রবিবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১, ১২:০৭ অপরাহ্ন

সিলেটে ব্যবসা-বাণিজ্যে বড় ধরণের ধস : প্রতিদিন ক্ষতি ৩ কোটি টাকা

সিলেটে ব্যবসা-বাণিজ্যে বড় ধরণের ধস : প্রতিদিন ক্ষতি ৩ কোটি টাকা


শেয়ার বোতাম এখানে

সাত্তার আজাদ : 
করোনার প্রভাব পড়েছে সিলেটের ব্যবসা-বাণিজ্যে। পর্যটন খাতেও বড় ধরণের ধস নেমেছে। প্রবাসী বিক্রি নির্ভর বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান লোকসানের মুখে পড়ে বিরাট ক্ষতির সম্মুখিন। ক্ষতির মুখে পড়েছে সিলেটের হোটেল ব্যবসা। গড়ে প্রতিদিন কোটি টাকার উপরে লোকসান গুণতে হচ্ছে হোটেল মালিকদের।

পাশাপাশি কাপড়, জুয়েলারী ট্রাভেলসসহ অন্যান্য ব্যবসাও ক্ষতির মুখে।
পর্যটন নির্ভর ও প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেটে মাস দুয়েক আগেও রমরমা ব্যবসা-বাণিজ্য ছিল। করোনা আতঙ্কে সিলেট এখন পর্যটক শূন্য। তাই বেশি প্রভাব পড়েছে খাবার রেস্তোরাঁ ও আবাসিক হোটেলের উপর। হোটেলে রোম বিক্রি (ভাড়া) শতকরা ৭৫ ভাগ কমে গেছে। হোটেল সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, এমন অবস্থা চলতে থাকলে এ ব্যবসা বন্ধ রাখা ছাড়া কোনো উপায় নেই।

খাবার রেস্তোরাঁয় শতকরা ৫০ ভাগ বিক্রি কমেছে বলে জানালেন হোটেল পানসি ইন রেস্টেুরেন্টের ম্যানেজার আনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, মানুষজন কাজ ছাড়া ঘর থেকে বেরুতে চায় না। তাছাড়া পর্যটক নেই। এমনকি শহরের বাইরের মানুষও আসছে না বলে বিক্রি কমে যাওয়ায় বড় ক্ষতির মুখে পড়েছি আমরা। এ ক্ষতি পুষিয়ে উঠার মত নয়।

ব্র্যান্ড শপ প্লাস পয়েন্টের ম্যানেজার মো. আসলাম জানান, কাপড় বিক্রি শতকরা ৭০ ভাগ কমেছে। প্রতিদিন বিক্রি কমছে। রাস্তায় লোকজন কমেছে। দোকানে সারা দিনে ২-৩ জনের বেশি ক্রেতা আসেন না। অথচ গত বছর এমনি দিনে দ্বিগুণ ব্যবসা হয়েছে। করোনার ভয়ে পর্যটক কমেছে। প্রবাসীরা দেশে আসছেনা। তাই ব্যবসায় চরম মন্দা দেখা দিয়েছে। এমন অবস্থা বেশি দিন থাকলে ক্ষতির পরিমাণ আরো বাড়বে।

হোটেল ফরচুন গার্ডেনের ম্যানেজার দ্রুভেশ চক্রবর্তী জানালেন, তাদের হোটেলে ৩২ টি রোম আছে। আগে খালি থাকত না। কিন্তু বুধবার ভাড়া ছিল মাত্র ৪টি রোম। বাকি ২৮টি খালি। হোটেল ডালাসের রিসিপশনিস্ট জানালেন তাদের ৩০টি রোমের মধ্যে এখন ভাড়া হয় ৩ থেকে ৪টি। বাকিগুলো খালি থাকে।
রোম খালি থাকার কথা জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন আবাসিক হোটেল পানসি ইনের রিসিপশনিস্ট জাকারিয়া হক। তিনি বলেন, আমাদের ৩৭টি রোমের মধ্যে এখন ভাড়া হয় ৫ থেকে ৬টি। বাকিগুলো খালি থাকায় মালিক পক্ষ বিরাট ক্ষতির সম্মুখিন।

কাপড় ব্যবসায়ী জিহা ফ্যাশনের ব্যবস্থাপক রেজাউল হক বলেন, আমাদের ক্রেতা মূলত প্রবাসী। তারা এখন দেশে আসছেন না। যারা ছিলেন তারাও চলে গেছেন। তাছাড়া পর্যটকও সিলেটে বেড়াতে আসছেন না। তাই আমাদের বিক্রি প্রায় ৭০ ভাগ কমে গেছে।

সিলেটের ট্রাভেলস ব্যবসায়ী রুহেল আহমদ রুহিন জানালেন, করোনার প্রভাবে তাদের ব্যবসায় চরম মন্দা দেখা দিয়েছে। প্রবাসী অধ্যুষিত সিলেটে ট্রাভেলস ব্যবসা রমরমা ছিল। আগে প্রচুর টিকিট পাওয়া যেত। বিভিন্ন দেশ ফ্লাইট সীমিত করে ফেলেছে। তাই এখন একটি টিকিটও পাওয়া যাচ্ছে না। অনেকে টিকিট কেটে প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। এতে ট্রাভেলস ব্যবাসী ও গ্রাহক উভয়ই ক্ষতির শিকার। একটি টিকিট বুকিং দেয়ার পর প্রত্যাহার করলে এয়ারলাইন্স চার্জ কেটে নেয়। যা আর ফেরত পাওয়া যায় না।

এ নিয়ে দুর্দিন যাচ্ছে ট্রাভেলস ব্যবসায়। কর্মচারী ঘরভাড়া, অফিস খরচ ভর্তুকি দিয়ে কুলিয়ে উঠা সম্ভব হচ্ছে না। এ অবস্থা চলতে থাকলে ব্যবসা বন্ধ করা ছাড়া উপায় থাকবেনা।

এ বিষয়ে সিলেট জড়োয়া হাউসের গোলন্ড প্লেটের অলঙ্কার ব্যবসায়ী ইয়াসিন সুমন বলেন, আমার ব্যবসার ক্রেতার বড় অংশ প্রবাসী। সিলেটে এখন প্রবাসী আসা কমে গেছে। তাই আমার প্রতিষ্ঠানের বিক্রির বড় একটি অংশ কমে গেছে। এভাবে চলতে থাকলে ব্যবসা ক্ষতির মুখে পড়বে।

এ বিষয়ে সিলেট হোটেল ও গেস্ট হাউস ওনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সুমাত নুরী জুয়েল বলেন, করোনার প্রভাবে সিলেটের আবাসিক হোটেলগুলোতে রোম বিক্রি কমে গেছে। বাইরের লোকজন আসছেনা। পর্যটক আসা শূন্যের কোটায়। কর্পোরেট কিছু লোক আছেন। দু-একদিন ধরে তারাও থাকার হোটেলের রোম বুকিং দিয়ে প্রত্যাহার করে নিচ্ছেন। এ অবস্থায় বলা যায় সিলেটের আবাসিক হোটেল ব্যবসায় ধস নেমেছে। প্রতিদিন গড়ে কোটি টাকার উপরে লোকসান গুনতে হচ্ছে হোটেল ব্যবাসায়ীদের।

সিলেটের নয়সড়ক কাপড় ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক হোসেইন আমহদ বলেন, বর্তমান পরিস্থিতিতে বনি-বাট্টাও হয়না। ঘরভাড়া, স্টাফ খরচ কুলানো যাচ্ছেনা। বিক্রি কমে গেছে শতকরা ৭৫ ভাগ। আমার বন্ধুর প্রবর্তন কাপড় দোকানে আগে বিক্রি ছিল প্রতিদিন গড় ২০ হাজার টাকা। এখন প্রতিদিন লোকসান হচ্ছে ৩৫ থেকে ৪০ হাজার টাকা। লোনের সুদ ও ঘরভাড়া, স্টাফ খরচ মিলিয়ে তার এ লোকসান হচ্ছে। অনেক ব্যবসায়ী ব্যাংকের লোন নিয়ে ব্যবসা করছেন। লোন পরিশোধের ঝামেলা না থাকলে অনেকেই ব্যবসা বন্ধ করে দিতেন। তিনি বলেন আমাদের সমিতির আওতায় ৪৬ টি দোকানে প্রতিদিন গড়ে এক কোটি টাকার বেশি লোকসান হচ্ছে।

এছাড়াও অন্য ব্যবসায়ীর দেয়া তথ্যে নগরের অন্যত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা কাপড় দোকানে প্রতিদিন কোটি টাকার কাছাকাছি লোকসান হচ্ছে। ক্রেতার ভিড় কমে যাওয়াতে বিক্রি কমেছে বলে মন্তব্য ব্যবসায়ীদের।



শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর




themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin