বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ১২:৩৮ অপরাহ্ন


সিলেটে প্রবাসী পিতা-পুত্রের মৃত্যুর রহস্য দ্রুত উদঘাটনের দাবি

সিলেটে প্রবাসী পিতা-পুত্রের মৃত্যুর রহস্য দ্রুত উদঘাটনের দাবি


শেয়ার বোতাম এখানে

প্রবাস ডেস্ক:

সিলেটের ওসমানীনগরে যুক্তরাজ্য-প্রবাসী রফিকুল ইসলাম ও তাঁর ছেলে মাইকুল ইসলামের মৃত্যুর রহস্য উদঘাটন ও প্রবাসীদের জীবনের নিরাপত্তা প্রদানের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে ।

সোমবার (১ আগস্ট) বিকেলে বাংলাদেশ প্রবাসী কল্যাণ পরিষদ ইউকে’র উদ্যোগে লন্ডন বাংলা প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ সরকারের কাছে কয়েকটি দাবি তুলে ধরা হয়। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মঈন উদ্দিন আনসার-এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন সভাপতি আশিকুর রহমান। লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মাওলানা আনিসুর রহমান।

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়েছে, রফিকুল ইসলাম ও তার পরিবারের সদস্যরা ব্রিটিশ নাগরিক। মূলত সিলেটের ওসমানীনগরের দয়ামীর ইউনিয়নের বাসিন্দা তাঁরা। পরিবারটি গত জুলাই মাসের শুরুতে তাদের ছেলের চিকিৎসার জন্য বাংলাদেশে গিয়েছিলো । চিকিৎসার সুবিধার্থে গত ১৮ জুলাই তাঁরা ওসমানীনগরের তাজপুর বাজারে একটি ফ্ল্যাট ভাড়া নেয়। একই ভবনে থাকতেন রফিকুল ইসলামের শ্বশুর বাড়ির লোকজনও । বিভিন্ন মিডিয়ার সংবাদে জানা গেছে, গত ২৬ জুলাই মঙ্গলবার সকাল ১০ থেকে সাড়ে ১০ টার মধ্যে তাদের আত্মীয়রা ফ্ল্যাটের দরজা খুলতে না পারায় পুলিশের সহযোগিতায় দরজা খুলে ভেতরে পাঁচজনকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। পরে তাদের হাসপাতালে নেওয়ার পর রফিকুল ইসলাম ও তার ছোট ছেলে মাইকুল ইসলামকে মৃত ঘোষণা করা হয়।।রফিকুলের স্ত্রী, ছেলে ও মেয়ের অবস্থা আশঙ্কাজনক। পুলিশ মিডিয়াকে নিশ্চিত করেছে খাদ্যে বিষক্রিয়ার কারণে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

লিখিত বক্তব্যে আরও বলা হয়েছে, প্রবাসী বাংলাদেশিদের আয় রোজগারের মূল লক্ষ্যই থাকে দেশে পরিবার-পরিজন ও আত্মীয় স্বজনের সুখ ও জীবনচলার পথকে সুগম রাখায় সহযোগিতা করা এবং সামগ্রিকভাবে দেশের ব্যবসা বাণিজ্য, শিল্প, কৃষি ও শিক্ষাখাতের উন্নয়নে ভূমিকা রাখা। এমনকি বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধে প্রবাসীদের বিশেষ করে যুক্তরাজ্য প্রবাসীদের ভূমিকা ইতিহাসে স্বর্ণাক্ষরে লিখা রয়েছে। অথচ দুঃখজনক হলেও সত্য যে, প্রবাসীরা আজ নানাভাবে নিজ মাতৃভূমিতে অত্যাচারিত, নিগৃহীত ও অবহেলিত। এয়ারপোর্টে তারা নানাভাবে হয়রানির শিকার হচ্ছেন । এমনকি অনেকে নিজ আত্মীয়-স্বজনদের দ্বারা নিপীড়িত হচ্ছেন। এতে তারা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগেন । রাষ্ট্রীয়ভাবে দেশের প্রবাসীদের নিরাপত্তায় কোনো আইন না থাকা, বিচার ব্যবস্থার দীর্ঘসূত্রিতা, সামাজিক এবং নৈতিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের কারণে এসব ঘটনা ঘটছে।

সংবাদ সম্মেলনে আয়োজকরা সরকারের কাছে কয়েকটি দাবি জানিয়েছেন। এগুলো হচ্ছে, লন্ডনপ্রবাসী রফিকুল ইসলাম ও তার ছেলের মৃত্যুর মূল কারণ দ্রুত উদ্ঘাটন ও দ্রুত ট্রাইব্যুলানে দোষীদের বিচার করতে হবে। জেলা পর্যায়ের প্রবাসী সেলকে আরও একটিভ করতে হবে। বাংলাদেশ প্রবাসী কল্যাণ পরিষদের দাবি দাওয়া নিয়ে নিয়িমিত বৈঠক করতে হবে। প্রশাসন মাসিক ও নিয়মিত বৈঠকের ব্যবস্থা করতে হবে । পাশাপাশি প্রবাসীদের প্রত্যেকটি অভিযোগ দ্রুত নিরসনের জন্য একটি প্রবাসী ট্রাইবুনাল বা আদালত গঠন করতে হবে।

উল্লেখ্য, গত ১২ জুলাই রফিকুল ইসলাম পরিবারের সদস্যদের নিয়ে যুক্তরাজ্য থেকে দেশে ফিরেন। এরপর ঢাকায় একসপ্তাহ অবস্থান করে ১৮ জুলাই তাজপুর স্কুল রোড এলাকার একটি ভাড়া বাসায় ওঠেন । ২৫ জুলাই সোমবার রাতের খাবার খেয়ে স্ত্রী, ২ ছেলে ও মেয়েদের নিয়ে বাসার একটি কক্ষে রফিকুল এবং অপর দুটি কক্ষে শ্বশুর, শাশুড়ি, শ্যালক, শ্যালকের স্ত্রী ও শ্যালকের মেয়ে ঘুমিয়ে পড়েন ।

২৬ জুলাই মঙ্গলবার সকালে বাসার অন্যান্য কক্ষে থাকা আত্মীয়রা ডাকাডাকি করে রফিকুল ইসলামের রুমের কারো কোনো সাড়া-শব্দ না পেয়ে ৯৯৯ নাম্বারে ফোন দেন। খবর পেয়ে দুপুর ১২টার দিকে ওসমানীনগর থানা পুলিশের একটি দল গিয়ে দরজা ভেঙে অচেতন অবস্থায় পাঁচ যুক্তরাজ্য প্রবাসীকে উদ্ধার করে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক রফিকুল ইসলাম ও মাইকুল ইসলামকে মৃত ঘোষণা করেন ।

আশঙ্কাজনক অবস্থায় বাকি তিনজনকে হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগে ভর্তি করা হয়। ময়না তদন্ত শেষে ঘটনার পরদিন বিকেলে মৃত বাবা-ছেলের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করে পুলিশ । পরে উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের বড় ধিরারাই গ্রামে পারিবারিক কবরস্থানে তাদের দাফন করা হয়। এদিকে অবস্থার উন্নতি হওয়ায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউ বিভাগ থেকে কেবিনে স্থানান্তর করা হয়েছে মারা যাওয়া যুক্তরাজ্য প্রবাসী রফিকুল ইসলামের স্ত্রী হোসনে আরা বেগম ও ছেলে সাদিকুল ইসলামকে ।

কিন্তু পুরোপুরি সুস্থ না হওয়ায় তাদেরকে এখনই হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হচ্ছে না । তবে এখনো জ্ঞানহীন অবস্থায় আইসিইউতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন রফিকুল ইসলামের মেয়ে সামিরা ইসলাম। তার কিডনি ও লিভার কাজ করছে না বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

এদিকে, ছয়দিনেও ঘটনার রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। অচেতন অবস্থায় মারা যাওয়া বাবা ও ছেলের ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন ও ঘটনার রাতের খাবারের রাসায়নিক প্রতিবেদন হাতে এলেই জট খুলবে রহস্যের-এমনটা দাবি করছে পুলিশ। তবে এর জন্য আরও অন্তত ১৫ দিন অপেক্ষা করতে হবে বলে জানিয়েছেন সিলেট জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin