বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৫০ অপরাহ্ন


সিলেটে পথশিশুদের প্রধান নেশা ‘জুতার গাম ও গুল’অন্ধকারে ডুবছে পথশিশুরা!

সিলেটে পথশিশুদের প্রধান নেশা ‘জুতার গাম ও গুল’অন্ধকারে ডুবছে পথশিশুরা!


শেয়ার বোতাম এখানে

নবীন সোহেল: অন্ধকারে ডুবছে সিলেটের পথশিশুরা। সহপাঠিদের সাথে থেকে কৌতুহলবশে শুরু করে ধীরে ধীরে মাদকের মরণ নেশায় আসক্ত হচ্ছে পথশিশুরা। সকাল-সন্ধ্যা দলবেঁধে ‘ড্যান্ডি’ ও ‘গুলে’র নেশায় বুদ হয়ে থাকে ওরা। মাদকের নীল নেশায় অন্ধকারের জগতে আর অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে ধাবিত হচ্ছে পথশিশুরা। নেশার টাকার জন্যে জড়িয়ে পড়ছে নানা অপরাধ কর্মকান্ডে। মাদক বিক্রি, সরবরাহ, চুরি, ছিনতাই, ধর্ষণ এমনকি খুনের মতো জঘন্য অপরাধের সাথে লিপ্ত হচ্ছে এরা।

 

অনুসন্ধানে জানা গেছে, নগীরর বিভিন্ন এলাকায় ড্যান্ডি নেশায় আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। শুধুমাত্র পথশিশুরাই ড্যান্ডিতে আসক্ত। ছেলে শিশুদের পাশাপাশি মেয়ে শিশুরা জড়িত হচ্ছে। আর বিভিন্ন সরকারি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের রাতের গার্ড বা পাহারাদাররা ‘গুল’ নেশায় আসক্ত। ‘ড্যান্ডি’ নেশায় যারা আসক্ত হচ্ছে তারা ধীরে ধীরে অন্ধকারের জগতে চলে যাচ্ছে। চুরি, ছিনতাই, ধর্ষণ এমনকি খুনের মতো জঘন্য অপরাধের সাথে লিপ্ত হচ্ছে। এমনকি শহরের পাশাপাশি সিলেটের প্রতিটি উপজেলা শহরেও ‘ড্যান্ডি’ ও ‘গুলে’র মতো মারাতœক নেশা ছড়িয়ে পড়েছে। অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসার মতো মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত এসব পথশিশু জড়িয়ে পড়েছে নানা ধরনের অপকর্মে। আর এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে এই শিশুদের দিয়ে চুরি, ছিনতাই এবং মাদক সরবরাহ, বিক্রির মতো জগন্য কাজ করাচ্ছে একটি অপরাধী চক্র।
মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ৭ থেকে ১২ বছর বয়সের শিশুরা সাধারণত গাঁজা, সিগারেট ও পথশিশুরা ড্যান্ডি নেশায় আসক্ত। ১২ থেকে ১৮ বছর বয়সীরা ফেনসিডিল, গুল ও হেরোইন সেবন করে। মধ্যবিত্ত বা উচ্চমধ্যবিত্ত পরিবারের কিশোর-যুবকদের নেশার অন্যতম উপকরণ ইয়াবা।

 

ড্যান্ডি নেশায় আসক্ত নাঈমের সাথে কথা হয় অনেক্ষণ, বয়স তার ১২ বছর। তার কাছে আছে ৫০টাকা আরো ৩০টাকা আজ তার খুব প্রয়োজন। কেন জানতে চাইলে বললো ২ কেজি চাল কিনবে সে। বাসায় কিনে নিয়ে গেলে খাবে। বাসায় মা আর এক ছোট বোন। বলা হলো চাল কিনে দেয়া হবে। তাতে সে নারাজ। সিলেট নগরীর বন্দর বাজারের ওভার ব্রীজের উপর বসে অনেক সময় তার সাথে কথা হলো। চানাচুর শেষ করে আইসক্রিম খাওয়া শুরু হলো। অনেক প্রশ্ন করতে করতে অবশেষে সে মুখ খুললো। জুতার গাম (সলিউশন) কিনবে, ৮০ টাকা কৌটা। গাম সাদা পলিথিন ব্যাগে ভরে মুখ দিয়ে শ্বাস নিলে নেশা হয়। তাদের মাঝে অনেকে ‘গুল’ খায় এই নেশার নাম ‘ড্যান্ডি’। ছয়মাস ধরে বন্ধু রাজু, শিমুল, প্রিয়া, সালমানের সাথে ড্যান্ডি সেবন করে নাঈম। ‘গুল’ বা ‘ড্যান্ডি’ খেলে মাথায় ঝিমুনি ধরে। বাসার কথা মনে থাকেনা, চোখে ঘুম পায়না, পেটে ক্ষুধাও লাগেনা।
শুধু নাঈম, রাজু, শিমুল, প্রিয়া বা সালমানই নয়। সিলেট শহরে তাদের মতো প্রায় কয়েক হাজার শিশু এই নেশাতে আসক্ত। সিলেট রেলওয়ে স্টেশন এলাকা, বন্দর বাজারের ওভার ব্রিজ, কিন ব্রিজের নিচে, কাজীরবাজার সেতু, শাহজালাল সেতু, কুশীঘাট, ছড়ারপাড়, কদমতলী বাসস্ট্যান্ড, কাষ্টঘর এলাকায় সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, ৮ থেকে ১৫ বছরের পথশিশুরা ড্যান্ডিতে আসক্ত। তারা দলবদ্ধভাবে আবার কেউ কেউ একাও সেবন করে। নাইমের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বন্ধুদের সাথে সে প্লাষ্টিক কুঁড়িয়ে ভাঙ্গারীতে বিক্রি করে। কিন্তু তার থেকে বড় যারা তারা চুরি, ছিনতাইও করে। কয়েছ, তাজুলরা ইলেকট্্িরক দোকানে ওয়্যার চুরি করে। সেই ওয়্যার নদীর পাড়ে জ্বালিয়ে ভিতরের তামা ভাঙ্গারীতে বিক্রি করে তারা অনেক টাকা পায়। তবে তারা বেশী ‘গুল’ খায়। গুল হলো এক ধরনের তামাকজাত দ্রব্য। তামাকপাতার মিহি গুঁড়া এবং চুনের ফাঁকি এ দুটি কাঁচামাল দ্বারা গুল তৈরি করা হয়। গুলে উচ্চমাত্রার নিকোটিন থাকে। দাঁতের মাজন ও ব্যথা কমার ওষুধ হিসেবে কয়েকদিন ‘গুল’ ব্যবহার হলেও এটি এখন নেশায় পরিণত হয়েছে।

 

ক্বীন ব্রীজের নিচে কথা হয় ১০বছরের শিশু ফখরুলের সাথে। তার নোংরা জামা-কাপড়, উস্কো খুস্কো চুল, চোখ দুটি লাল বর্ণের। সে বলে, তার সঙ্গে থাকে তাজুল, কয়েছ, আক্তার, জয়নাল, সুমি, নাজিরা। তারা সবাই আঠা খায়, তাই ওদের দেখাদেখি সেও আঠা খায়। নগরীর প্রায় সব এলাকার দোকানেই এসব গাম পাওয়া যায়। পলিথিনের ব্যাগে আঠালো এই গাম নিয়ে কিছুক্ষণ ঝাঁকানো হয়। তারপর পলিথিন থেকে নাক বা মুখ দিয়ে বাতাস টেনে সেবন করে তারা। সব দোকানিরা তাদের কাছে বিক্রি করে না। জুতা সেলাইকারীদের টাকা দিলে তারা এনে দেয়। আবার অনেক দোকানের কর্মচারীদের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক রয়েছে। তারা বিক্রি করে। এক কৌটা হলে কয়েকজন মিলে একদিন সেবন করা যায়। রেল স্টেশন এলাকায় ‘গুল’ সেবনকারী ১৫ বছরের বাছিত জানায়, পাঁচ টাকা দিয়ে এক কৌটা ‘গুল’ কিনলে দু থেকে তিন দিন চলে। ‘গুল’ দাতের ফাকে রেখে অনেক সময় রাখা যায়। নেশাও ভাল হয়। তবে কেউ বুঝতে পারেনা।

 

এদিকে, শিশুদের নিয়ে পর্যাপ্ত কোনো আইন না থাকায় ও এই আঠা নিষিদ্ধ কোনো বস্তু না হওয়ায় এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নিতে পারছে না সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষ। তবে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা শিশুদের কাছে এটি বিক্রি না করার জন্য ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা চেয়েছেন।
সিলেটে পথশিশুদের নিয়ে কাজ করে ইচ্ছাপূরণ সংগঠন। সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জান্নাতুল রেশমা শুভ প্রতিদিনকে বলেন, পথশিশুদের নিয়ে কাজ শুরুর পর থেকেই দেখেছি তারা বিভিন্ন নেশায় আসক্ত। তাদের অধিকাংশই ড্যান্ডি ও গুল নেশায় আসক্ত। পথশিশুদের এইসব নেশা থেকে দুরে রাখতে তাদেরকে বিভিন্ন গিফট, খাবার, প্রতি মাসে সেমিনার, অভিবাবকসভাসহ বিভিন্ন কর্মসূচী নিয়মিত পরিচালিত হচ্ছে। মূলত পথশিশুদের আলোর পথে ফিরিয়ে আনতেই সব ধরনের কার্যক্রম নিয়মিত পরিচালনা করছে ইচ্ছাপূরণ সংগঠন।

 

পথশিশুদের আলোর পথে ফিরিয়ে আনতে সিলেটে কাজ করছে পাঠশালা-২১ নামের সংগঠন। সংগঠনের সভাপতি শামীম রেজা শুভ প্রতিদিনকে বলেন, সিলেটের পথশিশুরা মাদক সেবন বিক্রির মতো বিভিন্ন অপরাধে লিপ্ত হচ্ছে। তাদেরকে আলোর পথ দেখাতে কাজ করছে পাঠশালা-২১। মূলত দরিদ্র শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া রোধ ও পথশিশুদের মাদক থেকে দূরে রাখতেই সংগঠনটি কাজ করছে। এব্যাপারে সরকারিভাবে পথশিশুদের জন্য পূর্ণবাসনের প্রকল্প হাতে নিলে সুফল পাওয়া যাবে।

 

এ ব্যাপারে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় পরিচালক মো. জাহিদ হোসেন মোল্লা শুভ প্রতিদিনকে বলেন, অন্যান্য শহরের তুলনায় সিলেটের পথশিশুরা নেশার সাথে খুব কম জড়িত। তবে প্রতিটি শহর বা এলাকায় নিয়মিত নজরদারী অব্যাহত রয়েছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin