বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ০৪:১৬ অপরাহ্ন

সিলেটে বাড়ছে পল্লী বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার চুরি, ৩ মাসে ৪২টি ট্রান্সফরমার লাপাত্তা

সিলেটে বাড়ছে পল্লী বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার চুরি, ৩ মাসে ৪২টি ট্রান্সফরমার লাপাত্তা


শেয়ার বোতাম এখানে

ট্রান্সফরমার চুরি : চোরেরা অধরা!
বিভিন্ন থানায় ৪২টি অভিযোগ দায়ের, তবে পুলিশ বলছে মামলা আছে মাত্র দুটি
নবীন সোহেল
গরম পড়ার ঠিক আগে সিলেটজুড়ে আবারও সক্রিয় হয়ে উঠেছে ট্রান্সফরমার চোর চক্র। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত মাত্র তিন মাসে সিলেট জেলার বিভিন্ন উপজেলায় ৪২টি ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। এর অনুমানিক বাজার মূল্য প্রায় অর্ধকোটি টাকা। কোনো কোনো এলাকায় চোরেরা পুরো ট্রান্সফরমারটাই চুরি করে নিয়ে গেছে। যেখানে চোরেরা ট্রান্সফরমারকে তোলে নিয়ে যেতে পারছে না, সেখানে তারা ট্রান্সফরমারের ভেতরে থাকা তেল ও যন্ত্রাংশ চুরি করে নিচ্ছে। প্রতিদিন এই ঘটনা বেড়ে চলায় চরম দুশ্চিন্তায় পড়েছেন সিলেটের পল্লি বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তারা। ট্রান্সফরমার চুরি হওয়ায় বিদ্যুৎ না পেয়ে সমস্যায় পড়েছেন প্রত্যন্ত এলাকার গ্রাহকেরা। প্রতিটি ট্রান্সফরমার চুরির ঘটনায় সংশ্লিষ্ট থানায় মামলা করেছে বিদ্যুৎ কতৃপক্ষ। এতো অভিযোগ থাকলেও পুলিশ কাউকে এখনও পর্যন্ত গ্রেপ্তার করতে পারেনি। চোরেরা যেন অধরাই রয়ে যাচ্ছে। তবে পুলিশ বলছে, ৪২টি টান্সফরমার চুরির ঘটনায় কোনো মামলা হয়নি। তবে দুটি ট্রান্সফরমার চুরির ঘটনায় পৃথক দুটি মামলা হয়েছে।
অনুসন্ধ্যান ও সিলেট পল্লি বিদ্যুৎ সমিতি-১ কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সিলেটে তিন মাসে ৪২টি ট্রান্সফরমার চুরির পর আলাদা অফিস স্মারক ধরে প্রতিটি ট্রান্সফরমার চুরির ঘটনায় পল্লি বিদ্যুৎ সমিতির প্যাডে সংশ্লিষ্ট থানায় অভিযোগ দাখিল করা হয়েছে। তবে অজ্ঞাত কারণে এসব অভিযোগ পুলিশ মামলা হিসেবে রেকর্ড না করে এগুলো উদ্ধারে গড়িমশি করছে এমন অভিযোগ পল্লীবিদ্যুতের কর্মকর্তাদের।
পল্লি বিদ্যুৎ সমিতির চুরি হওয়া ৪২টি ট্রান্সফরমারের অভিযোগের স্মারক নম্বর ও ট্রান্সফরমারগুলো হচ্ছে, ৭ জানুয়ারি বিশ্বনাথ উপজেলার রাজনগর গ্রামে সাড়ে ৩৭ কেভি ১টি (স্মারক-৪), ২৬ জানুয়ারি মুক্তিরগাও গ্রামে সাড়ে ৩৭ কেভির ১টি (স্মারক-৩৯), ২৩ ফেব্রুয়ারি নওধার গ্রামে ১৫ কেভি ১টি (স্মারক-৮৫), ২৫ ফেব্রুয়ারি আটপাড়া গ্রামে ২৫ কেভির ২টি (স্মারক-৯০), ২৬ ফেব্রুয়ারি রামকৃষ্ণপুর গ্রামে ২৫ কেভি ১টি (স্মারক-১২৫), ২ মার্চ ভাটিপাড়া গ্রামে সাড়ে ৩৭ কেভি ১টি (স্মারক-১৩৭), ৬ মার্চ রহমান নগর গ্রামে সাড়ে ৩৭ কেভি ১টি (স্মারক-১৬৩), ৮ মার্চ রামপাশা গ্রামে সাড়ে ৩৭ কেভির ১টি (স্মারক-১৬৫), ৯ মার্চ আবক্রপুর গ্রামে ২৫ কেভির ১টি (স্মারক-৬৫), ১৬ মার্চ মুফতিরগাও গ্রামে ৫০কেভির ১টি (স্মারক-১৯২), ১৮ মার্চ দশপাইকা গ্রামে ১৫ কেভির ৩টি (স্মারক-১৯৮), ২৬ মার্চ সরুয়ালা গ্রামে সাড়ে ৩৭ কেভি ও ২৫ কেভির ২টি (স্মারক-৩২৫) ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। ২২ জানুয়ারি ওসমানী নগর উপজেলার সোয়ারগাও গ্রামে সাড়ে ৩৭ কেভির ১টি (স্মারক-১৯), ২৪ জানুয়ারি চিন্তামণি গ্রামে ১০ ও ১৫ কেভির ২টি (স্মারক-২১), ২৮ জানুয়ারি তেরহাতি গ্রামে সাড়ে ৩৭ কেভির ১টি (স্মারক-২৫), ২৯ জানুয়ারি নিজ কুরুয়া গ্রামে ২৫ কেভি ২টি (স্মারক-২৭), ১১ ফেব্রুয়ারি কঠালপুর গ্রামে সাড়ে ৩৭ ও ২৫ কেভির ২টি (স্মারক-৪২), ২০ মার্চ রাইখদাড় গ্রামে ১০ কেভির ২টি ও ১৫ কেভির ১টি (স্মারক-৭২), ২২ মার্চ খুজগিপুর গ্রামে সাড়ে ৩৭ ও ২৫ কেভির ২টি (স্মারক-৭৫) ও ৩১ মার্চ মীরপাড়া গ্রামে ১টি (স্মারক-১৫৯৪) ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। ৬ ফেব্রুয়ারি মোগলাবাজার থানার মোহাম্মদপুর গ্রামে সাড়ে ৩৭ ও ২৫ কেভির ২টি (স্মারক-৬৯০), ১৩ ফেব্রুয়ারি ইলাশপুর গ্রামে ৫০ কেভি ১টি (স্মারক-৮২০), ১৭ ফেব্রুয়ারি উত্তর সতিঘর গ্রামে ৫০ কেভি ১টি (স্মারক-৮৮৯), ১৮ ফেব্রুয়ারি নোয়াগাও গ্রামে ৫০ কেভি ১টি (স্মারক-৯১৫) ও ১ মার্চ মোগলাবাজারের নইখাই গ্রামে ৫০ কেভি ১টি (স্মারক-১১০৭)। বিয়ানীবাজারের শ্রীধরা গ্রামে ১০ জানুয়ারি ২৫ কেভি ১টি (স্মারক-৫৮), মোল্লাপাড়া গ্রামে ৩ মার্চ সাড়ে ৩৭ কেভি ১টি (স্মারক-৩২৭) ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। দক্ষিণ সুরমা উপজেলার রায়খাইল গ্রামে ২৭ জানুয়ারি সাড়ে ৩৭ কেভি ১টি (স্মারক-৪৭৬) ও ফরিদপুর গ্রাম থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি সাড়ে ৩৭ কেভির (স্মারক-৫০) ১টি ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে। ১৪ জানুয়ারি ফেঞ্চুগঞ্জের পাঠানটিলা গ্রামে ২৫ কেভির ১টি (স্মারক-৮) ও ৩ মার্চ গোলাপগঞ্জের জগঝাপ গ্রামে সাড়ে ৩৭ কেভির ১টি (স্মারক-৪৬) ট্রান্সফরমার চুরি হয়েছে।
সিলেটের বিভিন্ন উপজেলায় ট্রান্সফরমার ও তার চুরির প্রতিরোধে গ্রাহকদের ব্যাপক সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মাইকিং করেছে সিলেট পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-১ প্রতিটি জোনাল অফিস। বৈদ্যুতিক লাইন থেকে ব্যাপকহারে ট্রান্সফরমার ও তার চুরি হচ্ছে। এতে সমিতি যেমন আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে তেমনি চুরিকৃত ট্রান্সফরমারের আওতায় গ্রাহকরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। বিদ্যুৎ বিতরণ লাইনের কোনো ক্ষতি হলে তার মাশুল দিতে হচ্ছে গ্রাহকদেরই। যদিও গ্রাহকরা বিদ্যুৎ থেকে আরোপিত কর ও চার্জ পরিশোধ করে থাকেন। বিদ্যুৎ বিল এবং সব ধরনের চার্জ পরিশোধের পরও বিতরণ লাইনে প্রথমবারের মতো কোনো ক্ষতি বা চুরি হলে, সেই ক্ষতির অর্ধেক আর্থিক ব্যয় বহন করতে হয় গ্রাহকদের। বাকি অর্ধেক দিয়ে থাকে বিতরণ কোম্পানি। এরপর দ্বিতীয়বার যদি চুরি হয়, তার পুরোটাই বহন করতে হয় গ্রাহকদের। ফলে বিদ্যুতের কোনো যন্ত্রাংশ এবং সরঞ্জামাদি চুরি হলে তার মাশুল দিতে হচ্ছে গ্রাহকদের।
ভুক্তভোগী গ্রাহকরা জানান, তাঁদের পক্ষে এত টাকা দিয়ে ট্রান্সফরমার কেনা সম্ভব নয়। গ্রাহকেরা ট্রান্সফরমারে খাঁচা লাগিয়ে, শেকঁল দিয়ে বেঁধে রেখেও চুরি ঠেকাতে পারছেন না। পাশাপাশি অনেক এলাকায় নিজেদের ট্রান্সফরমার চুরি ঠেকাতে পাহারার ব্যবস্থা করেছেন সাধারণ গ্রাহকরা।
এদিকে, বিদ্যুৎ সরবরাহ লাইন থেকে চালু অবস্থায় ট্রান্সফরমার ও বৈদ্যুতিক তার চুরি হওয়ায় বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকর্তার দিকেই আঙ্গুল তুলছেন পুলিশ প্রশাসন।
সিলেট পল্লি বিদ্যুৎ সমিতি-১ এজিএম (প্রশাসন) মোহাম্মদ বেলাল হোসেন শুভ প্রতিদিনকে বলেন, ট্রান্সফরমার চুরির ব্যাপারে গত ৩ মাসে সিলেটের বিভিন্ন থানায় ৪২টি অভিযোগ দিয়েছি। কিন্তু পুলিশের কোনো সহযোগিতা পাচ্ছি না। দু-একটি ছাড়া বাকি অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে মামলাও রেকর্ড করেনি পুলিশ। এব্যাপারে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারের কাছে স্মারকলিপিও প্রদান করা হয়েছে।
এব্যাপারে সিলেটের অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার (মিডিয়া) মো. মাহবুবুল আলম শুভ প্রতিদিনকে বলেন, ট্রান্সফরমার চুরির ঘটনায় শুধুমাত্র বিশ্বনাথ থানায় দুটি মামলা আছে। এগুলোর পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।
এ প্রসঙ্গে সিলেট মেট্রোপলিটন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) জেদান আল মুসা শুভ প্রতিদিনকে বলেন, ট্রান্সফরমার চুরি রোধে সতর্ক রয়েছে পুলিশ। মোগলাবাজার ও দক্ষিণ সুরমার থানায় ট্রান্সফরমার চুরির অভিযোগ থাকলে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin