেদুল ইসলাম সিফাতের বিরুদ্ধে দুটি মামলা ও শিপ্রা দেবনাথের বিরুদ্ধে একটি মামলা করে পুলিশ। সিফাতের বিরুদ্ধে একটি মামলা হচ্ছে, সরকারি কাজে বাধা দেয়া ও হত্যার উদ্দেশ্যে অস্ত্র দিয়ে গুলি করার জন্য তাক করা। মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, সিনহা মোহাম্মদ রাশেদের সঙ্গে যোগসাজশে সিফাত এ কাজ করেছে। তার বিরুদ্ধে করা আরেকটি মামলা মাদকদ্রব্য আইনে। সে মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, বিক্রয়ের উদ্দেশ্যে অবৈধ মাদক জাতীয় ইয়াবা ট্যাবলেট ও গাঁজা যানবাহনে নিজ হেফাজতে রাখার অপরাধ। অন্যদিকে শিপ্রা দেবনাথের বিরুদ্ধে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, তিনি বিদেশি ও দেশীয় চোলাই মদ এবং গাঁজা নিজ হেফাজতে রেখেছেন।

মাওলানা ভাসানি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রিমিনোলজি এন্ড পুলিশ সায়েন্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. ওমর ফারুক বলেন, পুলিশের অনেক ভালো কাজের মধ্যে এ ঘটনাটি ইমেজ সংকট তৈরি করেছে। ফলে বরখাস্তকৃত ওসি প্রদীপের সিন্ডিকেটের কেউ অপকৌশলের মাধ্যমে এ ধরনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন এমনটা বললেও ভুল হবেন না। কারণ পুলিশ কোনো অভিযুক্ত বা সন্দেহভাজনকে আটক করতেই পারে। সেখান থেকে জব্দকৃত জিনিস আলামত হিসেবে দেখানোর মতো হলে তা নথিতে দেখাতে হবে নইলে অভিযুক্তকে মুক্তি দেয়া হলে ফেরত দিতে হবে। তবে তা এখানে করা হয়নি। পরে আমরা দেখছি ইন্টারনেটে ভুক্তভোগীদের ব্যক্তিগত নানা ছবি ও ভিডিও ছড়িয়ে পড়ছে। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। এসবের মাধ্যমে ভুক্তভোগীদের বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষের মনে যে সহমর্মিতা তৈরি হয়েছিল তা নষ্ট করার চেষ্টা করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ঘটনা প্রবাহ বিশ্লেষণ করলে দেখা যায়, বরখাস্তকৃত ওসি প্রদীপের সহমর্মীরাই কেউ এ ধরনের প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন। তবে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার কিন্তু এখান থেকে কোনোভাবেই দায়মুক্তির বিষয়টি এড়াতে পারে না। বিভিন্ন গণমাধ্যমে তার যে কথোপকথন শোনা গেছে সেখানে কিন্তু আমরা তাকে এমন ঘটনায় বিচলিত হতে দেখিনি। এ ছাড়াও তার অধীনস্ত কোনো থানায় কি হচ্ছে তা সবই তার জানার কথা। ঘটনা প্রবাহে জড়িত না থাকলেও নিঃসন্দেহে দ্বায়িত্বে অবহেলা করেছেন তিনি। তাই তিনিও দোষী। তবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নেয়নি।

এদিকে শিপ্রার আইনজীবী রফিক উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এডভোকেট আবুল কালাম আজাদ ও আইন সালিশ কেন্দ্রের এডভোকেট অরুপ বড়ুয়া তপুর সহায়তায় আমরা শিপ্রার জামিনের ব্যবস্থা করি। জামিন শুনানিতে বলেছিলাম, যা আলামত হিসেবে নেয়ার দরকার তা নেয়া হয়নি। আর যা নেয়ার দরকার নেই তাই নেয়া হয়েছে। এদিকে আইন ও সালিশ কেন্দ্র সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, তার চরিত্র হননের যে চেষ্টা চলছে এমতাবস্থায় মামলা করাটাই উচিত। শিপ্রা এ ঘটনায় দ্রুতই মামলা করবেন বলেও জানা গেছে। র‌্যাব লিগ্যাল এন্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক লে. কর্নেল আশিক বিলাল্লাহ বলেন, শিপ্রা ভিডিও বার্তায় যা বলেছেন সেটি তার একান্ত ব্যক্তিগত মতামত। তদন্ত কর্মকর্তা হিসেবে আমরা বিষয়টি সম্পর্কে ওয়াকিবহাল আছি। যেহেতু তার ব্যক্তি স্বাধীনতা রয়েছে তিনি সেখান থেকেই হয়তো এ কাজটি করেছেন। তবে মামলার তদন্তকারী সংস্থা হিসেবে আমরা হত্যাকাণ্ড সংশ্লিষ্ট বিষয়টুকুই দেখছি। এ ছাড়াও শিপ্রা দেবনাথ তার ব্যক্তিগত চরিত্র হননের যে বিষয়টি অভিযোগ করেছেন আমরা মনে করি, তার আইনজীবী রয়েছেন তারা যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি আরো বলেন, ঘটনার পর ২৯টি জিনিস জব্দ করলেও মামলায় আলামত হিসেবে দেখায়নি। যা রামু থানা পুলিশের কাছে রয়েছে। এমতাবস্থায় আদালতে আমরা আবেদন করেছিলাম। তারই পরিপ্রেক্ষিতে আদালতে রায় দিয়েছে ২৯টি জিনিস আলামত র‌্যাবের হেফাজতে দিতে। তদন্ত কর্মকর্তা সুবিধামত সময়ে তদন্তচলাকালীন হেফাজতে নেবেন।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin