বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:৪৮ অপরাহ্ন


সিলেটের ফুটপাত আবার যেইসেই!

সিলেটের ফুটপাত আবার যেইসেই!


শেয়ার বোতাম এখানে

নবীন সোহেল: ফুটপাত মুক্ত করা কি মেয়র বা প্রশাসনের কাজ? আমাদের কোন দায়িত্ব নেই। আমরা যদি না কিনি তাহলে এরা এখানে বিক্রি করতে আসবে? এভাবেই আনমনা ভাবেই নগরীর বন্দর বাজারে দাঁড়িয়ে শহরের সকলের উদ্দেশ্যে কথাগুলো বলে দিলেন ষাটোর্ধ মকবুল মিয়া মাষ্টার। দীর্ঘদিন যাবৎ শহরের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন তিনি। কথাগুলো শুনে তাঁর দিকে এগিয়ে যেতেই আরো অনেক কিছু বলে ফেললেন। নগরীর রাস্তাগুলো প্রায় ৪০ফুটের মতো প্রশস্থ। তারপর দু’পাশের ফুটপাত আরো ৪ফুট করে। ফুটপাতে কাপড়ের দোকান আর রাস্তায় সবজির দোকান। এজন্য তো যানজট লেগেই থাকে। ফুটপাতে যারা অবৈধভাবে বিক্রি করছেন তাদের পণ্যের মান নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। আমরা যারা ভোক্তারা সহজে সস্তায় কিনছি তারা নিতান্তই প্রতারিত হচ্ছি। সবজি বাজারে, মাছ বাজারে, নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের ও কাপড়ের নির্ধারিত দোকান বা বাজারে সবসময় প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের নজরদারী থাকে। নিয়মিত ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। সেখানে ভেজাল পণ্য থাকলে জরিমানা করা হয়। ওজন মাপার যন্ত্র সঠিক আছে কিনা তাও পরীক্ষা করা হয়। কিন্তু ফুটপাতের দোকানগুলো এ নজরদারীর বাইরে থাকে এর কারন হলো এরা অবৈধ্যভাবে ব্যবসা করে। এদের পণ্যে ওজনেও সঠিক থাকেনা। প্রায় দিন মেয়র ও প্রশাসনের নেতৃত্বে কিছু পুলিশ এসে এগুলো সরিয়ে পরিষ্কার করে। এক ঘন্টা পর আবার বসে যায়। আজ থেকে এইসব ফুটপাতের দোকানগুলোর সব পণ্য কেনা আমরা বন্ধ করে দেই, দেখবেন আর কাল থেকে তার আর বসবে না। তারাও অন্য স্থায়ী কোন ব্যবসা বা কাজ খুঁজে নেবে। ফুটপাত পরিষ্কার থাকলে আমাদের মতো সাধারণ মানুষের চলাফেরা করতে সহজ হতো। শহর সুন্দর হবে। তাই ফুটপাত মুক্ত রাখা আমাদের নিজ দ্বায়িত্ব। এটা কেন মেয়র আর প্রশাসন করবে?
কথাগুলো বলতে কোন মঞ্চ কিংবা কোন সভা ব্যবহার করেননি প্রবীণ এই শিক্ষক। হঠাৎ করে নগরবাসীর উদ্দেশ্যে আনমনাভাবেই বলে ফেললেন তাঁ অলিখিত বক্তব্যগুলো। প্রবীন এই শিক্ষকের আঘাত করা কথাগুলো অনেকে শুনেও না শুনার ভান করলেও সবার এড়িয়ে যাওয়া সম্ভব হলো না। অনেকে সায় দিলেন তাঁর কথায়।
মঙ্গলবার নগরী ঘুরে দেখা যায়, নগরীর ফুটপাত নয় রাস্তাটাও হকাদের দখলে চলে গেছে। রাজা জিসি স্কুল মার্কেটের সামনে থেকে সিটি কর্পোরেশন, জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, বন্দর বাজার পুলিশ ফাঁড়ির সামনে হয়ে সুরমা পয়েন্ট পর্যন্ত রাস্তার দুই পাশের ফুটপাত দখল করে সবজি, কাপড়, জুতার পসরা নিয়ে বসেছেন হকাররা। একইভাবে কোর্ট পয়েন্ট থেকে লাল বাজার হয়ে জেল রোড পর্যন্ত ফুটপাত সবজি ব্যবসায়ী ও ফলের দোকানদারদের দখলে রয়েছে। কালেক্টরেট মসজিদের সামনে থেকে জিন্দাবাজার হয়ে চৌহাট্টা পর্যন্ত ফুটপাত দখল করে কাপড়, তৈজসপত্রের অস্থায়ী দোকান নিয়ে বসেছেন হকাররা। নগরীর প্রধান ব্যস্ততম এলাকা বন্দরবাজার, জিন্দাবাজার, আম্বরখানা ও রিকাবীবাজারের মতো গুরুত্বপূর্ণ এলাকার ফুটপাত তো বেদখল হয়ে আছে দীর্ঘদিন ধরে। সরকারি অগ্রগামী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, সরকারি কিন্ডারগার্টেন ও দুর্গাকুমার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনের ফুটপাতও বাদ যায়নি। ফুটপাত দখলের কারণে পথচারীসহ শিক্ষার্থীদের চলাচলে মারাত্মক ব্যাঘাত ঘটছে। শুধু ব্যাঘাত নয়, যানজটের প্রধান কারণও হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিকেল হলেই আবার আরেক ধরনের ব্যবসায়ীদের কবলে পড়ে ফুটপাত ও রাস্তাগুলো। ভাসমান চা, চটপটি, ডিম, পিঠা, সবজি, ফলমূল, পোশাক-পরিচ্ছদ থেকে শুরু করে সবজি-মাছ সব কিছুই মিলছে সেখানে। সকাল থেকে মধ্যরাত অবধি ফুটপাত জুড়ে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। পথচারীদের চলাচলের সুবিধার্থে এসব ফুটপাত তৈরি হলেও হকারদের অবস্থানের কারণে এগুলো ব্যবহার করতে পারছে না তারা। এমনও ফুটপাত রয়েছে, যেখানে ১ ইঞ্চি জায়গাও আর হাঁটার জন্য অবশিষ্ট নেই। এতে চলাচল করতে হচ্ছে মূল সড়ক দিয়ে। আবার কোথাও কোথাও মূল সড়কের অর্ধেক অংশ জুড়েও বসে আছে হকার। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন স্থানে সড়কে গড়ে তোলা হয়েছে অবৈধ সিএনজি স্ট্যান্ড। এসব অবৈধ স্ট্যান্ডের কারণে সৃষ্টি হচ্ছে যানজটের। এসব কারণে সড়কে চলাচলকারীদের পড়তে হচ্ছে ভোগান্তিতে। ঘটছে ছোটখাটো দুর্ঘটনাও। এছাড়া, প্রায়ই এসব নিয়ে হকারের সঙ্গে পথচারীদের কথা কাটাকাটি হয়। হকারবিহীন ফুটপাত দেখার দৃশ্য সিলেটবাসীর ভাগ্যে কি কোনদিন জুটবে না? সেটাই এখন প্রশ্ন হয়তো মকবুল মিয়া মাষ্টারের মতো সিলেঠের সচেতন নাগরিকদের। এপ্রসঙ্গে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী দৈনিক শুভ প্রতিদিনকে বলেন, ফুটপাত ও রাস্তাগুলো হকারমুক্ত করতে উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত আছে। শীঘ্রই ফের উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হবে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin