রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৫৯ অপরাহ্ন


সিলেটে আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে লবিংয়ে ব্যস্ত নেতারা

সিলেটে আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে লবিংয়ে ব্যস্ত নেতারা


শেয়ার বোতাম এখানে

আওয়ামী লীগে কেন্দ্রীয় সম্মেলনের পাশাপাশি সিলেটে আওয়ামী লীগে সম্মেলনকে ঘিরে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা হয়ে ওঠেছেন সরব,বাড়ছে সম্মেলন ব্যস্ততা শুরু হয়েছে লবিং। দীর্ঘ ১৪ বছর পর এবার সম্মেলনের মাধ্যমে কমিটি হবে সিলেট আওয়ামী লীগে। যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষক লীগ, জাতীয় শ্রমিক লীগে স্বচ্ছ ইমেজের নতুন নেতৃত্ব সন্ধান করা হচ্ছে। পরিচ্ছন্ন ইমেজ, দক্ষ সংগঠক, দলের জন্য নিবেদিত ও পরীক্ষিতদের হাতে নেতৃত্ব তুলে দিতে চান আওয়ামী লীগের হাইকমান্ড যা গেল সপ্তাহে কেন্দ্রয়ি নেতারা সিলেটে এসে এমন ইঙ্গিত দিয়েগেছেন। ছাত্রলীগ ব্যাকগ্রাউন্ড ছাড়া সহযোগী সংগঠনের শীর্ষ নেতৃত্বে কাউকে বসানো হবে না। দলের নেতা-কর্মীদের ইতিমধ্যে সাফ জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এদিকে শীর্ষ নেতারা জানিয়েছেন, আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের সম্মেলন নিয়ে এবার হার্ড লাইনে দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নিজের মতো করেই প্রধানমন্ত্রী সাজাতে চান মূল দল ও সহযোগী সংগঠনকে। ক্যাসিনো কান্ডে জড়িয়ে যারা বিতর্কিত হয়েছেন কেউ ঠাঁই পাচ্ছেন না যুবলীগ-স্বেচ্ছাসেবক লীগে। সহযোগী ও মূল দল আওয়ামী লীগের পদ-পদবিতে ‘সিন্ডিকেট’র ব্যাপারে জিরো টলারেন্সে শেখ হাসিনা। ঠাঁই পাচ্ছেন না অনুপ্রবেশকারীরা। নেপথ্যে যদি কেন্দ্রীয় নেতারা সুপারিশ করেন তারাও চিহ্নিত হবেন দলের হাইকমান্ডের কাছে। এদিকে কর্মীরা বলছেন,

সিলেটে পরিচ্ছন্ন ইমেজ, দক্ষ সংগঠক, দলের জন্য নিবেদিত ও পরীক্ষিতদের হাতে নেতৃত্ব তুলে দিতে চান। সূত্রমতে, সিলেটের আ’লীগ: ৭ উপজেলায় হবে সম্মেলন, ৬টিতে হবে পূর্ণাঙ্গ কমিটি
সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন আগামী ৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ জন্য উপজেলা কমিটির কাজ শেষ করতে চাচ্ছেন জেলা নেতৃবৃন্দ। কারা আসছেন নতুন কমিটি ও পূণাঙ্গ কমিটিতে এ নিয়ে দৌঁড়ঝাপ শুরু করেছেন তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। আগামী ৩১ অক্টোবর থেকে সিলেটের ১৩ উপজেলার মধ্যে ৭টিতে সম্মেলন ও ৬টিতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার কার্যক্রম শুরু করবেন জেলা নেতৃবৃন্দ।
সম্প্রতি ঘোষিত তারিখ অনুযায়ী প্রথমদিন ৩১ অক্টোবর বালাগঞ্জ উপজেলা, ১ নভেম্বর সিলেট সদর উপজেলা, ৫ নভেম্বর কোম্পানীগঞ্জ, ৭ নভেম্বর বিয়ানীবাজার, ৯ নভেম্বর দক্ষিণ সুরমা, ১০ নভেম্বর কানাইঘাট ও ১৪ নভেম্বর গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ও নতুন কমিটি করা হবে। এছাড়া সম্মেলন করে আংশিক কমিটি ঘোষনা হওয়া জৈন্তাপুর উপজেলা, ফেঞ্চুগঞ্জ, ওসমানীনগর, বিশ্বনাথ, কানাইঘাট ও গোয়াইনঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি নভেম্বরেই শেষ করা হবে বলে জানিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী। তবে যে ৬ উপজেলায় অতীতে সম্মেলন করে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ঘোষনা করা হয়েছিল সেসব উপজেলায়ও পুর্ণাঙ্গ কমিটির প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। পুর্বের কমিটি ভেঙ্গে নতুন করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করা হবে না-কি সভাপতি সাধারণ সম্পাদক বহাল রেখে কমিটি হবে সে বিষয়টি এখনো খোলাসা করেন নি জেলা নেতৃবৃন্দ।

জেলা আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক জগলু চৌধুরী জানিয়েছেন, ৩ অক্টোবর সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় আগামী ৫ ডিসেম্বর জেলা সম্মেলন করার তারিখ ঘোষনা করা হয়। কেন্দ্রের সঙ্গে আলোচনা করেই ওই সীদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তিনি জানান, যে ৬টি উপজেলায় আংশিক কমিটি আছে সেগুলোও নভেম্বরের মধ্যে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের পরামর্শে পূর্ণাঙ্গ করার কথা রয়েছে।

জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষনার পাশাপাশি উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষনা করায় তৃণমূলে উৎসাহ উদ্দীপনা লক্ষ্য করা গেছে। দীর্ঘদিন ধরে কমিটি না হওয়া এবং কমিটিতে স্থান করে নিতে তোড়জোড় শুরু করেছেন উপজেলা পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। তারা আশা করছেন জেলা নেতৃবৃন্দ সম্মেলন করে নতুন নেতৃত্ব দিয়ে তৃণমূলে দলকে আরও এগিয়ে নেবেন।
২০১৫ সালের শুরুর দিকে সিলেটের ১৩ উপজেলার মধ্যে ৬ উপজেলার সম্মেলন করে আংশিক কমিটি ঘোষনা করেন জেলা নেতৃবৃন্দ। সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ ঘোষনা করার ৪ বছরেও ওইসব উপজেলায় পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে পারেন নি জেলা নেতৃবৃন্দ। এছাড়া বাকি ৭ উপজেলায় কোনো সম্মেলন হয়নি। দীর্ঘদিন পর ৩১ অক্টোবর থেকে কাঙ্খিত সেই সম্মেলন শুরু হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনচ্ছিুক জনপ্রতিনিধিরা জানান, যারা নির্বাচনে বিরোধীতা করছিলেন তারা এখন,এসব মন্ত্রী, সংসদ সদস্যদের পাশে ঘুরাঘোরি করছেন। আওয়ামী লীগ নেতারা বলছেন, দলের তৃণমূল থেকে শুরু করে কেন্দ্র পর্যন্ত সংগঠনকে নতুন করে ঢেলে সাজানোর কাজ শুরু হয়ে গেছে। এর মধ্য দিয়ে দলের থেকে যারা অপকর্ম করেছে তাদের আউট করা হবে। বিতর্কিত কাউকেই দলের নেতৃত্বস্থানীয় কোনো পদে বসানো হবে না। পদ-পদবিতে বসানো হবে দলের ত্যাগী, দক্ষ ও ক্লিন ইমেজ সম্পন্ন এবং ছাত্রলীগ করে আসা নেতা-কর্মী থেকেই। কোনো হাইব্রিড-অনুপ্রবেশকারীর স্থান আওয়ামী লীগে হবে না।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin