সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:২৩ পূর্বাহ্ন


সিলেটে ডিজিটাল ক্যাম্পাসদাবীকারী সেই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কি ডিজিটাল পদ্ধতিতে স্কুল কলেজ পরিচালনা করা যায় না??

সিলেটে ডিজিটাল ক্যাম্পাসদাবীকারী সেই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কি ডিজিটাল পদ্ধতিতে স্কুল কলেজ পরিচালনা করা যায় না??


শেয়ার বোতাম এখানে

মবরুর আহমদ সাজু

নির্বাচন আসলে যেভাবে নেতাকর্মীরা অমুক ভাই তমুক ভাই বলে আমরা মিছিল দেই। ঠিক তেমনি আমরা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেগুলোতে ভর্তির সময় মিছিল মিটিং করি? রাজনীতি আর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির সংস্কৃতির একাকার হয়ে যাচ্ছে। বিশেষ করে নির্বাচনের সময় ভোটারদের আকৃষ্ট করতে মুখরোচক কথা বলা হয়। অপরদিকে স্কুল কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সময় এটাও আজকাল বেশ লক্ষনীয় ।
তাঁর কারণ একটাই অভিভাবক,শিক্ষার্থীদের কে চটকদার বিজ্ঞাপন (ডিজিটাল ক্যাম্পাস অনলাইনে ক্লাস!)
দিয়ে সাইনবোর্ড টানিয়ে ছাত্রছাত্রী ভর্তি করার উদ্দেশ্য। নিজের পকেট ভার করা। এটা কেবল আজ সিলেট জেলাতেই নয়। এ ধরনের অসংখ্য বাণিজ্যিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কিন্তু সারা দেশেই গড়ে উঠেছে।

সুতরাং এই যখন আজকের বাস্তবতা তখন। একটি কথা না বললেই নয়। আজ শুক্রবার পবিত্র জুম্মা মোবারকের দিন। তবে মসজিদের যাবার আগে আমার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির ভয়াবহতায়। সিলেট নগরীতে যেসকল স্কুল কলেজে ডিজিটাল ক্যাম্পাস ডিজিটাল ক্যাম্পাস বলে বিজ্ঞাপন করেন। আজ সেই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কি ডিজিটাল পদ্ধতিতে স্কুল কলেজ পরিচালনা করা যায় না?????

স্টাটাস টি দেয়া মাত্রই প্রথমে যিনি তাঁর মনের ক্ষোভ বহি:প্রকাশ করলেন। তিনি হলেন, সিলেটের বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ গবেষক প্রণবকান্তিদেব। পরবর্তীতে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার ঝড় বইলে। অনেকে কমেন্ট ও সরাসরি ফোন আসে বিভিন্নমহলের কাছ থেকে কিছু লেখার জন্য ?

আসলে একটি প্রবাদ আছে শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড। অর্থ্যাৎ ব্যক্তিজীবন থেকে জাতীয় জীবনের সর্বক্ষেত্রে শিক্ষার গুরুত্ব অপরিসীম। মেরুদণ্ড ছাড়া মানুষকে যেমন মানুষ হিসেবে কল্পনা করা যায় না, তেমনি শিক্ষা ছাড়া কোনাে জাতিকে জাতি হিসেবে কল্পনা করা যায় না।

মূদ্দকথায় বলতে পারি করোনাভাইরাসের পরিস্থিতে বিশ্বের সাথে বাংলাদেশ ও কাঁপছে। জনসচেতনতা বাড়ানোর মধ্যে হিমশিমের সাথে সরকার ইতোমধ্যে সাধারণ ছুঠি ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।  জাতীয় সার্থে নিজে বাচার জন্য? সরকারের এমন উদ্যেগ নিঃসন্দেহ প্রশংসার দাবি হলেও শিক্ষার অপূরনীয় ক্ষতি রয়ে যাবে এটা মানতে হবে?

সুতারাং এমন পরিস্থিতে শিক্ষার অপূরনীয় ক্ষতি থেকে শিক্ষার্থীদের কে শিক্ষামূখী রাখতে হলে ডিজিটাল পদ্ধতির বিকল্প নেই।

সাম্প্রতিক সময়ে আজ করোনাভাইরাসের মহামারিতে বারবার একটি প্রশ্ন প্রতীয়মান হয়ে উঠেছে? আজ যারা সিলেটে শিক্ষা বানিজ্য করছেন এবং ভর্তির সময় ডিজিটাল ক্যাম্পাস বলে আপনাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের আকৃষ্ট করছেন?

আজ করোনাভাইরাসের মহামারিতে অনলাইনে কি ক্লাস করাতে পারেন না? অভিযোগ উঠলেও দেখার যেনো কেউ নেই।
হায়রে সেলুকাস কি বিচিত্র এই প্রতারনা?
ভর্তি সময় যারা নির্বাচনের মতো মিছিল মিটিং করেন। আজ  কোথায়?

সময়ের প্রয়োজনে আমি সেই সকল ডিজিটাল ক্যম্পাস দাবি কারি কর্তৃপক্ষ কে অনুরোধ করবো। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিবিধসহ বেতন নিবেন? এটা কি হয়? আবার ডিজিটাল ক্যাম্পাস দাবী করবেন!!!

করোনাভাইরাসের পরিস্থিতে শিক্ষার্থীদের কে অনলাইনে ক্লাস শুরু করেন। সচেতন এ জাতী আপনাদের কে মনে রাখবে। নতুনবা জাতী আপনাদের শিক্ষার ভেলকিবাজিতে আগামিতে হিসেব করে জবাব দিবে ?

আমাদের দেশের শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা দীর্ঘদিনের। প্রচলিত শিক্ষাপদ্ধতি ও ধরন নিয়ে আপত্তি রয়েছে অনেক আগে থেকেই। অবশ্য এর পক্ষে থাকা মানুষও নেহাত কম নয়।

সব মিলিয়ে শিক্ষাব্যবস্থায় বিশৃঙ্খলা চলছে দীর্ঘদিন ধরেই, তা বলা চলে। অনেক বেশি পরীক্ষা-নিরীক্ষা ও পরিবর্তনের কারণে শিক্ষাব্যবস্থা নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা অনেক হয়েছে, এখনও চলছে। এতে সাধারণ শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভোগান্তি যেমন বাড়ছে, শিক্ষার মান নিয়েও প্রশ্ন তোলারও পথ তৈরি হয়েছে

দেশের ভবিষ্যতের কথা বিবেচনা করে শিক্ষার মানের ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই বলে মনে করি। আজকের শিশুই আগামী দিনে দেশের কর্ণধার। তাদের ছোটবেলা থেকেই যথাযথভাবে সুনাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার দায়িত্বটাও আমাদেরই; কিন্তু এতে কোনো কারণে ব্যর্থ হলে তা বিপর্যয় নামিয়ে আনতে পারে। দায়িত্বটাও তাই সবাইকে যথাযথভাবেই কাঁধে তুলে নিতে হবে।

লেখক: গণমাধ্যমকর্মী


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin