সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ১০:৫০ পূর্বাহ্ন

সিলেটের এক কিংবদন্তী নেতার নাম বদর উদ্দিন আহমদ কামরান

সিলেটের এক কিংবদন্তী নেতার নাম বদর উদ্দিন আহমদ কামরান


শেয়ার বোতাম এখানে

শাহাব উদ্দিন শিহাব: সিলেট পৌরসভা থেকে সিটি কর্পোরেশনের সৃষ্টি এবং সেখান থেকেই পরবর্তীকালে নগর পিতার আসনে অধিষ্ঠিত ছিলেন সদ্য প্রয়াত সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরান। যাকে এক নামে দেশে বিদেশে সকলেই মেয়র কামরান বলে জানেন এবং চেনেন।

সিলেটের অভ্যুদয় প্রতিটি ঘটনাই আমাদের ইতিহাসের অবিচ্ছেদ্য অংশ এবং তা আমাদের গৌরবময় সংগ্রামী অতীতকে স্মরণ করিয়ে দেয় প্রতিনিয়ত। সিলেটের লোকজন সম্প্রীতি, সহানুভূতি আর সৌজন্যের জন্য বিখ্যাত বলেই জাতিগত ঐতিহ্য এবং জাত্যাভিমানের যে গৌরব-গরীমা ও প্রতিষ্ঠা আমাদের রয়েছে, তা ধরে রেখে সামনে এগিয়ে যেতে হলেও আমাদেরকে আমাদের ইতিহাস জানতে হবে, সঠিক ইতিহাস মূল্যায়ণ করতে হবে। যারা এই ইতিহাসের রচয়িতা, তাদেরকে সম্মান জানাতে হবে। সে প্রচেষ্টা থেকেই আজকের এই লিখা। যাকে নিয়ে লেখা তিনি হলেন সদ্য প্রয়াত সিলেটের অভিভাবক সাবেক মেয়র বদর উদ্দিন আহমদ কামরানকে নিয়ে। যিনি সিলেটের ইতিহাসের এক কিংবদন্তী।

১৯৫৩ সালের ১লা জানুয়ারি জন্মগ্রহন করা বদর উদ্দিন আহমদ কামরান তৎকালিন সিলেট শহরের জিন্দাবাজার দুর্গাকুমার পাঠশালায় প্রাথমিক, এরপর সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক, এমসি কলেজ থেকে এইচ এস সি পড়া শেষ করেন। উচ্চ মাধ্যমিকে পড়ার সময়ই ১৯৭২ সালে তৎকালিন সিলেট পৌরসভার ৩নং তোপখানা ওয়ার্ড থেকে দেশের সর্বকনিষ্ঠ পৌর কমিশনার নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। তখন তিনি ৬৪২ ভোট পেয়ে কমিশনার বিজয়ী হয়েছিলেন।

কমিশনার থাকাকালিন সময়ে কামরান এমসি কলেজে বিএ-তে ভর্তি হলেও ১৯৭৬ সালে মদন মোহন কলেজ থেকে স্নাতক শেষ করেন তিনি।
মধ্যখানে কয়েক বছর তিনি প্রবাসে অবস্থান করেন। এর পর তিনি ১৯৯৫ সালে সিলেট পৌরসভার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ২০০২ সালে সিলেট পৌরসভা সিটিতে উন্নিত হলে তিনি ভারপ্রাপ্ত মেয়রেরও দায়িত্ব পালন করেন।

২০০৩ সালে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলে প্রথম মেয়র নির্বাচিত হয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেন তিনি। ২০০৮-২০০৯ সালে ওয়ান ইলেভেনের সময় দুই বার কারাবরণ করেন তিনি। প্রায় দেড় বছর তিনি কারাগারে ছিলেন। ২০০৮ সালে কারাগারে থাকা অবস্থায় নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করে বিপুল ভোটে মেয়র নির্বাচিত হন কামরান। তবে সর্বশেষ দুটি সিটি নির্বাচনে বিএনপির প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীর কাছে হেরে যান তিনি।
বাংলাদেশের বর্তমান সামাজিক, রাজনৈতিক ও বিভিন্ন পারিপার্শিকতা বিরাজমান থাকলেও সিলেট ছিল এর ব্যতিক্রম। বদর উদ্দিন আহমদ কামরান আমৃত্য সিলেটের রাজনৈতিক ও ধর্মীয় সম্প্রীতির অতীত ঐতিহ্য ধরে রাখতে কাজ করে গেছেন।

বদর উদ্দিন আহমদ কামরান একাধারে রাজনীতি, ক্রীড়া, সংস্কৃতি প্রেমী ও সাহিত্য চর্চা করলেও সমাজে তাঁর মূল পরিচয় ছিল জনপ্রতিনিধি হিসেবে। তাঁর বৈচিত্রময় জীবনের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি জীবনে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছেন।

২০২০ সালের ১৫ জুন ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এর আগে গত ৫ জুন শুক্রবার তার শরিরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এর পর শনিবার সকালে তাঁকে সিলেট শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে রবিবার ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

৬৭ বছর বয়সে এ মহান ব্যক্তির জীবনাবসান ঘটে এবং সমাপ্তি ঘটে কালের স্বাক্ষী এক সফল রাজনৈতিক ও জনপ্রতিনিধির।
—–
শাহাব উদ্দিন শিহাব, সিডনি, অস্ট্রেলিয়া।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin