বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১১:১১ পূর্বাহ্ন



সিলেটে চিকিৎসা না পেয়ে এক সপ্তাহে ৪ জনের মৃত্যু

সিলেটে চিকিৎসা না পেয়ে এক সপ্তাহে ৪ জনের মৃত্যু


স্টাফ রিপোর্ট:
করোনা পজিটিভ হলে তো কথাই নেই। নেগেটিভ রোগীদেরই ঠাঁই মিলছে সিলেটের কোনো বেসরকারি হাসপাতালে। চিকিৎসা না পেয়ে রাস্তায় ঘুরে ঘুরেই মৃত্যু হচ্ছে সাধারণ রোগীদের।

ফের চার বেসরকারি হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে আজ শনিবার এক আওয়ামী লীগ নেতার স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। মারা যাওয়া নারী সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার কুচাই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আখতার হোসনের স্ত্রী।

এনিয়ে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে চিকিৎসা না পেয়ে পথেই চারজনের মৃত্যু হয়েছে। হাসপাতালের আসন না থাকা, বিভিন্ন টেস্টের রিপোর্ট না আসাসহ নানা অজুহাতে সাধারণ রোগীদের ভর্তি না করে ফিরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠেছে সিলেটের বেসরকারি হাসপাতালগুলোর বিরুদ্ধে। চিকিৎসা না পেয়ে পথেই একাধিক রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করছেন রোগীর স্বজনরা। তবুও টনক নড়ছে না হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের।

আওয়ামী লীগ নেতা আখতার হোসন জানান, ‘বৃহস্পতিবার আমার স্ত্রীর বুকে প্রচন্ড ব্যথা ও শ্বাসকষ্ট শুরু হলে প্রথমে দক্ষিণ সুরমার নর্থ-ইস্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক দুইটি টেস্ট দিয়ে ভর্তি না করে বাসায় পাঠিয়ে দেন। রিপোর্ট দেখে প্রয়োজনে শুক্রবার ভর্তি করা হবে বলে জানান তিনি।

পরে শুক্রবার ভোরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ফের নর্থ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ‘সিট নেই’ অজুহাতে ভর্তি করেনি। এরপর একে একে সিলেট নগরের পার্ক ভিউ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতাল ও ইবনে সিনা হাসপাতালে চেষ্টা করে তাকে ভর্তি করাতে পারিনি।

আখতার হোসেন বলেন, ‘পরে প্রতিবেশী এক নার্সের সহযোগিতায় প্রায় ২০ হাজার টাকা দিয়ে একটি অক্সিজেন বটল কিনে বাড়িতে নিয়ে গিয়ে স্ত্রীকে দিতে শুরু করেন। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা না পেয়ে দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে যদি স্বাস্থ্যসেবা না পাওয়া গেলে সিলেটে এতো উন্নত ও নামিদামি হাসপাতালের কোনো প্রয়োজন নেই বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি।

এর আগে শুক্রবার সিলেটের তিন বেসরকারি হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে নগরের বন্দরবাজারের ব্যবসায়ী ও কুমারপাড়া এলাকার বাসিন্দা ইকবাল হোসেন খোকা নামে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে।

এছাড়া ২ জুন ৫ হাসপাতাল ঘুরে চিকিৎসা না পেয়ে অ্যাম্বুলেন্সের ভেতরেই এক নারী ও ৩১ মে রাতে কয়েকটি হাসপাতালে ঘুরে এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়।

এ ব্যাপারে সিলেটের সিভিল সার্জন ডা. প্রেমানন্দ মন্ডল বলেন, সবগুলো বেসরকারি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে। যদি এরকম ঘটনা ঘটে থাকে আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেব। তারপর বিচ্ছিন্ন খবর পেয়ে হাসপাতালগুলোকে সতর্ক করা হয়েছে।

তিনি বলেন, মানুষ আগে ইমার্জেন্সি রোগীগুলোকে আগে বেসরকারি হাসপতালে নিয়ে ঘুরাঘুরি করে। পরে যখন সময় শেষ হয়ে যায় তখন সরকারি হাসপাতালে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে মানুষকে আরো সচেতন হওয়ার আহবান জানান তিনি।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin