মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ০৯:২৯ পূর্বাহ্ন



সিলেটে সরকারি হাসপাতালে নেই জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন

সিলেটে সরকারি হাসপাতালে নেই জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন


আহমেদ জামিল:
সিলেটের সরকারি হাসপাতালগুলোতে মিলছে না জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন। সিলেট নগরের সরকারি হাসপতালগুলোর মধ্যে একমাত্র শহীদ ডা. শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে জলাতঙ্ক রোগের প্রতিষেধক টিকা দেওয়া হয়। কিন্তু বেশ কিছু দিন থেকে ওই হাসপাতালে নেই ভ্যাকসিন। এতে বিপাকে পড়েছেন রোগীরা। বাধ্য হয়ে বাইরের ফার্মেসী থেকে কিনতে হচ্ছে রোগীদের।
তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, প্রায় এক সপ্তাহ থেকে ভ্যাকসিন নেই। এর আগে সীমিত ছিলো তাই সবাইকে দেওয়া সম্ভব হয়নি।

জানা গেছে, সিলেটের জেলা সদর হাসপাতাল হিসেবে একমাত্র শহীদ ডা. শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে রোগীদের জলাতঙ্কের প্রতিষেধক টিকা দেওয়া হয়। সরকারি নির্ধারিত টিকিটের ফি দিয়ে কুকুর বা বিড়ালের কামড়-আচড়ে আক্রান্ত রোগীদের বিনামূল্যে জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন প্রদান করা হয়।

কিন্তু ভুক্তভোগীদের অভিযোগ, বেশ কিছু দিন থেকেই এখানে জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন পাওয়া যাচ্ছে না। আর করোনা আক্রান্তদের চিকিৎসা ও নমুনা সংগ্রহের কারণে শামসুদ্দিন হাসপাতালে ভয়ে অনেকে যাচ্ছেন না। অনেকে ঝুঁকি নিয়ে গেলেও সংশ্লিষ্টরা ভ্যাকসিন নেই বলে ফিরিয়ে দিচ্ছেন। তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে করোনা রোগীদের চিকিৎসা দেওয়া হলেও এখানে জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন দেওয়া হচ্ছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মাধ্যমে শহীদ ডা. শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন সরবরাহ করে। শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের চাহিদার ভিত্তিতে ২০১৯ সালের ২০ সেপ্টেম্বর ২৩০টি, ৯ জুলাই ২৩০টি এবং ২৯ মার্চ ২৪০টি ভায়াল সরবরাহ কওে সিসিক। সর্বশেষ ২০১৯ সালের ১৪ নভেম্বর শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের চাহিদার ভিত্তিতে ৩০০টি ভায়াল সরবরাহ করা হয়।

এরপর চলতি বছরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সিটি কর্পোরেশনের কাছে আর কোন ভ্যাকসিনের চাহিদা পাঠায় নি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। অর্থ্যাৎ ২০১৯ সালের ১৪ নভেম্বরের পর থেকে সিটি কর্পোরেশনের মাধ্যমে কোনো ভ্যাকসিন সরবরাহ করা হয়নি।

এদিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সপ্তাহখানেক সময় থেকে জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন নেই বললেও অনুসন্ধানে জানা গেছে করোনা সংক্রমণের পর থেকেই পাওয়া যাচ্ছে না ভ্যাকসিন। কুকুরের কামড়ে আক্রান্ত হয়ে অনেকেই ভ্যাকসিন না পেয়ে হতাশ হয়ে ফিরে গেছেন।

সরেজমিনে টানা তিনদিন শহীদ ডা. শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে গেলে জলাতঙ্ক রোগের চিকিৎসার বুথে গেলে কাউকে পাওয়া যায়নি।

এ ব্যাপারে সোমবার শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ডা. সুশান্ত কুমার মাহাপাত্র জানান, করোনা সংক্রমণের পর থেকে আমাদের কাছে অল্প পরিমাণে ভ্যাকসিন ছিলো। কিন্তু সবাইকে দেয়া হয়নি। যাদের খুবই প্রয়োজন তাদেরকে ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে। সর্বশেষ এক সপ্তাহ থেকে একেবারে জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন শেষ হয়ে গেছে।

তিনি বলেন, নতুন করে কোনো চাহিদা পাঠানো হয়নি। চাহিদা পাঠালে সিসিক আবার ভ্যাকসিন সরবরাহ করবে। কিন্তু ওই হাসপাতালে জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন সেবা দেওয়া এখন ঝুঁকিপূর্ণ। তাই আমরা সিসিকের কাছে চাহিদা পাঠাই নি। এই বিষয়টি আমরা আমাদের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছে। তবে বিষয়টি নিয়ে সিটি কর্পোরেশনের সাথে সমন্বয়হীনতা রয়েছে বলে স্বীকার করেছেন তিনি।

এ ব্যাপারে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ড. জাহিদুল ইসলাম সোমবার শুভ প্রতিদিনকে জানান, আমাদের নিজস্ব নার্স না থাকায় আমরা সরকারের নির্দেশনা মোতাবেক সিলেটের শহীদ ডা. শামসুদ্দিন আহমদ হাসপতালে জলাতঙ্কের ভায়াল (ভ্যাকসিন) সরবরাহ করে থাকি। তারা আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসা দিয়ে থাকে। একজন রোগীকে সর্বমোট চারটি ডোজ দিতে হয়।

তিনি জানান, হাসপাতাল থেকে চাহিদা পাঠানো হলে সে মোতাবেক আমরা সরবরাহ করে থাকি। সর্বশেষ গত বছরের ১৪ নভেম্বর ৩০০টি ভায়াল সরবরাহ করা হয়েছে। এরপর হাসাপতাল থেকে কোনো চাহিদা পাঠানো হয়নি বলে আর কোনো ভ্যাকসিন সরবরাহ করা হয়নি।

জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন না থাকার বিষয়টি শুনে তিনি তাৎক্ষনিক শামসুদ্দিন হাসপাতালে ফোন করে করলে হাসাপতাল কর্তপক্ষ গত তিনদিন থেকে ভ্যাকসিন নেই বলে তাকে অবগত করেন। একই সাথে হাসপাতালে এই সেবা দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না বলেও তাকে জানানো হয়।

বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি জানান, আসলে হাসাপতাল কর্তপক্ষের গাফিলতির কারণে এই ঘাটতি দেখা দিয়েছে। ভ্যাকসিন শেষ হওয়ার অন্তত পনেরো দিন আগেই সিটি কর্পোরেশনকে বিষয়টি জানানো উচিত ছিলো। তাছাড়া করোনা চিকিৎসার সাথে জলাতঙ্কেও চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব না বিষয়টি আমাদের জানালে আমরা তখনই ব্যবস্থা নিতাম। কিন্তু সে ব্যাপারে আমাদের সাথে তারা কোনো যোগযোগ করেনি।

এ ব্যাপারে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায় জানান, করোনাকালেও জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন ছিলো। হয়তো অল্প থাকায় সবাইকে দেওয়া হয়নি। কিন্তু নতুন করে ভ্যাকসিনের চাহিদা কেন পাঠানো হয়নি তা খোঁজ নিয়ে দেখব।
তিনি বলেন, করোনা চিকিৎসা হলেও শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে জলাতঙ্কের ভ্যাকসিন সেবা অব্যাহত রাখা উচিত। কারণ অনেকেই জানে এখানে জলাতঙ্কের চিকিৎসা দেওয়া হয়। জায়গা পরিবর্তন করলে মানুষ ভোগান্তিতে পড়বে।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin