শনিবার, ১৫ Jun ২০২৪, ০৬:১১ পূর্বাহ্ন


সিলেটের সাধারণ ব্যবসায়ীরা আতংকে!

সিলেটের সাধারণ ব্যবসায়ীরা আতংকে!


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্টার :
আতংকিত সিলেটের সাধারণ ব্যবসায়ীরা ! তাদের আতংকের নাম ফ্যাস্টিভ্যাল! ঢালাওভাবে শুরু হয়েছে অনলাইন ব্যবসা। ভয়ের কারণ এটি না হলেও অনলাইন দোকান মালিকরা আয়োজন করছেন নানা ফ্যাস্টিভ্যাল। আর সাধারণ ব্যবসায়ীদের আতংক এইসব ফ্যাস্টিভাল।
সারাবছর তারা সরকার বা সিটি কর্পোরশেনকে রাজস্ব দিয়ে ব্যবসা করছেন। অথচ ঈদ পুজাসহ বিভিন্ন উৎসব উপলক্ষে অনলাইন দোকানগুলোর মালিকরা আয়োজন করছেন ইভেন্ট/ ফ্যাস্টিভ্যাল। এইসব আয়োজনের কারণে সাধারণ ব্যবসায়ীদের রাতের ঘুম হারাম।
এসব আয়োজনে ব্যাপক লোকসমাগম যেমন হচ্ছে তেমনি হচ্ছে মোটা অংকের ব্যবসাও। এর প্রভাব পড়ছে সাধারণ ব্যবসায়ীদের উপর। তাদের কাষ্টমার কমে যাচ্ছে বলেই মত প্রকাশ করলেন কয়েকজন ব্যবসায়ী।
এবার ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে সিলেটে ৫/৬টি ইভেন্ট ইতিমধ্যেই শেষ হয়েছে। সর্বশেষ যেটি হলো সেটি ছিল তিনদিনের একটি আয়োজন। সুবিদবাজারের খান কনভেনশন সেন্টারে।
৩ রমজান থেকে শুরু হয়ে নিয়মিত বিরতিতে এসব ইভেন্টের আয়োজন করা হয়েছে নগরীর বিভিন্ন অভিজাত হোটেল বা কনভেনশন সেন্টারে এবং মধ্যবিত্ত ও উচ্চবিত্ত শ্রেণীর মধ্যে ব্যাপক সাঁড়া ফেলেছে। প্রচুর লোকসমাগম যেমন হয়েছে তেমনি ব্যবসাও হয়েছে প্রচুর।
এসব খবরে আতংকিত হয়ে পড়েছেন মূলধারার ব্যবসায়ীরা। তাদের কথা হচ্ছে, রাজস্ব ও ভাড়া দিয়ে, মোটা অংকের অগ্রীম দিয়ে আমরা দোকান ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করি। ঈদুল ফিতরের মতো বড় উৎসবসহ দুর্গাপুজায় ব্যবসা করাই থাকে সাধারণ ব্যবসায়ীদের লক্ষ্য।
অথচ এই সময়টাতে অনলাইন ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন অভিজাত হোটেল বা কনভেনশন সেন্টারে আয়োজন করছেন নানা ইভেন্ট বা ফ্যাস্টিভ্যালের। ৩ বা ৫/৬ দিনের এসব ইভেন্টে কাষ্টমাররা হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন। প্রচুর ব্যবসাও হচ্ছে। তার প্রভাব পড়ছে সাধারণ ব্যবসায়ীদের উপর। তাদের কাষ্টমার কমছে।
অনলাইন ব্যবসাকে স্বাগত জানিয়ে দরগাগেইট এলাকার স্মার্টেক্স-ডিসেন্টের স্বত্ত্বাধীকারী এমএ মুয়িজ ওহিদ বলেন, প্রযুক্তিকে ঠেকিয়ে রাখা সম্ভব নয়। তবে এভাবে বিশেষ উৎসবকে কেন্দ্র করে বিশাল আয়োজনে ৪০-৫০% ডিসকাউন্ট দিয়ে ব্যবসা শুরু করেছেন ইভেন্টের আয়োজক ও অংশগ্রহনকারীরা। এটি খুবই আতংকের। তাদের রাজস্ব দিতে হয়না। নামমাত্র ভাড়ার কারণে প্রচুর সুযোগ দিতে পারছেন কাষ্টমারদের। এটি আমাদের মতো সাধারণ ব্যবসায়ীদের জন্য অবশ্য আতংকের।
এ প্রসঙ্গে জিন্দাবাজারের ব্লু-ওয়াটার শপিং সিটির সাকসেস নামক ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিক ফয়সল এ ব্যাপারে বলেন, ঈদকে টার্গেট করে ইভেন্ট বা মেলার আয়োজন আমাদের জন্য শুধু আতংকেরই নয়, হুমকিরও। প্রযুক্তির প্রভাবতো থাকবেই। কিন্তু এভাবে একমাসের ব্যবধানে ৫/৫টি ইভেন্টের আয়োজন আসলে সাধারণ ব্যবসায়ীদের মেরেফেলার উদ্যোগ।
প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যবসায়ী দাবি, বিশেষ দিন বা উৎসবকে কেন্দ্র করে ঢালাওভাবে ইভেন্টের নামে মেলার আয়োজন নিয়ন্ত্রণে উদ্যোগ নিতে হবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে।

শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin