সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৬:৫৯ অপরাহ্ন

সিলেটে অপরিকল্পিত পার্কিংয়ে যানজট ও জনদুর্ভোগ নিয়ন্ত্রণহীন

সিলেটে অপরিকল্পিত পার্কিংয়ে যানজট ও জনদুর্ভোগ নিয়ন্ত্রণহীন


শেয়ার বোতাম এখানে

মবরুর আহমদ সাজু: নগরীতে অপরিকল্পিত পার্কিংয়ের কারণে যানজট ও জনদুর্ভোগ নিয়ন্ত্রণহীন হয়ে পড়েছে। নগরীর ৭০ ভাগ সরকারি-বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের ভবনে নেই গাড়ি পার্কিংয়ের পর্যাপ্ত জায়গা। নগরীর বিপনীবিতানে পার্কিংয়ের জন্য তৈরি করা স্পেস অতি মুনাফার লোভে পার্কিংয়ের কাজে ব্যবহার না করে পার্কিং স্পেসগুলো দোকানের জন্য ভাড়া দেওয়া হয়েছে। আবাসিক ভবনগুলোতেও ফ্লোর স্পেস অনুযায়ী পার্কিংয়ের জায়গা রাখা হচ্ছে না। এছাড়া নগরীর বিভিন্ন স্থানে বেসরকারি স্কুল গড়ে উঠলেও এসব স্কুলের নিজস্ব পার্কিংয়ের জায়গা না থাকায় রাস্তায় অপরিকল্পিত পার্কিং নেওয়ায় বাড়ছে যানজট। সাথে আছে নিয়ন্ত্রণহীন জনদুর্ভোগও।

 

নগরীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, নগরবাসীর ভোগান্তির অন্যতম কারণের একটি যানজট। এজন্য স্কুলগুলোকেও দায়ী করছেন তারা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যানজটের ভোগান্তি কমাতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর নিজস্ব পরিবহন (বাস) চালুর বিকল্প নেই। একটি বাসে অন্তত ৫০-৬০ যাত্রী যাতায়াতের সুযোগ পায়। অথচ ৬০ জনের জন্য প্রয়োজন ৬০টি প্রাইভেটকার। নগরজুড়ে এ অরাজকতা দূর করতে একটি কার্যকর পার্কিং নীতিমালা বাস্তবায়নের দাবি জানিয়েছেন নগর পরিকল্পনাবিদরা। এর পাশাপাশি ট্রাফিক আইনের কঠোর বাস্তবায়ন ও জনসচেতনতার ওপর জোর দিয়েছেন তারা।

 

নগরীর আশপাশের এলাকায় যানজটের জন্য পরিচিত মিরের ময়দানস্থ ব্লুবার্ড স্কুল এ্যান্ড কলেজ থেকে আনন্দ নিকেতন, বিদদ্যানিকেতন রাইজস্কুল পর্যন্ত যানজট লেগে থাকে এসব ক্যাম্পাসের একটিতেও গাড়ি পার্কিংয়ের কোন ব্যবস্থা নেই। অথচ প্রায় হাজার হাজার শিক্ষার্থী এসব ক্যাম্পাসে পড়াশোনা করছে। শিক্ষার্থীদের আনা-নেয়ার জন্য কমপক্ষে শত শত প্রাইভেটকার প্রতিদিন যাতায়াত করে!
একই নয়াসড়ক খাজাঞ্চি বাড়ি স্কুলের ক্ষেত্রে। এই প্রতিষ্ঠানে ও নেই গাড়ি রাখার ব্যবস্থা নেই। সে জন্য সবচেয়ে বেশি সমস্যা তৈরি হয় ক্যাম্পাসের আশপাশের রাস্তায়। সড়কের প্রায় অর্ধেক দখল করে গাড়ি রাখা হয় নিয়মিত। অথচ বলার কেউ নেই। প্রতিদিন স্কুল শুরু ও ছুটি হওয়া মানেই এই এলাকায় যানজটের আতঙ্ক। অন্ততঘন্টা থেকে ভোগান্তি হয় যানজটের।
নগরীর ব্যস্ততম সড়ক হিসেবে পরিচিত বন্দর থেকে আম্বরখানা সড়কটির দৈর্ঘ্য হলেও সম্পূর্ণটাই রয়েছে অবৈধ পার্কিংয়ের দখলে? সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় সিলেট নগরীর বিভন্ন স্কুল কলেজ ও হাসপাতালের সামনে সারিবদ্ধ যানবাহন দাঁড় করানো আছে। স্কুল- কলেজের ছুটির পর চালকেরা শিক্ষার্থীদের ডাকছে। পাশেই দাঁড়িয়ে আছে ট্রাফিক পুলিশ কিন্তু কিছুই বলছে না চালকদের। সরকারি আলিয়া মাদ্রাসার একটু সামনেই দুটো প্রাইভেট কার পার্ক করানো অবস্থায় দেখা যায়? একটিতে চালক নেই, অন্যটির চালককে পাওয়া গেলেও সে গাড়ির সিটে গা এলিয়ে ঘুমাচ্ছেন। ঘুম থেকে জাগিয়ে তাঁর কাছে অবৈধভাবে গাড়ি পার্কিং-এর কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘পার্ক করার তো আর জায়গা নাই, তাই অপারগ হয়েই এখানে পার্কিং করেছি।

 

এই যখন বাস্তবতা। তখন হকার উচ্ছেদের পর শহরে যানজটের নেপথ্যে এখন ভূমিকা রাখছে যত্রতত্র অবৈধ পার্কিং। সিলেট নগরীর অধিকাংশ সচেতন মানুষের ধারণা এটাই। এই অবৈধ পার্কিংয়ের কারণে সৃষ্ট যানজটে ভোগান্তি শিকার হচ্ছেন নগরবাসী। সিসিক সূত্র বলছে দফায় দফায় অবৈধ পার্কিংয়ের বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হয়েছে। আর সিলেট ট্রাফিক পুলিশ বলছে অবৈধ গাড়ি পাকির্ংয়ের কারণে অনেক সময় যানবাহনের মালিকদের কে অর্থদন্ড ও মামলা দেওয়া হয়েছে। সরেজমিন ঘুরে দেখা যায়, সিলেটের রস্তাা প্রশস্থকরণ করেও যানজট থেকে মুক্তি মিলছে না। বরং রাস্তা প্রশস্থকরণের পরপরই সেটি দখলের মহোৎসব চলছে। আর এই মহোৎসবের কারনে ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছেন নগরবাসী।
সিলেটের বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীও তাঁর শাসন ব্যবস্থায় সিলেটের দীর্ঘদিনের এই সমস্যার সমাধান করতে ব্যর্থ হয়েছেন। এর আগে একইভাবে ব্যর্থ হয়েছিলেন সাবেক মেয়র বদরউদ্দিন আহমদ কামরানও। ভোটকেন্দ্রিক রাজনীতির কারণে জনপ্রতিনিধিরা কার্যকর ভূমিকা না রাখায় সিলেট নগর জঞ্জালমুক্ত হচ্ছে না। এদিকে, সিলেট নগরীতে কিছুটা শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়রের পক্ষ থেকে কোর্ট পয়েন্ট সহ কয়েকটি এলাকায় রাস্তা গাড়ি দাঁড় করিয়ে রাখার উপর বিধিনিষেধ আরোপ করেছিলেন। কিন্তু সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের অসহযোগিতার কারণে সেটি করা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়েছে সিটি করপোরেশন সূত্র। সিলেট নগরীর কোর্ট পয়েন্ট এলাকা পুরোটাই এখন পরিণত হয়েছে গাড়ি স্ট্যান্ডে। সিএনজি ও লেগুনা স্ট্যান্ডের কারণে সকাল থেকে রাত পর্যন্ত কোর্ট পয়েন্টের যানজট কমে না। আর বিকেল হলেই ওই এলাকায় বাড়ে অবৈধ হকারদের উৎপাত। ফলে কোর্ট পয়েন্ট এলাকায় রাস্তার পরিধি ব্যাপক থাকলেও সাধারণ মানুষের ভোগান্তি কমছে না।

 

সিটি করপোরেশন সূত্র জানিয়েছে- নগরীর কোর্ট পয়েন্টকে জঞ্জালমুক্ত করতে অর্থমন্ত্রীর নির্দেশে স্থাপিত ওভারব্রিজ নগরীর হুমায়ুন রশীদ চৌধুরী স্কয়ার কিংবা কদমতলী এলাকায় নিয়ে যাওয়ার কথা রয়েছে। তবে- এ ব্যাপারে এখনো চূড়ান্ত কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এ কারণে সেটি সরানো সম্ভব হচ্ছে না। আর কোর্ট পয়েন্টের জঞ্জাল দূর করতে বর্তমান মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর পক্ষ থেকে পরিবহন মালিক ও শ্রমিকদের সঙ্গে কথা হয়েছে।
তাদের সঙ্গে কথা বলে মেয়র মৌখিক সিদ্ধান্ত জানিয়েছিলেন, কোর্ট পয়েন্টে যে অস্থায়ী গাড়ি স্ট্যান্ড রয়েছে সেখানে সব সময় ১০টি লেগুনা ও ২৫ টি সিএনজি অটোরিকশা দাঁড়াতে পারবে। এর বেশি যানবাহন সেখানে থাকতে পারবে না। এছাড়া তাদের দাঁড়িয়ে থাকার সীমানাও নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছিলো। কিন্তু পরিবহন শ্রমিকরা সিটি করপোরেশনের সেই নির্দেশেরও তোয়াক্কা করছেন না। তারা পুরো এলাকা দখলে নিয়ে কোর্ট পয়েন্টকে যানজটের ভাগাড়ে পরিণত করেছেন। এতে করে যানজট লেগেই আছে। রমজান শুরুর পর থেকে কোর্ট পয়েন্ট পথচারীদের কাছে ভোগান্তি কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

 

যানজটের অন্যতম কারণ নগরীর ধোপাদিঘীর পাড় এলাকার অবৈধ স্ট্যান্ড। শিশুপার্ক স্থাপনের আগে ধোপাদিঘীর পাড়ে এক সময় তামাবিল-জৈন্তা সড়কের বাসস্ট্যান্ড ছিল। পরবর্তীতে সেটি সরিয়ে শিবগঞ্জে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে- ধোপাদিঘীর পাড় থেকে অনুরাগের গলি মোড় পর্যন্ত রাস্তা গেলো দেড় দশক ধরে মুক্ত করা যাচ্ছে না। এটি ছিল মাইক্রোবাস স্ট্যান্ড। এখনো সেই স্ট্যান্ড আছে। তার উপর এসে যুক্ত হয়েছে লেগুনা ও সিএনজি। কয়েকশ’ লেগুনা ও সিএনজি দখল করে নিয়ে ধোপাদিঘীর পাড় থেকে জেলরোড গলির মুখ পর্যন্ত এলাকা। রাস্তায় যাত্রী উঠানামা করার কারণে সবসময় ওই এলাকায় যানজট লেগেই থাকে। এসব বিষয় নিয়ে সম্প্রতি সময়ে সিটি মেয়রের সঙ্গে আলোচনা করেছেন ব্যবসায়ীরা। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে বলে মেয়রের পক্ষ থেকে জানানো হয়। এরপরও স্বস্তি মিলছে না। নির্বাচনকে সামনে রেখে জনপ্রতিনিধিরাই এখনই কোনো বিতর্কে জড়াতে চান না।

 

দিকে- নগরীর আম্বরখানা এলাকায় রাস্তা দখল করে স্ট্যান্ড বসানোর কারণে যানজট কমছে না। সঙ্গে ওই রুটে চলছে ট্রাকও। দিনের বেলা ট্রাক চলাচলের নিষেধাজ্ঞা জারি থাকলেও জরুরি প্রয়োজনের কথা বলে ট্রাফিক ম্যানেজ করেই চলছে ট্রাক। এতে করে যানজট কমছে না।
অনুসন্ধানে দেখা যায়, কিন ব্রিজের দক্ষিণ মোড়ে অবৈধ স্ট্যান্ড যানজটের প্রধান কারণ। অবৈধভাবে রাস্তার উপর সিএনজি অটোরিকশা, বাস দাঁড় করিয়ে যাত্রী উঠানামা করানোর ফলে কিন ব্রিজে যানজট লেগে যায়। এখানকার অবৈধ স্ট্যান্ড উচ্ছেদের দাবি দক্ষিণ সুরমাবাসীর দীর্ঘদিনের। কিন্তু অদৃশ্য কারণে এখান থেকে অবৈধ স্ট্যান্ড উচ্ছেদ করা হচ্ছে না বলে একটি সূত্রে জানা গেছে। এর ফলে নগরীতে জনসাধারণের চলাচলে মারাত্মক ব্যাঘাত ঘটে। মহিলা, শিশু ও মুমূর্ষু রোগীদের চলাচলে মারাত্মক দুর্ভোগ পোহাতে হয়। স্কুল, কলেজগামী ছাত্র-ছাত্রী ও তাদের অভিভাবকদেরও কষ্টের শেষ নেই। প্রচন্ড গরম আর তীব্র যানজট নগর জীবনকে বিষিয়ে তুলেছিল। নগরীতে যানজট নিরসনে ট্রাফিক পুলিশের ভূমিকাও এখন প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে উঠেছে।

 

জেসিসের এনজিও কর্মী এম.এ. ওয়াহিদ চৌধুরী বলেন, অপরিকল্পিত নগরায়ন, অবৈধ পার্কিং, ফুটপাত দখল, অদক্ষ চালক, দুর্বল ট্রাফিক ব্যবস্থা আর দীর্ঘদিন ধরে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের (সিসিক) অভিভাবকহীনতার কারণে সিলেট নগরীতে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। যানজটের কারণে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন নগরবাসী। বিশেষ করে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থী এবং অফিসপাড়ার লোকদের যানজটের কবলে পড়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা ব্যয় করতে হচ্ছে। এ অবস্থায় প্রতিদিন এ শহরে যানজটের কারণে মানুষের হাজার হাজার কর্মঘণ্টা সময় অপচয় হচ্ছে।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নগরীতে অনেক বহুতল বাণিজ্যিক ভবন আছে যাদের নিজস্ব কোনো পার্কিং ব্যবস্থা নেই। বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্মকর্তা তাদের পণ্য সরবরাহকারী গাড়ি অথবা পারিবারিক কাজে ব্যবহৃত গাড়ি ইচ্ছামতো মেইন রোডে পার্কিং করে রাখেন। শহরের মেইন রোডের সঙ্গে গড়ে ওঠা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অধিকাংশেরই নিজস্ব কোনো পার্কিং ব্যবস্থা নেই। যার কারণে স্কুল শুরু হওয়া থেকে ছুটি হওয়া পর্যন্ত রাস্তার পাশে রাখা তাদের বহনকারী যানবাহনগুলো যানজট সৃষ্টি করে। সিলেট গুরুত্বপূর্ণ বিভাগীয় শহর হলেও আয়তনের দিক দিয়ে তেমন বড় নয় জানিয়ে বিশেষজ্ঞরা বলেন, ভৌগোলিকভাবে এ শহরের এক পাশে সুরমা নদী অপর দুপাশে পাহাড়ি অঞ্চল ও সরকারি টি-স্টেট। যে কারণে এ ৩ দিক দিয়ে শহর প্রশস্ত হওয়ার সুযোগটা স্বাভাবিকভাবেই কম। এজন্য সময়ের ব্যবধানে শহর প্রশস্ত হওয়ার চাইতে অন্যান্য শহরের তুলনায় হাইরাইজ বিল্ডিংয়ের আধিক্য বেশি।
সরেজমিন এসব এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, যানজটের করুণ দৃশ্য।

 

বিশেষ করে জিন্দাবাজার পয়েন্টে যানজট অন্যরকম ভোগান্তি দেয় নগরবাসীকে। ওয়ানওয়ে রোড হওয়া সত্ত্বেও বিপণিবিতান, শপিংমল, ক্লিনিক-হাসপাতালগুলোর পর্যাপ্ত পাকিং না থাকায় সব সময় যানজট লেগে থাকায় কেনাকাটা করতে আসা লোকজনের হেঁটে যাওয়ারও উপায় নেই। মহিলা ও শিশুদের বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়। উভয় দিক থেকে মোটরসাইকেল ও বাইসাইকেল এসে মুখোমুখি অবস্থান নেয়ায় সৃষ্টি হয় অসহনীয় যানজট। গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশ এ যানজট নিরসনে তেমন উদ্যোগ নেয় না বলে অভিভোগ ভুক্তভোগীদের। নগরীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে একাধিক ট্রাফিক পুলিশ, সার্জেন্ট এবং পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করলেও যানজট নিরসনে তারা দায়িত্বহীনতার পরিচয় দেন।
সুশাসনের জন্য নাগরিক সিলেটের সভাপতি ফারুক মাহমুদ চৌধুরী বলেন, সম্ভবত যানজট নিরসনের সঠিক প্রশিক্ষণ না থাকায় ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা বেশির ভাগ সময়ই যানজট তৈরি করে থাকেন। তাদের মূল উদ্দেশ্য থাকে বাইরের জেলা বা বিভিন্ন উপজেলা থেকে আসা সিএনজিচালিত অটোরিকশা, ট্রাক দাঁড় করিয়ে টাকা আদায় করা। এককথায় এরা আত্মসেবার মাধ্যমে জনসেবা করেন। নগরীর যানজট নিরসনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে কার্যকরি উদ্যোগ গ্রহণের দাবি জানান ফারুক মাহমুদ।

 

ট্রাফিক পুলিশ বলছে, জেলাগুলো থেকে নগরীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে প্রতিদিন অগণিত মানুষ কেনাকাটা করতে আসে। এখানে যানবাহন চলাচলে সর্বোচ্চ নজরদারি থাকে। কিন্তু উভয় দিক থেকে মোটরসাইকেল আরোহীরা এলোমেলো যাতায়াত করেন। যে কারণে যানজটের সৃষ্টি হয়। এখানে নিজেদের সচেতনতার প্রয়োজন রয়েছে। জনগণ সচেতন হলে যানজট নিরসন সম্ভব।

 

সিলেট সিটি করপোরশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেন, যানজট নিরসনে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে সবসময়ই পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়। কিন্তু তা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে না। এ ব্যাপারে পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথেও একাধিকবার বৈঠক হয়েছে। মেয়র বলেন, বেশ কিছু দিন থেকে নগরীর বিভিন্ন সড়কে সংস্কার কাজ চলছে। এজন্য সাময়িক অসুবিধা হতে পারে। তবে সংস্কার কাজ শেষ হলে অনেকটাই কমে আসবে যানজট সমস্যা।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin