মঙ্গলবার, ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৮:২০ অপরাহ্ন


সিলেটে বিয়ের প্রলোভনে শারীরিক সম্পর্ক, ধরা পড়ার পর পলাতকল

সিলেটে বিয়ের প্রলোভনে শারীরিক সম্পর্ক, ধরা পড়ার পর পলাতকল


শেয়ার বোতাম এখানে

শুভ প্রতিদিন ডেস্ক:

সিলেটের জৈন্তাপুরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে দীর্ঘদিন ধরে এক কিশোরীর সাথে শারীরিক সম্পর্ক চালিয়ে আসছিল এক তরুণ। অনৈতিক কাজের সময় এলাকার লোকজনের কাছে হাতেনাতে ধরা পড়েন অভিযুক্ত সাইদুর রহমান কালা (২২)।

এদিকে, কিশোরীর সাথে বিয়ে পড়িয়ে দেওয়ার আশ্বাস দিয়ে এলাকার লোকজনের কাছ থেকে কালাকে ছাড়িয়ে নেন প্রভাবশালীরা। কিন্তু বিয়ে আর পড়ানো হয়নি। ছাড়া পেয়েই পালিয়েছে কালা।

এই অভিযোগে ভিকটিম বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার এজাহারে উল্লেখ, ওই কিশোরী এক দরিদ্র পরিবারের মেয়ে। গত তিন বছর ধরে নিজপাট ইউনিয়নের কালিঞ্জ গ্রামের কুটুনা মিয়ার ছেলে সাইদুর রহমান কালা (২২) বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ওই কিশোরীর সঙ্গে বার বার শারীরিকভাবে মিলিত হয়। গত ১৫ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৮টায় এভাবেই স্থানীয় একট টিলার উপর নিয়ে ওই কিশোরীকে ফের ‘ধর্ষণ’ করে কালা। এসময় স্থানীয় কয়েকজন বিষয়টি দেখে ফেলেন এবং কালাকে আটক করেন।

খবর পেয়ে নিজপাট ইউনিয়নে ৬নং ওয়ার্ড সদস্য সাইফুল ইসলাম (৩৫), একই গ্রামের মৃত মোবারক আলীর ছেলে আব্দুল হান্নান (৫৫), কালিঞ্জিবাড়ী গ্রামের মৃত আজিজুল হকের ছেলে আব্দুস সালাম (৬৫) ও অভিযুক্ত কালার পিতা কুটুনা (৪৫) ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে এ দুজনের মধ্যে বিয়ে পড়িয়ে দেওয়া হবে- এমন আশ্বাস দিয়ে কালাকে মুক্ত করে নিয়ে আসেন এবং কিশোরীকে তার বাড়িতে পাঠান। তবে এরপরই কালা বাড়ি ছেড়ে পালিয়ে যান।

অভিযোগ রয়েছে- টাকার বিনিময়ে কালাকে পালিয়ে যেতে সহযোগিতা করেছেন স্থানীয় মেম্বারসহ মধ্যস্থতাকারী বাকিরা।

এ ঘটনার পর ভিকটিম থানায় মামলা দায়ের করেন।

জৈন্তাপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর আহমেদ এ বিষয়ে বলেন- ২১ জানুয়ারি ভিকটিমের অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্তপূর্বক অভিযোগটি মামলা হিসেবে রেকর্ড করা হয়েছে। পরে ভিকটিমকে পরীক্ষার জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি-তে প্রেরণ করা হয়েছে এবং অভিযুক্তকে গ্রেফতার করতে পুলিশ চেষ্টা চালাচ্ছে।


শেয়ার বোতাম এখানে





LoveYouZannath
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin