বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:০৯ পূর্বাহ্ন


সিলেটে এবার বাসায় ঢুকে গৃহবধূকে ধর্ষণ : গ্রেফতার ২

সিলেটে এবার বাসায় ঢুকে গৃহবধূকে ধর্ষণ : গ্রেফতার ২


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট:

সিলেটের মুরারিচাঁদ কলেজ (এমসি) ছাত্রবাসে তুলে নিয়ে গৃহবধূকে গণধর্ষণের রেশ কাটতে না কাটতেই সিলেট নগরে এবার ঘরে ঢুকে জোরপূর্বক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ধর্ষক দিলওয়ার হোসেন ও তার সযোগিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সিলেট নগরের শামীমাবাদ আবাসিক এলাকার ৪ নং রোডের ২ নম্বর বাসায় এ ঘটনা ঘটে। একই বাসার দ্বিতীয়তলায় ধর্ষণের শিকার নারী ও নিচতলায় ধর্ষক দিলওয়ার পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকেন বলে জানা গেছে। দুই পরিবারের মধ্যে শিশুদের নিয়ে পূর্ববিরোধও রয়েছে বলে জানা গেছে।

পুলিশ ও মামলার এজাহার সূত্রে জানায়, শামীমাবাদ এলাকার চার নম্বর রোডের ২ নম্বর বাসায় স্বামী ও সন্তানদের নিয়ে বসবাস করতেন ওই নারী। শনিবার সন্ধ্যায় বাসার দ্বিতীয় তলার ভাড়াটে দিলওয়ার হোসেন (৩৮) তার দুই সহযোগি হারুন মিয়া ওরফে চাক্কু হারুন (৩৫) ও জামাল মিয়া ওরফে বাইড্ডা জামালকে (৩৪) সাথে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। মামলা দায়েরের পর সোমবার দুপুরে ৩৫ বছর বয়সি ওই গৃহবধূকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টার-ওসিসিতে ভর্তি করা হয়েছে।
ধর্ষণের ঘটনার খবর পেয়ে রোববার সন্ধ্যায় সিলেটের লামাবাজার ফাঁড়ি পুলিশ অভিযান চালিয়ে ধর্ষক দিলওয়ার হোসেন (৩৮) তার দুই সহযোগি হারুন মিয়া ওরফে চাক্কু হারুনকে (৩৫) গ্রেপ্তার করেছে। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার নারী বাদি হয়ে সোমবার সকালে সিলেটের কোতোয়ালি থানায় অভিযোগ দাখিল করলে পুলিশ তা মামলা হিসেবে রুজু করে।

গ্রেফতারকৃত দিলওয়ার শামীমাবাদ আবাসিক এলাকার চার নম্বর রোডের ২ নম্বর বাসার নিচ তলার বাসিন্দা। সে সিলেট সদর উপজেলার পাইকেরগাঁওয়ের লাল মিয়ার ছেলে। হারুন নগরের তালতলা এলাকায় পার্কভিউ মেডিকেলের পেছনের একটি কলোনিতে ভাড়া থাকে। সে ওসমানীনগর উপজেলার কুড়ুয়ার রাগবপুর গ্রামের মৃত শাহেদ মিয়ার ছেলে। সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তাদের দুজনকে মহানগর বিচারিক হাকিম আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

নগরের লামাবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) কামাল হোসেন সরকার জানান, যে বাসায় ধর্ষণের শিকার নারী ভাড়া তাকেন এর নিচতলায় মামলার আসামি দিলওয়ার হোসেনও ভাড়া থাকেন। তাদের দুই পরিবারের শিশুদের মধ্যে ঝগড়া চলছিল। পূর্ব বিরোধের জের ধরেই ওই মহিলাকে শনিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে দিলওয়ার তিন সহযোগীকে নিয়ে অস্ত্রের মুখে ধর্ষণ করেছে বলে ধর্ষণের শিকার নারী অভিযোগ করেছেন। তবে দিলওয়ার একাই তাকে ধর্ষণ করে এবং হারুন ও জামাল দিলওয়ারকে ধর্ষণে সহযোগিতা করেছে বলে মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে।
খবর পেয়ে পুলিশ দিলওয়ার ও তার সহযোগিকে গ্রেপ্তার করে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin