বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ০৯:৪৮ অপরাহ্ন

সিলেটের সেই মিনারে এখন নেই নাম কিংবা স্মৃতিচিহ্ন !

সিলেটের সেই মিনারে এখন নেই নাম কিংবা স্মৃতিচিহ্ন !


শেয়ার বোতাম এখানে

ছবি সংগৃহীত;ইন্টারনেটের সৌজন্যে

স্বাধীন দেশে সিলেটের প্রথম শহীদ মিনার
পুনরায় সংরক্ষণের দাবি স্থানীয়দের
*স্বাধীন দেশে সিলেটের প্রথম শহীদ মিনার


সাত্তার আজাদ:
স্বাধীনতা পরবর্তী সিলেটের প্রথম শহীদ মিনার স্থাপিত হয়েছিল সোবহানীঘাটে। সেই শহীদমিনার এখন নেই। নাম কিংবা স্মৃতি চিহ্ন পর্যন্ত নেই। সংরক্ষণের অভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে অস্তিত্ব নিশ্চিন্ন গেছে সেই মিনারের।
সোবহানীঘাট পয়েন্টে শহীদ মিনারটি স্থাপন হয়েছিল স্থানীয়দের উদ্যোগে। বর্তমানে সেখানে গড়ে উঠেছে সোবহানীঘাট ট্রাফিক পয়েন্ট। স্বাধীনতাযুদ্ধের পরই স্থাপিত এই শহীদ মিনারের নাম সংরক্ষণের দাবি স্থানীয়দের।
উদ্যোক্তারা জানান, ১৯৭২ সালের শুরুতে কয়েকজন উদ্যোক্তা মিলে সোবহানীঘাটে স্থাপন করেন সেই শহীদ মিনার। শহীদ মিনারটি উদ্বোধন হয়েছিল ওই বছরের ২১শে ফেব্রুয়ারি। স্থানীয় উদ্যোক্তা সোবহানীঘাট, নাইওরপুল, কাস্টঘরের লোকজন মিলে প্রভাতফেরির মাধ্যমে উদ্বোধন করেছিলেন সেটি। গান গেয়ে প্রভাত ফেরি করে এসে ফুল দিয়ে শহীদ মিনারের উদ্বোধন হয়েছিল। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দোয়া পড়িয়েছিলেন সোবহানীঘাট মসজিদের তখনকার ইমাম। প্রভাত ফেরির মিছিলে গান গেয়েছিলেন ওস্তাদ রাম কানাই দাস। উদ্যোক্তাদের দাবিমতে, স্বাধীনতা যুদ্ধের পর এটি ছিল সিলেটে নির্মিত প্রথম শহীদ মিনার।
শহীদ মিনার স্থাপনের অন্যতম উদ্যোক্তা এডভোকেট আশরাফুর রহমান বলেন, সোবহানীঘাটের বর্তমান ট্রাফিক পয়েন্ট এলাকা তখন খালি ছিল। সোবহানীঘাট হয়ে উপশহর-মেন্দিবাগ রাস্তাও হয়নি তখন। এই ট্রাফিক পয়েন্টে পাকা খুঁটি করে উপরে দেয়া হয় প্রতীকী সূর্য। সাত ফুট উঁচু কালো রঙের খুঁটির বুক বরাবর গোলাকৃতি ছিদ্র রেখে সেখানে পিতলের ডিজাইন করা ছিল। এটি দিয়ে বোঝানো হয়েছিল পাক আর্মির গুলিতে ছিদ্র হওয়া শহীদদের বুক।
শহীদ মিনার স্থাপনের মূল উদ্যোক্তা এডভোকেট মো. ইব্রাহিম আলী বলেন, ১৯৭১ সালের যুদ্ধের পর আমরা কয়েকজন মিলে শহীদ মিনারটি স্থাপনের উদ্যোগ নেই। এর মধ্যে ছিলেন, তমাল বন্ধু দাস, গোপাল বন্ধু দাস, এডভোকেট আফরাফুর রহমান, আব্দুল আহাদ, কনিষ্ট উদ্যোক্তা আবুল কাহের চৌধুরী শামীম। আরো অনেকে ছিলেন নাম মনে করতে পারছি না। কয়েকজন নারীও ছিলেন। তিনি বলেন, এটি হল স্বাধীনতাপরবর্তী সিলেটের প্রথম শহীদ মিনার। তখন যুদ্ধ শেষ হয়েছে। সোবহানীঘাটে ওয়াপদা অফিসে ইট, বালু, পাথর ফেলে রাখা ছিল। আমি তখন যুবক। দেশ স্বাধীনের আনন্দ বুকে। তাই আমরা উদ্যোক্তারা মিলে সেই বালু, পাথর ইট নিয়ে পকেট খরচ বাছিয়ে সিমেন্ট ও মিস্ত্রির টাকা দেই। ১৯৭২ সালের ২১শে ফেব্রুয়ারির আগেই কাজ সমাপ্ত হয়। উদ্বোধন করি ২১শে ফেব্রুয়ারি।
আবুল কাহের চৌধুরী শামীম বলেন, আমি তখন ছোট। সোবহানীঘাটের বর্তমান ট্রাফিক পয়েন্টের জায়গাটা খালি ছিল। সেখানেই নির্মিত হয়েছিল স্বাধীন দেশের প্রথম শহীদ মিনার। তখন ১৯৮৪ সালে জমি অধিগ্রহণের মাধ্যমে শহীদ মিনার অক্ষত রেখে সোবহানীঘাট হতে উপশহর শাহজালাল ব্রিজের সাথে সংযুক্ত নতুন হাইওয়ে সড়ক করা হয়। এরপর সরকারি রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে যানবাহনের ধাক্কায় শহীদ মিনারটি ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এক সময় সেখানেই ট্রাফিক পয়েন্ট নির্মাণ করা হয়। সিলেটের প্রথম এই শহীদ মিনারের নামে সোবহানীঘাটের নাম করার দাবি রাখেন তিনি। তার এই দাবির সাথে একমত পোষন করেন নতুন প্রজন্মের অনেকেই। তাদের সকলের দাবি সোবহানীঘাটের এই পয়েন্টে শহীদ মিনারের স্মৃতিচিহ্ন সংরক্ষণ করা হোক।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin