বৃহস্পতিবার, ১৭ Jun ২০২১, ০২:০৩ অপরাহ্ন

সিলেটে মশা প্রজননের নিরাপদ অভয়ারণ্য ঝোপঝাড়-কচুরিপনা

সিলেটে মশা প্রজননের নিরাপদ অভয়ারণ্য ঝোপঝাড়-কচুরিপনা


শেয়ার বোতাম এখানে

সাত্তার আজাদ: সিলেট নগরের আশেপাশে খালি জমি ঝোপঝাড়, ঘাঁসে আবৃত। অপেক্ষাকৃত নিচু ও খালি জমিতে জন্মে কচুরিপনা। এসব ঝোপঝাড়, কচুরিপনা থেকে প্রতিদিন লক্ষ কোটি মশা বা নিচ্ছে। পাশাপাশি ময়লার ড্রেন থেকেও মশা জন্মেচ্ছে। ফলে মশার যন্ত্রণায় অতিষ্ঠ নগরবাসী।

নগরের ঝোপঝাড়, কচুরিপনা পরিস্কার রাখার দায়িত্ব সিটি করপোরেশনের হলেও এ বিষয়ে কোনো উদ্যোগ নেয়া হয়নি। মশা নিধনে নামেমাত্র ওষুধ ছিটানো হয়। তা-ও বাসাবাড়ির চারপাশে এবং ড্রেনে। ফলে অক্ষত থেকে যায় মশা প্রজননের সবচেয়ে নিরাপদ অভয়ারণ্য ঝোপঝাড়, কচুরিপনার বন।

এতে ওই স্থানগুলোতে ওষুধের ছোঁয়া না লাগায় মশা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হচ্ছে না। নগরের ফুটপাত থেকে বাসাবাড়ি সর্বত্র এখন মশার উপদ্রব। এসব মশার প্রজনন বন্ধে নেয়া হচ্ছে না কোনো সঠিক উদ্যোগ। সময়মত ওষুধও ছিটানো হচ্ছে না। ফলে সম্প্রতি সিলেটে মশার সংখ্যা খুব বেশি বেড়ে গেছে।

সিলেটের ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের সবুজবাগে প্রচুর পরিমাণে খালি জমি রয়েছে। কোনোটি সীমানা দেয়াল ঘেরা, কোনোটি খালি। এসব জমিতে ঝোপঝাড়, বন উঁচু হয়ে আছে। কোথাও কচুরিপনার বাগান। এমন চিত্র শুধু সবুজবাগেই নয়, নগরের ২৭টি ওয়ার্ডেই রয়েছে। কচুরিপনা পরিস্কার রাখা ও ঝোপঝাড় কেটে ফেলার উদ্যোগ নেয়া হয়নি কোনো দিন।

সিটি করপোরেশন বা ওয়ার্ড কাউন্সিলরাও এনিয়ে কোনোদিন মাথা ঘামাননি। ফলে এসব খালি জমিই মশা প্রজননের অভয়ারণ্য হয়ে ওঠেছে।
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কর্মকর্তারা বলছেন, নগরীতে ঝোপঝাড়, কচুরিপনা পরিস্কার রাখার দায়িত্ব সিটি করপোরেশনের এটা ঠিক।

এ নিয়ে মন্ত্রণালয়ের দেয়া চিঠিতেও নির্দেশনা রয়েছে। প্রথমে ঝোপঝাড়, কচুরিপনা পরিস্কার করতে জমির মালিককে নোটিশ করা। তাতে কাজ না হলে জরিমানা আদায়ের বিধান রয়েছে। কিন্তু এমন নির্দেশনা থাকার পরও কার্যকর প্রদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না।

নগরের শাহজালাল উপশহরে বসবাসকারী আজিজুর রহমান বলেন, ঝোপঝাড় বা কচুরিপনা পরিস্কার করতে সিলেট সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে আদৌ কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। বছরে একবার ওষুধ ছিটানো হয়। তবে ঝোপঝাড়ে স্প্রে করা হয়না। ফলে সেখান থেকে বেশি মশা জন্মায়|

ফয়সল আলম সিরাজী বলেন, সিটি করপোরেশনের ওষুধে মশা মরে না। মশার প্রজনন কেন্দ্রে ওষুধের ছোঁয়া পর্যন্ত লাগে না। তাই মশার লার্ভা যেমন আছে তেমন থেকে যায়। এই লার্ভা থেকেই আবার মশা জন্মায়। জমির উদ্দিন বলেন, মশা বেশি ডিম দেয় কচুরিপনা, ঝোপঝাড়ে। কিন্তু সেগুলো পরিস্কার করা হয় না বা সেখানে ওষুধ ছিটানো হয়না বলে মশা নিধন হয়না।

সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, বার্ষিক পরিকল্পনার অংশ হিসেবে ৬ হাজার লিটার মশার ওষুধ কেনা হয়েছে। এর মূল্য পড়েছে ভ্যাট টেক্সসহ ৫২ লাখ ২৮ হাজার পাঁচ টাকার।

২৩ ফেব্রুয়ারি থেকে নগরের ১, ২, ৩, ৪, ও ৫ নম্বর ওয়ার্ডে মশার ওষুধ ছিটানো শুরু হয়েছে। এই পাঁচ ওয়ার্ডে প্রথম পর্যায়ে ৬ দিন ও ফগার মেশির দিয়ে ওষুধ ছিটানো হবে। এভাবে প্রতি ওয়ার্ডে পর্যায়ক্রমে ওষুধ ছিটানো হবে।

তবে সমস্যা হল লোকবল সংকট। দৈনিক ভিত্তিতে ৪০ জন শ্রমিক দিয়ে কাজ চলছে। বিষাক্ত ওষুধ ছিটাতে অনেকেই আগ্রহ হয়না। ফলে ওষুধ ছিটানোর কাজে গতি আসছেনা। নগরের কচুরিপনা, ঝোপঝাড় পরিস্কার রাখার দায়িত্ব সিটি করপোরেশনের।

এতে জমি মালিক গাফিলতি করলে জরিমানা করার বিধান থাকার পরও কেন তা করা হচ্ছে প্রশ্নে তিনি বলেন, কথাটি ঠিক। আগামী মার্চ মাসে একাজে হাত দেয়া হবে। ঝোপঝাড় পরিস্কার রাখতে সকলকে সচেতন করা হবে। এতে কেউ অবজ্ঞা করলে তার বিরুদ্ধে জরিমানা আদায়সহ আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।


শেয়ার বোতাম এখানে

সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২১৩
১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
২৮২৯৩০  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin