সোমবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২১, ০৭:১২ অপরাহ্ন

সিলেটের দর্জিপাড়ায় বেড়েছে ব্যস্ততা

সিলেটের দর্জিপাড়ায় বেড়েছে ব্যস্ততা


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট
ঈদ ঘনিয়ে আসার সাথে সাথে সিলেটের দর্জি পাড়ায় বেড়েছে ব্যস্ততা। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অর্ডারের পোষাক সরবরাহ করতে হিমশিম খাচ্ছেন অনেকে। তাছাড়া অনেকে রাতদিন দোকানে থেকেই কাজ করছেন দর্জিরা। গেল সপ্তাহের তুলনায় এ সপ্তাহে দিগুণ চাপ পড়েছে কাজে। তাই নতুন করে আর কেউ অর্ডার নিচ্ছেন না বলে জানা গেছে।
দর্জিরা জানান, ঈদের জন্য রমজানের শুরু থেকেই অর্ডার আসতে থাকে। পনেরো রমজানের পর অনেক দোকানেই নতুন করে অর্ডার রাখা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। বর্তমানে পুরনো অর্ডারের কাজ শেষ করার চেষ্টা করছেন দর্জিরা। বিশেষ করে মহিলা টেইলরিংয়ের দোকানগুলোতেই বাড়তি ব্যস্ততা রয়েছে।
সিলেট প্লাজা মার্কেটে পোশাক বানাতে আসা এবারের এসএসসি পরিক্ষায় উত্তীর্ণ মাহিম আহমেদ বলেন, ‘ঈদের সময় সবাই চায় নিজের নতুন পোশাক দিয়ে অন্যকে চমকে দিতে। রেডিমেড পোশাকের দোকানে একই নকশার অনেক পোশাক বানানো হয়ে থাকে। বেশিরভাগ সময়ই দেখা যায়, সেখান থেকে কেনা পোশাকের নিজস্বতা থাকে না। এজন্য প্রতিবারই ঈদে নিজের পছন্দমতো কাপড় কিনে দর্জির কাছে বানাতে দেই। এবারও ব্যতিক্রম হয়নি।’
সিলেটের ‘দর্জিপাড়া’ হিসেবে খ্যাত মুক্তিযোদ্ধা গলি ভবন, হাসান মার্কেট, মধুবন মার্কেট, শুকরিয়া মার্কেট, সিলেট প্লাজা মার্কেটের বিভিন্ন টেইলরিংয়ের দোকানে সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, কারিগরদের এখন দম ফেলার সময় নেই। এই ব্যস্ততা চলবে চাঁদরাত পর্যন্ত।
মুক্তিযোদ্ধা গলির একটি টেইলরিং দোকানের মাস্টার আফজল হোসেন বলেন, ‘ঈদ সামনে রেখে দিনরাত কাজ চলছে। চার-পাঁচ ঘন্টা ঘুমিয়ে বাদ বাকি সময় চলছে কাজ। এবার ঈদ উপলক্ষে লং কামিজ, জিপসি, আনার কলি, বাইশ কলি ডিজাইন নামে জামা বানানোর চাহিদা বেশি।’
সেলাইয়ের ধরন ও নকশার ভিন্নতার জন্য দর্জিবাড়িতে একেক পোশাকের মজুরিও হয়ে থাকে ভিন্ন। লং কামিজ বানাতে খরচ পড়ছে ৩৫০ থেকে ৮শ’ টাকা, সালোয়ারসহ ডাবল কামিজ ৭শ’ থেকে ১৫শ’ টাকা, আনারকলি ৯শ’ থেকে ১৭শ’, ফ্রক কাটের সালোয়ার-কামিজে খরচ ৮শ’ থেকে ১৪শ’ টাকা, সুতি কাপড়ের সালোয়ার-কামিজের খরচ ৪শ’ থেকে ৯শ’ এবং ব্লাউজ ডিজাইনভেদে ২শ’ থেকে ৬শ’ টাকা।
দর্জিরা জানান, ছেলেদের পাঞ্জাবি বানাতে খরচ পড়ছে ৪শ’ থেকে এক হাজার টাকা। পায়জামার জন্য দিতে হচ্ছে ২শ’ থেকে ৫শ’, শার্টে ৩শ’ থেকে ৮শ’, প্যান্ট সাড়ে ৩শ’ থেকে ৭শ’ টাকা।
সিলেট নগরীর কাকলী, সিটি সেন্টার, মিলিনিয়াম, শুকরিয়া, লতিফ সেন্টার, আল-হামরা, হাসান মার্কেট, মধুবন মার্কেট, সিলেট প্লাজা প্রভৃতি মার্কেটে দেখা গেছে, বিপণিবিতানগুলোতে রেডিমেড পোশাকের পাশাপাশি থানকাপড়ও বেশ বিক্রি হচ্ছে। ক্রেতারা নিজেদের পছন্দের পোশাক তৈরির জন্য বৈচিত্র্যময় কাপড় ক্রয় করছেন।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin