বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০১:৫৬ পূর্বাহ্ন



সিলেটে মাঠে আওয়ামী লীগ, অপেক্ষায় বিএনপি

সিলেটে মাঠে আওয়ামী লীগ, অপেক্ষায় বিএনপি


আহমেদ জামিল: সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের পর থেকে মাঠে নেই সিলেট বিএনপির সিনিয়র নেতারা। মাঝখানে ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের সমাবেশের সময় কিছুটা চোখে পড়লেও আর দেখা যায়নি তাদের। মামলা-গ্রেফতারের ভয়ে বেশিরভাগ নেতাই রয়েছেন আত্মগোপনে। তছাড়া অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে অনেকে দলীয় কার্যক্রম থেকে বাইরে রয়েছেন। রাজনৈতিক মামলায়ও অনেক নেতা বর্তমানে কারাগারে রয়েছেন। ফলে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় সংসদ নির্বাচনের কার্যক্রম শুরু হলেও দলীয় প্রার্থীরা ঘুরছেন তৃণমূল নেতাকর্মীদের নিয়ে।

 

এ কারণে তৃণমূল নেতা-কর্মীর মধ্যে দেখা দিয়েছে ক্ষোভ ও অসন্তোষ। তবে বিএনপির সিনিয়র নেতারা বলছেন, প্রার্থীতা চুড়ান্ত হলেই মাঠে নামবে বিএনপি। এই অপেক্ষায় রয়েছেন তারা।
এদিকে নির্বাচনে প্রার্থীতা নিয়ে অন্তর্দ্বন্ধ থাকলেও দলীয় প্রার্থীদের নিয়ে মাঠে কাজ করছেন সিলেট আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা। বিভিন্ন সভা সমাবেশে দলীয় প্রার্থীদের সাথে অংশগ্রহণ করছেন তারাও। এছাড়া নির্বাচনে বিজয় নিশ্চিত করতে জেলা ও মহানগর পর্যায়ের সকল নেতাকর্মীদের নিয়ে বৈঠক করছেন তারা। নির্বাচনে নিজেদের ধারবাহিকতা অব্যাহত রাখতে ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে থাকার প্রতিশ্র“তি দিচ্ছেন তারা।

 

এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেটের ৬টি আসনে বিএনপির দলীয় প্রার্থী রয়েছেন ১৪ জন। এর মধ্যে সিলেট-১ আসনে ইনাম আহমদ চৌধুরীর সাথে মাঠে রয়েছেন সিলেট মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি সালেহ আহমদ খসরুসহ ছাত্রদলের কয়েকজন নেতা। অপরদিকে খন্দকার আব্দুল মুক্তাদিরের সাথে সিনিয়রদের মধ্যে মাঠে কাজ করছেন সিলেট মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আজমল বখত সাদেকসহ কয়েকজন।

 

এছাড়া সিলেট-২ আসনের প্রার্থী তাহসিনা রুশদীর লুনা ও ছেলে আবরার ইলিয়াস অর্ণব বর্তমানে সিলেটে না থাকায় স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীরা নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন। সিলেট-৩ আসনে শফি আহমদ চৌধুরী, এম এ হক, ব্যারিস্টার এম এ সালামের সাথেও তেমন কোনো সিনিয়র নেতাদের চোখে পড়েনি। সিলেট-৪ (গোয়াইনঘাট-কোম্পানীগঞ্জ-জৈন্তাপুর) আসনে দিলদার হোসেন সেলিম ও অ্যাডভোকেট সামসুজ্জামান জামান তৃণমুলের কয়েকজন নেতাকর্মীদের নিয়ে বিভিন্ন সভা সমাবেশ করছেন।

 

এছাড়া সিলেট-৫ (কানাইঘাট ও জকিগঞ্জ) আসনে মামুনুর রশিদ মামুন ও শরিফ আহমদ লস্কর এবং সিলেট-৬ (গোলাপগঞ্জ ও বিয়ানীবাজার) আসনে ফয়সাল চৌধুরী, হেলাল খান ও মো. আব্দুর রকিব একইভাবে উপজেলা পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নিয়ে নির্বাচনী কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছেন।

 

সূত্র জানায়, সিসিক নির্বাচনে বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী সদস্য আরিফুল হক চৌধুরী মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর ফের দলীয় কর্মসুচি থেকে গা ডাকা দিয়েছেন। এছাড়া জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের শামীম আত্মগোপনে রয়েছেন। অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে সকল ধরণের কার্যক্রম থেকে বিরত রয়েছেন। তাছাড়া আরো বেশ কয়েকজন নেতাও একই কায়দায় মাঠের বাইরে রয়েছেন। তাছাড়া জেলা ও মহানগর পর্যায়ের বেশ কয়েকজন নেতা কারাগারে রয়েছেন। এর মধ্যে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ রোববার কারামুক্ত হয়েছেন। ফলে সিলেটের শীর্ষ নেতাদের ছাড়াই নির্বাচনের মাঠে রয়েছেন বিএনপির প্রার্থীরা।

 

সিলেট জেলা বিএনপির সভাপতি আবুল কাহের শামীম বলেন, বিএনপির প্রার্থী এখনো চুড়ান্ত করা হয়নি। প্রার্থীতা চুড়ান্ত হলে সবাই মাঠে থেকে কাজ করবেন। এই মুহুর্তে নির্বাচনী কার্যক্রমে মাঠে নামলে পক্ষপাতিত্ব হবে। তাই চুড়ান্ত প্রার্থী ঘোষণা করা হলে নির্বাচনের মাঠে স্বতস্ফুর্তভাবে থাকবেন বলে জানান তিনি।
সিলেট মহানগর বিএনপির সভাপতি নাসিম হোসাইন বেলন, ধানের শীষের প্রার্থী কে ? এখনো তা অনিশ্চিত। প্রার্থী নিশ্চিত হলে মাঠে নামব। তিনি আরো বলেন, আমরা একটি দায়িত্বশীল পদে রয়েছি। এখন কার পক্ষে কাজ করব আর কার পক্ষে করব না। সুতরাং প্রার্থীতা চুড়ান্ত হলেই মাঠে থাকবো।

 

অপরদিকে সিলেটের ৬টি আওয়ামীগের প্রার্থীদের সাথে মাঠে নেমেছেন সিলেট আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতারা। বিশেষ করে সিলেট-১ আসনের প্রার্থী একে আব্দুল মোমেনের সাথে ঐক্যবদ্ধভাবে মাঠে নেমেছেন আওয়ামী লীগের নেতারা। বিভিন্ন সভা-সমাবেশসহ দলীয় সকল কর্মসূচিতে মোমেনের সাথে সিনিয়র নেতাদের মাঠে দেখা যাচ্ছে। নির্বাচন ঘিরে আওয়ামী লীগের বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট লুৎফুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান ও সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদসহ সিনিয়র নেতারা মাঠে রয়েছেন। আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীদের সাথে বিভিন্ন সভা সমাবেশে যোগ দিচ্ছেন তারা।

 

সূত্র জানায়, দলীয় মনোনয়ন পেতে সিলেটে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে কিছুটা অন্তদ্বর্ন্ধ থাকলেও চুড়ান্ত প্রার্থী নির্বাচনের পর সব ভুলে তারা একই প্লাটফর্মে কাজ করছেন। জেলা ও মহানগর পর্যায়ে কর্মী সভা, উঠান বৈঠকসহ বিভিন্ন সভা-সমাবেশ করছেন।

 

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদ বলেন, আমাদের মাঝে অন্তর্দ্বন্ধ বলতে কিছু ছিলনা। যা ছিল তা হচ্ছে সুষ্ঠু প্রতিযোগিতা। একটি বড় রাজনৈতিক দলে এরকম প্রতিযোগিতা থাকতে পারে। তিনি বলেন, নৌকার প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে আমরা মাঠে স্বতস্ফুর্তভাবে কাজ করছি। প্রতীক বরাদ্ধের পর পুরোপুরি প্রচারণা শুরু হবে। এখন আমরা সাংগঠনিক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছি। প্রতিটি ওয়ার্ড থেকে শুরু করে পাড়া মহল্লায় উঠান বৈঠক করছি। বর্তমানে আমরা সবাই একই প্লাটফর্মে থেকে নৌকার পক্ষে কাজ করছি।


সমস্ত পুরানো খবর

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১
১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
১৯২০২১২২২৩২৪২৫
২৬২৭২৮২৯৩০৩১  



themesba-zoom1715152249
© All rights reserved © 2020 Shubhoprotidin