বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০১:১৯ পূর্বাহ্ন

সিলেটে গ্রুপিং নয়, রাজনীতি হবে জনকল্যাণে

সিলেটে গ্রুপিং নয়, রাজনীতি হবে জনকল্যাণে


শেয়ার বোতাম এখানে

সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে গত ৫ ডিসেম্বর। সম্মেলনে চমক দেখিয়ে জেলার সভাপতি পুনরায় নির্বাচিত হয়েছেন অ্যাডভোকেট মো. লুৎফুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান। আর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন। ক্ষমতাসীন দলের দায়িত্ব পাওয়ার পর সিলেটের দলের কার্যক্রম, পরিকল্পনা, ভাবনা নিয়ে মুখোমুখি হয়েছে দৈনিক শুভপ্রতিদিন। তারা প্রত্যেকেই বলেছেন ক্লিন ইমেজধারীদের দিয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি হবে। আর সিলেটে আওয়ামী লীগের রাজনীতি থেকে গ্রুপিং থাকবেনা। গ্রুপ হবে একটাই আর সেটা হবে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা গ্রুপ। আমরা সবাই জননেত্রী শেখ হাসিনা ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আওয়ামী লীগ করব। গ্রুপিং রাজনীতি নয়, রাজনীতি হবে জনকল্যাণে। নব-নির্বাচিত এ চার নেতার সাক্ষাতকার গ্রহণ করে প্রতিবেদনটি তৈরী করেছেন

স্টাফ রিপোর্টর নবীন সোহেল ও মবরুর আহমদ সাজু।

গ্রুপিং রাজনীতি মুক্ত করা হবে : লুৎফুর রহমান

ভারপ্রাপ্ত সভাপতির তকমা সরে আগামী ৩ বছরের জন্য সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের পূর্ণ দায়িত্ব পেলেন সভাপতি হলেন অ্যাডভোকেট লুৎফুর রহমান। গত ৫ ডিসেম্বর সম্মেলনে তাঁর হাতেই দায়িত্ব দেন দলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা। এই বয়োজ্যেষ্ঠ নেতা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যানও।

সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর আর দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে শুভপ্রতিদিনের সাথে একান্ত সাক্ষাতকালে এ বয়োজ্যেষ্ঠ নেতা বলেন, আমাকে ২০১৫ সালে দায়িত্ব দিয়েছিলেন। আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করেছি। আমি মনে করি সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ অন্যান্য জেলার তুলনায় অনেকটা সুসংগঠিত ও শক্তিশালী অবস্থানে আছে। এখন দায়িত্ব পাওয়ার পর সিলেটের আওয়ামী লীগকে আরও সুংগঠিত করে একটি উদাহারণ সৃষ্টি করতে চাই। আগামী মুজিব বর্ষকে সামনে রেখে অনেক চ্যালেঞ্জ ও পরিকল্পনা আছে। পরিচ্ছন্ন রাজনীতি কর্মিদের নিয়ে সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করতে চাই। জেরার প্রতিটি উপজেলার আওয়ামী লীগকে গ্রুপিং রাজনীতি থেকে বের করে আনাই হবে আমার প্রধান লক্ষ্য।

লুৎফুর রহমান বঙ্গবন্ধুর জমানায় দাঁপিয়ে বেড়ানো রাজনীতিবিদ। ছিলেন গণপরিষদ সদস্যও। তিনি বিতর্কের উর্ধ্বে থেকে আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন। তিনি লবিং-গ্রুপিং রাজনীতির বাইরের একজন প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা।

অ্যাডভোকেট মো. লুৎফুর রহমান ১৯৪০ সালের ৮’ই ডিসেম্বর তৎকালীন সিলেট জেলাধীন বালাগঞ্জ উপজেলার বড় হাজিপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম ছৈদ উল্লাহ এবং মাতা সমিতা ভানু। ছাত্রজীবনে ১৯৬২ সালে তৎকালীন ছাত্রলীগের রাজনীতির মাধ্যমে তাঁর রাজনৈতিক জীবনের সূচনা হয়। দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতার মাধমে কর্মজীবন শুরু করেন এবং পরবর্তীতে আইন পেশায় নিজেকে নিয়োজিত করেন। বাঙালী জাতির মুক্তি সংগ্রামের জন্য ১৯৬৬ সালের ৬ দফা আন্দোলন, ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থানে সক্রিয়ভাবে নেতৃত্ব প্রদান করেন, ১৯৭০ সালের প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচনে মাত্র ২৯ বছর বয়সে ‘বালাগঞ্জ – ফেঞ্চুগঞ্জ’ আসন থেকে সদস্য নির্বাচিত হোন, ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণসহ মুক্তিযুদ্ধের একজন সফল সংঘটক ছিলেন। ১৯৭২ সালে গণপরিষদ সদস্য হিসেবে হাতেলেখা বাংলাদেশের প্রথম সংবিধানে স্বাক্ষর প্রদানকারীদের একজন। সিলেট জেলা পরিষদের প্রশাসক হিসাবে সততা এবং নিষ্টার সাথে নিজ দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তিতে জেলা পরিষদ নির্বাচনে জয়লাভ করেন।

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগে সভাপতি পদে সবসময় সর্বজন শ্রদ্ধেয় প্রবীণ নেতাদের পদচারণা ছিলো। তাঁর আগে এ পদে যারা দায়িত্ব পালন করেছেন অ্যাডভোকেট আবু নসর, প্রয়াত নেতা আ.ন.ম শফিকুল হক ও আব্দুজ জহির চৌধুরী সুফিয়ানের মতো নেতারা তারাও ছিলেন সর্বজন শ্রদ্ধেয় নেতা। তাদের রাজনৈতিক আদর্শ কিংবা দর্শন সবই ছিল শিক্ষণীয়। সেই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে থাকা অবস্থায় সদালাপী, অমায়িক এই প্রবীণ মানুষটি উপরই ভরসা করে দায়িত্ব দিলেন দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

ক্লিন ইমেজধারীদের দিয়ে পূর্ণাঙ্গ কমিটি হবে : মাসুক উদ্দিন

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ এবার প্রত্যাশা করেছিলেন জেলার সভাপতি হতে। কিন্তু সভানেত্রী তাকে দায়িত্ব সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি। দলের জন্য তিনি দীর্ঘদিন ত্যাগ স্বীকার করেছেন। অবশেষে দেশ মাতৃকার জন্য বাজী রাখা এই ত্যাগী নেতাকেই বেছে নিলেন দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

মহানগরের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ার পর আগামীতে দলগঠন, দলের কার্যক্রম পরিচালনা-পরিকল্পনা ও ভাবনা নিয়ে কথা হয় তার সাথে। তিনি বলেন, দলের সভানেত্রীর দৃষ্টিতে সিলেটের রাজনীতিতে পরিবর্তন করার দরকার ছিল বলেই তিনি পরিবর্তন করেছেন। আমার মনে হয় এই পরিবর্তন দলের জন্য ভালো কিছু করতে পারবে। আমার রাজনীতির মূল লক্ষ্য, মানুষের সেবা করা। মানুষের একদম পাশে থেকে সেবা করার সুযোগ পাওয়া যায় রাজনীতিতে। তবে অনেক সময় অনেক কিছু চাইলেও পাওয়া যায় না। অনেক সময় পরিস্থিতির উপর অনেক বিষয় নির্ভর করে। সময়ই বলে দেবে কখন কী করতে হবে।

নেত্রী আমাকে যেভাবে মূল্যায়ন দিয়েছেন সেই মূল্যায়নের আস্থা ধরে রাখতে কাজ করে যাব। আমি চাই আগামীতে নতুন রূপে নগর আওয়ামী লীগকে সাজাতে। পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে ক্লিন ইমেজ এবং যারা পরিচ্ছন্ন তাদের দিয়ে নতুন পুরনোর সমন্বয়ে একটি সুন্দর কমিটি গঠন করা আমার ইচ্ছা। একই সাথে দলের স্বার্থে নিজেকে নিবেদিত করতে চাই। দলের মাঝে যে সুদ্ধি অভিযান চলছে তার ধারাবাহিকতা বজায় থাকবে। এবং আগামী ২১ ও ২২ ডিসেম্বর দলের কেন্দ্রীয় সম্মেলন। তাই সেটাকে সফল করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হবে। পরবর্তীতে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সকল নেতাকর্মীদের নিয়ে দলে ভাবমূর্তি বাড়াতে কাজ করবো। দলের মধ্যে কিছু বিবাদ আছে তা নিরসনে চেষ্টা করবো। এবং দলকে সুসংগঠিত করতে যা যা করণীয় তাই করবো।

তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একটি সুন্দর সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখতেন। যে বাংলাদেশে থাকবে না অশান্তি, অস্থিতিশীলতা, দুর্নীতি, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস। চেয়েছিলেন বাংলাদেশ হবে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত একটি সোনার বাংলাদেশ। আর সেই বাংলাদেশ গড়তে কাজ করছেন তাঁর সুযোগ্য কন্যা দেশের সফল প্রধানমন্ত্রী, দেশরত্ম শেখ হাসিনা। বর্তমানে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ বাস্তবায়ন হচ্ছে। শিক্ষা থেকে শুরু করে সবদিকে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা কাঙ্খিত ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনের পথেও এগিয়ে যাচ্ছি। বাংলাদেশ একটি সমৃদ্ধ দেশ হবে এই প্রত্যাশা নিয়েই বঙ্গবন্ধু কন্যা দিনরাত কাজ করছেন। আগামী প্রজন্ম যেন সেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাংলাদেশ সুনির্ভর, স্বাধীন সার্বভৌমত্ত্ব রক্ষায় কাজ করে সেই সাথে পড়ালেখায় সুশিক্ষিত একটি জাতি হিসেবে পৃথিবীর কাছে বাঙালীর বীরত্ব গৌরবময় করতে পারে।

মাসুক উদ্দিন আহমদ নগরীর মিরবক্সটুলার মরহুম আব্বাস আলী ও নূরুজ্জাহান আব্বাসের দ্বিতীয় ছেলে। পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ হিসেবে সিলেটে যাদের সুনাম রয়েছে, তাদের একজন হলেন মাসুক উদ্দিন। গল্পের ফাঁকে ওঠে আসে কিভাবে দেশের জন্য জীবন বাজি রেখে লড়াই-সংগ্রাম করেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আদর্শ ধারণ ও লালন করছেন তাঁর রাজনৈতিক জীবনে। মাসুক উদ্দিনের বড় ভাই আতাউর রহমান স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকারের মন্ত্রী দেওয়ান ফরিদ গাজীর এপিএস ছিলেন। এরআগে তিনি ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের রাজনীতি করেন। ১৯৭৫ সালের পর তিনি বিদেশি একটি কোম্পানিতে চাকরিতে যোগদান করেন। বর্তমানে তিনি আমেরিকায় অবসর জীবন কাটাচ্ছেন। তৃতীয় ভাই বদর উদ্দিন আহমদ সিলেট জেলা ছাত্রলীগ ও যুবলীগের বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন। বর্তমানে তিনি যুক্তরাজ্য প্রবাসী। আর চতুর্থ ভাই আসাদ উদ্দিন আহমদ মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক।

মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদের শিক্ষা জীবনের শুরু হয় সিলেট সরকারি পাইলট উচ্চবিদ্যালয় থেকে। এখান থেকে এসএসসি পাস করার পর এইচএসসি ও বিএ (ব্যাচেলর অব আর্টস) ডিগ্রি কোর্স পাস করেন সিলেটের এমসি কলেজ থেকে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবনাদর্শের শিক্ষা প্রাথমিকভাবে তাঁর পরিবারের কাছ থেকেই লাভ করেন। তাঁর পরিবারের সবাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। বড় ভাই দেশকে ভালোবাসার শিক্ষা দিয়েছেন তাঁকে। যে শিক্ষা তাঁর সারা জীবন পথ চলার পাথেয় হয়ে আছে। সেই শিক্ষা একজন প্রকৃত দেশপ্রেমী হওয়ার শিক্ষা, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাঁচিয়ে রাখার শিক্ষা।

তৃণমূলকে প্রাধান্য দেয়া হবে : নাসির উদ্দিন

সবাইকে চমকে দিয়ে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের নতুন সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সম্পাদক ও তরুণ, কর্মীবান্ধব নেতা অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান। শক্তিশালী অনেক প্রার্থীকে টপকে গত বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান তিনি।

নির্বাচিত হওয়ার পর এক সাক্ষাতকারে শুভপ্রতিদিনকে তিনি বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর সৈনিক। জননেত্রী শেখ হাসিনা আমার উপর ভরসা রেখে দায়িত্ব দিয়েছেন। সিলেটে আওয়ামী লীগ অনেকটা সংগঠিত আছে। এখন আমার কাজ হচ্ছে তৃণমূল কর্মিদের প্রাধান্য দিয়ে সিলেটে একটি সুসংগঠিত আওয়ামী পরিবার গঠন করা। যা আগামীর রাজনীতিতে ইতিহাস হয়ে থাকবে। সিলেট জেলা আওয়ামী লীগে গুনগত পরিবর্তন দরকার জানিয়ে নাসির উদ্দিন বলেন, রাজনীতি মানেই শুধু মিছিল-মিটিং করা নয়, রাজনীতি চর্চার বিষয়। মিছিল-মিটিংয়ের বাইরেও রাজনীতির অনেক দিক আছে। তৃণমুলের জন্য আমার সকল কাজের বাইরেও আলাদা করে সময় থাকবে। আমি মনে করি তৃণমুলের নেতাকর্মীদের মুল্যায়ন করা হলে রাজনীতি সুস্থ ধারায় পরিচালিত হবে।


আমি কথায় নয়, আমি কাজে বিশ্বাসী উল্লেখ করে তিনি বলেন, ছাত্র রাজনীতি থেকে কাজের মাধ্যমে এই পর্যন্ত এসেছি। এখন আমি জনগণের রাজনীতি করি। আমি এখন সবার সাধারণ সম্পাদক। সবার নেতা। আমার দরজা সকলের জন্য খোলা। সবাইকে নিয়ে সাবার মতামতের ভিত্তিতেই কাজ করবো। তিনি বলেন, আমি সিলেট চেম্বারের গত নির্বাচনের দায়িত্বে ছিলাম। তখন আপনারা দেখেছেন, নানা চাপ সত্ত্বেও আমি নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করেছি। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবেও একইরকম নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করবো। আমি সিলেটের কয়েকটি উপজেলার গত কাউন্সিলের দায়িত্বে ছিলাম। কোথাও কিন্তু আমি কোনো প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করিনি। সব নিরপেক্ষভাবে করেছি। আপনারা দেখবেন, কাজের মাধ্যমেই আমি তা প্রমাণ করবো।

গ্রুপিং রাজনীতির কোন স্থান সিলেটে হবেনা জানিয়ে তিনি বলেন, সিলেটে আওয়ামী লীগের একটি পরিবার থাকবে। কোন বলয় থাকবে না, কোন গ্রুপ থাকবে না। এক গ্রুপ হবে সেটা হবে শেখ হাসিনার গ্রুপ। তিনি বলেন, বিগত দিনে আমার কোনো কর্মকাণ্ডে হয়তো কারো কারো ধারণা হতে পারে আমি একটি বলয় নিয়ন্ত্রণ করি। তবে আগামীতে কেউ এমন ধারণা করারও সুযোগ পাবেন না। এরকম ধারণা হতে পারে, এমন কার্যক্রম থেকেও নিজেকে গুটিয়ে নেবো। কারণ আমার চেয়ারটা নিরপেক্ষ চেয়ার।

নবাগত এ সম্পাদক জানান, আগামী বছরই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ পালিত হবে। যা মুজিববর্ষ নামে আখ্যা দেওয়া হয়েছে। আর পরের বছর আমাদের স্বাধীনতার রজতজয়ন্তী। এই দুটি বিশেষ উপলক্ষ পুরো জেলায় ঝাকজমকভাবে পালন করাই আমাদের কমিটির বড় চ্যালেঞ্জ। আশা করছি, এগুলো আমরা ভালোভাবে করতে পারবো।

সিলেট আওয়ামী লীগকে নিয়ে অনেক পরিকল্পনা আছে জানিয়ে তিনি বলেন, সামনেই আমাদের কেন্দ্রীয় কমিটির সম্মেলন। ডিসেম্বর মাস এই সম্মেলন নিয়েই চলে যাবে। জানুয়ারির দিকে আমাদের সিলেটে কমিটি পূর্ণাঙ্গ হবে। এরপর যেসব উপজেলায় পূর্ণাঙ্গ কমিটি নেই সেসব জায়গায় কমিটি পূর্ণাঙ্গ করবো। তৃণমূলে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কর্মকাণ্ড আরও বেগবান করতে কাজ করবো। সংগঠনের কিছুকিছু ক্ষেত্রে অগোছালো ভাব রয়েছে সেগুলো গুছিয়ে আনতে উদ্যোগ নেবো। এছাড়া সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডগুলো তৃণমূলের মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে কাজ করবো।

দলের স্থায়ী কার্যালয় না থাকা প্রসঙ্গে নাসির উদ্দিন খান বলেন, এ নিয়ে বারবার প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। কিন্তু এতোদিনে একটি স্থায়ী কার্যালয় না হওয়া অবশ্যই আগের কমিটিগুলোর ব্যর্থতা। এ নিয়ে আমার পরিকল্পনা রয়েছে। মহানগর কমিটির সাথে মিলে আমরা দ্রুত সিলেটে আওয়ামী লীগের স্থায়ী একটি কার্যালয় স্থাপনে করবো। দলকে নিয়ে অনেক চিন্তাভাবনা আছে। এজন্য সকলের সহযোগিতা দরকার। সিলেটে দলের সকল কার্যক্রমে সকলের সহযোগিতার আহবান জানিয়েছেন তিনি।

পিতা আলাউদ্দিন খানের মুজিব প্রেমের আসক্তি দেখেই মূলত ছাত্রলীগের রাজনীতির প্রতি ধাবিত হন কিশোর নাসির। স্বাধীনতা পরবর্তী বিয়ানীবাজারের শেওলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আলাউদ্দিন খান ছিলেন প্রখ্যাত শালিসি ব্যক্তিত্ব। সেই কঠিন সময়ে আলাপে আলোচনায় পিতার মুজিব বন্দনা দেখেই মূলত ছাত্রলীগের রাজনীতিতে তারুণ্যের প্রথম প্রহরেই অংশগ্রহণ করেন নাসির। চাচা শাহাদাত হোসেন খান ছিলেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও সাবেক জাতীয় পরিষদ সদস্য। আর তাদের দেখেই পারিবারিক আবহেই নাসির হয়ে উঠেন রাজনীতি সচেতন।

সামরিক জান্তার ভয়ে সহযোদ্ধারা যখন প্রেস রিলিজে দস্তখত করে ছাত্রলীগ ছাড়ছেন ঠিক সেই সময়ে শিক্ষা, শান্তি, আর প্রগতির পতাকাকে উড্ডীন করতে নাসির উদ্দিন খান দায়িত্ব নেন তৎকালীন শহর ছাত্রলীগ আর আজকের মহানগর ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়কের। জেল, জুলুম, আর হুলিয়া উপেক্ষা করে এগিয়ে যাওয়া নাসির যোগ্যতা বলেই জায়গা করে নেন পরবর্তী জেলা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে। তার ইস্পাতকঠিন দৃঢ়তায় মুগ্ধ হয়েই তৎকালীন স্থানীয় ও জাতীয় নেতৃত্ব তাকেই বেছে নিয়েছিলেন সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রূপে। আর আস্থার প্রত্যাশিত জবাবও দিয়েছিলেন নাসির। তারই ফলস্বরূপ ছাত্রলীগের রাজনীতির ইতি ঘোষণার পরপরই জায়গা করে নেন জেলা আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ সম্পাদক পদে। সুদর্শন চেহারা আর প্রখর মেধাশক্তির সেই সময়ের তরুণ আওয়ামী লীগ নেতা নাসির উদ্দিন খান ১/১১ এর কঠিন সময়ে মাসের পর মাস কারাগারের অন্ধকার সেলে নিষ্ঠুর নির্যাতনের রাজসাক্ষী হয়েও জনককন্যার প্রশ্নে ছিলেন আপোষহীন। পরিবার, পরিজন, স্ত্রী, সন্তানের মোহ ত্যাগ করে পিতা মুজিবের প্রদর্শিত পথে অনিশ্চিত কারাজীবন কিংবা ফাঁসির দণ্ডরে ভয় তাকে লক্ষচ্যুত করেনি বলেই জনককন্যা ষড়যন্ত্রের বেড়াজাল ছিন্নভিন্ন করে ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হওয়া পরবর্তী জেলা সম্মেলনে তাকে দায়িত্ব দেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদকের। যেকোনো দায়িত্বই দায়িত্ববানদের মতোই সম্পাদন করেন বলেই নিকট অতীতে অনুষ্ঠিত সিলেটের বহুল আলোচিত চেম্বার অ্যান্ড কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজর নির্বাচনে নির্বাচন কমিশনারের দায়িত্ব নিয়েই চমকে দেন নাসির উদ্দিন খান।

মহানগর ঢেলে সাজানো হবে : জাকির হোসেন

মহানগরের সম্মেলনে তেমন একটা আলোচনায় ছিলেন না মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন। অবশেষে সবাইকে চমকে দিয়ে সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের আগামী ৩ বছরের জন্য সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হলেন তিনি।

নির্বাচিত হওয়ার পর দলকে নিয়ে তার পরিকল্পনা ও চিন্তা ভাবনার কথা জানালেন তিনি। অধ্যাপক জাকির হোসেন বলেছেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ চলবে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের শতভাগ ও জননেত্রী শেখ হাসিনার চিন্তা চেতনার এবং নেতৃত্বের শতভাগ অনুসরন করে। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নই আমার জীবনের লক্ষ্য। তাঁর স্বপ্নের বাস্তবায়নে কাজ করে যাব। এটাই আমাদের শপথ। আগামি মুুজিবর্ষকে সামনে রেখে মহানগর আওয়ামী লীগ আরো বেগবান হবে নেতৃবৃন্দের মাধ্যমে সবার মাঝে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে। আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের শতভাগ বাস্তবায়ন চাই।

আওয়ামী পরিবারের সন্তান অধ্যাপক জাকিরের পিতা সিলেট আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাকালীন সময় থেকে জড়িত ছিলেন। ১৯৯৯ সালে আওয়ামী লীগের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে আয়োজিত সুবর্ণ জয়ন্তী পালন অনুষ্ঠানে দলীয় একনিষ্ঠ ত্যাগী কর্মী হিসেবে অধ্যাপক জাকির হোসেনের পিতা মো. তাজিদ হোসেনকে বিশেষ সম্মাননা স্মারক তুলে দেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অধ্যাপক জাকির ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিষয়ে মাস্টার্স শেষ করে সিলেট শহরতলীতে অবস্থিত শাহ খুররম ডিগ্রি কলেজে অধ্যাপনা পেশার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন। এখনো তিনি এই কলেজে অধ্যাপক হিসেবে রয়েছেন।

১৯৭৫ সালের পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ পরিবারের একজন সন্তান হিসেবে জাকির হোসেন স্কুল জীবন থেকে রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন এবং জাতীয় ও স্থানীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের পক্ষে রাজনৈতিক কর্মীসূচিসহ প্রচারণায় সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। ১৯৭৯ সালে তিনি মদন মোহন কলেজের একাদশ শ্রেণিতে অধ্যয়কালীন সময় মানবিক শাখার ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হয়ে সাংগঠনিকভাবে রাজনীতি শুরু করেন। তখন থেকেই তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে হত্যাকান্ডে জড়িতদের বিচারের দাবিতে আন্দোলন-সংগ্রাম করেন। তিনি জিয়াউর রহমান সরকার ও এরশাদ সরকার পতন এবং সিমিটার গ্যাস কোম্পানী লিজবিরোধী আন্দোলনে সফল ভূমিকা রাখেন। ২০০৪ সালে নগরীর গুলশান সেন্টারে আওয়ামী লীগের সভায় জঙ্গীদের গ্রেনেড হামলায় গুরুতর আহত হন অধ্যাপক জাকির হোসেন। তার পেটে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে গ্রেনেডের স্প্লিন্টার বের করা হলে তিনি আরোগ্য লাভ করেন। সেসময় চোখ, মাথা, হাটুসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে জাকির হোসেন গ্রেনেডের স্প্লিন্টারবিদ্ধ হন।

ছাত্ররাজীতিতেও অধ্যাপক জাকির হোসেনের বর্নাঢ্য অতীত রয়েছে। তিনি সিলেট জেলা ছাত্রলীগের টানা ৫টি কমিটিতে বিভিন্ন পদে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। ১৯৮৩-৮৬ সাল এবং ১৯৮১-৮৩ সাল পর্যন্ত দুইবার জেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক নির্বাচিত হন। ১৯৮৬-৮৭ সাল পর্যন্ত জেলা ছাত্রলীগের ১১ সদস্যবিশিষ্ট এডহক কমিটির সদস্য ছিলেন। ১৯৮৭-৯১ পর্যন্ত জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং ১৯৯১-৯৩ সাল পর্যন্ত সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদমর্যাদার যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি শিক্ষানুরাগী হিসেবে সিলেট নগরীর মিরাবাজার মডেল হাইস্কুলের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি, হৃদয়ে ’৭১ ফাউন্ডেশনের প্রধান উপদেষ্টাসহ বিভিন্ন সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছেন। ২০১৭-১৮ সালে ঢাকায় একুশে বই মেলায় অধ্যাপক মো. জাকির হোসেনের সম্পাদনায়, দিকনির্দেশনা ও পৃষ্ঠপোষকতায় ‘বঙ্গবন্ধুর মেয়ে তুমি শেখ হাসিনা’, ‘শেখ হাসিনার উক্তি, বাঙালির শক্তি’ শিরোনামে দুটি গীতি কবিতার বই প্রকাশ পায়। এছাড়াও আরো একটি বই তার প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে।

একসময়ের তুখোড় ছাত্রনেতা জাকির হোসেন বলেন, আমি ৪০ বছর যাবৎ রাজনীতি করে আসছি, আমার দল আওয়ামী লীগ। আমার আদর্শ বঙ্গবন্ধু, নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চেয়ে আমার বড় পরিচয় আর নেই। আমরা সবেমাত্র দায়িত্ব পেয়েছি পুণাঙ্গ কমিটি হলে সবার মতামতের ভিত্তিতে মহানগর আওয়ামী লীগকে ঢেলে সাজানো হবে। তিনি বলেন, নেতৃত্ব ভিন্ন থাকতে পারে কিন্তু আমাদের প্রানের সংগঠন, মায়ার সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের লক্ষ্য আর উদ্দেশ্য এক। আমরা জননেত্রী শেখ হাসিনার আধুনিক বাংলাদেশ বিনির্মানে শেখ হাসিনার হয়ে কাজ করবো।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin