বৃহস্পতিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২১, ০৫:০৯ পূর্বাহ্ন

সিলেটে জমে ওঠছে ঈদের কেনাকাটা

সিলেটে জমে ওঠছে ঈদের কেনাকাটা


শেয়ার বোতাম এখানে

এমদাদুল হক মান্না
পবিত্র ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে জমে উঠছে সিলেটের ঈদের বাজার। নিজের ও প্রিয়জনের জন্য পছন্দের পোশাক কিনতে নগরীর বিভিন্ন মার্কেট এবং অভিজাত শপিংমলগুলোতে বাড়ছে ক্রেতার ভিড়। বিক্রেতারাও আশা করছেন রমজানের বাকি দিনগুলোতে তাদের বিক্রি ভালো হবে। গতকাল বুধবার নগরীর বেশ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বিপনীবিতানগুলোতে ক্রেতাদের ভীড় ছিল লক্ষ্যনীয়। বেশিরভাগ দোকানেই ছিল ক্রেতাদের আনাগোনা। তবে সবচেয়ে বেশি ক্রেতা ছিল জিন্দাবাজার, নাইওরপুল ও নয়াসড়ক এলাকার বিপনী বিতানগুলোতে।

এসব এলাকার অভিজাত বিপনীবিতানগুলোতে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে নজরকারা কারুকাজে সাজানো হয়েছে বিপনীবিতানের সামনের অংশ। আলো জ্বলমলে লাটিং শিশু কিশোরদের আনন্দের উপলক্ষেও পরিণত হয়েছে।

ক্রেতারাও বলছেন, এবছর রমজানের শুরু থেকেই ঈদের কেনাকাটা করছেন ক্রেতারা। তবে পনেরো রমজান থেকে অনেকটা জমে ওঠছে কেনাকাটা। গেল সপ্তাহের চেয়ে এখন চাপ বাড়ছে বেশিরভাগ দোকানগুলোতে। দিনে রাতে সমানে চলছে কেনাকাটা।
এদিকে ঈদ বাজারকে কেন্দ্র করে নগরীতে বাড়ানো হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা। র‌্যাব-পুলিশের পাশাপাশি রয়েছেন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা। ঈদকে টার্গেট করে ওঁৎ পেতে থাকা চোর-ছিনতাইকারী ও চাঁদাবাজ চক্রকে ঠেকাতে নেয়া হয়েছে বিশেষ নিরাপত্তা।

বুধবার বিভিন্ন শপিংমল ঘুরে ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, গরমের কারণে এবার সুতি কাপড়ের চাহিদা রয়েছে। এছাড়া বেনারশি, জর্জেট, কাতান, সিল্ক, শার্টিন ও জুট কাতানের বিক্রিও ভালো। তরুণীদের জন্য এবারও ‘সারারা’র চাহিদা রয়েছে। সারারার সঙ্গে চলছে পালাজ্জো। সারারা ছাড়াও এবার গারারা’তেও তরুণীদের চাহিদা রয়েছে। তাছাড়া গাউন, নন্দিনি, বেলবেট, ট্রেইল, লম্বা স্কার্ট, লম্বা কামিজ সব মার্কেটেই ভালো চলছে। এছাড়া গাউনের মধ্যে ফ্লোর টাচ বা পায়ের পাতা ছোঁয়া গাউনের চাহিদা বেশি। কেউ কেউ লম্বা গাউনের সঙ্গে বাহারি ওড়নাও পছন্দ করছেন।
এদিকে অভিজাত শপিংমল ছাড়াও নিুবিত্ত ও নিুমধ্যবিত্তের ঈদের বাজারও জমে উঠেছে। নগরীর ফুটপাতেও চলছে ভালো বেচাকেনা। বাহারী রঙের কাপড়ের পসড়া সাজিয়ে রেখেছেন দোকানীরা। শুধু তাই নয় নগরীর হোটেল নুরজাহান গ্র্যান্ড এবং পানসি ইন এ চলছে মহিলা গ্র্যান্ড ইদ শপিং নামের ঈদ মেলা। দেশ বিদেশের নানা রকম পোশাক নিয়ে স্টল দিয়ে বসছেন বিক্রেতারা।


চন্দ্রবিন্দু’র পরিচালক মো. কবির খান জানান, প্রতিবছরের তুলনায় এবার ঈদের বাজার ব্যতিক্রম। অন্যান্য সময় ক্রেতারা প্রথমে ঘুরতে আসে পরে কিনে। কিন্তু এবার ঘুরতে এসেই অনেকে কিনে নিচ্ছেন। পনেরো রমজান থেকে পুরোদমেই চলছে কেনাকাটা। তিনি বলেন, গত রমজান থেকে এবার বেচাকেনা ভলো। এবার নিরবেই ক্রেতারা মার্কেটে আসছেন। রমজানের শুরু থেকেই বিক্রি ভালই চলছে।

মাহা ফ্যাশন হাউজের বিক্রয় কর্মী জেসমিন চৌধুরী জানান, এবারও গাউনের চাহিদা রয়েছে। তবে গতবারের মত এবারও তরুনীদের চাহিদা রয়েছে সারারাতে। আর ভারতীয় পোশাকের চাহিদা বরাবরের মত এবারও আছে।
ফুটপাতের দোকানদার হাসান মিয়া জানান, যদিও আমরা সারাদিন বসতে পারিনা ইফতারের পর বসি তার পর ও আমাদের বেচাকেনো রোজার প্রথম সপ্তাহ থেকে অনেক ভালো। আমরা ছোট বড় সবার জন্য নানা রকম কাপড় বিক্রি করি এবং এ বেচা কেনা চলে মধ্যরাত পর্যন্ত।

এদিকে ঈদের এই ব্যস্ততম সময়টাকে টার্গেট করে ওঁৎ পেতে থাকা চোর-ছিনতাইকারী ও চাঁদাবাজ চক্রকে মোকাবেলায় সিলেট মহানগর পুলিশও বিশেষ প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে বলে জানিয়েছেন সংশিষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তা। রাখা হয়েছে প্রত্যক পয়েন্টে পুলিশের চেকপোস্ট। জোরদার করা হয়েছে পুলিশি টহল।
এসএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা জানান, রমজান উপলক্ষে এমনিতে বাড়তি নিরাপত্তা রয়েছে নগরে। এর সাথে যোগ হয়েছে ঈদের নিরাপত্তা। রাস্তায়, মার্কেটে ও বিপণী বিতানগুলোতে র‌্যাব পুলিশের সদস্যরা দয়িত্ব পালন করছেন।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin