সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:২১ পূর্বাহ্ন


সিলেট সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্প নামেই সিসিক : ব্যবসা ডিজাইন আর্টিস্ট্রির

সিলেট সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্প নামেই সিসিক : ব্যবসা ডিজাইন আর্টিস্ট্রির


শেয়ার বোতাম এখানে

নগেরর দৃষ্টিনন্দন স্থাপনাগুলো ডিজাইন আর্টিস্ট্রি ও সিটি করপোরেশনের সমঝোতা চুক্তির মাধ্যমে হচ্ছে। তবে ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে ডিজাইন আর্টিস্ট্রির ব্যবসায়ী চুক্তি সম্পর্কে সিটি করপোরেশনের কোনো দায়-দায়িত্ব নেই : আলী আকবর, নির্বাহী প্রকৌশলী সিসিক

সাত্তার আজাদ
সৌন্দর্যবর্ধনের নামে সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) কাছ থেকে পাঁচ বছর মেয়াদের চুক্তিতে বিভিন্ন পয়েন্টে স্থাপনা নির্মাণ ব্যবসা শুরু করে ডিজাইন আর্টিস্ট্রি নামের একটি প্রতিষ্ঠান। নগরের গুরুর্তপূর্ণ পয়েন্টে সৌন্দর্যবর্ধনের নামে দৃষ্টিন্দন স্থাপনা নির্মাণে ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা আদায় করছে তারা। সিসিকের সিলেট সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্পের নামে সোবহানীঘাট পয়েন্টে ইবনেসিনা হাসপাতালের কাছ থেকে স্থাপনার নির্মাণ ব্যয় নিয়ে বিপাকে পড়েছে ডিজাইন আর্টিস্ট্রি।
সিসিক সূত্রে জানা যায়, সিলেটের মেন্দিবাগ, সোবহানীঘাট, সিটি পয়েন্ট, শেখঘাট, আম্বরখানা, নাইওরপুল পয়েন্টের সৌন্দর্যবর্ধনের নামে সিটি করপোরেশনের সাথে চুক্তি করে ডিজাইন আর্টিস্ট্রি। চুক্তিমতে ট্রাফিক পয়েন্ট স্থাপনা নির্মাণে সিসিক ডিজাইন আর্টিস্ট্রিকে কোনো টাকা দেবে না, ডিজাইন আর্টিস্ট্রিও সিসিককে কোনো টাকা দিতে হবে না। এমন চুক্তি করে ডিজাইন আর্টিস্ট্রি সৌন্দর্যবর্ধনের নামে ব্যবসা করছে। সরকারের স্বার্থরক্ষা না করে এমন চুক্তি করায় সিসিক রাজস্ব বঞ্চিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেন ব্যারিস্ট্রার মো. আরশ আলী।
জানা যায়, ডিজাইন আর্টিস্টি মেন্দিবাগে প্রথম স্থাপনা নির্মাণ করেছে। এরপর সিলেটের প্রথম শহীদ মিনারের স্মৃতি চিহ্নিত সোবহানীঘাটে দ্বিতীয় স্থাপনা নির্মাণে ইবনেসিনাকে যুক্ত করে ডিজাইন আর্টিস্ট্রি। সোবহানীঘাটের বর্তমান ট্রাফিক পয়েন্টে নির্মিত হয় এ স্থাপনা। ইবনেসিনার সাথে স্থাপনাটি নির্মাণ ও পাঁচ বছরের রক্ষণাবেক্ষণের ব্যয় সাড়ে ১৪ লাখ টাকা ধার্য করে প্রতিষ্ঠানটি। সে হিসেবে ইবনেসিনার কাছ থেকে টাকাও নেয় তারা। স্থাপনাটি নির্মাণ হলে ইবনেসিনা হাসপাতালের নাম লাগানো হয় তাতে। এ নিয়ে সোবহানীঘাটের স্থানীয় লোকজন শহীদ মিনারের স্থানে ইবনেসিনার নামে স্থাপনা নির্মাণে প্রতিবাদমুখর হয়ে উঠলে স্থাপনা থেকে নাম মুছে ফেলা হয়। এতে ক্ষুব্ধ হন ইবনেসিনা কর্তৃপক্ষ। পরবর্তীতে ডিজাইন আর্টিস্ট্রির কাছ থেকে টাকা ফেরত চায় ইবনেসিনা। ডিজাইন আর্টিস্ট্রি ইবনেসিনাকে ৭ লাখ টাকার একটি চেক দিলেও এখনো টাকা উঠাতে পারেনি দাতা প্রতিষ্ঠানটি।
এ নিয়ে ইবনেসিনা হাসপতালের চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান বলেন, ‘নির্মিত স্থাপনাতে আমাদের প্রতিষ্ঠানের নাম দেয়া নিয়ে বিতর্ক দেখা দিলে তা তুলে নেয়া হয়। আমরা আমাদের টাকা ফেরত পাওয়ার দাবি করছি। তবে আমরা খুশি ইবনেসিনার টাকায় সোবহানীঘাটে একটি সুন্দর স্থাপনা নির্মিত হয়েছে।’
একই ভাবে নিজ খরচে মেন্দিবাগ পয়েন্টে সৌন্দর্যবর্ধক একটি স্থাপনা নির্মাণে সিসিকের সাথে চুক্তি করে ডিজাইন আর্টিস্ট্রি। সেটিও তারা পাঁচ বছরের জন্য খাদিম সিরামিক্স কোম্পানির কাছে ১৪ লাখ টাকায় ভাড়া দিয়েছে। খাদিম সিরামিক্সের নাম সম্বলিত দৃষ্টিনন্দন স্থাপনাটি গত মাসে উদ্বোধন করেন সিসিক মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। তবে সোবহানীঘাটের স্থাপনাটির নির্মাণ কাজ শেষ হলেও নামকরণ নিয়ে বিতর্কের কারণে তা এখনো উদ্বোধন হয়নি। নির্মিত স্থাপনাটি বর্তমানে ঢেকে রাখা হয়েছে। এতে সৌন্দর্যের বদলে সৌন্দর্যহানী ঘটাচ্ছে স্থাপনাটি।
এ বিষয়ে অ্যাডভোকেট মো. ইব্রাহিম আলী জানান, স্বাধীনতা যুদ্ধের পর ১৯৭২ সালে সোবহানীঘাটে বর্তমান ট্রাফিক পয়েন্টে নির্মাণ করা হয় একটি শহীদ মিনার। এটি সিলেটের প্রথম শহীদ মিনার। পাকা খুঁটিতে নির্মিত সেই মিনারে মাতৃভাষা দিবসে স্থানীয়রা পুষ্পস্তবক অর্পণ করতেন। ১৯৮৪ সালে জমি অধিগ্রহণের মাধ্যমে শহীদ মিনার অক্ষত রেখে সোবহানীঘাট হতে উপশহর শাহজালাল ব্রিজের সাথে নতুন হাইওয়ে সড়ক করা হয়। এরপর সরকারি রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে শহীদ মিনারটি ক্ষতিগ্রস্থ হলে সেখানে ট্রাফিক পয়েন্ট নির্মাণ করা হয়। বর্তমানে সেই ট্রাফিক পয়েন্টেই নতুন এ স্থাপনা নির্মিত হয়েছে। এ স্থাপনা ভাষা সৈনিক বা শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের নামে হতে হবে। শহীদ মিনারের স্মৃতি চিহ্নিত পয়েন্টে নির্মিত স্থাপনায় কোনো ব্যক্তি প্রতিষ্ঠানের নাম মেনে নেয়া যাবে না।
সোবহানীঘাট শহীদ মিনার স্থাপনকালীন সময়ের কনিষ্ঠ উদ্যোক্তা আবুল কাহের চৌধুরী শামীম বলেন, ‘সিলেটের প্রথম শহীদ মিনার স্থাপন করা হয় সোবহানীঘাটে। সেখানে নির্মিত স্থাপনায় ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান ইবনেসিনার নাম দেয়াতেই আমাদের আপত্তির কারণ। সোবহানীঘাটে হতে হবে মাতৃভাষার স্মৃতি চিহ্নিত ফলক।’
এ বিষয়ে ডিজাইন আর্টিস্ট্রির ব্যবস্থাপনা পরিচালক কাওছার আহমেদ বলেন, সিলেটের সৌন্দবর্ধনের নামে দৃষ্টিনন্দন স্থাপনা করার উদ্যোগ নেই। আমাদের প্রতিষ্ঠানের প্রচারের লক্ষ্যেই এ উদ্যোগ নিয়েছি। ব্যবসা করছি কথাটি ঠিক নয়। তিনি বলেন, সোবহানীঘাট পয়েন্টে স্থাপনা নির্মাণের নামে ইবনেসিনা হাসপাতালের কাছ থেকে টাকা নেই। কিন্তু এতে রাজনৈতিক বিতর্ক দেখা দিলে মেয়র আরিফুল হকের অনুরোধে সেই স্থাপনা থেকে ইবনেসিনার নাম মুছে ফেলি।
এ বিষয়ে সিসিকের নির্বাহী প্রকৌশলী আলী আকবর বলেন, সিলেটের দৃষ্টিনন্দন স্থাপনাগুলো ডিজাইন আর্টিস্ট্রি ও সিটি করপোরেশনের সমঝোতা চুক্তির মাধ্যমে হচ্ছে। তবে ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের সাথে ডিজাইন আর্টিস্ট্রির ব্যবসায়ী চুক্তি সম্পর্কে সিটি করপোরেশনের কোনো দায়-দায়িত্ব নেই।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin