বৃহস্পতিবার, ০৫ অগাস্ট ২০২১, ০৯:৪৯ পূর্বাহ্ন


সিলেটে বেসরকারী ও ইংলিশ মিডিয়াম শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বেতন আতঙ্কে অভিভাবকরা

সিলেটে বেসরকারী ও ইংলিশ মিডিয়াম শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বেতন আতঙ্কে অভিভাবকরা


শেয়ার বোতাম এখানে

স্টাফ রিপোর্ট:
বিশ্বব্যাপি করোনাভাইরাসের ভয়ানক তান্ডবের প্রভাব পড়ে বাংলাদেশেও। সে কারণে দীর্ঘ দিন লকডাউন ও সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়। তাছাড়া ২৬ মার্চ থেকে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। যা এখনও বলবৎ রয়েছে। কিন্তু মহামারি ভাইরাসে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার পরও শিক্ষার্থীদের অভিভাবককে চাপ দেয়া হচ্ছে বিগত ৪ মাসের বেতন পরিশোধের জন্য। বিদ্যালয়ে নোটিশবোর্ড ঝুলানো বা দফায় দফায় মোবাইল ফোনে এসএমএস দিয়ে চাপ দেওয়া হচ্ছে তাদেরকে।

এব্যপারে সিলেটের জেলা প্রশাসক’র কাছে স্মারকলিপি ও নগরীতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছেন স্কুল কলেজ পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের অভিভাবকবৃন্দ। তাছাড়া অভিভাবকরা বলছেন, জমে থাকা বেতনের ৫০ ভাগ নিয়েও যদি বিদ্যালয়গুলো বাকি বেতন মওকুফ করে দিতেন, তাহলে অনেক উপকার হত। আর সচেতন মহলের দাবি, বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মালিকরা মূলত ব্যবসায়ি। তারা চাইলে মানবিক বিবেচনায় শিক্ষার্থীদের কয়েক মাসের বেতন মওকুফ করতে পারেন। অপরদিকে সিলেটের জেলা প্রশাসন রয়েছেন সরকারী সিদ্ধান্ত’র অপেক্ষায়।

সিলেট নগরীর বিভিন্ন বেসরকারী ও ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল’র শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের সাথে আলাপকালে বলেন, সিলেটের স্কলার্স হোম, খাজাঞ্চিবাড়ি ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ, সিলেট ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ, সিল সিটি স্কুল এন্ড কলেজ, সানিহিল, আনন্দ নিকেতন, বৃটিশ বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজ, রাইজ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল, গ্রামার স্কুল, স্কলার্সহোম, বৃটানিকা ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল, ক্যামব্রিজ গ্রামার স্কুলসহ বেশ কয়েকটি বিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে বকেয়া বেতন পরিশোধের জন্য বদ্যিালয়ে নোটিশ সাটানো হয়েছে।

অভিভাবকদের ঠিকানায় চিঠি প্রেরণ, মোবাইল ফোনে এসএমএস এবং প্রাইভেট নম্বরে ফোন করে মার্চ, এপ্রিল, মে, জুন ও জুলাই মাসের বেতনের জন্য চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে। এসকল কারণে অনেক মধ্যবিত্ত পরিবারের অভিভাবক তাদের প্রিয় সন্তানের লেখাপড়া বন্ধ করে দেয়ার মতো কঠিন সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন। আবার অনেকেই অসহায়ত্ব প্রকাশ করে বিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে বেতন মওকুফের অনুরোধ জানিয়েছেন।

জানা যায়, মাসিক বেতন পরিশোধের জন্য অভিভাবকদের চাপ দিচ্ছে প্রায় প্রতিটি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। ছুটিতে যাবার আগেই মার্চ মাসের বেতনসহ সব বকেয়া পরিশোধ করেছেন অভিভাবকরা। কিন্তু বিদ্যালয় বন্ধ থাকলেও পরবর্তী মাস থেকেই অভিভাবকদের চাপ দিতে থাকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো। বিদ্যালয়ে নোটিশবোর্ড ঝুলানো বা দফায় দফায় মোবাইল ফোনে এসএমএস দিয়ে বেতন পরিশোধের জন্য চাপ দেওয়া হচ্ছে তাদের। বিদ্যালয়গুলোর এমন চাপে নিজেদের অসহায় ভাবছেন অনেকে।

সিলেট খাজাঞ্চিবাড়ি ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এন্ড কলেজের অভিভাবক শেকিল আহমদ জানান, বিগত দিনগুলোতে বিদ্যালয়ের মাসিক বেতন নিয়মিত পরিশোধ করেন। কিন্তু করোনার এই ক্রান্তিকালে প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কোনরকম সহায়তা না পেয়ে বরং চাপের মুখে রয়েছেন। বেতন পরিশোধ করার জন্য বিদ্যালয় থেকে নিয়মিত এসএমএস দেয়া হচ্ছে।
চলতি মাসেও তার ব্যতিক্রম ঘটেনি। তিনি বলেন, বাচ্চা ওয়ানে পড়ে তার মাসিক বেতন সাড়ে ৫হাজার টাকা। গত মার্চ মাস পর্যন্ত বেতন দেওয়া আছে। বিদ্যালয় বন্ধ থাকার কারণে ও উপার্জন কমে যাওয়ায় এপ্রিল, মে ও জুন মাসের বেতন বকেয়া রয়েছে।

ওই অভিবাবক আরো বলেন, তিনি ব্যক্তিগতভাবে একটি ডায়গনিস্ট সেন্টারে কাজ করেন। সেখানেও পুরো বেতন পাচ্ছেন না। এমন অবস্থায় চোখে অন্ধকার দেখছেন। যাদের একাধিক বাচ্চা এই বিদ্যালয়র পড়াশোনা করে তারাতো আরও বেশি সমস্যায় আছেন। কিন্তু এই মুহূর্তে বিদ্যালয়ে বেতনের বাড়তি চাপ তাদের জন্য “মরার উপ খাড়ার ঘা”। বিদ্যালয় বন্ধ থাকা কালীন সময়ের বেতন মওকুফ করার জন্য জেলা প্রশাসক ও জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহি কর্মকর্তা বরাবর আবেদন জানানো হয়েছে। এখন র্পযন্ত কোন সুফল মেলেনি। বিদ্যালয়ের প্রিন্সিপ্যাল জানিয়েছেন ট্রাস্টিবোর্ডের সাথে আলোচনা ছাড়া কিছুই করতে পারবেন না।

একই সমস্যার কথা স্বীকার করে বেসরকারি বিদ্যালয় স্কলার্স হোমের অভিভাবক সুবর্ণা দেব জানান, তার ছেলে স্কলার্স হোম বিদ্যালয়ের পাঠানটুলা শাখার ১ম শ্রেণির শিক্ষার্থী। বিদ্যালয় কতৃপক্ষকে দুই হাজার টাকা হারে মাসিক বেতন পরিশোধ করা হয়। মার্চ মাসে বেতন পরিশোধের পর পরই করোনা ভাইরাস আতংকে বিদ্যালয় বন্ধ হয়ে যায়। সাথে সাথে গ্রামে চলে যান। এপ্রিল মাসে বিদ্যালয় থেকে কোন এসএমএস বা বেতনের চাপ আসেনি। কিন্তু মে মাস থেকে নিয়মিত মোবাইলে এসএমএস আসছে। বার বার চাপ দেওয়া হচ্ছে বকেয়া বেতন পরিশোধ করার জন্য।

তিনি বলেন, লকডাউনের পর থেকে পরিবারের উপার্জন প্রায় বন্ধ। লকডাউন শিথিল হলেও স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যহত হচ্ছে, বন্ধ রয়েছে উপার্জনের সব পথ। এমন অবস্থায় বিদ্যালয়ের মাসিক বেতন মওকুফ করার দাবি জানান তিনি। অন্যথায় তার মতো অনেক মধ্যবিত্ত পরিবার বেতন দিতে গিয়ে নিজেকে অসহায় ভাববে।

সিলেট খাজাঞ্চিবাড়ি ইন্টারন্যাশনাল স্কুল এ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ এম হোসেন আহমেদ জানান, তাদের কাছে কোন লিখিত আবেদন যায়নি। তবে তিনি জানতে পেরেছেন অভিভাবকরা জেলা প্রাশাসক বরাবরে লিখিত আবেদন জানিয়েছেন। করোনার এই সঙ্কটকালে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটি যে সিদ্ধান্ত নিবেন তাই হবে।

ওই শিক্ষক আরো জানান, বিদ্যালয়ের একটি নির্দিষ্ট খরচ আছে, শিক্ষক-কর্মচারিদের বেতন আছে, কাজেই সবকিছু চিন্তা করেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে। মার্চের শেষের দিক থেকে শিক্ষার্থীদের অনলাইনে ক্লাস নেয়া হচ্ছে। শিক্ষার্থীদে সাথেও নিয়মিত যোগাযোগ, পড়াশোনার ক্ষেত্রে কোন সমস্যা থাকলে শিক্ষকরা তা সমাধান করে দিচ্ছেন। কাজেই অভিভাবক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সকলের সুবিধা অসুবিধার কথা মাথায় রেখে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) এর সভাপতি ফারুক মাহমুদ জানান, বেসরকারী বিভিন্ন স্কুলের প্রতিষ্ঠাতারা হলেন মূলত ব্যবসায়ি। তারা চাইলে শিক্ষার্থীদের ৩/৪ মাসের বেতন মওকুফ করতে পারতেন। কিন্তু বেতন পরিশোধের জন্য উল্টো শিক্ষার্থীর অভিভাবকদের চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে, যা অত্যান্ত দুঃখজনক।

সিলেটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি এবং সার্বিক দায়িত্ব) শারমিন সুলতানা জানান, বেসরকারী ও ইংলিশ মিডিয়াম বিদ্যালয়ের বেতন ও সার্বিক ফি বিষয়ে সরকারী সিদ্ধান্ত আসার পর ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অপরদিকে, করোনাকালীন সংকটে ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল ও অন্যান্য স্কুলে মাসিক টিউশন ফি অর্ধেক করা এবং পূুন: ভর্তি ফি বা অন্য যে কোন নামে এককালীন মোটা অংকের টাকা ছাড়া ক্লাস করার সুযোগসহ বিভিন্ন দাবিতে শনিবার (১৮ জুলাই) দুপুরে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রাঙ্গনে মানববন্ধন করেছে সিলেট ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল অভিভাবক এসোসিয়েশন।

মানববন্ধনে সিলেটের সকল সুশীল, সাংবাদিক, আইনজীবী, নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা বলেন, সকল স্কুলকে শিক্ষা ব্যয় কমিয়ে, করোনাকালীন সংকটে শিক্ষার্থীদের ৫০% ফি মওকুফ করতে হবে। এটা যৌক্তিক দাবি। খেয়াল রাখতে হবে একটি শিশুও যেন স্কুল থেকে ঝরে না পড়ে। আধুনিক শিক্ষার বিস্তারে আরো মানবিকতা ও মানবতা নিয়ে প্রতিষ্ঠান কতৃপক্ষকে শিশু শিক্ষার্থীদের পাশে দাড়ানোর আহব্বান জানিয়ে বক্তারা বলেন ছাত্র ছাত্রীদের অর্ধেক ফির টাকা দিয়ে সংকটে শিক্ষকদের বেতন ও অনলাইন ক্লাস পরিচালনা সম্ভব।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩১৪১৫
১৬১৭১৮১৯২০২১২২
২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin