বৃহস্পতিবার, ২৬ মে ২০২২, ০৪:৫১ পূর্বাহ্ন


সিলেটে পুলিশের হাতে ৭শ মাদক ব্যবসায়ীর তালিকা

সিলেটে পুলিশের হাতে ৭শ মাদক ব্যবসায়ীর তালিকা


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:

সিলেট জেলা ও মহানগর পুলিশের হাতে ৭শ মাদক কারবারির তালিকা রয়েছে। ওই তালিকায় শুধু শীর্ষ মাদক কারবারিরাই নয়; নাম রয়েছে খুচরো বিক্রেতা, মদদদাতা, পৃষ্ঠপোষকদেরও। এদের বিরুদ্ধে দ্রুত সাঁড়াশি অভিযানে নামছে পুলিশ। শুধু সিলেট মহানগর আর জেলা পুলিশই নয়, র‍্যাব-৯ এর কাছেও শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা রয়েছে।

সূত্রমতে, সিলেট মেট্রোপলিটন ও জেলা পুলিশ এবং র‍্যাবের অভিযানে প্রতিদিনই কোনো না কোনো এলাকা থেকে মাদকদ্রব্যসহ কারবারিরা গ্রেপ্তার হচ্ছেন। তবে আইনের ফাঁক দিয়ে বেরিয়ে তারা ফের শুরু করেন এ অবৈধ ব্যবসা। এতে সিলেটে মাদকের ভয়াবহতা দিনদিন বাড়ছে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ জানায়, মহানগরীর ৬টি থানায়ই মাদক সাম্রাজ্যের শীর্ষ কাববারিসহ সংশ্লিষ্টদের দীর্ঘ তালিকা করা হয়েছে। যার সংখ্যা প্রায় ২১০ জন। এদের মধ্যে অনেকেই গ্রেপ্তার হয়েছেন।

মেট্রোপলিটন পুলিশের শীর্ষ এক কর্মকর্তা জানান, তালিকার মধ্যে সবচেয়ে বেশি মাদকবিক্রেতা কোতোয়ালি ও দক্ষিণ সুরমা থানা এলাকায়। ২১০ জনের মধ্যে ১১০ জন ওই দুই থানা এলাকার হবে।

সিলেট জেলা পুলিশের দেয়া তথ্যমতে, তাদের তালিকায় শুধু শীর্ষ মাদক কারবারিরাই নয়; নাম রয়েছে বিক্রেতা, মদদদাতা, পৃষ্ঠপোষকসহ ৪৯৭ জনের। এদের অনেকেই কারাগারে আবার অনেকে রয়েছেন পলাতক।

জানা গেছে, সম্প্রতি সিলেটে মাদকসেবন ও কেনাবেচা কিছুতেই কমছে না। মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর, র‍্যাব-পুলিশের অভিযান, মাদক উদ্ধার, গ্রেপ্তার ও মামলার সংখ্যা বৃদ্ধির পরিসংখ্যান প্রমাণ করে সিলেটে মাদকদ্রব্যের ছড়াছড়ি। এমনকি সিলেটে মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্রগুলোতেও রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।

‘চল যাই যুদ্ধে, মাদকের বিরুদ্ধে’ স্লোগান নিয়ে ২০১৮ সালের মে মাসের ৪ তারিখে দেশজুড়ে অভিযান শুরু করে র‍্যাব। এসময় সিলেটেও র‍্যাব-৯, সিলেট মেট্রোপলিটন ও জেলা পুলিশ অভিযান শুরু করে অসংখ্য মাদক ব্যবসায়ী ও মাদকসেবীকে গ্রেপ্তার করে। বর্তমানেও প্রায় প্রতিদিন কেউ না কেউ র‍্যাব-পুলিশের হাতে মাদকদ্রব্যসহ গ্রেপ্তার হচ্ছেন। তবুও মাদক ব্যবসায়ীদের লাগাম টেনে ধরা যাচ্ছে না সিলেটে।

মাদকদ্রব্যের মধ্যে সিলেটে শহর থেকে শুরু করে প্রত্যন্ত অঞ্চলেও বিস্তার ঘটেছে ইয়াবা ট্যাবলেটের। স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরাও ইয়াবা সেবন এবং বহনে জড়িয়ে যাচ্ছে। ছাত্র, তরুণ-তরুণী, যুবক-যুবতী এমনকি জনপ্রতিনিধির পাশাপাশি গৃহবধূ এবং অভিনেত্রীরা মাদক ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ছেন।

জানা গেছে, পুলিশ, বিজিবি, র‍্যাব এমনকি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকায়ও রয়েছে সিলেটের চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের নাম। সিলেট মেট্রোপলিটন ও জেলা পুলিশ এবং র‍্যাবের কাছে তালিকার মাদক কারাবারির বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানা ও আদালতে রয়েছে একাধিক মামলা।

একটি গোয়েন্দা সূত্র জানায়, সিলেটের জকিগঞ্জ ছাড়াও বিভাগের সুনামগঞ্জের মধ্যনগর ও টেকেরঘাট এবং হবিগঞ্জের বাল্লা সীমান্ত দিয়ে মাদক ঢুকছে। এরমধ্যে জকিগঞ্জ ও বাল্লা সীমান্ত দিয়ে ইয়াবা পাচার বেশি হয়। ওপারে ভারতের আসাম, মিজোরাম ও মেঘালয়ে ইয়াবা তৈরির কারখানাও রয়েছে। সেখান থেকে ইয়াবা আসছে। এসব সীমান্তে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী অতি কৌশলী ভূমিকা পালন করায় মাদক মাফিয়ারাও দ্রুত তাদের কৌশল বদলায়। যার কারণে র‍্যাব-পুলিশ, বিজিবির শীর্ষ তালিকাভুক্ত মাদক ব্যবসায়ীরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অধরা থেকে যায়।

সিলেটের সিনিয়র আইনজীবী ও সাবেক পিপি অ্যাডভোকেট এমাদুল্লাহ শহীদুল ইসলাম শাহীন বলেন, বর্তমানে সামাজিক অবক্ষয়ের মূলে কারণ হচ্ছে মাদকসেবন। এই মাদকই যুবসমাজকে খুন, চুরি, ডাকাতি ও ছিনতাইয়ের মতো অপরাধে যুক্ত করছে।

তিনি বলেন, মাদকের সাথে ছিনতাইয়ের নিবিড় সম্পর্ক। বছর দুই/এক আগে ঢাকা মেডক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্র অ্যাডভোকেট সালামের ছেলে মাহদীকে কিনব্রিজের নিচে নির্মমভাবে হত্যা করা হলো। আমরা পরবর্তীতে জানতে পারলাম- যেসকল ছিনতাইকারীরা তাকে হত্যা করেছে তারা সকলেই মাদকসেবী ছিলো।

সিলেট জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন (পিপিএম) বলেন, সিলেট জেলা সীমান্তবর্তী। সিলেটের মাদকের চাহিদার মধ্যে ইয়াবা ও ফেন্সিডিল শীর্ষে। এগুলো কিন্তু দেশে তৈরি হয় না। সীমান্ত দিয়েই সিলেটে ঢুকে।

তিনি বলেন, সীমান্তে কিছু লোক আছে যারা মাদক আমদানীর সাথে জড়িত। তাদের অনেকেই আমরা আইনের আওতায় আনতে পেরেছি। এছাড়া তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীর বেশিরভাই এখন কারাগারে। এর বাইরে যারা জামিনে বেরিয়ে আসে তারা অমাদের বিশেষ নজরদারীতে থাকে।

সিলেট জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন (পিপিএম) বলেন, সিলেট জেলা সীমান্তবর্তী। সিলেটের মাদকের চাহিদার মধ্যে ইয়াবা ও ফেন্সিডিল শীর্ষে। এগুলো কিন্তু দেশে তৈরি হয় না। সীমান্ত দিয়েই সিলেটে ঢুকে।

তিনি বলেন, সীমান্তে কিছু লোক আছে যারা মাদক আমদানীর সাথে জড়িত। তাদের অনেকেই আমরা আইনের আওতায় আনতে পেরেছি। এছাড়া তালিকাভুক্ত শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীর বেশিরভাই এখন কারাগারে। এর বাইরে যারা জামিনে বেরিয়ে আসে তারা অমাদের বিশেষ নজরদারীতে থাকে।

সিলেটে মাদক ব্যবসা নিয়ন্ত্রণের বাইরে এমনটি মানতে নারাজ পুলিশ সুপার। তিনি বলেন, মাদক নির্মুলে প্রতিদিন আমাদের অভিযান চলে। বিশেষ করে আমাদের জেলা পুলিশের একটি বিশেষ সেল মাদক নিয়ন্ত্রণে সক্রিয় ভূমিকা রাখছে। মাদকের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত আছে এবং অভিযান চলবে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার নিশারুল আরিফ বলেন, মাদক ব্যবসায়ীদের তালিকা আমাদের হাতে রয়েছে। অভিযানও নিয়মিত হচ্ছে। প্রতিদিনই কেউ না কেউ গ্রেপ্তার হচ্ছে।

তিনি বলেন, মাল্টিলেভেল মার্কেটিং কোম্পানির মতো মাদক সম্রাটরা একটা চেইন তৈরি করে। আমরা যখন এ জগতের কাউকে গ্রেপ্তার করি তখন ওই শূণ্যস্থান অন্য কাউকে দিয়ে পুরণ করিয়ে দেয়। মাদক নির্মূল করতে এ জগতের গডফাদারদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় নিয়ে আসার চেষ্টা চালাচ্ছি।

নিশারুল আরিফ আরও বলেন, ইয়াবা ট্যাবলেট এখন অনেকটাই সহজলভ্য। ইয়াবা সেবনে জড়িয়ে গেছে শিক্ষার্থী, তরুণ-তরুণী, নারী, চাকরিজীবীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। এছাড়া মাদকের টাকা সংগ্রহ করতে গিয়ে ছিনতাইয়ের ঘটনাগুলোর সূত্রপাত হচ্ছে। সববিষয় মাথায় নিয়ে আমরা শীঘ্রই মাদকবিরোধী সাঁড়াশি অভিযানে নামব। আমাদের টার্গেট- সিলেটে মাদকদ্রব্য বিস্তারের নেপথ্যের কারিগরদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা। তাগের ঘিরে জাল গুটিয়ে আনছে পুলিশ।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin